রূপগঞ্জে বেতন-ভাতা পেনশন দাবিতে আবারও ৭২ ঘন্টার কর্মবিরতি

রূপগঞ্জ (নারায়ণগঞ্জ) প্রতিনিধিঃ বাংলাদেশ পৌরসভা সার্ভিস এ্যাসোসিয়েশনের কেন্দ্রীয় কমিটির পূর্ব ঘোষিত ৭২ ঘন্টার কর্মবিরতি চলছে। রোববার সকাল থেকে কর্মকর্তা-কর্মচারীরা সারা বাংলাদেশের ন্যায় নারায়ণগঞ্জ জেলার রূপগঞ্জ উপজেলার তারাব পৌরসভার কর্মকর্তা-কর্মচারীরা পৌর ভবনের মূল ফটকের সামনে অবস্থান করে এ কর্মসূচি পালন করেন।
সরকারের কোষাগার থেকে বেতন ভাতা ও পেনশনের দাবিতে এ আন্দোলন করছেন বলে জানান, বাংলাদেশ পৌর সার্ভিস এ্যাসোসিয়েশনের কেন্দ্রীয় কমিটির যুগ্ম সাধারন সম্পাদক মুজাহিদুল ইসলাম তুষার। এ সময় তিনি আরও বলেন, বাংলাদেশের ৩২৭টি পৌরসভা রয়েছে। এর মধ্যে অধিকাংশ পৌরসভার বেতন বকেয়া রয়েছে প্রায় ২ মাস থেকে ৫৮ মাস পর্যন্ত। আমরা নগর উন্নয়নের জন্য দিন-রাত কাজ করি। সরকারের কোষাগার থেকে বেতনÑভাতা ও পেনশন না পাওয়ার কারনে আমরা অর্ধহারে দিন কাটাতে হচ্ছে। আমাদের প্রানের দাবি সরকারের কোষাগার থেকে বেতন-ভাতা ও পেশন দেয়ার ব্যবস্থা করার।
এ সময় অন্যান্য বক্তারা আরও বলেন, ৭২ ঘন্টা কর্মবিরতি চলবে। দাবি না মানলে আমরা আরও কঠোর কর্মসূচিতে যাব।
৭২ ঘন্টা কর্মবিরতির অনুষ্ঠানের প্রথম দিনে উপস্থিত ছিলেন, কেন্দ্রীয় কমিটির প্রধান উপদেষ্ঠা জেড এম আনোয়ার, সচিব তাজুল ইসলাম, তোফায়েল আহাম্মেদ, আব্দুল মতিন, নিগার সুলতানা, আজমেরী , আমিরুল ইসলাম, নাজমুল ইসলাম প্রমূখ।
পৌর কর্মকর্তা-কর্মচারীদের ৭২ ঘন্টা কর্মবিরতির প্রথম দিনে পৌরসভায় সকাল থেকে অনেকেই সেবা না পেয়ে ফিরে গেছেন। সেবা নিতে আসা অনেকেই বলছেন, কয়দিন পরে পরে কিসের কর্মবিরতি পালন করেন’েয। পৌরসভার স্যারেরা ভালইত কাজ কাম করতাছে। স্যারে’গ বেতন না দিলে খাইব কি?

আপনার মতামত জানানঃ