কোটালীপাড়ায় সুকান্ত মেলা শুরু

গোপালগঞ্জ প্রতিনিধি : গোপালগঞ্জের কোটালীপাড়ায় বৃহস্পতিবার থেকে শুরু হয়েছে চার দিনব্যাপী কবি সুকান্ত মেলা। সংস্কৃতি বিষয়ক মন্ত্রণালয় ও গোপালগঞ্জ জেলা পরিষদ এ মেলার আয়োজন করেছে। উপজেলার আমতলী ইউনিয়নের উনশিয়া গ্রামে কবির পৈত্রিক ভিটায় এ মেলা অনুষ্ঠিত হচ্ছে।
কলকাতা ও বাংলাদেশের বিভিন্ন শিল্পীর অংশ গ্রহণে এ মেলায় সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান হওয়ার কথা রয়েছে। এই মেলা ঘিরে কোটালীপাড়া উপজেলা ব্যাপী বইছে উৎসবের আমেজ।
উপজেলা প্রশাসন ও আইন শৃংখলা রক্ষাকারী বাহিনী কবির বাড়িটিতে সার্বক্ষণিক মনিটরিং করছে। অপর দিকে, এই মেলাকে কেন্দ্র করে নবরুপে সেজেছে কবির বাড়ি ও আশপাশের এলাকা।
কোটালীপাড়া উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান মুজিবুর রহমান হাওলাদার বলেন, এ মেলাকে ঘিরে উপজেলা ব্যাপী বইছে উৎসবের আমেজ। আমরা উপজেলা পরিষদ থেকে এ মেলায় সার্বিক সহযোগিতা করে আসছি। আগামীতে এ মেলা যাতে অব্যাহত থাকে সে জন্য আমি কাজ করে যাব।
জেলা পরিষদ সদস্য নজরুল ইসলাম হাজরা মন্নু বলেন, দীর্ঘ দিন ধরে আমরা কবির জন্ম ও মৃত্যু বার্ষিকী রাষ্ট্রীয় ভাবে পালনের জন্য চেষ্টা করে আসছি। আমাদের চেষ্টা কিছুটা হলেও সার্থক হয়েছে। এ বছর অনেক আনন্দ মুখর পরিবেশে মেলাটি উদযাপন করা হচ্ছে।
কবি সুকান্ত স্মৃতি সংসদের সভাপতি শেখ আয়নাল হোসেন বলেন, আমি চাইব সরকার কবির স্মৃতিকে ধরে রাখার জন্য যথাযথ ব্যবস্থা গ্রহণ করবেন। বিশেষ করে কবির পৈত্রিক ভিটায় একটি আধুনিক পর্যটন কেন্দ্র ও একটি আধুনিক লাইব্রেরি গড়ে তুলে আগামী প্রজন্মের কাছে কবিকে তুলে ধরবেন।
কোটালীপাড়া উপজেলা নির্বাহী অফিসার জিল্লাল হোসেন বলেন, উপজেলা পরিষদ ও স্থানীয় সুধী জনদের সহযোগিতায় সংস্কৃতি বিষয়ক মন্ত্রণালয় ও জেলা পরিষদ এ মেলা আয়োজনের উদ্যোগ নিয়েছে। আমি চাইব প্রশাসন ও এলাকাবাসী যেন আগামীতে কবির স্মৃতি ধরে রাখার জন্য এ ধরনের গ্রামীণ মেলার আয়োজন করেন। এ ছাড়া কবি সুকান্ত ভট্টাচার্যের আদর্শকে বর্তমান যুব সমাজের মাঝে ছড়িয়ে দেওয়ার জন্য আমাদের নানা ধরনের উদ্যোগ গ্রহণ করা উচিৎ।
১৯২৬ সালের ১৫ আগস্ট কবি সুকান্ত ভট্টাচার্য কলকাতার কালীঘাটের মহিমা হালদার স্ট্রিটে মামার বাড়িতে জন্ম গ্রহণ করেন। তার বাবার নাম নিবারণ ভট্টাচার্য। মাতা সুনীতি দেবী। ১৯৪৭ সালের ১৩ মে মাত্র ২১ বছর বয়সে মৃত্যু বরণ করেন তিনি। ছাড়পত্র, ঘুম নেই, পূর্বাভাস, অভিযান, হরতাল তার উল্লেখ যোগ্য কাব্য গ্রন্থ। কবির প্রতিটি কবিতায় অনাচার ও বৈষম্যের বিরুদ্ধে প্রতিবাদ ধ্বনিত হয়েছে।

আপনার মতামত জানানঃ