হেলমেট পরা মটরসাইকেল চালকদের নিমের চারা দিয়ে পুরস্কৃত

নওয়াপাড়া(যশোর) প্রতিনিধি : হেলমেট পরা মটরসাইকেল চালকদের নিমের চারা দিয়ে পুরস্কৃত করলেন নওয়াপাড়া হাইওয়ে থানার ওসি আতাউর রহমান। রবিবার দুপুরে যশোর খুলনা মহাসড়কের রাজঘাটে সড়ক নিরাপত্তার জন্য অবৈধ যানবাহনের বিরুদ্ধে অভিযান পরিচালনা করা হয়েছে। এ সময়ে মহাসড়কে অবৈধভাবে চলাচলকারী ১৫ টি যানবাহনের বিরুদ্ধে পুলিশ শাস্তিমুলক ব্যবস্থা গ্রহণ করে। পাশাপাশি যে সকল মটর সাইকেল চালক ট্রাফিক আইন মান্য করে সড়কে চলাচল করে,তাদের হাতে পরিবেশ রক্ষাকারী নিম গাছের চারা তুলে দেন। চারা গ্রহণকারী মটর সাইকেল চালক মনিরুজ্জামান বলেন,পুলিশের এ উদ্যোগকে সাধুবাদ জানাই। তিনি বলেন,সারা বাংলাদেশে এ ধরণের উদ্যোগ ছড়িয়ে পড়–ক। চারাগ্রহণকারী অপর চালক মিজানুর বলেন, দুষ্টের দমন ও শিষ্টের পালন হোক। অর্থাৎ ভাল কাজের পুরস্কার ও মন্দ কাজের শাস্তির মাধ্যমে মহাসড়ক হোক সকলের জন্য নিরাপদ। ওসি আতাউর রহমান বলেন, পরিবেশ রক্ষার কাজ ও সড়ক নিরাপত্তা বিধান দুই- ই হলো। পাশাপাশি দেশ সেবার কাজটি করতে পারলাম।

তালায় সম্পত্তির দখল নিয়ে দু’পক্ষের উত্তেজনা চরমে

তালা প্রতিনিধি : সাতক্ষীরার তালা উপজেলার জালালপুর এলাকার একটি বিবাদমান সম্পত্তির দখল-পাল্টা দখলের আশংকায় মামলা, অপর পক্ষের দাবি তাদের পৈত্রিক ও খরিদা সূত্রে প্রাপ্ত সম্পত্তির জোরপূর্বক দখল বজায় রাখতে বিভিন্ন মামলায় তাদেরকে হয়রাণি করা হচ্ছে। সর্বশেষ ঘটনায় উভয় পক্ষের মধ্যে টান টান উত্তেজনা বিরাজ করা হচ্ছে।
উপজেলার জালালপুর গ্রামের বংশীবদন রায়ের ছেলে বলদেব রায় অভিযোগ করেন যে,একই এলাকার মৃত ফণি ভূষণ সিংহের ছেলে নারায়ন সিংহ,তার দু’ছেলে অশোক সিংহ ও দিপক সিংহ,স্ত্রী নমিতা সিংহ,মাগুরার মৃত কোমল কান্তি রাহার স্ত্রী মিনতি রাহা ও পাইকগাছার কাশিমনগর গ্রামের মৃত শৈলেন্দ্র নাথ বিশ্বাসের স্ত্রী নমিতা বিশ্বাস ও তার ছেলে চিত্তরঞ্জন বিশ্বাস সংঘবদ্ধভাবে তার দখলীয় জালালপুর মৌজার জেএল নং-৮৪ বর্তমান ৬১৯ খতিয়ানের ৬০৯,৬০৮,৭১২ দাগের ১.২৭ একর সম্পত্তি জবর দখলের হুমকি দিলে তিনি ২৮ মার্চ ১৯’ সাতক্ষীরা জেলা ম্যাজিস্ট্রেট আদালতে ১৪৫ ধারায় একটি মামলা দায়ের করেন। যার নং-৪২৩/১৯। এর পরিপ্রেক্ষিতে বিজ্ঞ আদালত শান্তি শৃঙ্খলা পরিস্থিতি রক্ষার্থে তালা থানা অফিসার ইনচার্জকে নির্দেশ দেন। তার অভিযোগ,আদালতের নির্দেশ উপেক্ষা করে বিবাদীরা ফের ৯ জুন (রবিবার) ভোর ৫ টার দিকে দেশীয় অস্ত্র-শস্ত্রে সজ্জিত হয়ে উক্ত বিবাদমান সম্পত্তির দখল নিতে সেখানকার সুপারি গাছ ও বাঁশ কাটতে থাকে। এক পর্যায়ে তিনি ও তার লোকজন বাঁধা দিলে তারা তাদেরকে মারতে উদ্যত হয় ও বিভিন্ন হুমকি-ধামকি প্রদর্শন করে। এঘটনায় বলদেব রায় রবিবার তালা থানায় একটি লিখিত অভিযোগ করেছেন।
এদিকে নারায়ন সিংহ’র ছেলে দীলিপ ও অশোক কুমার সিংহ ও মৃত শৈলেন্দ্রনাথ বিশ্বাসের ছেলে চিত্তরঞ্জন বিশ্বাস অভিযোগ করে বলেন,বলদেব বিবাদমান সম্পত্তির কোন অংশের মালিক নয়,প্রকৃত পক্ষে জালালপুর মৌজার সিএস ২৫৮ খতিয়ানের ৩০৭ দাগে.২৯ শতক,৩৩৪ দাগে ৮০ শতক, ৩৬৩ দাগে ২৬ শতক ও ৩৭০ দাগে ৩৪ শতক মোট ৪টি দাগে ১.৬৯ একর সম্পত্তির মূল প্রজা ছিলেন,জালালপুরের রজনী কান্ত পরামানিক। তিনি জীবদ্দশায় ১৯৩৫ সালের ২৮ ফেব্রুয়ারী ৩৫৩ নং পাট্টা দলিল মূলে তার একমাত্র কন্যা বনচারী দাসীকে মালিকানা হস্তান্তর করেন। তার জীবদ্দশায় উক্ত সম্পত্তির ভোগ দখলে থাকাবস্থায় এস,এ ২৯২ নং খতিয়ানে উক্ত ১.৬৯ একর সম্পত্তি তার নামে যথাযথভাবে রেকর্ড সম্পন্ন হয়। এরপর বনচারী দাসী গত ৩/২/৭৫ সালে ৬২৮ নং দানপত্র দলিল মূলে ৩৩৪ দাগের সাড়ে ১৬ শতক জমি নারায়ন প্রসাদ সিংহকে হস্তান্তর করেন। এরপর বনচারী জনৈক গৌরদাসকে আরো ২৬ শতাংশ জমি হস্তান্তর করে বাকী ১.২৭ শতক জমিসহ এক মাত্র মেয়ে কুসুম বিশ্বাসকে রেখে মৃত্যু বরণ করেন। পরে কুসুমের ২ মেয়ে নমিতা বিশ্বাস ও মিনতি রাহা সমুদয় সম্পত্তির মালিকানা থাকাবস্থায় মিনতি রাহা অর্থের প্রয়োজনে গত ২৫/৬/১৮ সালে ওয়ারেশ সূত্রে প্রাপ্ত সম্পত্তির সাড়ে ৬৩ শতাংশ সম্পত্তি ২২৩৭ নং কোবলা দলিল মূলে অশোক সিংহ ও দিলীপ কুমার ওরফে দীপক সিংহর নিকট মালিকানা হস্তান্তর করেন। একই দিন নমিতা তার প্রাপ্য বাকী ৩১ দশমিক ৩/৪ শতাংশ সম্পত্তি তারই সহোদর বোন নমিতাকে মালিকানা হস্তান্তর করেন। সর্বশেষ নমিতা তার ওয়ারেশ ও দানপত্র দলিল মূলে প্রাপ্ত সাড়ে ৬৩ শতাংশ জমির সমুদয় অংশ তার বড় ছেলে চিত্তরঞ্জন বিশ্বাসকে ২৫/৬/১৮ তারিখে ২২৪৮ নং দলিলমূলে মালিকানা হস্তান্তর করেন। এরপর স্ব স্ব দলিল মালিকরা নিজ নিজ নামে রেকর্ড সংশোধন করে নিয়েছেন।
তাদের অভিযোগ,এরপরও বলদেব রায় সমুদয় সম্পত্তির অবৈধ দখল বজায় রাখতে একের পর এক বিভিন্ন আদালতে মিথ্যা মামলা দায়ের করে তাদেরকে হয়রাণি অব্যাহত রেখেছেন। তারা এব্যাপারে স্থানীয় প্রশাসনের জরুরী হস্তক্ষেপ কামনা করেছেন।
এব্যাপারে তালা থানা অফিসার ইনচার্জ মেহেদী রাসেল বলেন,উভয় পক্ষকে শান্তি শৃংখলা পরিস্থিতি বজায় রাখতে উভয় পক্ষকে নির্দেশ দেয়া হয়েছে।

তালায় শিশুসহ ও গৃহবধুকে মারপিঠ

তালা প্রতিনিধি : তালার পল্লীতে পূর্বশত্রুতাকে কেন্দ্র করে দেড় বছরের শিশুসহ এক গৃহবধুকে পিটিয়ে আহত করেছে প্রতিপক্ষরা। ঘটনাটি ঘটেছে শনিবার (৮ জুন) দুপুরে উপজেলার মাছিয়াড়া গ্রামে। আহতরা হলেন, মাছিয়াড়া গ্রামের ছাত্তার শেখের মেয়ে তাছলিমা বেগম(২৮) ও তার ১৭ মাস বয়সের শিশু পুত্র তৈবির। বর্তমানে তারা তালা উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে চিকিৎসাধীন রয়েছে। এঘটনায় মামলার প্রস্তুতি চলছে।
আহত তাছলিমা বেগম জানান, ঈদে তার বাবা ছাত্তার শেখের বাড়িতে বেড়াতে আসে। শনিবার দুপুরে বাড়ি থেকে বের হয়ে প্রতিবেশি কোহিনুর বিশ্বাসের ছেলে বাবু বিশ্বাসের বাড়ির উপর দিয়ে পাশে বেড়াতে যায়। এদিকে পূর্বে তাছলিমার জামাই রহমত বিশ্বাস ও কোহিনুর বিশ্বাসের সাথে জমি-জমা সংক্রান্ত বিরোধ থাকায় তাছলিমা বাড়িতে ফেরার পথে পরিকল্পিত ভাবে ওৎপেতে থাকা কোহিনুর বিশ্বাসের ছেলে বাবু বিশ্বাস অর্তিকিত ভাবে লাঠি দিয়ে তাছলিমা বেগম কে বেধড়ক মারধর করে। তখন তার কোলে থাকা ১৭ মাস বয়সের শিশু তৈবির কে লাঠি দিয়ে বাম হাতে আঘাত করলে তৈবির মারাত্মক ভাবে আহত হয়। এসময় স্থানীয়রা তাদের উদ্ধার করে তালা উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করে।
তালা উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের আব্যাশিক মেডিকেল অফিসার ডাঃ রাজিব সরদার জানান, তাছলিমার শরীরের বিভিন্ন স্থানে ক্ষত হয়েছে। কিন্তু বাচ্চটির বাম তাহে মারাত্মক আঘাত পেয়েছে এক্সেরে না করে বলা যাবে না ভেঙ্গে গেছে কিনা।
তালা থানা অফিসার ইনচার্জ মেহেদী রাসেল জানান, এঘটনায় এখনও পর্যন্ত থানায় কোন লিখিত অভিযোগ পায়নি। তবে অভিযোগ পেলে আইনগত ব্যভস্থা গ্রহণ করা হবে।

বান্ধবীর বাড়ি বেড়াতে  এসে দু’কিশোরী শ্লীলতাহানী শিকার 

বাগেরহাট: ঈদে বান্ধবীর বাড়ি বাগেরহাটের শরণখোলায় বেড়াতে এসে কতিপয় চাঁদাবাজ সন্ত্রাসীর হাতে শ্লীলতাহানী ও মারধরের শিকার হয়েছে অন্তঃসন্তা পিংকি (১৭) ও হাফিজা (১৫) নামের দু’কিশোরী। এমনকি আপত্তিকর ছবি তুলে হুমকি দিয়ে বলা হয়-ঘটনা প্রকাশ করলে ছবিগুলো নেটে ছেড়ে দেয়া হবে। এঘটনায় বাঁধা দেয়ায় অপর বান্ধবীর পিতা, মাতা ও ভাবী সুমিসহ ১১জনকে মারধর করে আহত করা হয়েছে। এদের মধ্যে পিংকি ও সুমি আকতারকে শরণখোলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করা হয়েছে। এ ঘটনায় এলাকায় তোলপাড় সৃস্টি হয়েছে।

শরণখোলা উপজেলার মধ্য খোন্তাকাটা গ্রামের মোশারেফ হোসেন বলেন, তার মেয়ে বেবী আকতার ঢাকার কেরানীগঞ্জে চাকুরী করার সুবাদে ওই এলাকার অপর চাকুরীজীবি পিংকি আকতার ও হাফিজা আকতার মিলে এক সঙ্গে ভাড়াকৃত বাসায় বসবাস করেন। গত ঈদের ন্যায় এবারের ঈদে পিংকি ও হাফিজা তার মেয়ে বেবীর সাথে তার বাড়ি উপজেলার মধ্য খোন্তাকাটায় বেড়াতে আসেন। এসময় এলাকার বখাটে জসিম উদ্দিন ও সোহেলের নেতৃত্বে ওয়ার্ড আওয়ামী লীগের সাধারন সম্পাদক নুরুল ইসলাম দর্জি, মিজান সরদার, ইয়াকুব মিস্ত্রি, এলাকার মহিলা মেম্বর রোকেয়া বেগম ও চৌকিদার সগির হোসেনসহ কতিপয় চাঁদাবাজ বখাটে শুক্রবার রাত ৯টার দিকে নস্টা মেয়ে আখ্যা দিয়ে পিংকি ও হাফিজাকে আমার বাড়ি থেকে টেনে হিচড়ে ধরে খোন্তাকাটা বাজারের আনসার ও ভিডিপি ক্লাবে এনে দরজা জানালা বন্ধ করে মারধর, শ্লীলতাহানী  এবং ২০ হাজার টাকা চাঁদা দাবী করে। এসময় হাফিজা ও পিকির  আপত্তিকর ছবি তুলে শাসিয়ে বলা হয়-সাংবাদিক কিংবা কেউকে ঘটনা জানালে এ ছবি নেটে ছেড়ে হবে।
এ বিষয়ে মহিলা মেম্বর রোকেয়া কিশোরী দেরকে জসিম ও সোহেল শ্লীলতাহানি করার কথা স্বীকার করে নিজেকে নির্দোষ দাবী করেন। অপরদিকে, ঘটনার নেতদৃত্বদানকারী জসিম নীজেকে নির্দোষ দাবী করে বলেন, নুরুল ইসলাম ও রোকেয়া দু’জনে তাদেরকে ঘটনাস্থলে নিয়ে যান। নুরুল ইসলাম ওদের কাছে ৫ হাজার টাকা চাঁদা দাবী করেছিলেন। তবে, নুরুল ইসলাম এসব বিষয় অস্বীকার করেছেন।
এ সময় ঘটনার প্রত্যক্ষদর্শী এলাকার ইউপি সদস্য হাসানুজ্জামান জমাদ্দার ও ইউনিয়ন যুবলীগের সভাপতি এনামুল জমাদ্দার কবির ও স্থানীয় যুবলীগ নেতা তরিকুল ইসলাম অপু মারধর ও শ্লীলতাহানীর কথা স্বীকার করে বলেন, তারা এদেরকে নিবৃত্ত করার শেষ চেস্টা করেও ব্যর্থ হয়ে থানা পুলিশকে খবর দেন। পরে পুলিশ এসে আহতদের উদ্ধার করেন। মোশারেফ হোসেন ক্ষোভ প্রকাশ করে বলেন, সন্ত্রাসীরা ইউপি চেয়ারম্যান মহিউদ্দিন খাঁনের লোক বিধায় থানা থেকে শালিস করার কথা বলে নিয়ে এসে কালক্ষেপন করছেন।
শরণখোলা থানার অফিসার ইনচার্জ দিলীপ সরকার জানান, ঘটনার খবর পেয়ে ঘটনাস্থলে পুলিশ পাঠানো হয়েছিল। স্থানীয় চেয়ারম্যান মিমাংসার কথা বলে উভয় পক্ষের দায়ীত্ব নেন। যদি সমাধান না হয় তাহলে এজাহার দিলে মামলা দায়ের করা হবে।#

ওসি মোয়াজ্জেমকে আটকের চেষ্টা চলছে

ঢাকা অফিস : নুসরাত হত্যার ঘটনায় জড়িত ওসি মোয়াজ্জেমকে গ্রেপ্তারের চেষ্টা করা হচ্ছে বলে জানিয়েছেন স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খাঁন কামাল। রবিবার ঈদের ছুটির পর প্রথম কর্মদিবসে সচিবালয়ে সাংবাদিকদের এ কথা জানান তিনি।

স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী বলেন, ‘আমরা কাউকেই ছাড়া দিচ্ছি না। যে ওসির কথা বলা হচ্ছে তার নামেও মামলা হয়েছে, চার্জশীটেও তার নাম আছে। সে যতখানি অপরাধ করেছে, তার বিরুদ্ধে সে ধরণের ব্যবস্থা সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষ এবং আদালতের মাধ্যমেই নেয়া হবে।’

এ সময় মন্ত্রী আরও বলেন, প্রধানমন্ত্রীকে আনতে যাওয়া পাইলটের পাসপোর্ট না থাকার বিষয়টি ক্ষতিয়ে দেখা হচ্ছে। এ বিষয়ে দোষীদের শাস্তির আওতায় আনা হবে বলেও জানিয়েছেন স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী।

গ্যাসের দাম বাড়তে পারে

ঢাকা অফিস : গ্যাসের দাম বৃদ্ধির এবং গ্যাসের সব মিটার প্রিপেইড করার উদ্যোগ নেয়া হয়েছে বলে জানিয়েছেন বিদ্যুৎ, জ্বালানি ও খনিজ সম্পদ প্রতিমন্ত্রী নসরুল হামিদ বিপু। রবিবার ঈদের ছুটি শেষে সকালে সচিবালয়ে প্রথম কর্মদিবসে সাংবাদিকদের একথা বলেন তিনি।

প্রতিমন্ত্রী বলেন, ‘গ্যাসের দামটা সমন্বয় করা দরকার। আমরা বাংলাদেশ এনার্জি রেগুলেটরি কমিশনে (বিইআরসি) গ্যাসের দামের বিষয়টি সাবমিট করেছি। এখন সম্পূর্ণ তাদের ওপর নির্ভর করছে তারা গ্যাসের দাম সমন্বয় করবে কি না। আমরা অপেক্ষায় আছি।’

তিনি বলেন, ‘গ্যাসের দাম আমরা সমন্বয় করতে চাচ্ছিলাম এ জন্য যে গ্যাস আমরা আমদানি করছিলাম এতো দিন ধরে, এখানে গ্যাসে আমরা ১৪ হাজার কোটি টাকার মতো ব্যয় করে ফেলেছি। এখন সামনে আরো ১৪ হাজার কোটি টাকা লাগবে। এই টাকাটা আসবে কোথা থেকে? গ্রাহকের কাছ থেকে তো আগের দামে সেই টাকায় আসছে না। সুতরাং যদি সমন্বয় না করেন, সে ক্ষেত্রে সমস্যা দেখা দেবে।’

এ সময় প্রতিমন্ত্রী আরও বলেন, পুরো ঢাকা শহরকে প্রিপেইড গ্যাস সংযোগের আওতায় আনার চেষ্টা চলছে। এজন্য পুরানো গ্যাসলাইন পরিবর্তন করে নতুন লাইন স্থাপন করা হবে বলেও জানান তিনি।

সচিবালয়ে মরা ইঁদুরে বিপত্তিতে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী

ঢাকা অফিস : ঈদের সরকারি ছুটিতে সচিবালয় ছিল বন্ধ। এই ছুটিতে সচিবালয়ে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীর কক্ষ বন্ধ ছিল পাঁচ দিন। ছুটি শেষে প্রথম কর্মদিবসে অফিসে এসেই বিপত্তিতে পড়লেন স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খাঁন কামাল।

স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয় ভবনের চতুর্থ তলায় মন্ত্রীর কক্ষে মরে পড়ে ছিল একটি ইঁদুর। তবে কবে মরেছে তা বোঝার উপায় নেই। তীব্র দুর্গন্ধে ওই ঘরে আর কাজ করার মতো অবস্থা নেই। ফলে রবিবার সকালে অফিসে এসে নিজের কক্ষে ঢুকতেই পারেননি স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী।

সাধারণত ঈদের পর প্রথম কর্মদিবসে নিজের ঘরেই কর্মকর্তা আর সাংবাদিকদের সঙ্গে শুভেচ্ছা বিনিময় করেন স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খাঁন কামাল। কিন্তু ইঁদুর বিপত্তিতে এবার নিজের কক্ষের পাশে ছোট আরেকটি কক্ষে মতবিনিময়ের আনুষ্ঠানিকতা সম্পূর্ণ মন্ত্রী।

স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীর অফিস কক্ষের বাইরে দায়িত্বে থাকা পুলিশ সদস্য আমিনুল সাংবাদিকদের বলেন, সকালে কক্ষ খোলার পর মরা ইঁদুরটি দেখতে পান তারা।

তিনি বলেন, ‘মনে হয় কয়েক দিন আগেই মারা গেছে। পচে দুর্গন্ধ বের হচ্ছিল। তখনই ওটা সরিয়ে ফেলা হয়, কিন্তু দুপুরেও দুর্গন্ধ যায়নি। মন্ত্রীর রুমের জালানাগুলো ফিক্সড লক করা, তাই খোলা যাচ্ছে না। বাতাস চলাচলের জন্য আপাতত দরজা খুলে রাখা হয়েছে।’

পরিস্থিতি দেখতে কয়েকজন সাংবাদিকও মন্ত্রীর কক্ষে ঢুকেছিলেন। কিন্তু তীব্র দুর্গন্ধে তারা আর ভেতরে দাঁড়াতে পারেননি।

ওই ভবনের বিভিন্ন কক্ষে ইঁদুরের উৎপাত আছে। ইঁদুর মারার জন্য মন্ত্রীর কক্ষে আঠা দিয়ে ফাঁদও পাতা হয় মাঝেমধ্যে। সেরকম ফাঁদে পড়েও ইঁদুরটির মৃত্যু হয়ে থাকতে পারে বলে জানান পুলিশ সদস্য আমিনুল।

বটিয়াঘাটায় ঈদুল ফিতর ব্যাপক উৎসাহ উদ্দীপনার মধ্যদিয়ে উদযাপিত

ইন্দ্রজিৎ টিকাদার বটিয়াঘাটা থেকেঃ বটিয়াঘাটা উপজেলায় মুসলিম সম্প্রদায়ের সর্ববৃহৎ ধর্মীয় উৎসব ঈদুল ফিতর ব্যাপক উৎসাহ উদ্দীপনার মধ্যদিয়ে উদযাপিত হয়েছে। সাম্প্রদায়িক সম্প্রীতির উজ্জ্বল দৃষ্টান্ত এ উপজেলা হিন্দু-মুসলিম-বৌদ্ধ-খ্রীষ্টান সকল সম্প্রদায় মিলে ঈদুল ফিতর উৎসব পালন করেছে। ধর্ম যার যার উৎসব সবার এই শ্লোগান কে সামনে রেখে এবং সাম্প্রদায়ীক সম্প্রতির উজ্জ্বল নিদর্শনকে আরো বেশী করে বন্ধন অটুট রাখতে হিন্দু মুসলিম একে অপরের ধর্মীয় উৎসবে শরীক হয়ে ঈদের আনন্দকে ভাগাভাগি করে নিয়েছে। অন্যদিকে ঈদের দিনে দুর্যোগ পূর্ণ আবহাওয়া থাকায় ঈদের পরের দিন থেকে বিনোদন কেন্দ্র গুলোতে উপছে পড়া ভিড় লক্ষ করা গেছে। বিশেষ করে উপজেলা সদরের শিশু পার্ক, গোপালখালী রির্সোস সেন্টার, মাথাভাঙ্গা শেখ রাসেল ইকোপার্ক, ভূতের আড্ডা পার্ক, স্বপ্নের সেতু রূপসা ব্রীজ এবং শৈলমারী ব্রীজের উপর দর্শনার্থীদের উপছে পড়া ভিড় দেখা গেছে। অপর দিকে জলমা ইউনিয়নে ৩৫টি ঈদ গাহ সহ উপজেলা কেন্দ্রীয় মস্জিদ, বালিয়াডাঙ্গা, সুরখালী, গঙ্গারামপুর, আমিরপুর,ভান্ডারকোর্টে বিভিন্ন ঈদগাহে ঈদের নামাজ আদায় করে একমাস ব্যাপী রমজানে রোজা রাখা ও সিয়াম সাধানায়রত সংযমী ধর্মপ্রাণ মুসল্লীগন। এ সময়ে উপজেলা কেন্দ্রীয় ঈদগাহে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা আহমেদ জিয়াউর রহমান ও থানা অফিসার ইনচার্জ মোঃ রবিউল কবির ঈদের নামাজ আদায় করে সকলের সাথে কুশল বিনিময় করেন। ঈদুলফিতর যাতে সুন্দর ভাবে উৎযাপিত হয় এবং কোন প্রকার নাশকতা না ঘটে সে জন্য আইন-শৃংঙ্খলা বাহিনীর পক্ষ থেকে ব্যাপক প্রস্তুতি গ্রহণ করা হয়েছে বলে জানা যায়। এ ব্যাপারে থানা অফিসার ইনচার্জ মোঃ রবিউল কবির জানান ঈদুল ফিতর সুন্দর ও সার্থক করতে কোন প্রকার নাশকতা না ঘটে সেজন্য থানা পুলিশের টহলদল, বিভিন্ন ফাড়ি, ক্যাম্প, সাদা পোশাকে গোয়েন্দা পুলিশ, র‌্যাব সহ সকল মানুষের সহযোগীতা করায় আইন-শৃঙ্খলা পরিস্থিতি স্বাভাবিক রয়েছে। এব্যাপারে উপজেলা আইন-শৃঙ্খলা কমিটির সভাপতি ও উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা আহমেদ জিয়াউর রহমান জানান, এ বছর ঈদুল ফিতর উৎসব সকলের সহযোগীতায় সুন্দর ভাবে উদযাপিত হয়েছে। আইন-শৃঙ্খলার কোন অবনতি ঘটায় সকল রাজনৈতিক দলের নেতাকর্মী, জনপ্রতিনিধি সংবাদকর্মী সহ সকল ধর্ম প্রাণ সাধারণ মানুষকে ধন্যবাদ জানিয়েছেন।

দাকোপে কৃতি শিক্ষার্থীদের সংবর্ধনা

দাকোপ প্রতিনিধি : “ চাই শুদ্ধ বিবেক চাই আলো ” এই প্রতিপাদ্যকে সামনে রেখে দাকোপে স্বেচছাসেবী সংগঠন দ্যা ভয়েস অফ দাকোপের আয়োজনে কৃতি শিক্ষার্থীদের সংবর্ধনা দেওয়া হয়েছে।
রবিবার সকাল ১০ টায় দাকোপ উপজেলা পরিষদ অডিটোরিয়ামে সংগঠনের সহসভাপতি ডাঃ সুমিত রায়ের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তৃতা করেন উপজেলা সহকারী কমিশনার ভূমি সঞ্জিব দাস। সংগঠনের সাংস্কৃতিক সম্পাদক উত্তম বিশ্বাসের সঞ্চালনায় অনুষ্ঠানে সম্মানিত অতিথি হিসেবে বক্তৃতা করেন উপজেলা শিক্ষা কল্যাণ ট্রাষ্টের সাধারণ সম্পাদক শেখ নুরুল ইসলাম। বিশেষ অতিথির বক্তৃতা করেন উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষা অফিসার সোহেল হোসেন, বাজুয়া এল বিকে কলেজের প্রভাষক ও দ্যা ভয়েস অফ দাকোপের উপদেষ্টা সবুজ কান্তি শীল, উপজেলা সাব রেজিষ্টার দেবদ্যুতি রায়, চৌগাছা উপজেলা সাব রেজিষ্টার নারায়ন চন্দ্র মন্ডল, দাকোপ প্রেসক্লাবের সভাপতি শচীন্দ্রনাথ মন্ডল। বক্তৃতা করেন দাকোপ প্রেসক্লাবের সাবেক সাধারণ সম্পাদক আজগর হোসেন ছাব্বির, শিক্ষক শশাংক শেখর ঢালী, মানিক চন্দ্র গাইন, স্বপন মহলদার, শেখর কান্তি রায়, শচীন্দ্রনাথ মন্ডল, সংগঠনের সদস্য রাজু আহম্মেদ (ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়), বিকাশ দাস (খুলনা বিশ্ববিদ্যালয়), দিগন্ত রায় (চট্রগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়), রিয়াজ রহমান শুভ (বাগেরহাট পিসি কলেজ), অরুনাভ রায়, ভাস্কর বিশ্বাস, াপনাক মন্ডল (ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয়), প্রতীকা মন্ডল (খুলনা বিশ্ববিদ্যালয়), তীর্থ প্রতিম বিশ্বাস (ফরিদপুর মেডিকেল কলেজ), গৌরাঙ্গ, স্মৃতিকনা, প্রলয় মজুমদার, কানাই মন্ডল, অলোকেশ রায় এবং কৃতি শিক্ষার্থীদের মধ্যে অদিতি রায়, অনুপম মন্ডল, বণ্যা সাহা প্রমুখ বক্তৃতা করেন। অনুষ্ঠানে সংগঠনের পক্ষ থেকে এ বছর দাকোপ থেকে এসএসসি পরিক্ষায় জিপিএ-৫ প্রাপ্ত ৬৮ জন পরিক্ষার্থীকে ক্রেস্টসহ সংবর্ধনা দেওয়া হয়।