কোটালীপাড়ায় অতিদরিদ্রদের জন্য কর্মসংস্থান কর্মসূচিতে অনিয়মের অভিযোগ

গোপালগঞ্জ প্রতিনিধি : গোপালগঞ্জের কোটালীপাড়া উপজেলায় অতিদরিদ্রদের জন্য কর্মসংস্থান কর্মসূচিতে অনিয়মের অভিযোগ উঠেছে। মাঠে শ্রমিক না থাকলেও অসাধু ইউপি সদস্যরা খাতা কলমে শ্রমিক দেখিয়ে টাকা তুলে নেওয়ার পায়তারা করছে।

জানাগেছে, চলতি মৌসুমে উপজেলার ১১টি ইউনিয়নে অতিদরিদ্রেদের জন্য কর্মসংস্থান কর্মসূচিতে (৪০ দিনের কর্মসূচি) ১ কোটি ৬৮ লক্ষ ৬৪ হাজার টাকা বরাদ্দ দেয়া হয়েছে। সে মোতাবেক উপজেলা প্রকল্প বাস্তবায়ন কর্মকর্তার কার্যালয় থেকে ১১টি ইউনিয়নে ৩৬টি প্রকল্পের অনুকূলে বরাদ্দকৃত টাকা বন্টন করা হয়েছে।

উপজেলা প্রকল্প বাস্তবায়ন কর্মকর্তার কার্যালয়ের তথ্যমতে, উপজেলার বান্ধাবাড়ি ইউনিয়ন পরিষদ হরিনাহাটি সরওয়ার শিকদারের বাড়ির রাস্তা থেকে আব্দুল রহিম শেখের বাড়ি পর্যন্ত রাস্তা পূর্ণনির্মাণ, শ্রীদাম কর্মকারের বাড়ি হইতে তৈয়াব আলীর বাড়ি পর্যন্ত রাস্তা নির্মাণ ও বাসুদেব মধুর বাড়ি হইতে বিমল রায়ের বাড়ি পর্যন্ত পূর্ণনির্মাণের ৩টি প্রকল্প উপজেলা প্রকল্প কর্মকর্তার কার্যালয়ের দাখিল করে।

প্রকল্প ৩টির অনুকুলে ৮ লক্ষ ৬ হাজার টাকা বরাদ্দ দেয়া হয়। এই ৩টি প্রকল্পে দৈনিক ১০০ জন শ্রমিক কাজ করার কথা। গতকাল সোমবার ৩টি প্রকল্পে ৩২জন শ্রমিককে কাজ করতে দেখা যায়।

এ ব্যাপারে  শ্রীদাম কর্মকারের বাড়ি হইতে তৈয়াব আলীর বাড়ি পর্যন্ত রাস্তা নির্মাণ-এর প্রকল্প বাস্তবায়ন কমিটির সভাপতি ও ইউপি সদস্য মুকুল হাওলাদারের সাথে আজ বুধবার দুপুরে কথা হলে তিনি জানান, যে সময় শ্রমিকরা বেকার থাকে সরকার সে সময়ে এই প্রকল্পের কাজ না দিয়ে যে সময়টা ধানকাটার সময় তখন এ প্রকল্প দিয়ে আমাদের বরং বেকাদায় ফেলে দেয়া হয়। তিনি বলেন, তার প্রকল্প এলাকায় ৩২ জন শ্রমিক থাকার কথা থাকলেও আজ বুধবার তিনি মাত্র ১৬জন শ্রমিক পেয়েছেন। ধান কাটলে একজন শ্রমিক ৭শ’ টাকা মজুরী পেয়ে থাকেন, আর এখানে পান মাত্র ২শ’ টাকা। তাই ধান কাঁটা বাদ দিয়ে কেউ ৪০ দিনের এই কাজ করতে আসবে না। তিনি ধান কাঁটা মৌসুমের আগে অথবা পার এই প্রকল্প দেয়ার দাবী জানান সরকারের কাছে।

হরিনাহাটি সরওয়ার শিকদারের বাড়ির রাস্তা থেকে আব্দুল রহিম শেখের বাড়ি পর্যন্ত রাস্তা পূর্ণনির্মাণ প্রকল্পের বাস্তবায়ন কমিটির সভাপতি ও ইউপি সদস্য আব্দুর রহিম জানান, এখন ধান কাটার মৌসুম তাই শ্রমিক পাওয়া যাচ্ছে না। আমার প্রকল্প এলাকায় ৩৩ জন শ্রমিক থাকার কথা তাকলেও আজ বুধবার তার সাইটে ২২ জন শ্রমিক ছিল বলে জানান তিনি।

নাম প্রকাশ না করা শর্তে প্রকল্প ৩টির কয়েকজন শ্রমিক জানিয়েছেন, মাঠে যারা কাজ করতে না আসে তাদেরও প্রতিদিন হাজিরা দেখানো হয়। তাদের স্বাক্ষর জাল করে ইউপি সদস্যরা টাকা উত্তোলনের পায়তারা করছেন।

উপজেলা প্রকল্প বাস্তবায়ন কর্মকর্তা কাজী আব্দুল আজিজ বলেন, এখন ধান কাটার মৌসুম শ্রমিক সংকটের কথা তিনি স্বীকার করে বলেন, যে সকল শ্রমিক সরেজমিনে কাজ করেছে তাদের বাইরে একটি টাকাও বিল দেয়া হবে না।

কোটালীপাড়া উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা এস এম মাহফুজুর রহমানের সাথে এ ব্যাপারে কথা হলে তিনি জানান, এ সময়টা সাধারনতঃ শ্রমিক সংকট থাকে। তার মধ্যেও যদি কোন ইউনিয়ন থেকে অভিযোগ আসে, তা’হলে আমরা সেখানে গিয়ে ব্যবস্থা নিয়ে থাকি। বান্ধাবাড়ি ইউনিয়নের বিষয়টি যেহেতু কানে এসেছে তদন্ত করে ব্যবস্থা নেয়া হবে।

সাতক্ষীরায় ট্রাক উল্টে চালকের মৃত্যু

সাতক্ষীরা প্রতিনিধি : সাতক্ষীরার বাইপাস সড়কে ট্রাক উল্টে চালকের মৃত্যু হয়েছে। বুধবার ভোরে শহরের অদূরে কামননগর-বকচরা বাইপাস সড়কে এ দূর্ঘটনাটি ঘটে।
নিহত ট্রাক চালকের নাম মফিজুল ইসলাম (৩৫)। তিনি শ্যামনগর উপজেলার আটুলিয়া ইউনয়নের ভড়ভুড়িয়া গ্রামের মোহাম্মদ আলী গাইনের ছেলে।
নিহতের স্বজনরা জানান, ট্রাক চালক মফিজুল কুষ্টিয়া থেকে পোলট্রি ফিড ভর্তি ট্রাকটি চালিয়ে সাতক্ষীরার শ্যামনগরে যাচ্ছিলেন। পথিমধ্যে সাতক্ষীরায় আসার আগেই তিনি খুব ক্লান্ত হয়ে পড়েন। তিনি এ সময় তার হেলপার মামুনকে দিয়ে ট্রাকটি চালাচ্ছিলেন এবং হেলপারের বামপাশে বসে তিনি বিশ্রাম নিচ্ছিলেন। এক পর্যায়ে সাতক্ষীরা শহরের অদূরে বাইপাস সড়কের বকচরা মোড় নামক স্থানে পৌছালে বিপরীত দিক থেকে আসা অপর একটি ট্রাকের পাশ কাটাতে গিয়ে নিয়ন্ত্রন হারিয়ে তাদের ট্রাকটি রাস্তার ধারে খাদে পড়ে যায়। এতে ঘটনা স্থলেই মারা যান চালক মফিজুল। পরে ফায়ার সার্ভিসের একটি টিম ঘটনাস্থলে এসে ট্রাকটি উদ্ধার করেন। এদিকে, চালক মফিজুলের মৃত্যুতে এলাকায় শোকের ছায়া নেমে এসেছে। তবে, এ ঘটনায় হেলপার মামুন সামান্য আহত হয়েছেন বলে জানা গেছে।
সদর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মোস্তাফিজুর রহমান জানান, লাশ উদ্ধার করে ময়না তদন্তের জন্য সাতক্ষীরা সদর হাসপাতাল মর্গে পাঠানো হয়েছে।

পাইকগাছা ৪ ব্যবসায়ীর ১০ হাজার টাকা জরিমানা

স্নেহেন্দু বিকাশ, পাইকগাছা : পবিত্র রমজান উপলক্ষে পাইকগাছায় ভেজাল বিরোধী অভিযানে ৪ মাংস ব্যবসায়ীকে ভ্রাম্যমান আদালতে ১০ হাজার টাকা জরিমানা করা হয়েছে। বুধবার সকালে পৌর সদরের মাংস বাজারে অস্বাস্থ্যকর পরিবেশে মাংস বিক্রির অভিযোগে মোঃ আব্দুল খালেককে ৩ হাজার, আবুল কালাম গাজীকে ৩ হাজার, শেখ মনিরুল ইসলামকে ২ হাজার, মোঃ খায়রুল আলম খোকাকে ২ হাজার জরিমানা করেন উপজেলা নির্বাহী অফিসার ও নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট জুলিয়া সুকায়না। আদালত পরিচালনাকালে উপস্থিত ছিলেন, উপজেলা স্যানিটারী ইন্সপেক্টর উদয় কুমার মন্ডল, পেশকার দীপংকর প্রসাদ মল্লিক সহ সঙ্গীয় ফোর্স।

ভূমিহীন পরিবারের সন্তানের জিপিএ ৫ প্রাপ্তি

স্নেহেন্দু বিকাশ, পাইকগাছা : হতদরিদ্র ভূমিহীন পরিবারের সন্তান প্রান্ত মন্ডল কঠোর অধ্যাবসয় পিএসসি, জেএসসি ও এসএসসি পরিক্ষায় জিপিএ- ৫ পেয়ে অসাধ্য সাধন করেছে। খুলনার পাইকগাছা উপজেলার দক্ষিন বাইনবাড়িয়া গ্রামের জয়ান্ত মন্ডল ও শীলা বৈরাগীর ছেলে সে। সম্পদ সম্পত্তি কিছুই না থাকায় প্রায় ২০ বছর আগে উপজেলা সদরে চলে আসে জয়ন্ত মন্ডল। দিন মজুর ও দুটি সমিতিতে কাজ করে যা পায় তা দিয়ে দুটি ছেলের লেখা পড়া ও সংসারের খরচ চালায়। উন্নত খাদ্য খাবার ও নতুন পোষাক পরিচ্ছেদ ওদের কাছে অনেকটা স্বপ্ন। পিতার দারিদ্রতার কথা বিবেচনা করে তাদের সকল চাহিদাকে বলতে গেলে বিসর্জন দিয়েছে। প্রান্ত লেখাপড়া শেষে ইঞ্জিনিয়ার হতে চাইলেও অর্থের অভাবে তার লেখাপড়া শেষ কোথায় হবে এটা নিয়ে দুশ্চিন্তায় রয়েছে তার পরিবার।

স্বামীকে হত্যা করল স্ত্রী ও তার প্রেমিক : আটক ৩

বেনাপোল প্রতিনিধি : মালয়েশিয়া থেকে বাড়ি ফেরার ১০ ঘন্টা পর স্ত্রী ও তার প্রেমিকরা কুপিয়ে হত্যা করল জামাল হোসেন নামের এক প্রবাসিকে। এঘটনায় নিহতের স্ত্রী ও শ্বশুর ও শাশুড়ি কে আটক করেছে পুলিশ। নিহত জামাল হোসেন (৩৬) বেনাপোল পোর্ট থানার ধান্যখোলা গ্রামের হবিবর রহমানের ছেলে। বুধবার সকালে নিজ বাড়ির বেড রুমে স্ত্রী আয়েশা তার স্বামীকে কতিথ প্রেমিক ও নিজ বাবা মায়ের সহযোগিতায় হত্যা করে। তবে এসময় কোন প্রেমিককে আটক করতে পারেনি পুলিশ। আটককৃতরা হলো নিহত জামালের স্ত্রী আয়েশা খাতুন, শ্বশুর রিয়াজুল ইসলাম টুক, ও শাশুড়ী ফুলবুড়ি।
নিহতের বাবা হবিবার রহমান বলেন, তার ছেলে প্রায় ১৫ বছর যাবৎ মালয়েশিয়ায় ছিল। একই গ্রামের রিয়াজুলের মেয়ে আয়েশার সাথে তার ১৫ বছর আগে বিবাহ হয়। দীর্ঘদিনে তার ছেলে মালয়েশিয়া থেকে মাত্র ৩ বার বাড়ি এসেছে। তার বাড়ি না থাকার কারনে স্ত্রী আয়েশা এলাকার বিভিন্ন ছেলের সাথে প্রেম করত। প্রায় বিভিন্ন লোকের সাথে সে মটরসাইকেলে বাড়ি থেকে বেরিয়ে আসত এবং ২/৩ দিন পর বাড়ি ফিরত। তার ছেলের বিল্ডিং এ আয়েশা ও তার মা বাবা বসবাস করত।
তার ছেলে মঙ্গলবার বেলা ২ টার সময় মালয়েশীয়া থেকে বাড়িতে আসে। রাত ৩ টার দিকে বুকে পেটে ছুরিকাঘাত করে হত্যা করে তার স্ত্রী ও সহযোগীরা।
স্থানীয়রা জানায়, স্বামী বিদেশ থাকার সুযোগে আয়েশা একাধিক ব্যক্তির সাথে প্রেম সম্পর্ক গড়ে তোলে এলাকায়। কেউ তাকে ফোন করে ডাকলে সে মটরসাইকেল ভাড়া করে সেখানে গিয়ে ২/৩ দিন একাধারে থাকত। এর আগে গতবার যখন তার স্বামী বিদেশ থেকে বাড়ি এসেছিল তখনও তাকে বিদ্যুতের তার জড়িয়ে হত্যার চেষ্টা করেছিল।
বেনাপোল পোর্ট থানার ওসি (তদন্ত) আলমগীর হোসেন বলেন, খবর পেয়ে ঘটনাস্থল থেকে লাশ উদ্ধার করে ময়না তদন্তের জন্য যশোর জেনারেল হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে। এঘটনায় সন্দেহ জনক ৩ জনকে আটক করা হয়েছে। তাদের জিঙ্গাসাবাদ চলছে। কে বা কারা এ হত্যাকান্ডের সাথে জড়িত তদন্ত না করে কিছু বলা যাবে না।

ডুমুরিয়ায় ৩ ব্যবসায়ীর জরিমানা

ডুমুরিয়া (খুলনা) প্রতিনিধি : ডুমুরিয়া উপজেলা নির্বাহী অফিসার মোছাঃ শাহনাজ বেগম বুধবার বিকেলে উপজেলার ফল মাকের্টে এক ভ্রাম্যমান আদালত পরিচালনা করেন। এ সময় তিনি ২০০৯ সালের ভিভিন্ন ধারামতে ভোক্তা অধিকার আইনে ফল ব্যবসায়ী মোস্তফার নিকট থেকে ৩ হাজার, কার্তিকের নিকট থেকে ৩ হাজার ও রফিকুলের নিকট থেকে ৩ হাজারসহ তিন ব্যবসায়ীর নিকট থেকে মোট ৯ হাজার টাকা জরিমানা আদায় করেন। একই সাথে পবিত্র রমজান মাসে ব্যবসায়ীদের পরিস্কার পরিচ্ছন্নতা বজায় ও দ্রব্যমূল্য সঠিক ও পরিমাপ সঠিক রাখার নির্দেশনা দেন।

বটিয়াঘাটায় কৃষি সমস্যা সমাধানের দাবীতে স্মারকলিপি প্রদান

বটিয়াঘাটা প্রতিনিধি : বটিয়াঘাটা উপজেলায় নানাবিধ কৃষি সমস্যা সমাধানে লোকজ মৈত্রী কৃষক ফেডারেশন ১৪ মে মঙ্গলবার উপজেলা নির্বাহী অফিসার আহমেদ জিয়াউর রহমান বরাবরে স্মারকলিপি প্রদান করে। সকাল ১১ টায় উপজেলা নির্বাহী অফিসারের কক্ষে স্মারকলিপি প্রদান অনুষ্ঠানে এ সময় উপস্থিত ছিলেন লোকজের নির্বাহী পরিচালক দেবপ্রসাদ সরকার, কৃষক ফেডারেশনের সহসভাপতি মো: মুনসুর আলী শেখ, আশালতা ঢালী, সাধারণ সম্পাদক কাকন মল্লিক, কৃষ্ণপদ বিশ^াস, গোলাম হোসেন, তাপস মল্লিক, অমর রায়, অরুন বিশ^াস, দুলাল বিশ^াস, অমরী ম-ল, অঞ্জলী ম-ল, শংকরী সরকার, বাসুদেব ম-ল, স্বপন ফৌজদার, ত্রিপলী ম-ল, লোকজের সমন্বয়কারী পলাশ দাশ, মিলন কান্তি ম-ল, দিপংকর কবিরাজ প্রমুখ:। লিখিত স্মারকলিপিতে বটিয়াঘাটার স্থানীয় হাট বাজারে কৃষিপণ্য ক্রয়-বিক্রয়ের ক্ষেত্রে অন্যায্যভাবে দুতরফা খাজনা আদায় বন্ধ, কাতিয়ানাংলা গেটের খালসহ বটিয়াঘাটার সকল নদী-খালের অবৈধ নেট-পাটা-কোমর ও বাঁধ অপসারণ, নোয়াইলতলা, হালিয়া, শিয়ালীডাংঙ্গাসহ বটিয়াঘাটার সকল ওয়াপদা বাঁধের ভিতর লবণ পানি ঢোকানো বন্ধ করে কৃষি উপযোগী পরিবেশ তৈরি, যুগোপযোগী নতুন স্লুইচ গেট স্থাপন এবং উপকূলীয় বেড়িবাঁধ উঁচু ও আধুনিকায়ন, ভরাটকৃত নদী-খাল খননসহ সকল মৌসুমে মিস্টি পানি ধারণ করে ফসল উৎপাদন নিশ্চিত, ক্রেতা বা ফড়িয়াদের সিন্ডিকেট বিলুপ্ত করে কৃষকদের ফসলের লাভজনক মূল্য নির্ধারণ, প্রকৃত কৃষকদের কৃষিভর্তুকি প্রদান করাসহ সরকারি সুযোগ সুবিধা প্রদানে প্রান্তিক কৃষকদের অগ্রাধিকার প্রদান, কৃষি ও সেচ কাজে পানি ব্যবস্থাপনা সম্পূর্ণভাবে স্থানীয় কৃষকের নিযন্ত্রনে রাখার ব্যবস্থা গ্রহণসহ ন্যয্যমূল্যে সার, বীজ ও কীটনাশক প্রদান এবং বীজ, সার ও কীটনাশক প্রতারণার বিরুদ্ধে ক্ষতিপুরণ আদায়ে সহযোগিতা প্রদানের দাবী জানানো হয়।