বদলে যাওয়া পুলিশের সচেতনতামূলক সভা

আজগর হোসেন ছাব্বির, দাকোপ : “মুজিব বর্ষের শ্লোগান পুলিশ হবে জনতার” সেই বদলে যাওয়া পুলিশের আয়োজনে সমাজ সচেতনতামূলক সভা অনুষ্ঠিত হয়েছে।
মঙ্গলবার সকালে খুলনার দাকোপ উপজেলা সদর চালনা পৌরসভা মিলনায়তনে সব শ্রেনী পেশার মানুষের উপস্থিতিতে সভাটি অনুষ্ঠিত হয়। মানুষের মাঝে যখন পুলিশের প্রতি এমন বদ্ধমুল ধারনা সৃষ্টি হয়েছে যে, তারা আইনের রক্ষক হয়ে ভক্ষক, অপরাধীদের সুকৌশলে প্রতিপালন, ঘুষ দূণীতির মাধ্যমে দূর্বলের উপর সবলের অন্যায় অত্যাচারে সহযোগীতা করা পুলিশের অধিকাংশ সদস্যের বিরুদ্ধে এমন অসংখ্য অভিযোগ। সমাজের প্রতিটিস্থরে সাধারন মানুষের পুলিশ বাহিনীর প্রতি চরম আস্থাহীনতা সৃষ্টি হয়েছে তখন পুলিশের প্রতি জনতার আস্থা ফিরিয়ে আনতে বর্তমান সরকার আধুনিক সেবামূখী পুলিশ বাহিনী গঠনে নিয়েছে নানামূখী উদ্যোগ। চলমান মুজিব বর্ষে সেই পুলিশ মাঠে নেমেছে সমাজ থেকে মাদক, বাল্য বিবাহ আর ঘুষ দূর্ণীতি দূর করতে। তারই অংশ হিসেবে খুলনার দাকোপ থানা পুলিশ গত মঙ্গলবার থেকে সর্ব সাধারনের মাঝে জনসচেতনতামূলক সভা শুরু করেছে। তারা সবাই উপস্থিত সব শ্রেনীপেশার মানুষের মাঝে এমন বার্তা ছড়িয়ে দিচ্ছেন যে, পুলিশকে ভয় পাওয়ার কিছু নেই। যে কোন অভিযোগ বা সমস্যার বিষয় কোন মাধ্যম ছাড়াই পুলিশের কাছে বলা বা সহযোগীতা চাওয়া যাবে। সমাজ থেকে সকল ধরনের মাদকদ্রব্য নির্মূল, বাল্য বিবাহ প্রতিরোধে পুলিশকে সহযোগীতা করতে সভায় সকলের প্রতি আহবান জানানো হচ্ছে। একই সাথে থানায় সম্পূর্ন বিনা পয়সায় সকল ধরনের সেবা পাওয়ার নিশ্চয়তার কথা বলা হচ্ছে। পর্যায়ক্রমে তারা উপজেলার সকল ইউনিয়নে এমন উন্মুক্ত সভা করার কর্মসূচী হাতে নিয়েছে। জানা গেছে ১২ ফেব্রুয়ারী পানখালী, ১৩ ফেব্রুয়ারী দাকোপ, ১৫ ফেব্রুয়ারী কৈলাশগঞ্জ, ১৭ ফেব্রুয়ারী বাজুয়া, ১৮ ফেব্রুয়ারী সুতারখালী, ১৯ ফেব্রুয়ারী কামারখোলা, ২০ ফেব্রুয়ারী লাউডোপ, ২২ ফেব্রুয়ারী বানীশান্তা এবং ২৪ ফেব্রুয়ারী তিলডাঙ্গা ইউনিয়নে অনুরুপ সভা অনুষ্ঠিত হবে। চালনা পৌরসভার প্যানেল মেয়র আব্দুল গফুর সানার সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত সভায় দাকোপ থানার ওসি (তদন্ত) দেবাশীষ দাস, এস আই পলাশ কুমার দাস, এস আই আবু জাফর, সকল পৌর কাউন্সিলর, পৌরসভার কর্মকর্তা কর্মচারী, ব্যবসায়ী, শিক্ষক, সাংবাদিক, শ্রমজীবি মানুষের প্রতিনিধি উপস্থিত থেকে আলোচনা শোনেন এবং নিজেদের মতামত তুলে ধরেন। এ ব্যাপারে দাকোপ থানার অফিসার ইনচার্জ সফিকুল ইসলাম চৌধুরী ইতিমধ্যে থানাকে দালাল ও ঘুষ দূর্ণীতিমুক্ত করার দাবী করে বলেন, এখন আইনের সহায়তা চাইতে সাধারণ মানুষের কোন তদ্বিরকারক নিয়ে আসার প্রয়োজন নেই। পুলিশের কোন সদস্য যদি অর্থ দাবী করেছে এমন অভিযোগ পেলে তার বিরুদ্ধে কঠোর ব্যবস্থা নেওয়া হবে। তিনি যে কোন আইনী সহায়তার প্রয়োজনে সর্ব সাধারণকে পুলিশের প্রতি আস্থা রাখতে আহবান জানিয়েছেন।

আপনার মতামত জানানঃ