দাকোপ বটিয়াঘাটায় আমনের বাম্পার ফলন হলেও কৃষকের মন ভাল নেই

গোলাম মোস্তফা খান ,দাকোপ : খুলনার দাকোপ-বটিয়াঘাটা উপজেলার প্রায় সকল এলাকায় আমনের বাম্পার ফলন হলেও বাজারে ধানের মুল্য তুলনামূলক কম থাকায় কৃষকের মুখে হাসি নেই।ধান চাষে বর্তমানে খরচ অনেক বেশি সে তুলনায় ইরিধান সারা বছর বলতে গেলে পানির দামে বিকরি হয়েছে বর্তমানে বাজারে উঠা ইরির দাম আরও কম হওয়ায় এবং আগামিতে ইরি,মোটা,বড়ান কোন ধানের দাম বাড়ার সম্ভাবনা কম থাকায় কৃষকদের মন ভাল নেই।মাঠে সকল জাতের ধানের বাম্পার ফলন হবে বলে মাঠ দেখে আশা কর যাচ্ছে। দাকোপেরখলিসা, চুনকুড়ি,পশ্চিমবাজুয়া, লাউডোব, বানিশান্তা, কামারখোলা, তিলডাংগা, সুতারখালি, কৈলাশগনজ, বটবুনিয়া, খাটাইল, খোনা, লক্ষীখোলা, আনন্দনগর
বটিয়াঘাটারআমতলা, গোপালখালি, খড়িয়া ,ফুলতলা, বুনারআবাদ, সুরখালি এলাকায় ঘুরে ঘুরে দেখা যায় সকল এলাকায় মাঠের পর মাঠ জুড়ে সোনালী ধানে ভর্তি আর পাকা ও পাকা প্রায় ধানের মৌ মৌ ঘ্রান বাতাসে বইছে সর্বএই। যা দেখলে বা মাঠের কাছে একটু দাড়ালে সত্যিই মন ভরে যায় ।তবে ধানের ফলন দেখে সকলের মন ভরলেও কৃষককূল খুব বেশি খুশি হতে পারছে না।বটিয়াঘাটার ডেউয়াতলা গ্রামের কৃষক মনিরুজ্জামান মনি জানান চাষ করতে,রোপন,ওষুধ,কর্তন,মাড়াই সব মিলিয়ে বর্তমানে খরচ পড়ে অনেক সে তুলনায় বাজারে ধানের দাম কম এজন্য বর্গা করা জমিতে অমাদের কোন লাভ হবে না ফলন ভাল এজন্য হয়তো সমান সমান হবে।দাকোপের পশ্চিম বাজুয়ার কৃষক হরষিত মন্ডল,শিব পদ রায়,হরিপদ মন্ডলের সাথে কথা হয় তাদের সকলের একই কথা ইরিধান লাগাই,এ ধান চাষে খরচ বেশি অবার বাজারে দাম নেই, ফলন এবার সবচেয়ে ভাল তবে ৬/৭ শ টাকা মণ হলে তো বাচা যায় না, কি বিকরি করে বাজার করে খাবো।চালনাবাজারের মিল মালিক নুরনবী ৪১,৪৯,১১ জাতের ইরি অতি সম্প্রতি বাজারে উঠেছে যা ৫৫০টাকা মন কিনেছি বর্তমানে পুরাতন গতবছরের ইরি বাজাওে মুল্য ৭০০টাকা এই ইরি গুবছর কাচা অবস্থায় দাম ছিল ৮৫০ থেকে৯০০টাকা পর্যন্ত । সব মিলিয়ে অনুকুল পরিবেশ ও মিষ্ঠি পানির ভাল সরবরাহ থাকায় ধানের বাম্পার ফলন সকল জমিতে সকল এলাকায় বলে জানা য়ায়। এ অবস্থায় ১৫/২০ দিন বাদে পুরা ধান কাটা ও কেনা বেচা মৌসুম,মৌসুমে যদি এবার মুল্য বৃদ্ধি পায় কৃষকদের মুখেও হাসি ফুটতে পারে বলে সকলে মনে করছে।

আপনার মতামত জানানঃ