হুইপ পঞ্চানন বিশ্বাস এমপির সুস্থতায় প্রার্থনা সভা

ইন্দ্রজিৎ টিকাদার, বটিয়াঘাটা : সকলের প্রার্থনা ও ভালবাসায় মহান সৃষ্টিকর্তার কৃপায় আপনাদের মাঝে ফিরিয়ে আসতে পেরে পরম করুনাময়ের নিকট কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করছি। কৈশোর কালীন থেকেই ছাত্র রাজনীতি দিয়েই এ অঞ্চলের মানুষের অধিকার প্রতিষ্ঠায় সারা জীবন নিজেকে লোভ লালসার উর্দ্ধে থেকে আপনাদের সেবা দিয়ে গেছি। হয়তো আপনাদের সেই ভালবাসায় সৃষ্টিকর্তা পূনরায় আমাকে সুস্থ্য করে আপনাদের মাঝেই ফিরিয়ে এনেছেন। আপনাদের এই ভালবাসা আমার সারা জীবনের পাথেয় হয়ে থাকবে। কথাগুলি বলেছেন মহান জাতীয় সংসদের হুইপ ও জেলা আওয়ামীলীগের সহ-সভাপতি পঞ্চানন বিশ্বাস এমপি। তিনি সোমবার বিকাল ৫ টায় বটিয়াঘাটা বাজার নাট মন্দির প্রাঙ্গনে দীর্ঘদিন যাবৎ গুরুতর অসুস্থ্য হয়ে রাজধানী ঢাকায় স্কয়ার হাসপাতালে চিকিৎসাধীন থেকে সুস্থ্য হয়ে তার নির্বাচনী এলাকায় ফিরে আসায় এলাকাবাসীর আয়োজনে মহান সৃষ্টিকর্তার নিকট কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করে এক বিশেষ প্রার্থনা সভায় প্রধান অতিথির বক্তৃতায় এ কথা বলেন। সদর ইউপি চেয়ারম্যান আ’লীগ নেতা মনোরঞ্জন মন্ডলের সভাপতিত্বে ও হিন্দু বৌদ্ধ খিষ্ট্রান ঐক্য পরিষদের উপজেলা সভাপতি অধ্যাঃ মনোরঞ্জন মন্ডল এবং পূজা উদযাপন পরিষদ নেতা অলোক মল্লিকের সঞ্চলনায় অনুষ্ঠিত সভায় বক্তৃতা করেন উপজেলা আ’লীগের সাবেক সাধারন সম্পাদক রবীন্দ্রনাথ ঢালী, ডাঃ তারিনী কান্ত মন্ডল, সাবেক ইউপি চেয়ারম্যান শিবপদ মন্ডল, এড.নিহার রঞ্জন মল্লিক, উপজেলা প্রেসক্লাবের সভাপতি প্রতাপ ঘোষ, সাধারণ সম্পাাদক ইন্দ্রজিৎ টিকাদার, হুইপ তনয় শিক্ষক পল্লব বিশ্বাস রিটু, অধ্যক্ষ নির্মলেন্দু বিশ্বাস, প্রধান শিক্ষক অনিল কুমার মন্ডল, আনন্দ মোহন বিশ্বাস, আ’লীগ নেতা পলাশ রায়, প্রাথমিক শিক্ষক সমিতির সভাপতি সমীর মন্ডল, সাধারণ সম্পাদক ধীমান মন্ডল, অবঃ সহকারী পুলিশ সুপার নিখিল চন্দ্র মন্ডল, সাবেক ইউপি চেয়ারম্যান সমীর সরকার, এড. অশোক পাল, এড. অনাদী মন্ডল, মাধ্যমিক শিক্ষক সমিতির সাধারণ সম্পাদক পঙ্কজ বিশ্বাস, আ’লীগনেতা নারয়ান সরকার, মানস পাল,যুবলীগের আহ্বয়ক অনুপম বিশ্বাস সাবেক মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান ভগবতী গোলদার, সমাজ সেবক পিয়াস মন্ডল, সাবেক ইউপি সদস্য খোকন মল্লিক, সুবির মল্লিক, ইউপি সদস্য অশোক মন্ডল, রবীন বৈরাগী, নজরুল ইসলাম খাঁন, ফারুক হাওলাদার, বিশ্বজিৎ ঢালী, হাজরাকালী রায়, সাংবাদিক পরিতোষ রায়, সাংবাদিক ইমারান হোসেন, সাংবাদিক বুদ্ধদেব মন্ডল, হিমাদ্রী বিশ্বাস হিমু, ইন্দ্রজিৎ রায়, সমর বাছাড়, দেবু বালা, মানবাধিকার কর্মী সরদার হাফিজুর রহমান, ব্যবসায়ী রঞ্জন মিস্ত্রী,প্রীতিশ মিস্ত্রী, মাছ বাজার সমিতির সভাপতি নিখিল মিস্ত্রী, পার্থ বিশ্বাস প্রমূখ।

খুলনায় পুলিশ দম্পত্তির বাসা থেকে ফেনসিডিল উদ্ধার : স্ত্রী আটক

নিজস্ব প্রতিবেদক : খুলনা মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ অধিদপ্তরের মাদক বিরোধী অভিযান চালিয়ে পুলিশ দম্পত্তির বাসা থেকে ৬ বোতল ফেনসিডিল উদ্ধার করা হয়েছে। এ সময় পুলিশ কনস্টেবলের স্ত্রী বিলকিস (৩০) কে আটক করা হয়েছে। সোমবার সকাল ৯টার দিকে নগরীর সোনাডাঙ্গা আবাসিক এলাকা ২য় ফ্রেজে হাসানুল বাড়িরতে অভিযান চালিয়ে তাকে আটক করে। সেই ওই বাড়ির ভাড়াটিয়া হিসেবে বসাবস করতো।
জেলা মাদকদ্রব্য নিয়ন্দ্রণ অধিদপ্তরের সূত্র মতে, সংস্থার উপ-পরিচালক মোঃ রাশেদুজ্জামানের তত্ত্বাবধানে ‘ক’ সার্কেলের পরিদর্শক হাওলাদার মোহাম্মদ সিরাজুল ইসলামের নেতৃত্বে একটি টিম গোপন সংবাদের ভিত্তিতে অভিযান পরিচালনা করেন। এ সময় খুলনা মেট্রোপলিটন পুলিশ (কেএমপি) কনস্টেবল ওর্য়ালেস অপারেটর রুহুল আমিনের স্ত্রী বিলকিসকে ৬ বোতল ফেনসিডিলসহ আটক করেন।
পরিদর্শক হাওলাদাম মোহাম্মদ সিরাজুল ইসলাম বলেন, এর ২ মা আগেও আগে বিলকিস সিএন্ডবি কলোনী থাকা অবস্থায় ফেনসিডিলসহ আটক হন। তার স্বামী ( কেএমপি)তে ওয়ারলেস ওপারেটর হিসেবে কর্মরত আছেন। তারা স্বামী-স্ত্রী মিলে ফেনসিডিল ব্যবসা করতেন। এ ব্যাপারে সংশ্লিস্ট থানায় স্বামী-স্ত্রীর বিরুদ্ধে মাদকের আইনের মামলা দায়ের করা হয়েছে।

কলারোয়ায় কৃষক পরিবারে ৪সদস্যকে পিটিয়ে জখম

কলারোয়া(সাতক্ষীরা)প্রতিনিধি: সাতক্ষীরার কলারোয়ায় জমি জমা সংক্রান্তের জের ধরে এক কৃষক পরিবারে ৪সদস্যকে পিটিয়ে জখম করেছে সন্ত্রাসীরা। ঘটনাটি ঘটেছে-রোববার সকাল ৯টার দিকে উপজেলার কুশোডাঙ্গা ইউনিয়নের শাকদহ গ্রামে। জানা গেছে- উপজেলার শাকদহ গ্রামের নিরহ কৃষক আ: সবুর খানের জমি নিয়ে দীর্ঘ দিন ধরে প্রতিপক্ষ জিন্নাত খানের সহিত বিরোধ চলে আসছে। এরই জের ধরে রোববার সকাল ৯টার দিকে জিন্নাত খান, মহাসিন খান, ইমুন খান, পারুল খাতুনসহ ১০/১২ দলবেধে তাদের বাড়ীতে এসে গালি গালাজ শুরু করে। এতে প্রতিবাদ করাতে তারা ক্ষিপ্ত হয়ে আ: সবুর খান (৫০), তহমেনা খাতুন (২৩), রাব্বি খান (২০) ও সাঈদ খান (২৫) কে ধরে এলোপাতাড়ী ভাবে পিটিয়ে জখম করে ফেলে রেখে চলে যায়। পরে স্থানীয়দের সহযোগিতায় আহতরা কলারোয়া হাসপাতালে ভর্তি হয়। এঘটনায় কলারোয়া থানায় একটি অভিযোগ দায়ের হয়েছে।

বাগেরহাটে ৫৫ লিটার মদসহ মাদক ব্যবসায়ী আটক

বাগেরহাট প্রতিনিধি : বাগেরহাটে ৫৫ লিটার চোলাই মদসহ বিষ্ণু রবিদাস (২৬) নামের এক মাদক ব্যবসায়ীকে আটক করেছে র‌্যাপিড এ্যাকশন ব্যাটালিয়ন (র‌্যাব)। রবিবার রাত সাড়ে দশটার দিকে শহরের নাগের বাজার এলাকার রেলষ্টেশন সুইপার কলোনীতে অভিযান চালিয়ে র‌্যাব-৬ তাকে আটক করে। এসময় ওই স্থানে তল্যাসী করে ৫৫ লিটার চোলাই মদ উদ্ধার করা হয়। আটক বিষ্ণু রবিদাস নাগের বাজার রেলষ্টেশন সুইপার কলোনী এলাকার গনেশ রবিদাসের ছেলে।
র‌্যাব-৬ এর স্পেশাল কোম্পানী কমান্ডার মেজর মোঃ শামীম সরকার জানান, রেলষ্টেশন সুইপার কলোনীতে কতিপয় ব্যক্তি মাদকদ্রব্য ক্রয়-বিক্রয় করিতেছে এমন সংবাদের ভিত্তিতে অভিযান চালিয়ে মাদক ব্যবসায়ী বিষ্ণু রবিদাসকে আটক করা হয়। ওই স্থানে তল্লাসী করে ৫৫ লিটার চোলাই মদ উদ্ধার করা হয়। বিষ্ণু রবিদাস দীর্ঘদিন ধরে বাগেরহাট সদর উপজেলার বিভিন্ন স্থানে মাদক ব্যবসা চালিয়ে আসছে। তার বিরুদ্ধে মাদকদ্রব্য আইনে মামলা দায়েরের প্রস্তুতি চলছে।

ঘুমের ট্যাবলেট খাইয়ে খুলনা বিশ্ববিদ্যালয়ের লাইব্রেরিতে নিয়ে ধর্ষণ

খুলনা অফিস : খুলনা বিশ্ববিদ্যালয়ে চারুকলা ইন্সটিটিউটের লাইব্রেরিতে এক ছাত্রীকে ঘুমের ট্যাবলেট খাইয়ে ধর্ষণের অভিযোগ উঠেছে বিশ্ববিদ্যালয়ের চারুকলা বিভাগের ১৬তম ব্যাচের ছাত্র পাপ্পু কুমারের বিরুদ্ধে।

এই ঘটনার পর ধর্ষিতা ছাত্রীর অভিযোগের প্রেক্ষিতে বিশ্ববিদ্যালয়ের নারী নির্যাতনবিরোধী কমিটি পাপ্পুর বিরুদ্ধে তদন্ত সম্পন্ন করেছে। তার বিরুদ্ধে যথাযথ ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে বলে জানিয়েছে বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষ। পাপ্পু বঙ্গবন্ধু পাঠক ফোরামের খুবি শাখার সভাপতি। ঘটনার পর গত ১৫ জুলাই পাপ্পু বিশ্ববিদ্যালয়ে গেলে ছাত্ররা তাকে মুখে কালি লাগিয়ে গলায় জুতার মালা ঝুলিয়ে ক্যাম্পাস থেকে বের করে দেয়।

সূত্র জানায়, গত ৩ জুলাই খুবির চারুকলা অনুষদে চিত্রকলা প্রদর্শনী ছিল। পাপ্পু প্রদর্শনী দেখানোর নাম করে ওই মেয়েকে ডেকে নেয়। মেয়েটি চারুকলায় যাওয়ার পর তাকে ঘুমের ট্যাবলেট খাইয়ে চারুকলার লাইব্রেরিতে নিয়ে তাকে ধর্ষণ করে। এরপর পাপ্পু নিজের রুমে গিয়ে ঘুমিয়ে পড়ে।

মেয়েটি লাইব্রেরির সিঁড়িতে কান্নাকাটি করার সময় রাত আড়াইটার দিকে দারোয়ান তাকে দেখতে পান। তখন তিনি পাপ্পুকে ডাকার ব্যবস্থা করেন। পরে ধর্ষিতার পরিবার বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্রবিষয়ক পরিচালক বরাবর পাপ্পুর শাস্তি দাবি করে আবেদন করে। তবে পাপ্পু ছাত্রলীগের প্রভাব খাটিয়ে ঘটনাটি ধামাচাপা দেয়ার চেষ্টা করে।

খুবির ছাত্র বিষয়ক পরিচালক প্রফেসর মো. শরীফ হাসান জানান, এই ব্যাপারে বিশ্ববিদ্যালয়ের নারী নির্যাতনবিরোধী কমিটি তদন্ত সম্পন্ন করেছে। খুব শিগগিরই পাপ্পুর বিরুদ্ধে ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।  পাপ্পু খুলনা জেলার পাইকগাছা উপজেলার বাসিন্দা বলে সূত্র জানিয়েছে।

পলিথিন থেকে হবে তেল-গ্যাস-কার্বন

ঢাকা অফিস : একবিংশ শতাব্দীর পৃথিবীর জন্য সবচেয়ে বড় হুমকি হয়ে দাঁড়িয়েছে পলিথিন-প্ল্যাস্টিক বর্জ্য। বাংলাদেশের মত গরিব দেশগুলোর জন্য এটা আরো বেশি ভয়ঙ্কর। পরিবেশ দূষণকারী সেই বর্জ্য পলিথিন থেকে জ্বালানি তেল, গ্যাস ও কার্বন কালো উৎপাদনের পদ্ধতি উদ্ভাবন করেছে রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের একদল শিক্ষার্থী।

বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রাণরসায়ন ও অনুপ্রাণ বিজ্ঞান বিভাগের শিক্ষার্থীদের উদ্ভাবিত এ পদ্ধতিটির নাম পাইরোলাইসিস।

প্ল্যান্টটি তৈরির নেতৃত্বে ‍ছিলেন শিক্ষার্থী আবদুল্লাহ হিল কাফী। কাফী জানান, তার দল টানা প্রায় ৮ মাস পরিশ্রম করে পুরো প্লান্ট প্রস্তুত ও জ্বালানি উৎপাদন করতে সক্ষম হয়েছে। পাইরোলাইসিস প্রক্রিয়ায় ব্যবহৃত মোট বর্জ্য পলিথিন থেকে ৭০-৭৮ শতাংশ ফার্নেস তেল ও ৫-৮ শতাংশ কার্বন কালো পাওয়া যাবে। সেই সঙ্গে ফার্নেস তেল হতে বর্জ্য তেল নিঃসরণ যন্ত্রের সাহায্যে ৬৫ শতাংশ পেট্রল ও ৩০ শতাংশ পরিমার্জিত ডিজেল পাওয়া যাবে। এছাড়াও এই প্রক্রিয়ার সময় প্রাকৃতিক গ্যাসের তুলনায় উচ্চতর ক্যালরি মূল্য সম্পন্ন ১০-১৮ শতাংশ নন-কনডেন্সেবল গ্যাস তৈরি করা সম্ভব।

তরুণ এ গবেষক দল দাবি করছেন, তাদের উৎপাদিত জ্বালানি তেলের ক্যালরিফিক মান ফার্নেসের ক্ষেত্রে ৩৮.৫ মেগাজুল/কেজি ও পেট্রলিয়াম পেট্রলের ক্ষেত্রে ৪২.০৯ মেগাজুল/কেজি। এটি বাংলাদেশ বিজ্ঞান ও শিল্প গবেষণা পরিষদ (বিসিএসআইআর) কর্তৃক পরীক্ষিত। উৎপাদিত এ ফার্নেস তেল শিল্প কল-কারখানায় জ্বালানি উপকরণ হিসেবে এবং খনন যন্ত্র, রাস্তা বেলন বা লোডিং মেশিনের মতো নিম্নগতির ইঞ্জিনগুলোতে পরিমার্জিত ডিজেল ও পেট্রল ব্যবহার করা যাবে।

কার্বন কালো সম্পর্কে কাফী বলেন, ‘কার্বন কালোটি মৃত্তিকা দিয়ে তৈরি ইট বা জ্বালানি হিসেবে ব্যবহার করা যাবে। এই কার্বন কালো প্রক্রিয়াজাত করে উচ্চমূল্য সম্পন্ন এন-২২০ ও এন-৩৩০ কার্বন পাওয়া যায়। এছাড়াও এটি রঙের মাস্টার ব্যাচ হিসেবে পাইপ, ক্যাবল জ্যাকেট প্রভৃতির মৌলিক উপাদান হিসেবে প্রক্রিয়াজাত করা যাবে।’

উদ্ভাবিত এ প্লান্টে খুব বেশি খরচেরও প্রয়োজন নেই। ১ হাজার ৫০০ বর্গফুট জমির মধ্যেই হয়ে যাবে পুরো প্লান্ট। ১ হাজার লিটার পানিতে চলে প্লান্টটি। তাপ ও চাপের নিয়ন্ত্রণ, চুল্লি পরিচালনা ও উৎপাদন তোলার জন্য দুজন মানুষই যথেষ্ট। ডিস্টিলেশন প্লান্টসহ পাইরোলাইসিস প্লান্ট বানাতে খরচ পড়বে ২ লাখ টাকার মতো। প্রতিদিন গড়ে ৪-৭ ঘণ্টায় ৮০ কেজি হিসেবে বছরে ২৪ টন জ্বালানি তেল উৎপাদন করা যাবে এ প্লান্ট ব্যবহার করে। যার মধ্যে ফার্নেস তেল ১৮ টন এবং তা থেকে পেট্রল ১১.৭ টন ও ডিজেল ৩.৮৪ টন, কার্বন কালো ১.৪ টন এবং গ্যাস উৎপাদন হবে ৩.৮৪ টন।

মূলত পরিবেশ দূষণ কমাতেই এই উদ্যোগ নিয়েছিল গবেষক দলটি। এ প্রক্রিয়ায় মাটি, পানি বা বায়ুর কোনো ক্ষতি বা দূষণ হয় না। কাফীর সঙ্গে প্ল্যান্টটি তৈরিতে কাজ করেছেন বিশ্ববিদ্যালয়ের ফলিত রসয়ায়ন বিভাগের মাহমুদুল হাসান, আভিলাষ দাস তমাল, বাবুল চন্দ্র রায়, মাহমুদুল হাসান নামে আরেক শিক্ষার্থী ও বিশ্ববিদ্যালয়ের ল্যাব সহকারী নাসির উদ্দিন আহমেদ লিমন।

সাতক্ষীরায় আ’লীগ নেতাকে গুলি করে হত্যা

সাতক্ষীরা প্রতিনিধি : সাতক্ষীরা সদর উপজেলার আগরদাড়ি ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সহসভাপতি নজরুল ইসলামকে (৪৮) গুলি করে হত্যা করেছে দুর্বৃত্তরা।

আজ সোমবার (২২ জুলাই) বেলা সাড়ে ১১টার দিকে শহরতলীর কাসেমপুর স্টোন ব্রিকস এলাকায় এ ঘটনা ঘটে। নজরুল সদরের কুচপুকুর গ্রামের বাসিন্দা।
সদর থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) মোস্তাফিজুর রহমান জানান, নজরুল সোমবার সকালে বাজার করে মোটরসাইকেলে বাড়ি ফিরছিলেন।

তিনি কাসেমপুর স্টোন ব্রিকস এলাকায় পৌঁছালে সেখানে ওঁৎ পেতে থাকা দুর্বৃত্তরা তাকে লক্ষ্য করে গুলি ছোড়ে। এতে গুলিবিদ্ধ হয়ে কাসেমপুর হাজামপাড়ায় এসে মোটরসাইকেল থেকে পড়ে যান নজরুল। সেখানেই তিনি মারা যান। ঘটনার পরপরই এলাকাবাসী সাতক্ষীরা-বৈকারি সড়ক অবরোধ করে রেখেছে।
তিনি আরও জানান, খবর পেয়ে সাতক্ষীরা অতিরিক্ত পুলিশ সুপার ইলতুৎমিশ ও তিনি দ্রুত ফোর্স নিয়ে ঘটনাস্থলে পৌঁছে নজরুলের গুলিবিদ্ধ লাশ উদ্ধার করেন।
প্রসঙ্গত, এর আগে নজরুলের ভাই সিরাজুল ইসলামকে বোমা মেরে হত্যা করেছিল সন্ত্রাসীরা। বছর দুয়েক আগে তার ভাইপো যুবলীগ নেতা রাসেল কবীরকেও সন্ত্রাসীরা গুলি করে হত্যা করে।

ইজিবাইক ছিনতাইকালে পাঁচ যুবককে গণধোলাই

বাগেরহাট প্রতিনিধি : বাগেরহাট জেলার চিতলমারী উজজেলায় চালককে অচেতন করে ইজিবাইক ছিনতাইকালে পাঁচ যুবককে গণধোলাই দিয়েছে স্থানীয়রা। চিতলমারী সদর বাজারের বোয়ালিয়া ভ্যান স্ট্যান্ড থেকে রবিবার দুপুরে স্থানীয় জনতা তাদের ধরে ‘গলাকাটা দল’ মনে করে ধরে গণধোলাই দেয়। পুলিশ ওই চক্রের সঙ্গে থাকা একটি প্রাইভেট কার উদ্ধার করেছে।

আটককৃতরা হচ্ছেন- ঢাকার আশুলিয়ার কাঠগড়া গ্রামের বাবুল মিয়ার ছেলে মো. রুবেল মিয়া (২৮), গোপালগঞ্জের চাপুলিয়া গ্রামের আজাদ মুন্সীর ছেলে রাসেল মুন্সি (২৮), নড়াইল জেলার চাপুলিয়া গ্রামের লিয়াকত মুন্সীর ছেলে রুবেল মুন্সী (২৮), ঝিনাইদাহ জেলার টিয়াদা গ্রামের সামছুদ্দিন শেখের ছেলে আব্দুর রহমান (৪৭) ও পাবনা জেলার ফরিদপুর উপজেলার ধানুয়াঘাটা গ্রামের হাজী নুর মোহাম্মদের ছেলে ফরিদ আহম্মেদ (২৯)।

আটককৃত এই যুবকরা ‘গলাকাটা দল’ বলে গোটা এলাকায় গুজব ছড়িয়ে পড়ে। তাদের দেখার জন্য বিভিন্ন গ্রাম থেকে দলে দলে সাধারণ মানুষ থানায় ছুটে আসেন। এই ঘটনার পর এলাকায় আতঙ্ক ছড়িয়ে পড়েছে।

উপজেলার শৈলদাহ গ্রামের আইয়ুব আলী শেখের ছেলে মো. জাকির শেখ জানান, তার জামাতা ওমর শেখকে অচেতন করার স্প্রে দিয়ে অজ্ঞান করে তার ইজিবাইক ছিনিয়ে নেওয়ার চেষ্টা করে ওই যুবকেরা। খবর পেয়ে জনতা তাদের ধরে পুলিশে দেয়। অসুস্থ অবস্থায় ওমর শেখকে (২১) চিতলমারী উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করা হয়েছে।

চিতলমারী উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা ডা. মো. আলমগীর হোসেন জানান, অজ্ঞান অবস্থায় ওমর শেখকে হাসপাতালে ভর্তি করা হয়।
ওমর শেখ জানান, মাটিভাঙ্গা কলেজ থেকে পাঁচ ছাত্রীকে তার ইজিবাইকে নিয়ে চিতলমারীর দিকে রওনা দেন। তিন ছাত্রী বাংলাবাজার মোড়ে নেমে যান। সেখান থেকে একজন চশমা পরা যুবক তার ইজিবাইকে চড়ে বসে। আমবাড়ি বাজার থেকে আরও এক যুবক ইজিবাইকে চড়ে। চর-শৈলদাহ গ্রামে পৌঁছালে বাকি দুই ছাত্রী নেমে যান। সে সময় গাড়িতে থাকা দুই যুবক তার কাছ ইজিবাইকের চাবি চায়। এমন সময় প্রাইভেট কার দিয়ে ইজিবাইকের পথ আটকে দাঁড়ায় আরও তিনজন। গাড়ির ভেতর থেকে তারা বেরিয়ে এসে তার চোখে-মুখে স্প্রে করে। চেতনা হারানোর আগ মুহূর্তে তাদের পাশ থেকে একটি মোটরসাইকেল যাওয়ার সময় ওমর শেখ চিৎকার করে তাকে বাঁচানোর আকুতি জানান। মোটরসাইকেল চালক স্থানীয় মানুষদের জড়ো করার চেষ্টাকালে পাঁচ যুবক তাদের প্রাইভেট কারে চড়ে পালায়। কিন্তু চিতলমারী সদর বাজারের বোয়ালিয়া ভ্যানস্ট্যান্ডের সামনে জনসাধারণ তাদের গতিরোধ করে গণধোলাই দিয়ে পুলিশে সোপর্দ করে।

চিতলমারী থানার উপ-পরিদর্শক দেবব্রত কুমার জানান, স্থানীয়রা সন্দেহভাজন পাঁচ যুবক ও একটি প্রাইভেট কার ধরে পুলিশের কাছে দিয়েছে।

জিনের ভয় দেখিয়ে ধর্ষণের অভিযোগ : আটক ১

ঢাকা অফিস : রাজধানীর দক্ষিণখানে জিনের ভয় দেখিয়ে একাধিক নারী ও কিশোরকে ধর্ষণের অভিযোগে ইদ্রিস আহম্মদ (৪২) নামে এক মসজিদের ইমামকে গ্রেফতার করেছে র‌্যাব-১।

র‌্যাব জানায়, গ্রেফতার ইদ্রিস আহম্মদ দক্ষিণখানের একটি মসজিদের ইমাম। সে স্থানীয় একটি মাদ্রাসায় প্রায় ১৮ বছর ধরে শিক্ষকতা করে আসছে। তার বিরুদ্ধে চার-পাঁচ জন নারী ও ১০-১২ কিশোরকে ধর্ষণের অভিযোগ পাওয়া গেছে। জিনের ভয় দেখিয়ে ইদ্রিস এসব অপকর্ম করে আসছিল বলে সংবাদ সম্মেলনে জানিয়েছেন র‌্যাব-১ এর অধিনায়ক লে. কর্নেল মো. সারোয়ার বিন কাশেম।  আজ সোমবার দুপুরে র‌্যাবের মিডিয়া সেন্টারে লে. কর্নেল সারোয়ার বলেন, ‘ইদ্রিস দীর্ঘদিন ধরে ঝাড়ফুঁক ও তাবিজ-কবজ দেওয়া এবং জিনের ভয় দেখিয়ে নারীদের ধর্ষণ করতো। তার মসজিদ ও মাদ্রাসার খাদেম ও ছাত্রদের জোরপূর্বক ধর্ষণ করতো সে। একইসঙ্গে সে এসব মোবাইলে ধারণ করে রাখতো এবং কাউকে না বলার জন্য জিনের হুমকি দিতো।’

র‌্যাবের এই কর্মকর্তা বলেন, ‘ইদ্রিস প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে ধর্ষণের ঘটনাগুলো স্বীকার করেছে। তার বিরুদ্ধে দক্ষিণখান থানায় মামলা দায়ের করা হয়েছে। আজকেই তাকে আদালতে উপস্থাপন করা হবে।’

মিন্নির চিকিৎসার আবেদন নামঞ্জুর

ঢাকা অফিস : আলোচিত রিফাত শরীফ হত্যা মামলায় তার স্ত্রী গ্রেফতার আয়শা সিদ্দিকা মিন্নির চিকিৎসার আবেদন আদালত নামঞ্জুর করেছেন ।  আজ সোমবার সকালে চিকিৎসাসহ মিন্নির পক্ষে দুটি আবেদন করেন তার আইনজীবী মাহবুবুল বারী আসলাম। বেলা ১২টায় বরগুনার সিনিয়র জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আদালতের বিচারক মোহাম্মাদ সিরাজুল ইসলাম গাজী আবেদন দুটি নামঞ্জুর করেন। আদালত বলেছেন, জেল কর্তৃপক্ষ এবিষয়ে ব্যাবস্থা গ্রহণ করবে।

পরে আইনজীবী মাহবুবুল বারী আসলাম সাংবাদিকদের বলেন, ‘মিন্নির চিকিৎসাসহ দুটি আবেদন করেছিলাম। এর মধ্যে একটি আবেদন ছিল মিন্নির চিকিৎসা চেয়ে।  এছাড়া, ১৬৪ ধারার স্বীকারোক্তি প্রত্যাখ্যানের আবেদনে মিন্নির স্বাক্ষরের জন্য তাকে আদালতে হাজির করতে আদালতের অনুমতি চেয়ে আরেকটি আবেদন করা হয়। বিচারক দুটি আবেদনই নামঞ্জুর করেন।’

অ্যাডভোকেট আসলাম বলেন, ‘আদালত আবেদন নামঞ্জুর করে বলেছেন, ‘এবিষয়ে কারা কর্তৃপক্ষ প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেবে।’

উল্লেখ্য, গত ২৬ জুন সকাল সাড়ে ১০টার দিকে বরগুনা সরকারি কলেজের সামনে সন্ত্রাসীরা প্রকাশ্যে রামদা দিয়ে কুপিয়ে গুরুতর আহত করে রিফাত শরীফকে। তার স্ত্রী আয়শা সিদ্দিকা মিন্নি হামলাকারীদের সঙ্গে লড়াই করেও তাদের দমাতে পারেননি। গুরুতর আহত রিফাতকে ওইদিন বরিশাল শের-ই-বাংলা মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হলে বিকালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় তিনি মারা যান। এ ঘটনায় রিফাতের বাবা দুলাল শরীফ বাদী হয়ে ১২ জনের নাম উল্লেখ ও পাঁচ-ছয় জনকে অজ্ঞাত আসামি করে বরগুনা থানায় একটি হত্যা মামলা দায়ের করেন। ওই মামলায় পুলিশ এ পর্যন্ত ১৪ জনকে গ্রেফতার করেছে। গত ২ জুলাই ভোরে মামলার প্রধান আসামি নয়ন বন্ড পুলিশের সঙ্গে বন্দুকযুদ্ধে নিহত হয়। পরে মুন্নিকেও রিফাত হত্যা মামলার আসামি করে গ্রেফতার দেখানো হয়। মুন্নিসহ এ পর্যন্ত ১৩ আসামি আদালতে ফৌজদারি কার্যবিধির ১৬৪ ধারায় স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি দিয়েছে বলে পুলিশ জানিয়েছে।