ফুলতলায় জাতীয় পার্টি নেতা জোহর আলী’র ইন্তেকালঃ প্রতিমন্ত্রীর শোক

ফুলতলা (খুলনা) প্রতিনিধি: জাতীয় পার্টির কেন্দ্রীয় নির্বাহী কমিটির সদস্য, খুলনা জেলা কমিটির সহসভাপতি ও ফুলতলা উপজেলা শাখা সভাপতি এম জোহর আলী মোড়ল (৬৫) আর নেই। তিনি দীর্ঘদিন ধরে ঘাতক ব্যাধি লান্স ক্যান্সারে ভূগছিলেন। তার পুত্র সাঈদ আলম বলেন, তিনি অসুস্থ্য হয়ে পড়লে খুলনার একটি ক্লিনিকে ভর্তি করা হয়। উন্নত চিকিৎসার জন্য গতকাল (মঙ্গলবার) ভারতে নেয়ার পথে যশোরের বেনাপোল স্থল বন্দর এলাকায় পৌছালে তিনি শেষ নি:শ^াস ত্যাগ করেন। মৃত্যুকালে তিনি স্ত্রী, ২পুত্র, ৩কন্যাসহ বহু আত্মীয় স্বজন ও গুণগ্রাহী রেখে যান। আজ (বুধবার) আসরবাদ উপজেলা মসজিদ চত্বরে নামাজের জানাযা শেষে উপজেলা সরকারি গোরস্থানে সমাহিত করা হবে বলে পারিবারিক সূত্র জানিয়েছে। এদিকে জাপা নেতা ও সমাজসেবক জোহর আলী মোড়লের মৃত্যুতে গভীর শোক ও শোকাহত পরিবারের প্রতি সমবেদনা জ্ঞাপন করে বিবৃতি দিয়েছেন মৎস্য ও প্রাণী সম্পদ প্রতিমন্ত্রী নারায়ণ চন্দ্র চন্দ, উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান আলহাজ¦ শেখ আকরাম হোসেন, ভাইস চেয়ারম্যান গাউসুল আজম হাদি, আওয়ামীলীগ নেতা সরদার শাহাবুৃদ্দিন জিপ্পী, মোঃ আসলাম খান, মৃনাল হাজরা, আবু তাহের রিপন, বিলকিস আক্তার ধারা, ইউপি চেয়ারম্যান শরীফ মোহাম্মদ ভুইয়া শিপলু,ইসমাইল হোসেন বাবলু, আলী আজম মোহন, শাহাদাৎ বিশ্বাস, মোল্যা হেদায়েত হোসেন লিটু, শাহিদুল মোল্যা, শাহাবাজ মোল্যা, এস কে আলী ইয়াছিন, শহিদুল্লাহ প্রিন্স, বেগম শামসুন্নাহার, শাপলা সুলতানা লিলি, আনছার বিশ্বাস, আনোয়ার বিশ্বাস, আশরাফুল আলম কচি, এস কে মিজানুর রহমান, রবিন বসু প্রমুখ। অনুরুপ বিবৃতি দিয়েছেন প্রেসক্লাব ফুলতলা সভাপতি তাপস কুমার বিশ্বাস, সাধারণ সম্পাদক মোঃ সেকেন্দার আলী, অধ্যাপক মোঃ নেছার উদ্দিন, উপজেলা প্রেসক্লাব সভাপতি শামসুল আলম খোকন, সাধারণ সম্পাদক মোঃ মাজহারুল ইসলাম প্রমুখ।

ফুলতলার পায়গ্রাম কসবা হাইস্কুলে ডিজিটাল ল্যাবের ১৫ টি কম্পিউটার চুরি

তাপস কুমার বিশ্বাস, ফুলতলা (খুলনা): সন্ধ্যা রাতে ফুলতলার পায়গ্রাম কসবা মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের শেখ রাসেল ডিজিটাল কম্পিউটার ল্যাবে রহস্যজনকভাবে দুধর্ষ চুরি সংগঠতি হয়েছে। চোরেরা ক্লবসিবল গেটের হুক ও দরজার হুক ভেঙে ল্যাবে ঢুকে ৮ লক্ষ টাকা মূল্যের ১৫টি সরকারি ল্যাবটবসহ অন্যান্য মালামাল নিয়ে যায়। এ ব্যাপারে থানায় মামলা হয়েছে।
স্কুলের প্রধান শিক্ষক এস এম মোর্শারফ হোসেন জানান, সোমবার দিবাগত সন্ধ্যা রাত সাড়ে ৭টা থেকে সাড়ে ৯টার মধ্যে চোরেরা জলন্ত বৈদ্যুতিক বাল্ব ভেঙে স্কুল ভবনের দ্বিতীয় তলার ক্লবসিবল গেটের দুটি হুক ও দরজার ১টি হুক ভেঙে ল্যাবে প্রবেশ করে (এইচপি-২৫০) মডেলের ১৫টি সরকারি ল্যাবটব নিয়ে যায়। চুরিকৃত ল্যাবটবসহ আনুসঙ্গিক মালামালের আনুমানিক মূল্য ৮ লাখ টাকা। স্কুলের নৈশ প্রহরী শেখ সোলায়মান (৩২) রাত আনুমানিক সাড়ে ৮টার দিকে ঈশার নামাজ আদায় ও রাতের খাবারের জন্য বাড়িতে যান। সাড়ে ৯টার দিকে ফিরে এসে বৈদ্যুতিক বাল্ব ভাঙা এবং ভবনের ক্লবসিবল গেট ও ল্যাবের দরজা খোলা দেখতে পেয়ে প্রধান শিক্ষককে মোবাইল ফোনে জানান। পরে খবর পেয়ে পুলিশ ঘটনাস্থল পরিদর্শন ও জিজ্ঞাসাবাদের জন্য নৈশ প্রহরী শেখ সোলায়মানকে থানায় নিয়ে আসে। এদিকে ল্যাবে চুরি ঘটনায় বিদ্যালয় পরিচালনা কমিটির এক জরুরী সভা মঙ্গলবার বেলা ১১টায় প্রধান শিক্ষক এস এম মোর্শারফ হোসেনের পরিচালনায় ও তার সভাকক্ষে জরুরী সভা জাহাঙ্গীর বিশ^াসের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত হয়। এ সময় অন্যান্যের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন পরিচালনা কমিটির সদস্য কাজী আনোয়ার হোসেন বাবু, কাজী শাকিল হোসেন, শিক্ষক গোবিন্দ কুমার নাগ, তাহেরা নাসরিন প্রমুখ। সভায় সিদ্ধান্ত মোতাবেক প্রধান শিক্ষক এস এম মোর্শারফ হোসেন বাদি হয়ে অজ্ঞাতদের আসামী করে থানায় মামলা দায়ের করেন। মঙ্গলবার দুপুরে খুলনার সহকারী পুলিশ সুপার মোঃ সজীব খাঁন ও ওসি (তদন্ত) হাওলাদার মোঃ মাসুম ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেন।