অনুমোদন ছাড়াই ফুলতলার পায়গ্রামকবসা স্কুলের সরকারি গাছ বিক্রিঃ কর্তনকৃত গাছ জব্দ

তাপস কুমার বিশ্বাস, ফুলতলা অফিসঃ সরকারি ছুটির দিনে ভোররাতে অর্ধ লক্ষাধিক টাকা মূল্যের স্কুলের দুটি মেহগনি গাছ চুরি করে বিক্রি’র পর গোপনে কেটে নিয়ে যাওয়ার সময়ে হাতে নাতে আটক করেছে এলাকাবাসি। এ ঘটনা ঘটে শুক্রবার খুলনার ফুলতলার পায়গ্রাম কসবা মাধ্যমিক বিদ্যালয়ে। আটকের খবর পেয়ে পুলিশ চুরিকৃত গাছ জব্দ করে স্থানীয় জনপ্রতিনিধির জিম্মায় রাখে।

পুলিশ ও এলাকাবাসি জানায়, ফুলতলার পায়গ্রামকসবা মাধ্যমিক বিদ্যালয়ে বৃহস্পতিবার থেকে টানা ১১দিনের ছুটি শুরু হয়। স্কুল ম্যানেজিং কমিটির সভাপতি ও সাবেক ইউপি চেয়ারম্যান শেখ রবিউল ইসলাম মন্টু এই সুযোগে স্কুল বাউন্ডারির মধ্যে অবস্থিত দুটি বড় মেহগনি গাছ রেজুরেশন ছাড়াই চুরি করে বিক্রি করে দেন। গতকাল ভোর রাতে অতি গোপনে গাছ দুটি কেটে নছিমনে করে নিয়ে যাওয়ার সময় সচেতন এলাকাবাসি আটক করে। খবর পেয়ে থানা পুলিশের এসআই দর্জি আবু জাফর ঘটনাস্থলে গিয়ে চুরি করে কর্তনকৃত গাছের লগ জব্দ করে স্থানীয় ইউপি সদস্য খলিলুর রহমানের জিম্মায় প্রদানের কথা স্বীকার করেন। ইউপি সদস্য মোঃ খলিলুর রহমান বলেন, ক্যাবলসহ ১৫পিচ লগ তার জিম্মায় রাখা হয়েছে। স্কুল ম্যানেজিং কমিটির সাবেক ও বর্তমান একাধিক সদস্য নাম প্রকাশ না করার শর্তে অভিযোগ করে বলেন, রবিউল ইসলাম মন্টু ইতিপূর্বেও সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের অনুমোদন ছাড়াই আরও দুটি মেহগনি ও ১টি দেবদারু গাছ চুরি করে বিক্রি করেন। এ ব্যাপারে সাবেক চেয়ারম্যান মন্টু গাছ বিক্রির কথা স্বীকার করে বলেন, মাঠের ক্ষতি হচ্ছে বিধায় রেজুরেশন করে গাছ বিক্রি করা হয়েছে। যদি জেলা প্রশাসক ও বন বিভাগের অনুমোদন পাওয়া যায়নি। ইতোমধ্যে গাছ বিক্রির ২১ হাজার টাকা হাতে পাওয়া গেছে। ছুটি পেয়ে গ্রামে চলে যাওয়ায় স্কুলের প্রধান শিক্ষক মোশারফ হোসেনের কাছে বিষয়টি জানতে মুঠো ফোনে একাধিকবার যোগাযোগ করার চেষ্টা করা হলেও অজ্ঞাত কারণে তিনি ফোন রিসিভ করেননি।

আপনার মতামত জানানঃ