কুমুদিনী ট্রাস্টে প্রধানমন্ত্রী ৩১ প্রকল্পের উদ্বোধন

ঢাকা অফিস : কুমুদিনী ট্রাস্টের প্রতিষ্ঠাবার্ষিকীতে যোগ দিয়ে ৩১টি উন্নয়ন প্রকল্পের উদ্বোধন ও ভিত্তিফলক উন্মোচন করলেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।

আজ বৃহস্পতিবার, টাঙ্গাইলের মির্জাপুরে কুমুদিনী কমপ্লেক্সে দানবীর রণদা প্রসাদ সাহা স্মারক স্বর্ণপদক প্রদান অনুষ্ঠানে প্রধানমন্ত্রী এ আহ্বান জানান।

টাঙ্গাইল জেলার মির্জাপুরের প্রত্যন্ত অঞ্চলে দানবীর রণদা প্রসাদ সাহা প্রতিষ্ঠিত কুমুদিনী কমপ্লেক্সে স্বাধীনতার পর কোনও সরকার প্রধান হিসেবে আজ বৃহস্পতিবার সকালে, প্রথম পা রাখেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ছোট মেয়ে শেখ রেহানাকে সঙ্গে নিয়ে ঢাকা থেকে হেলিকপ্টারে সরাসরি কুমুদিনী কমপ্লেক্স পৌঁছান প্রধানমন্ত্রী।

এ সময়, ভারতেশ্বরী হোমসের শিশুরা প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ও বঙ্গবন্ধু কন্যা শেখ রেহানাকে উষ্ণ অভ্যর্থনা জানান। এরপরে দানবীর রণদাপ্রসাদ সাহা স্মারক স্বর্ণপদক প্রদান ও কুমুদিনী ট্রাস্টের প্রতিষ্ঠাবার্ষিকীতে যোগ দেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।

কুমুদিনী ওয়েলফেয়ার ট্রাস্ট অব বেঙ্গল আয়োজিত প্রতিষ্ঠাবার্ষিকীর অনুষ্ঠানের প্রধান অতিথি হিসেবে গণতন্ত্রের মানসপুত্র হোসেন শহীদ সোহরাওয়ার্দী (মরণোত্তর), জাতীয় কবি কাজী নজরুল ইসলাম (মরণোত্তর) এবং শিল্পী শাহাবুদ্দিন ও জাতীয় অধ্যাপক রফিকুল ইসলামকে স্বর্ণ পদক তুলে দেন প্রধানমন্ত্রী।হোসেন শহীদ সোহরাওয়ার্দীর পক্ষে স্বর্ণপদক গ্রহণ করেন বঙ্গবন্ধুর ছোট মেয়ে শেখ রেহানা।

কুমুদিনী ট্রাষ্ট সেবার যে দৃষ্টান্ত স্থাপন করেছে সেটি অনুসরণ করে দেশের বিত্তবানদের মানবতার কল্যাণে এগিয়ে আসার আহ্বান জানান, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।

আওয়ামী লীগ সরকার দেশকে সমৃদ্ধির পথে এগিয়ে নিয়ে যাচ্ছে জানিয়ে, শেখ হাসিনা বলেন, ‘বাংলাদেশ এখন উন্নয়নের রোল মডেল। বিশ্বের কেউ এখন আর আমাদেরকে অবহেলার চোখে দেখে না।’

মির্জাপুরে পৌঁছে প্রধানমন্ত্রী যেসব প্রকল্প উদ্বোধন করেন সেগুলো হলো, ধেরুয়া রেলওয়ে ওভার পাস; ৩৩/১১ কেভি গ্রিড সাবস্টেশন; রাবনা বাইপাস; ৩৩/১১ কেভি ইনডোর উপকেন্দ্র; ইন্দ্রবলেতা, পোড়াবাড়ী, বাসাইল, দেলদুয়ার নাগরপুর উপজেলায় শতভাগ বিদ্যুতায়ন, সখিপুর উপজেলা কমপ্লেক্সের প্রশাসনিক ভবন সম্প্রাসারণ ও হলরুম উদ্বোধন, কালিহাতি (ধুনাইল)-সয়ার হাট উদ্বোধন; মির্জাপুর উপজেলা কমপ্লেক্সের সম্প্রাসারিত ভবন উদ্বোধন; টাঙ্গাইল প্রেস ক্লাবের বঙ্গবন্ধু ভিআইপি অডিটোরিয়ামের উদ্বোধন; মির্জাপুর উপজেলা মুক্তিযোদ্ধা কমপ্লেক্স উদ্বোধন এবং উপজেলা প্রাণিসম্পদ উন্নয়ন কেন্দ্রের উদ্বোধন।

এছাড়া যেসব প্রকল্প ভিত্তি পেল সেগুলো হলো, কুমুদিনী ওয়েলফেয়ার ট্রাস্টের ভারতেশ্বরী হোমস মাল্টিপারপাস হল এবং ইনস্টিটিউট অব পোস্ট গ্র্যাজুয়েট নার্সিং কমপ্লেক্স। এলেঙ্গা-জামালপুর জাতীয় মহাসড়ক (এন-৪) প্রশস্তকরণ প্রকল্প (টাঙ্গাইল অংশ), এলেঙ্গা-ভূঞাপুর-চরগাবসারা সড়কে ১০টি ক্ষতিগ্রস্ত সেতু ও একটি কালভার্ট পুঃনির্মাণ এবং আঞ্চলিক মহাসড়কের উন্নয়ন প্রকল্পের ভিত্তি স্থাপন, টাঙ্গাইল-দেলদুয়ার জেলা মহাসড়ক, করটিয়া (ভাতকুরা)-বাসাইল জেলা সড়ক এবং পাকুল্লা-দেলদুয়ার-এলাসিন অংশের প্রশস্তকরণ প্রকল্প, কালীহাতি উপজেলা কমপ্লেক্সের প্রশাসনিক ভবন সম্প্রসারণ ও হলরুম নির্মাণ, করটিয়াপাড়া সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় নির্মাণ, বাতেন বাহিনী মুক্তিযুদ্ধ যাদুঘর, রসুলপুর ইউনিয়ন ভূমি অফিস, লোকেরপাড়া ইউনিয়ন ভূমি অফিস নির্মাণ প্রকল্প।

এছাড়া দেলদুয়ার উপজেলায় ফায়ার সার্ভিস ও সিভিল ডিফেন্স কার্যালয় নির্মাণ, জেলা সদর মডেল মসজিদ নির্মাণ, টাঙ্গাইল সদর উপজেলা মডেল মসজিদ নির্মাণ, বাসাইল উপজেলা মডেল মসজিদ নির্মাণ, টাঙ্গাইল সদর উপজেলা ভূমি অফিস নির্মাণ, সখিপুর উপজেলা  ভূমি অফিস নির্মাণ, মধুপুর উপজেলা ভূমি অফিস নির্মাণ, মির্জাপুর উপজেলা ভূমি অফিস নির্মাণ এবং টাঙ্গাইল সার্কিট হাউজের নতুন ভবন নির্মাণ কাজের উদ্বোধন করেছেন প্রধানমন্ত্রী।

আপনার মতামত জানানঃ