প্রধানমন্ত্রীকে স্বাগত জানাতে প্রস্তুত খুলনা

* ১১০ ফুট দৈর্ঘ্যরে নৌকা’র আদলে মঞ্চ তৈরি
* প্যানা ফেস্টুন তোরণে ছেয়ে গেছে নগরী
* অন্তত ১০ লাখ লোক সমাগমের টার্গেট

খুলনা : আগামী ৩ মার্চ শনিবার খুলনা সফরে আসছেন প্রধানমন্ত্রী ও বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের সভানেত্রী শেখ হাসিনা। এদিন তিনি খুলনা, মোংলা, বাগেরহাট ও সাতক্ষীরার শতাধিক উন্নয়ন প্রকল্পের উদ্বোধন ও ভিত্তি প্রস্তর স্থাপন করবেন। পরে দুপুর দেড়টায় খুলনার সার্কিট হাউজ ময়দানের জেলা ও মহানগর আওয়ামী লীগ আয়োজিত জনসভায় প্রধান অতিথির বক্তব্য রাখবেন। প্রধানমন্ত্রীর খুলনায় জনসভা উপলক্ষে ১১০ ফুট দের্ঘ্য ও ৩০ ফুট প্রস্থের নৌকা আকৃতির জনসভামঞ্চ তৈরি করা হচ্ছে। গতকাল বুধবার পর্যন্ত নান্দনিক দলীয় প্রতীকের এ মঞ্চের ৮০ ভাগ কাজ শেষ হয়েছে। বাকি ২০ ভাগ আজ বৃহস্পতিবার শেষ হবে বলে আওয়ামী লীগ সূত্র জানিয়েছে।
আওয়ামী লীগ সূত্র জানায়, বিশাল নৌকা আকৃতির সভা মঞ্চে ২৫০ জন মানুষের আসন থাকবে। প্রধানমন্ত্রী, সভার সভাপতি, প্রধানমন্ত্রীর উপদেষ্টা, মন্ত্রী পরিষদের সদস্য, দক্ষিণ জনপদের দলীয় সংসদ সদস্যরা, কেন্দ্রীয় নেতারা, সহযোগী সংগঠনের জেলা পর্যায়ের নেতারা এসব আসনে বসবেন।
৩ মার্চ খুলনা সার্কিট হাউস ময়দানের জনসভায় অন্তত ১০ লাখ মানুষের জমায়েতের কথা ভাবছে স্থানীয় আওয়ামী লীগ। যার অর্ধেকই থাকবে নারী। যারা সার্কিট হাউজ মাঠে অবস্থান করবেন। এছাড়া প্রায় ৪ হাজার মুক্তিযোদ্ধা থাকবেন জনসভায়।
এদিকে খুলনায় প্রধানমন্ত্রীর জনসভাকে ঘিরে দলীয় নেতা-কর্মীরা উজ্জীবিত হয়ে উঠেছেন। খুলনা নগরী ও জেলায় বিরাজ করছে সাজ সাজ রব। ইতোমধ্যেই বিপুল সংখ্যক তোরণ, ব্যানার ও ফেস্টুনে ছেয়ে গেছে নগরীর অধিকাংশ স্পট। এসব ব্যানার, ফেস্টুন ও তোরণে প্রধানমন্ত্রীকে স্বাগত ও শুভেচ্ছা জানানোর নামে আত্মপ্রচার করছেন আওয়ামী লীগের নেতাকর্মীরা। সার্কিট হাউজ ময়দানের জনসভা ঘিরে চলছে নানামুখী প্রস্তুতি। দিনরাত সমানতালে চলছে প্রচারণা। হচ্ছে দফায় দফায় বৈঠক। থেমে নেই প্রচার মিছিল। নৌকা আকৃতির ইজিবাইকে চলছে মাইকিং।
গতকাল বুধবার সার্কিট হাউজের মঞ্চ পরিদর্শন করেন নগর আওয়ামী লীগের সভাপতি ও সাবেক মেয়র আলহাজ্ব তালুকদার আব্দুল খালেক এমপি, জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি ও জেলা পরিষদ চেয়ারম্যান শেখ হারুনুর রশিদ, কেন্দ্রীয় নেতা এস এম কামাল হোসেন ও নগর আ’লীগের সাধারণ সম্পাদক আলহাজ্ব মিজানুর রহমান মিজান এমপি।
খুলনা মহানগর আওয়ামী লীগের সভাপতি আলহাজ্ব তালুকদার আব্দুল খালেক এমপি বলেন, স্মরণকালের সর্ববৃহৎ লোকসমাগম হবে শনিবারের জনসভায়। পুরো খুলনা শহরই হবে জনসভাস্থল। সভাকে কেন্দ্র করে উৎসবের নগরীতে পরিণত হয়েছে খুলনা। আর নেতাকর্মীরাও উজ্জীবিত হয়ে উঠেছে।
নগর আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক আলহাজ্ব মিজানুর রহমান মিজান এমপি বলেন, শেখ হাসিনা সরকার অবহেলিত খুলনার উন্নয়নের অত্যন্ত আন্তরিক। তারই ধারাবাহিতকায় পদ্মাসেতু আজ দৃশ্যমান। মোংলা বন্দরের আধুনিকীকরণ, খুলনা-মোংলা রেললাইন, ওয়াসার সর্ববৃহৎ পানি প্রকল্প, আধুনিক রেলস্টেশনসহ ৪২ প্রকল্প প্রায় শেষ হয়েছে। আরো অর্ধশতাধিক প্রকল্প বাস্তবায়নাধীন রয়েছে। একাধিক স্কুল-কলেজ সরকারিকরণ ও অবকাঠামোগত উন্নয়ন করা হয়েছে।

আপনার মতামত জানানঃ