এবার গণধর্ষণের শিকার প্রতিবন্ধি কিশোরী

মাদারীপুর : মাদারীপুরে তিন বখাটের ধর্ষণের শিকার হলো বাক প্রতিবন্ধি এক কিশোরী। মামলা না করতে ধর্ষিতার পরিবারকে মেরে ফেলার হুমকি দেয় বখাটে ধর্ষকরা। তাই, ধর্ষণের একদিন পর থানায় এসে মামলা করে চিকিৎসা ও মেডিকেল টেষ্ট করতে মাদারীপুর সদর হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে কিশোরীকে। মামলা হওয়ার পর এক ধর্ষককে গ্রেফতার করেছে পুলিশ।

ওই কিশোরীর পরিবার সূত্রে জানা যায়, গত বৃহস্পতিবার (৮ই আগস্ট) দুপুরে, বাড়ির পাশেই নদীতে গোসল করতে যায় বাকপ্রতিবন্ধি ওই কিশোরী। এসময়, বখাটে তন্ময়, জিসান ও হাসান পথ থেকে মুখ চেপে পাশের জঙ্গলে নিয়ে যায়। সেখানে মুখ ও হাত বেঁধে তাকে ধর্ষণ করা হয়। গোসল করে আসতে দেরি হওয়ায় কিশোরীর মা মেয়েকে খুঁজতে গিয়ে তার মেয়ের ওপর এই অত্যাচার হতে দেখেন। এ দৃশ্য দেখে মা চিৎকার দিলে ধর্ষকরা দৌড়ে পালিয়ে যায়। পালানোর সময় হুমকি দিয়ে যায় মামলা করতে গেলে পরিবারের সবাইকে মেরে ফেলবে। ভয়ে তারা বাড়িতেই থাকে এবং স্থানীয় কয়েকজনকে বিষয়টি জানায়।

স্থানীয়দের পরামর্শে পরদিন শুক্রবার ধর্ষিতার বাবা বাদি হয়ে মাদারীপুর সদর থানায় মামলা করেন। পুলিশ কর্মকর্তাদের পরামর্শে চিকিৎসা ও মেডিকেল টেষ্টের জন্য মাদারীপুর সদর হাসপাতালে তাকে ভর্তি করা হয়। বাক প্রতিবন্ধি মেয়েকে যারা ধর্ষণ করেছে তাদের দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি চান কিশোরীর বাবা মা।

বখাটেদের ভয়ে স্থানীয় কেউ এ বিষয়ে কিছু বলতে রাজি হয়নি। তবে, অভিযুক্ত জিসানের মা ও নানীর দাবি তন্ময় ও হাসান ধর্ষণে জড়িত থাকলেও জিসান সেখানে ছিলোনা।

কিশোরীর চিকিৎসা দেয়া হচ্ছে এবং ধর্ষণের আলামত সংগ্রহ করা হয়েছে বলে জানায় সদর হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ।

আপনার মতামত জানানঃ