কেশবপুরে স্কুল ছাত্র নির্যাতন : বিভিন্ন দপ্তরে লিখিত অভিযোগ

রাজীব চৌধুরী, কেশবপুরঃ যশোর জেলার কেশবপুর উপজেলার ০১ নং ত্রিমোহিনী ইউনিয়নে অবস্থিত এস.এস.জি বরণডালী মাধ্যমিক বিদ্যালয়ে ছাত্র নির্যাতনের অভিযোগ উঠেছে । এব্যাপারে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তার নিকট লিখিত অভিযোগও হয়েছে । অভিযোগ সূত্রে জানা গেছে কেশবপুর উপজেলার ০১ নং ত্রিমোহিনী ইউনিয়নের চাঁদড়া গ্রামের মোছাঃ হোসনেআরার পূত্র শাহরিয়ার হোসেন সুমন (১৪) এস.এস.জি বরণডালী মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের কারিগরী শাখার নবম শ্রেণীর একজন ছাত্র । সে তার নিজ বাড়ি চাঁদড়া হইতে বিদ্যালয়ে যাওয়া আসা করে । গত ০৬/০২/২০২০ ইং তারিখ বৃহস্পতিবারে বিদ্যালয় হইতে বাড়ি ফেরার পথে দেখে মির্জানগর গ্রামের নেদু শেখের ছেলে গোপালপুর বাজারের (মির্জানগর) ঔষধ ব্যবসায়ী নজরুল ইসলাম (৩৪) শাহরিয়ার হোসেন সুমনের সহপাঠী আশিকুর রহমান (১৪), রফিকুল ইসলাম (১৪) সোহাগ (১৪) কে লাঠি দিয়ে নির্মম ভাবে মারতে ছিল । এই দেখে সুমন তার সহপাঠীদের রক্ষা করার জন্য ঔষধ ব্যবসায়ী নজরুল ইসলামের নিকট মারার কারন জিজ্ঞাসা করাতে নজরুল ইসলাম ক্ষিপ্ত হয়ে সুমনকেও লাঠি দ্বারা বেধড়ক মারপিট করে । এক পর্যায়ে সুমন নজরুল ইসলামের মারের হাত থেকে রক্ষা পেতে তার পা ধরে না মারার অনুরোধ করে এবং বলে আমাকে আর মারবেন না, ০১ নং ত্রিমোহিনী ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান আনিছুর রহমান আমার কাকু হয় । চেয়ারম্যানের নাম বলাতে ঔষধ ব্যবসায়ী নজরুল ইসলাম চেয়ারম্যান আনিছুর রহমানের নামে অকথ্য ভাষায় গালিগালাজ করতে থাকে এবং সুমন ও তার সহপাঠীদেরকে গুরুতরভাবে আহত করে চলে যায় । আহত ছাত্রদের ডাক চিৎকারে আশে পাশে থাকা লোকজন ও গ্রাম পুলিশ সুজ্জাত আলী তাদেরকে উদ্ধার করে ত্রিমোহিনী বাজারে এনে প্রাথমিক চিকিৎসা দেয় । কিন্তু সুমন ও রফিকুলের শারিরীক অবস্থার অবনতি হওয়াতে তাদেরকে কেশবপুর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করা হয় । এঘটনায় আহত স্কুল ছাত্র শাহরিয়ার হোসেন সুমনের মা তার পুত্রের উপর নির্যাতনকারী ঔষধ ব্যবসায়ী নজরুল ইসলামের দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির জন্য বিভিন্ন দপ্তরে লিখিত অভিযোগ করেছেন বলে জানান।

আপনার মতামত জানানঃ