যশোরে প্রবাসীর বাড়িঘর ভাংচুরের ঘটনায় মামলা

যশোর : প্রবাসীর স্ত্রীর কাছে ৫ লাখ টাকা চাঁদা চেয়ে চিহ্নিত সন্ত্রাসীরা হামলা চালিয়ে চাঁদা স্বরুপ ১লাখ টাকা নিয়ে প্রান নাশের হুমকী দেয়ায় মামলা হয়েছে। আদালতের নির্দেশে বুধবার কোতয়ালি মডেল থানায় আসামীর নাম উল্লেখ করে মামলা দায়ের করা হয়। আসামী হচ্ছে, যশোর সদর উপজেলার ধর্মতলা মোড়স্থ মৃত হানেফ  গাজীর ছেলে রিপন গাজীসহ অজ্ঞাতনামা ৪/৫জন। সদর উপজেলার খোলাডাঙ্গা গ্রামের তৌহিদুর রহমানের স্ত্রী নিলুফা ইয়াসমিন বাদি হয়ে দায়েরকৃত এজাহারে বলেছেন, তার স্বামী তৌহিদুর রহমান র্দীঘ দিন মালয়েশিয়ায় থাকে। আসামী রিপন গাজীসহ অজ্ঞাতনামা সন্ত্রাসীরা নিলুফা ইয়াসমিনের কাছে ৫লাখ টাকা চাঁদা দাবি করে। চাঁদা দিতে অস্বীকৃতি জানালে তার ক্ষিপ্ত হয়ে ওঠে। গত ৫অক্টোবর দুপুর ১২ টায় উল্লেখিত চাঁদাবাজ সন্ত্রাসী রিপন গাজীসহ তার সহযোগী অজ্ঞাতনামা ৪/৫জন নিলুফা ইয়ামিনের বাড়িতে প্রবেশ করে তাদের দাবিকৃত ৫লাখ টাকা  চাঁদা চায়। চাঁদা দিতে অপারগতা প্রকাশ করলে নিলুফা ইয়াসমিনকে মারপিট শুরু করে।  এক পর্যায় ঘরের আসবাবপত্র ভাংচুর করে ৭০ হাজার টাকার ক্ষতি সাধণ করে। মাকে রক্ষা করতে মেয়ে নিশাত ঠেকাতে এলে তাকে হত্যার জন্য ধারালো অস্ত্র ঠেকায়। তখন মেয়েকে রক্ষা করতে নিলুফা ইয়াসমিন ঘর হতে সন্ত্রাসীদের হাতে ১লাখ টাকা চাঁদা স্বরুপ তুলে দেন। চাঁদা নিয়ে সন্ত্রাসী চাঁদাবাজরা বাকী টাকার জন্য ১৫ দিনের সময় বেঁধে দিয়ে প্রাণ নাশের হুমকী দিয়ে চলে যায়। এ ঘটনায় কোতয়ালি মডেল থানায় এজাহার দায়ের করলে এলে থানা পুলিম মামলা নিয়ে অপারগতা প্রকাশ করলে নিলুফা ইয়াসমিন আদালতে পিটিশন দায়ের করেন। আদালতের বিজ্ঞ বিচারক বাদির দায়েরকৃত পিটিশন এজাহার হিসেনে গ্রহন করতে কোতয়ালি মডেল থানার অফিসার ইনচার্জকে নির্দেশ দেন। থানা পুলিশ বুধবার নিলুফা ইয়াসমিনের পিটিশন মামলা হিসেবে নথিভূক্ত করেন।

আপনার মতামত জানানঃ