তালায় ইউপি সদস্য আনছার আলী ৬ মাস পর খুলে নিল সোলার

সেলিম হায়দার, তালা : সাতক্ষীরা তালায় টিআর কর্মসূচীর সোলার হোম সিস্টেম প্রকল্পের সোলার প্রদানের ৬মাস পর তা খুলে নিয়ে ছেলের বাড়িতে স্থাপন করেছেন স্থানীয় ইউপি সদস্য আনছার আলী গাজী । এ ঘটনায় এলাকায় ব্যাপক প্রতিক্রিয়ার সৃষ্টি হয়েছে।

অভিযোগে জানা গেছে সরকারের দূর্যোগব্যবস্থাপনা শাখার ২০১৭-২০১৮ অর্থ বছরের গ্রামীন অবকাঠামো রক্ষণা-বেক্ষণ (টিআর) কর্মসূচীর আওতায় তালার মাগুরা ইউনিয়নের ৭নং ওয়ার্ড সদস্য আনছার আলী গাজী ৬মাস পূর্বে জনপ্রতি ২ হাজার টাকা করে উৎকোচ নিয়ে  বিভিন্ন জনকে সোলার হোম সিস্টেম প্রকল্পের সোলার প্রদান করেন। যার ধারাবাহিকতায় স্থানীয় বালিয়াদহ গ্রামের মৃত জাহান আলী মোড়লের ছেলে রবিউল ইসলাম মোড়লকেও একটি সোলার প্রদান করেন। সমপ্রতি ইউপি সদস্য আনছার আলী গাজী ঐ বাড়ি থেকে সোলারটি খুলে নিয়ে তার নিজের ছেলে আবু শিরানের ঘরে লাগিয়েছেন।

সূত্র জানায় এসময় ঐ বাড়িতে  কেউ উপস্থিত ছিলেন না। পরে রবিউল মোড়ল বাড়ি ফিরে সোলার দেখতে না পেয়ে সংশ্লিষ্ট ইউপি সদস্য’র বাড়িতে গেলে তিনি তাকে জানান,চেয়ারম্যানের নির্দেশে সোলারটি তিনি খুলে এনেছেন।এব্যাপারে মাগুরা ইউপি চেয়ারম্যান গনেশ দেবনাথ জানান,তিনি ইউপি সদস্যকে কোন সোলার খুলে নেওয়ার নির্দেশ দেননি।

সরেজমিনে গেলে অভিযুক্ত ইউপি সদস্য আনছার আলী প্রতিনিধিকে জানান,সোলারটি তার ছেলে আবু শিরানের নামে বরাদ্ধ থাকায় তিনি সোলারটি খুলে আবু শিরানের বাড়িতে লাগিয়েছেন।

জানাগেছে, ২০১৭-২০১৮ অর্থ বছরের গ্রামীন অবকাঠামো রক্ষণা-বেক্ষণ টিআর কর্মসূচীর আওতায় সোলার সিস্টেম এ সোলার উপজেলা পরিষদ ভিত্তিক ১ম পর্যায়ে সাধারণ খাতে গত ১নভেম্বর ১৭ জেলা পরিষদের স্বারক নং ৫১.০১.৮৭০০.০০০.১৪.০০৩.১৬-(২৭) ও সেখান থেকে উপজেলা পরিষদ গত ২৬ নভেম্বর ১৭ তারিখে৫১.০১.৮৭৯০.০০০.১৪.০৭১.১৭-২৪০ নম্বার স্বারকে ইউপি চেয়ারম্যানদের মাধ্যমে ঐ প্রকল্পের আওতায় সোলার প্রদান করেন। ঘটনায় এলাকায় তীব্র প্রতিক্রিয়ার সৃষ্টি সৃষ্টি হয়েছে।

ভুক্তভোগী রবিউল ইসলামসহ এলাকাবাসী জানায়,প্রায় ৬ মাস পূর্বে ২ হাজার টাকা করে নিয়ে সোলারগুলি প্রদান করেন। রবিউলের প্রশ্ন সোলারটি মেম্বারের ছেলেল নামে বরাদ্ধ হলে গত ৬ মাস ধরে তা তার ঘরে বসানো ছিল কিভাবে ? ইত্যাদি সব নানান প্রশ্ন ঘুর পাক খাচ্ছে এলাকাবাসীর মনেও।

এ ব্যপারে উপজেলা প্রকল্প বাস্তবায়ন কর্মকর্তা মোঃ মাহফুজুর রহমান জানান,বিষয়টি আমার জানা নেই ,তবে তদন্ত পূর্বক ব্যবস্থা গ্রহন করা হবে।

আপনার মতামত জানানঃ