পাইকগাছায় কালবৈশাখী তান্ডব : অসহায়দের পাশে এমপি বাবু

স্নেহেন্দু বিকাশ, পাইকগাছা : খুলনার পাইকগাছায় কালবৈশাখীর শিলাবৃষ্টি ও ঝড়ের তান্ডবে হাজারো আধা-পাকা,কাঁচা ঘরবাড়ী, স্কুল-মাদ্রাসা, ব্যবস্যা প্রতিষ্টান বিধ্বস্ত ও ফসল বিনষ্টের ঘটনায় ক্ষয় -ক্ষতির নিরুপনের চেষ্টা করছে সংশ্লিষ্ট প্রসাশন। এদিকে খুলনা-৬ (পাইকগাছা-কয়রা) এমপি আকতারুজ্জামান বাবু বিপদগ্রস্থ মানুষের পাশে দাঁড়ানোর ঘোষনা দিয়ে বলেন, সরকার ঝড়ে ক্ষতিগ্রস্থদের জন্য পর্যাপ্ত চাল, ঢেউটিন, শুকনো খাবার সহ অন্যান্য উপকরণ বরাদ্দ দিয়েছেন। তিনি বৃহস্পতিবার সকালে দুর্যোগ, ত্রান ও পুনর্বাসন মন্ত্রনালয়ের সচিবের সাথে সাক্ষাত করে এ প্রতিনিধিকে জানান, এসব উপকরণ জেলা প্রসাশক (ডিসি) মাধ্যমে সংশ্লিষ্ট প্রসাশন ও জনপ্রতিনিধিরা বিতরণ করবেন। একই সাথে তিনি প্রসাশনের সাথে-সাথে আ’লীগের দলীয় নেতা-কর্মীদের অসহায় মানুষের পাশে দাড়ানোর নির্দেশনা দিয়েছেন।

সরেজমিনে ঘুরে জানা গেছে, মঙ্গলবার সন্ধ্যায় কালবৈশাখী শিলাবৃষ্টি ও ঝড়ের তান্ডবে এ জনপদের হাজারো আধা-পাকা, কাঁচা ঘরবাড়ী, বহু স্কুল মাদ্রাসা, ব্যবসা প্রতিষ্টান বিধ্বস্ত হয়েছে। ফসলের ক্ষেত হয়েছে লন্ডভন্ড। এ ঘটনায় ইউএনও জুলিয়া সুকায়না, এসিল্যান্ড মোঃ আব্দুল আউয়াল ও ইউপি চেয়ারম্যানরা ক্ষতিগ্রস্থদের পাশে গিয়ে সহমর্মিতা জানিয়ে সাহায্য সহযোগিতার আশ্বাস দিয়েছেন। লক্ষ্মীখোলার বৃদ্ধ রজত কেরানী বলেন, ঝড়ে তাঁর বসতি ৫টি আধা-পাকা ঘর সম্পুর্ন বিধ্বস্থ হয়ে খোলা আকাশের নিচে বসবাস করছেন। লস্কর ইউপি চেয়ারম্যান কেএম আরিফুজ্জামান তুহিন জানান, ঝড়ে তাঁর বাড়ীতে স্থাপিত পাকা টানসেডের ছাউনির এবতেদায়ী মাদ্রাসা, খড়িয়া মিলনবীথি ও নবারুন মাধ্যমিক বিদ্যালয় সহ বহু মানুষের ঘরবাড়ী বিধ্বস্থ হয়ে ব্যাপক ক্ষতি হয়েছে। উপজেলা প্রকল্প বাস্তবায়ন কর্মকর্তা আরিফ হোসেন বলেন, ইউপি চেয়ারম্যানরা ক্ষয়-ক্ষতি নিরুপন করে তালিকা তৈরীর কাজ করছেন বলে জানিয়েছেন।

আপনার মতামত জানানঃ