মোল্লাহাটে নব-বধু’কে হত্যার অভিযোগ

মোল্লাহাট (বাগেরহাট) প্রতিনিধি : মোল্লাহাটে বিয়ের একমাস পার না হতেই শারমিন নামের এক নববধু’কে মিথ্যা সন্দেহ আর সীমাহীন অত্যাচার নির্যাতন ও গলা টিপে/শ্বাস রোধে হত্যার অভিযোগ পাওয়া গেছে স্বামী ও শশুর কুলের লোকদের বিরুদ্ধে। উপজেলার ছোট কাচনা গ্রামে স্বামীর বাড়ীতে গত শনিবার সন্ধায় নির্মম জঘণ্যতম ওই ঘটনা ঘটে। হত্যা/রহস্য জনক মৃত্যুর শিকার শারমিন একই উপজেলার কাচনা গ্রামের আহম্মদ সিকদারের মেয়ে। গত ২৯ জানুয়ারী উক্ত শারমিনের বিয়ে হয় ছোট কাচনা গ্রামের খোকা শেখের ছেলে বাশার শেখ’র সঙ্গে।
শারমিনের মা-বাবা ও বোন জানান-তাদের প্রতিবেশী ফোরকান কাজীর কলেজ পড়–য়া মেয়েকে শারমিন’র ভাইয়ের সঙ্গে তিন লক্ষ টাকাসহ বিয়ে দেয়ার জোর প্রস্তাব দেয়া হয়। উক্ত বিয়েতে রাজী না হওয়ায় ফোরকান কাজী ও তার পক্ষ থেকে শারমিন নম্পর্কে তার স্বামীর নিকট মিথ্যা বানোয়াট কু-রুচিকর/বাজে তথ্য দেয়া হয়। যে কারনে স্বামী বাশার সন্দেহ করাসহ শারমিনকে অথ্যাচার নির্যাতন শুরু করে। ঘটনার দিন মিথ্যা সন্দেহের বশে গাল-মন্দ করায় জবাব দেন শারমিন। আর তাৎক্ষণিক নির্যাতন ও গলা টিপে প্রায় মৃত অবস্থায় মুখে বিষ মেখে মোল্লাহাট হাসপাতালে নিয়ে যায় স্বামীসহ ওই পরিবারের লোক-জন। হাসপাতালে নেয়ার পর কর্মরত চিকিৎসক শারমিনকে মৃত ঘোষণা করে। ওই সময় স্বামী ও শশুর বাড়ীর সকলে শারমিনরে মৃত দেহ ফেলে দ্রুত পালিয়ে যায়। শারমিনের পরিবারবর্গ আরো বলেন-গলা টিপে হত্যার স্পষ্ট ছাপ গলায় রয়েছে। তাছাড়া শারমিনের কাছে বিষের কোন কোনরূপ গন্ধ ছিলো না।
উক্ত বিষয়ে জানার জন্য ছোট কাচনা গ্রামে ওই বাড়ীতে গিয়ে স্বামী বাশারসহ কোন পুরুষ লোককে পাওয়া যায় নি। উল্লেখ্য, বাশারের মা মোমতাজ বেগম, ভাবী আমেনা বেগম ও জনৈক সজল সাংবাদিকদের ম্যানেজ করার চেষ্টা করে ব্যার্থ হণ। ম্যানেজ করার চেষ্টার কারন জানতে চাইলে তারা বলেন, আপনারা বাচাতে পারেন, আমাদেরকে বাচাবেন, তাই আপনাদের একটু খুশি করতে চাই !
গতকাল রোববার মোল্লাহাট থানা পুলিশ বাগেরহাট মর্গ থেকে শারমিনের লাশের ময়না তদন্ত সম্পন্ন করেছেন।

আপনার মতামত জানানঃ