সিএমপি বায়েজিদ থানার এস আই এর বিরুদ্ধে মিথ্যা প্রতিবেদন পাঠানোর অভিযোগ

চট্টগ্রাম ব্যুরো: সিএমপি বায়েজিদ থানার এসআই কাজী রিপন সরকারের বিরুদ্ধে বিবাদীর সাথে কোন প্রকার যোগাযোগ না করে ও কোন প্রকার সত্য মিথ্যা যাচাই না করে বাদীর কাছ থেকে মোটা অংকের টাকা খেয়ে মিথ্যা ও ভিত্তিহীন প্রতিবেদন পাঠানোর অভিযোগ পাওয়া গেছে।

যানা যায়, চট্টগ্রাম নগরীর কুখ্যাত সন্ত্রাসী,দূর্নীতিবাজ, মাদক ব্যবসায়ী, চোরাকারবারী, অন্ধকার জগতের গডফাদার ও ভয়ঙ্কর দুধর্ষ লেদু বাহিনীর প্রধান আব্দুল নবী লেদু ওরফে লেদু গুন্ডা প্রকাশ্য ও দিবালোকে বিভিন্ন প্রকার অনৈতিক ও সন্ত্রসী কর্মকান্ড পরিচালনা করে আসছে। চট্রগ্রাম ও ঢাকাসহ বিভিন্ন স্থানে তার বিরুদ্ধে একাধিক মামলা রয়েছে এছাড়াও সে একজন ওয়ারেন্ট ভূক্ত আসামী। তার সন্ত্রাসী কর্মকান্ডের বিরুদ্ধে ঢাকা ও চট্রগ্রামসহ বিভিন্ন জাতীয় ও স্থানীয় পত্র/পত্রিকায় একাধিক সংবাদ প্রকাশিত হয়েছে। যার ধারাবাহিকতায় সিটিজি ক্রাইম নিউজেও তার বিরুদ্ধে সংবাদ প্রকাশ করা হয়। এই সংবাদের জের ধরে কুখ্যাত সন্ত্রাসী আব্দুল নবী লেদু তার স্ত্রী লাকী আক্তারকে দিয়ে ষড়যন্ত্রমূলক ভাবে বিশিষ্ঠ সংবাদিক সিটিজি ক্রাইম নিউজের সম্পদক ও প্রকাশক আজগর আলী মানিকের বিরুদ্ধে চট্রগ্রাম সিএমএম আদালতে একটি ভূয়া মামলা দায়ের করে।পরে আদালত মামলাটি সুষ্ঠভাবে তদন্ত করার জন্য সিএমপি বায়েজিদ থানার এস আই কাজী রিপন সরকারকে দায়িত্ব প্রদান করেন। কিন্তু মামলার দায়িত্ব প্রাপ্ত এসআই কাজী রিপন সরকার মামলার বিবাদীর সাথে কোন প্রকার যোগাযোগ না করে ও সত্য মিথ্যা যাচাই না করে বাদীর কাছ থেকে মোটা অংকের টাকা খেয়ে মিথ্যা ও ভিত্তিহীন তদন্ত প্রতিবেদন আদালতে দাখিল করে।
প্রকাশ থাকে যে, এসআই কাজী রিপন সরকার এর বিরুদ্ধে স্থানীয় মাদকব্যবসায়ীদের সাথে আতাত করে এলাকার নিরীহ জনগণকে টাকার জন্যে ইয়াবা ও মিথ্যা মামলায় ফাঁসানোসহ চাঁদাবাজির একাধিক অভিযোগ রয়েছে।
এ ঘটনায় সাংবাদিক আজগর আলী মানিক মাননীয় স্বরাষ্ট্র মন্ত্রী,আইনমন্ত্রী, মাননীয় সিনিয়র স্বরাষ্ট্র সচিব (জননিরাপত্তা), আইজিপি(বাংলাদেশ পুলিশ হেড কোয়ার্টার) ও মাননীয় ডিআইজি (চট্রগ্রাম রেঞ্জ) বরাবরে রিপন সরকারের বিরুদ্ধে তদন্ত পূর্বক প্রশাসনিক ব্যবস্থা গ্রহণ ও মামলাটি পুনরায় সুষ্ঠ ও নিরপেক্ষ ভাবে তদন্ত করার জন্য লিখিত আবেদন জানান।

আপনার মতামত জানানঃ