‘রাজনীতি নয়, সুবর্ণচরের ধর্ষকদের দ্রুত বিচার ট্রাইব্যুনালে বিচার করতে হবে’

খুলনা : ধর্ষণকারী কোন দলের লোক কিংবা কোন দলের নয়, এমন কোনও প্রশ্ন তোলার সুযোগ নেই। এই মৌলিক সত্য অগ্রাহ্য বা অমান্য করার কোনও অবকাশ নেই। যারা এমন ঘটনা ঘটিয়েছে, তাদের উপযুক্ত বিচার করতে হবে। বাংলাদেশে আর কখনও কেউ যেন এমন ঘটনা আর ঘটাতে না পারে, তেমন ব্যবস্থা করতে হবে। রাজনৈতিক কারণে নয়, কোনো কারণেই দেশে আর ধর্ষণের ঘটনা ঘটবে না, এমন একটি দেশ নির্মাণের অঙ্গীকার ঘোষণা করুক নতুন সরকার।
এভাবে বললেন জনউদ্যোগ, খুলনা, সেফ ও হিন্দু সম্পত্তিতে নারীর অধিকার বাস্তবায়ন কমিটির মানববন্ধনে নাগরিক নেতৃবৃন্দ। নোয়াখালীর সুবর্ণচরে ধর্ষণকারীদের দ্রুত বিচার ট্রাইব্যুনালে বিচারের দাবিতে বুধবার বেলা সাড়ে ১১টায় নগরীর পিকচার প্যালেস মোড়ে এ মানববন্ধনের আয়োজন করা হয়।
বক্তারা আরও বলেন, নোয়াখালীর সুবর্ণচরের ঘটনাটি মনে করিয়ে দিল, আমাদের আরও অনেক, অনেক দূর যেতে হবে। সুবর্ণচরের গণধর্ষণ মামলার চার্জশিট ১৫ দিনের মধ্যে দাখিল করতে হবে, দ্রুত বিচার ট্রাইব্যুনালে বিচার করতে হবে। অপরাধীদের এক মাসের মধ্যে শাস্তি দিতে হবে।
মানববন্ধন চলাকালীন প্রতিবাদ সভায় সভাপতিত্ব করেন নারী নেত্রী এ্যাড: শামীমা সুলতানা শীলু। সভা পরিচালনা করেন এ্যাড: মোমিনুল ইসলাম। সূচনা বক্তব্য রাখেন সেফের মো: আসাদুজ্জামান ও জনউদ্যোগ, খুলনার সদস্য সচিব সাংবাদিক মহেন্দ্র নাথ সেন। অন্যান্যদের মধ্যে বক্তব্য রাখেন- সম্মিলিত জোটের নেতা শাহিন জামান পণ, ওয়ার্কার্স পার্টির মফিদুল ইসলাম, বাসদেও জনার্দন নান্টু, সিপিবির মিজানুর রহমান বাবু, এস এম চন্দন, জাতীয় পার্টির শাহ লায়েকউল্লাহ, নারী নেত্রী রেহেনা আক্তার, মনিরা সুলতানা, এ্যাড: তছলিমা খাতুন ছন্দা, সিলভী হারুণ, এস এম সোহরাব হোসেন, আলহাজ্ব মহিউদ্দিন আহমেদ, শেখ আ: হালিম, আফজাল হোসেন রাজু, সাংবাদিক খলিলুর রহমান সুমন, সেফের দীপক কুমার দে,শাহ মো:অহিদুজ্জামান, হেদায়েত হোসেন, সালেহ আহমেদ, আসাদুর রহমান হাসান, মাহাফুজুর রহমান প্রমুখ। সভায় সাতক্ষীরার আশাশুনীতে শিশু ধর্ষণকারীরও দ্রুত বিচার দাবি করা হয়।

আপনার মতামত জানানঃ