তালায় প্রেম ঘটিত কারণে ৯ম শ্রেণীর স্কুল ছাত্রীর আত্মহত্যা

তালা প্রতিনিধি : সাতক্ষীরা তালায় প্রেম ঘটিত কারণে পূজা বিশ্বাস (১৫) নামে ৯ম শ্রেণীর এক স্কুল ছাত্রী গলায় ওড়না পেচিয়ে আত্মহত্যা করেছে। ঘটনাটি ঘটেছে শুক্রবার দুপুর ৩ টার দিকে উপজেলার শ্রীমন্তকাঠী গ্রামে। ঘটনায় এরিপোর্ট লেখা পর্যন্ত থানায় মামলার প্রস্তুতি চলছে।
এলাকাবাসী ও পারিবারিক সূত্র জানায়,উপজেলার শ্রীমন্তকাটি গ্রামের অমল বিশ্বাসের মেয়ে পার্শ্ববর্তী জালালপুর মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের ৯ম শ্রেণীর ছাত্রী পূজা বিশ্বাসের সাথে একই এলাকার ভোলা নাথ হালদারের ছেলে খুলনা বিএল কলেজের অনার্সের ছাত্র রাজু হালদারের প্রেমের সম্পর্ক চলে আসছিল। বিষয়টিতে তাদের পরিবারের সায় ছিলনা। তারা যেন একে অন্যের সাথে কোন প্রকার যোগাযোগ করতে না পারে তার জন্য ব্যাপক নজরদারি করে। এর আগে পূজাকে রাজুর দেওয়া একটি মোবাইল ফোনের কথা পরিবারকে জানালে তা রাজুর পরিবারকে ফিরিয়ে দেয়া হয়। এরপরও রাজু বিভিন্ন সময় পূজাকে রাস্তাঘাটে বিরক্ত করত। সর্বশেষ এনিয়ে রাগে,দুঃখে,ক্ষোভে পূজা (২৩ জুলাই) সন্ধ্যায় গলায় রশি দিয়ে আত্মহত্যার প্রচেষ্টা চালায়। তাৎক্ষণিক পরিবারের সদস্যরা বিষয়টি বুঝতে পেরে তাকে উদ্ধার করে তালা হাসপাতালে নেয়। সেখানে চিকিৎসাধীন অবস্থায় ৩ দিন পর শুক্রবার দুপুর ৩ টার দিকে পূজার মৃত্যু হয়।
এরপর পুলিশ সেখান থেকে তার লাশ উদ্ধার করে ময়না তদন্ত সম্পন্ন করে তার গ্রামের বাড়ি শ্রীমন্তকাটি পাঠিয়েছে। এরিপোর্ট লেখা পর্যন্ত থানায় মামলার প্রস্তুতি চলছে। এদিকে ঘটনাটিকে ভিন্নখাতে প্রবাহিত করতে পূজার আত্মহত্যা নিয়ে এলাকায় অপপ্রচার শুরু হয়েছে বলেও অভিযোগ করা হয়েছে।

তালায় আওয়ামী লীগের ৭০তম প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী উদযাপন

তালা প্রতিনিধি : সাতক্ষীরা তালায় বর্ণিল আয়োজনের মধ্য দিয়ে আওয়ামী লীগের ৭০তম প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী উদযাপন করা হয়েছে। প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী উপলক্ষে তালা সদর ইউনিয়নের আওয়ামী লীগ ও অঙ্গ সংগঠনের আয়োজনে শুক্রবার বিকালে তালা ডাকবাংলো চত্বরে আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত হয়।
তালা সদর ইউনিয়ন আওয়ামী-লীগের সভাপতি মোঃ শাহাবুদ্দীন বিশ্বাসের সভাপতিত্বে আলোচনা সভায় প্রধান অতিথির বক্তব্য রাখেন উপজেলা আওয়ামীলীগের সভাপতি শেখ নুরুল ইসলাম।বিশেষ অতিথি হিসেবে বক্তব্য রাখেন,উপজেলা আওয়ামী-লীগের সাধারণ সম্পাদক ও উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান ঘোষ সনৎ কুমার,জেলা আওয়ামীলীগের যুগ্মসম্পাদক ফিরোজ কামাল শুভ্র। ইউনিয়ন আওয়ামী-লীগের সাধারণ সম্পাদক শহিদুল ইসলাম খাঁর সঞ্চালনায় অন্যান্যের মধ্যে বক্তব্য রাখেন, উপজেলা আওয়ামী-লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক ও জেলা পরিষদের সদস্য সাংবাদিক মীর জাকির হোসেন,সাবেক উপজেলা ছাত্রলীগের সভাপতি উপজেলা ভাইস চেয়ারম্যান ও তালা প্রেসক্লাবের সাধারণ সম্পাদক সরদার মশিয়ার রহমান,মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান মুর্শীদা পারভীন পাপড়ী, সাবেক ডেপুটি কমান্ডার বীর মুক্তিযোদ্ধা আলাউদ্ধীন জোয়াদ্দার আওয়ামীলীগ নেতা জুনায়েত আকবার,সৈয়দ ইদ্রীস,শাহিনুর খাঁ,মিজানুর রহমান, শ্রমীকলীগের সাধারণ সম্পাদক শফিউর রহমান ডানলব প্রমুখ। আলোচনা সভা শেষে একটি র‌্যালি তালার প্রধান প্রধান সড়ক প্রদিক্ষণ করে ।

পাইকগাছায় জমির বিরোধে মামলা দিয়ে হয়রানীর অভিযোগ

স্নেহেন্দু বিকাশ, পাইকগাছা : পাইকগাছায় জমির বিরোধে মারপিটের ঘটনা সাজিয়ে বহিরাগত চাকরীজীবি ও শ্রমজীবিদের নামে মামলা দিয়ে হয়রানীর অভিযোগ উঠেছে একটি প্রভাবশালী পরিবারের বিরুদ্ধে। সংশ্লিষ্ট উর্দ্ধতন কর্তৃপক্ষের হস্তক্ষেপ কামনা করে ক্ষতিগ্রস্থরা তদন্তপূর্বক ব্যবস্থা গ্রহণের দাবী জানিয়েছে। এ ঘটনাটি ঘটেছে, উপজেলার চাঁদখালী ইউপির দক্ষিণ গড়েরআবাদ গ্রামে।
সংশ্লিষ্ট সূত্র মতে জানা গেছে, ভিটে বাড়ী সংলগ্ন ১ একরের উর্দ্ধে জমি নিয়ে দক্ষিণ গড়েরআবাদের হাজী আল-মামুন মোল্লা ও প্রতিবেশী আব্দুল গণি সানা গংদের দীর্ঘদিন ধরে বিরোধ চলে আসছে। এনিয়ে নি¤œ আদালত হয়ে সর্বোচ্চ আদালত মহামান্য হাইকোর্ট পর্যন্ত গড়ালেও বিরোধ নিস্পত্তি হয়নি। সরেজমিনে গেলে স্থানীয় গ্রামবাসী বৃদ্ধ নূর মোহাম্মদ (৭৫), সহিদুল সরদার (৬০) সহ বহু নারী-পুরুষ জানান, প্রতিবেশী ভ্যানচালক আমিরুল সানা গংদের নামে গত ২০ জুলাই মারপিট টাকা, স্বর্ণ কেড়ে নেয়া সহ কথিত অভিযোগে একটি মামলা হয়েছে বলে শুনেছি। কিন্তু এ গ্রামের কোন মানুষ বলতে পারবে না এ ধরণের ঘটনা ঘটেছে। হামিদ মোল্লা জানান, ভিটে বাড়ী সংলগ্ন ১ বিঘা জমি নিয়ে প্রতিবেশী হাজী আল-মামুন মোল্লার সাথে আমাদের বিরোধ রয়েছে এবং এ নিয়ে সর্বশেষ হাইকোর্ট গত ৩/১২/১৮ তারিখে ৭৮৭/১৮ নং কেসে সর্বোচ্চ আদালত ১ বছরের স্টে দেন। এ জমিতে আমাদের ঘর-বাড়িও রয়েছে। অথচ, হাজী সাহেব টাকার বলে একটি মিথ্যা মারপিটের কাহিনী সাজিয়ে ভ্যান চালক আমিরুল, ব্যাংক কর্মকর্তা মোজাম আলী সরদার সহ নিরীহ ১৪ ব্যক্তির নামে মামলা দিয়ে হয়রানীর পথ বেছে নিয়েছে। এ অভিযোগ সম্পর্কে মামলার বাদী হাজী আল-মামুন মোল্লা মুঠোফোনে জানান, প্রকৃত ঘটনায় আমি তাদের বিরুদ্ধে মামলা করেছি বলে তিনি দাবী করেন। এ সম্পর্কে থানার ওসি এমদাদুল হক শেখ জানান, কোন নিরীহ ব্যক্তি যাতে হয়রানী না হয় সে বিষয়ে তদন্তপূর্ব ব্যবস্থা গ্রহণ নেয়া হবে।

শরণখোলায় অগ্নিকান্ডে তিনটি বসতঘর ভষ্মিভূত : আহত ১

শরণখোলা প্রতিনিধি : বাগেরহাটের শরণখোলায় এক ভয়াবহ অগ্নিকান্ডে তিনটি বসতঘর পুড়ে ছাই হয়েছে। বৃহস্পতিবার রাত ৯টার দিকে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স সংলগ্ন বাবুল হাওলাদারের বাড়িতে এ ঘটনা ঘটে। ফায়ার সার্ভিস ও স্থানীয়রা ঘন্টাব্যাপী চেষ্টা চালিয়ে আগুন নিয়ন্ত্রন করে। অগ্নিকান্ডে প্রায় ৩০ লাখ টাকার ক্ষতি হয়েছে বলে ক্ষতিগ্রস্ত জানিয়েছেন।
এদিকে, আগুন নেভাতে গিয়ে উপজেলা ছাত্রলীগ কর্মী মো. সুমন ঘরামী (২৫) গুরুতর আহত হয়েছেন। আগুন নেভানোর সময় ফায়ার সার্ভিসের পাইপের পানি আঘাত লেগে তার ডান চোখ ক্ষতিগ্রস্ত হয়। তাকে খুলনা চক্ষু হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে।
গৃহকর্তা বাবুল হাওলাদার জানান, আগুনে নিজের বসতঘরসহ তার বাড়ির দুই ভাড়াটিয়ার ঘর ও মালামাল পুড়ে গেছে। প্রথমে এলাকাবাসী আগুন নেভানোর চেষ্টা করেন। পরে শরণখোলা ফায়ার সার্ভিস এসে আগুন নিয়ন্ত্রণে করে।
শরণখোলা ফায়ার সার্ভিস ষ্টেশনের কর্মকর্তা মিশফাকুল আলম বলেন, গ্যাস সিলিন্ডার থেকে আগুনের সূত্রপাত বলে ধারণা করা হচ্ছে। অগ্নিকান্ডের সময় স্বর্ণালংকার সহ কিছু মালামাল উদ্ধার করে পুলিশের সহায়তায় ক্ষতিগ্রস্ত পরিবারকে হস্তান্তর করা হয়েছে।

পাইকগাছায় ফেন্সিডিল সহ মাদক ব্যবসায়ী আটক

স্নেহেন্দু বিকাশ, পাইকগাছা : পাইকগাছায় থানা পুলিশ-১৭৫ বোতল ফেন্সিডিল সহ সাত্তার হাওলাদার (৫২) নামে এক শীর্ষ মাদক ব্যাবসায়ীকে আটক করেছেন। শুক্রবার বিকেলে ওসি এমদাদুল হক শেখের নেতৃত্বে ও এসআই ইমরান হোসেন সঙ্গীয় ফোর্স নিয়ে রাড়ুলীর ৬ষ্ঠিতলার বাজারের কাছে সাত্তারের বসতবাড়ীতে অভিযান চালিয়ে ৫০ কেজির খালি ধানের শীষ মার্কা চাউলের বস্তা থেকে বিপুল পরিমান এ মাদক উদ্ধার করেন। সে ৪ বছর পুর্বে রাড়ুলীতে তাঁর ভাইরা ভাই মৃতঃ ইউনুছ গোলদারের পরিচয় ধরে এখানে বসতবাড়ী করে। সাত্তার পিরোজপুরের জিয়ানগরের বালীপাড়া গ্রামের মৃতঃ সাঈদ হাওলাদের ছেলে। ওসি এমদাদুল হক শেখ জানিয়েছেন, সাত্তার দীর্ঘদিনের মাদক ব্যবসায়ী ও বিভিন্ন সময়ে স্থান পরিবর্তন করে মাদক ব্যবসা করে আসছে এবং তাঁর নামে মামলাও রয়েছে। এ ঘটনায় থানায় মাদক আইনে মামলা হয়েছে।

পাইকগাছায় মসজিদে দু’পক্ষের সংঘর্ষে আহত ৬

স্নেহেন্দু বিকাশ, পাইকগাছা : পাইকগাছায় মসজিদে দু’পক্ষের সংঘর্ষে ৬ জন আহত হয়ে হাসপাতালে ভর্তি, এদের মধ্যে মোমিন সানার মাথা ফেটে রক্তাক্ত জখম হলে উন্নত চিকিৎসার জন্য খুলনায় পাঠানো হয়েছে। পুর্বশত্রুতার জের ধরে শুক্রবার জুম্মার নামাযেব পুর্ব মুহুর্তে লস্কর ইউপির খড়িয়া খালধারের সানাবাড়ী মসজিদে অনাকাঙ্ক্ষিত ঘটনাটি ঘটেছে। এ নিয়ে একে অপরকে দোষারোপ করেছেন। পুলিশ ও ইউপি চেয়ারম্যান হাসপাতালে আহতদের খোজ-খবর নিয়েছেন।
স্থানীয়রা জানিয়েছেন,চিংড়ী ঘেরের বাধ-বাধ-বন্ধির টাকা লেন-দেন ও সানাবাড়ী মসজিদের বাউন্ডারী প্রাচীর নির্মান সহ হিসাব-নিকাশ নিয়ে উপজেলার খড়িয়া খালধার গ্রামের সানাবাড়ীর উজির সানা ও নজরুল সানা গংদের মধ্যে বেশ কিছু দিন ধরে মনোমালিন্য চলে আসছিল। এর জের ধরে শুক্রবার নামাযের পুর্বে মসজিদে দু’পক্ষ সংঘর্ষে জড়িয়ে পড়ে উভয় পক্ষের ৬ জন কমবেশি আহত হন। আহতরা হল মোমিন সানা,কামাল সানা( লাভলু),নজরুল সানা,হান্নান সানা,ময়নুল সানা ও সাগর সানা। এদের মধ্যে মোমিন সানার মাথা ফেটে মারাত্মক জখম হলে খুলনায় পাঠানো হয়েছে বলে পরিবারের সদস্যরা জানিয়েছেন। উপজেলা স্বাস্থ্যকমপ্লেস্কে চিকিৎসাধীন আহত মোমিন অভিযোগ করেণ, প্রতিপক্ষ নজরুল-ময়নুল সানা গংরা মসজিদেই আমার জামার কলার ধরে রড দিয়ে মাথায় বাড়ী মেরে জখম করে। অপরদিকে স্বাস্থ্যকমপ্লেস্কে ভর্তি লাভলু পাল্টা অভিযোগ করেণ, নামাযের পুর্বেই মসজিদে প্রবেশ করলে প্রতিপক্ষ হান্নান-রিপন গংরা লাঠি-লাঠি দিয়ে মারপিট করে আমাদের পিটিয়ে আহত করে। এদিকে ঘটনার পর পরই থানা পুলিশের এসআই অখিল রায়,অনিশ মন্ডল ও লস্কর ইউপি চেয়ারম্যান কেএম আরিফুজ্জামান তুহিন হাসপাতালে পৌছে আহতদের চিকিৎসার খোজ-খবর নিয়ে দুপক্ষেকে ধৈর্য্য ধরার পরামর্শ দিয়েছেন। রিপোট লেখা পর্যন্ত মোমিনের পরিবারের পক্ষ থেকে মামলার প্রস্ততি চলছিল।

মোল্লাহাটে জোড়ালাগা শিশু দেখতে হাজারো মানুষের ঢল

মোল্লাহাট (বাগেরহাট) প্রতিনিধি : মোল্লাহাটে সদ্য ভূমিষ্ট জোড়ালাগা শিশু দেখতে হাজারো মানুষের ঢল/ভিড় হলেও হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অসহায়/গরীব ও মূমূর্ষ প্রসূতি মায়ের খোজ রাখছেনা কেউ। উপজেলার কাচনা গ্রামে ইমন শেখ (২৫) ও ফাতেমা (১৯) দম্পতির অস্বাভাবিক শিশুর জন্ম হয়েছে এমন খবরে গিয়ে দেখা যায়-ওই বাড়ীতে বিশাল ভিড়, দলে দলে উৎসুক মানুষ আসছে ও যাচ্ছে। খোজ নিয়ে জানাযায়-গত শনিবার গরীব পরিবারের গৃহবধূ ফাতেমা (১৯) সন্তান প্রসব যন্ত্রনায় অসুস্থ্য হলে তাকে গোপালগঞ্জ সদর হাসপাতালে নেয়া হয়। তার অবস্থা আশংকা জনক হওয়ায় উন্নত/আধুনিক ব্যাবস্থায় সন্তান প্রসবের জন্য খুলনা নেয়ার পরামর্শ দেন চিকিৎসক। তাকে দ্রুত খুলনা নিয়ে আদ-দিন হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। ওই হাসাপাতালে বৃহস্পতিবার দুপুর ৩টায় অস্ত্রপচার (সিজার)’র মাধ্যমে অস্বাভাবিক জোড়ালাগা সন্তান জন্ম নেয়। যার দুটি মাথা, মূখমন্ডল, চারটি হাত, বুক ও পিঠ (উপরের অংশ) পৃথক থাকলেও নিচের জোড়ালাগা অংশ পেট, তিনটি পা ও একটি মাত্র পুরুষ অঙ্গ রয়েছে। অস্বাভাবিক এ শিশুর মলদ্বারে ছিদ্র নেই। তবু স্স্থু চেহারার জীবন্ত এ শিশু শুক্রবার সকালে খুলনা থেকে বাড়ীতে আনা হয়েছে। এসময় শিশুর পিতা ইমন শেখ এ প্রতিবেদককে জানান-তার স্ত্রীর অবস্থা ভালোনা, ভীষণ খারাপ অবস্থ্যা। গতকাল শনিবার থেকে আজ শুক্রবার এখন (দুপুর ১২টা) পর্যন্ত তার হুশ/জ্ঞান ফিরে নাই। কথোপকথোনে তিনি আরো জানান-নিজে একজন কৃষক এবং মাঝে মধ্যে ভ্যান চালিয়ে জীবিকা নির্বাহ করে। আর্থিক সংকটের কারনে তার স্ত্রীর সুস্থতা/বেচে ওঠা অনিশ্চিত হয়ে পড়েছে। কেউ তার স্ত্রীর খোজ নিচ্ছে না। কেবল শশুর পরিবারের সদস্যরা রক্তের টানে তার মূমূর্ষ স্ত্রীর কাছে আছে।

কানাডায় আশ্রয় চেয়ে আবেদন করেছেন সুরেন্দ্র কুমার সিনহা

ঢাকা অফিস : বাংলাদেশের সাবেক প্রধান বিচারপতি সুরেন্দ্র কুমার সিনহা কানাডায় শরণার্থী হিসেবে আশ্রয় চেয়ে আবেদন করেছেন বলে জানিয়েছে কানাডার গণমাধ্যম। ২০১৭ সালের নভেম্বর থেকে তিনি যুক্তরাষ্ট্রে নির্বাসিত জীবন কাটাচ্ছেন।

সিনহা দাবি করেছেন, রাজনৈতিক হস্তক্ষেপের বিষয়ে সরকারের পক্ষে রায় দিতে অস্বীকৃতি জানানোয় তিনি হুমকির শিকার হন। দ্বিমত পোষণকারী বিচারকদের সরিয়ে দিতে সংসদের হাতে নিরঙ্কুশ ক্ষমতা চেয়েছিল সরকার।

কানাডার দ্য স্টার পত্রিকার খবরে জানানো হয়, ৪ জুলাই বিচারপতি সিনহা ফোর্ট এরি সীমান্ত দিয়ে কানাডায় প্রবেশ করেন এবং শরণার্থী হিসেবে আশ্রয় প্রার্থনা করেন। বিচারপতি সিনহা ছিলেন প্রথম হিন্দু, যিনি আদালতের শীর্ষ পদে নিযুক্ত হয়েছিলেন।

সিনহা অভিযোগ করেছেন, সংবিধানের ষোড়শ সংশোধনীর পক্ষে রায় দিতে তিনি প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার অনুরোধ প্রত্যাখ্যান করার তিন মাস পর তাঁকে নির্বাসিত হতে হয়।

গত সপ্তাহে দ্য স্টারের সঙ্গে এক সাক্ষাৎকারে বিচারপতি সিনহা বলেন, ‘আমি অ্যাকটিভিস্ট বিচারক ছিলাম বলে টার্গেটে পরিণত হই। আমার রায়ে আমলাতন্ত্র, প্রশাসন, রাজনীতিবিদ ও সন্ত্রাসীরা ক্ষুব্ধ হন। আমি এখন দেশের শত্রু, সরকার আমাকে নিষিদ্ধ ঘোষণা করেছে।’

চলতি মাসে দুর্নীতি দমন কমিশন (দুদক) সিনহাসহ ১১ জনের বিরুদ্ধে দুর্নীতি, অর্থ পাচার ও ক্ষমতার অপব্যবহারের অভিযোগে মামলা করেছে। দ্য স্টার জানিয়েছে, এসব অভিযোগের ব্যাপারে দুদকের সঙ্গে যোগাযোগ করলে তারা সাড়া দেয়নি। আর সিনহা তাঁর বিরুদ্ধে আনা সব অভিযোগ অস্বীকার করেছেন।

সরকারের বিরুদ্ধে সিনহার অভিযোগের বিষয়ে কানাডায় বাংলাদেশ হাইকমিশনার মিজানুর রহমানের সঙ্গে যোগাযোগ করা হলে তিনি তা অস্বীকার করেন। মিজানুর রহমান দ্য স্টারকে ফোনে অটোয়া থেকে বলেন, বাংলাদেশ ছাড়ার পর থেকেই বিচারপতি সিনহা দেশ সম্পর্কে অসত্য বক্তব্য দিয়ে চলেছেন। দেশে ফেরার ব্যাপারে তাঁর ওপর কোনো হুমকি নেই। শরণার্থী হিসেবে আশ্রয় প্রার্থনার আবেদনকে পোক্ত করার জন্য তিনি এসব বক্তব্য দিয়ে চলেছেন।

এদিকে আশ্রয় আবেদনে সিনহা উল্লেখ করেছেন, ২০১৭ সালের ২ জুলাই প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সঙ্গে বৈঠকে তাঁকে ডাকা হয়। তখন প্রধানমন্ত্রী সংবিধানের ষোড়শ সংশোধনী মামলায় সরকারের পক্ষে তাঁকে আদেশ দিতে বলেন, যাতে বিচারকদের বরখাস্ত করা সরকারের জন্য সহজ হয়।

বাগেরহাটে যাত্রীবাহি বাস উল্টে শিশুসহ আহত ১৮

বাগেরহাট প্রতিনিধি : বাগেরহাটে নিশি এন্টারপ্রাইজের যাত্রীবাহি বাস নিয়ন্ত্রন হারিয়ে শিশু,বৃদ্ধা মহিলাসহ কমপক্ষে ১৮ জন আহত হয়েছে। শুক্রবার সকালে পিরোজপুর -–খুলনা মহাসড়কে দড়াটানা ব্রীজের পশ্চিম পাশে যাত্রীবাহি বাসটি নিয়ন্ত্রন হারিয়ে খাদে পড়ে। এ সময় বাসে থাকা অন্তত ১৮ জন যাত্রী আহত হয়। আহতদের উদ্ধার করে বাগেরহাট সদর হাসপাতালসহ বিভিন্ন ক্লিনিকে ভর্তি করা হয়। আহতের মধ্যে ৩ জনের অবস্থা আশঙ্কাজনক। গুরুত্বর আহতরা হলেন, আসমা বেগম (৩৮),মঞ্জিরা বেগম (৫০),কলেজ ছাত্র রসূল (১৮)। বাসটি খুলনা,পিরোজপুর,মোড়েলগঞ্জ,কচুয়ার প্রায় অর্ধশত যাত্রী নিয়ে পিরোজপুর থেকে ছেড়ে আসে।
বাগেরহাট মডেল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা মাহাতাব উদ্দিন জানান, নিশি এন্টার প্রাইজের একটি যাত্রীবাহি বাস পিরোজপুর থেকে খুলনার উদ্দেশ্যে ছেড়ে আসে। দড়াটানা ব্রীজ পার হয়েই বাসটি নিয়ন্ত্রন হারিয়ে খাদে পড়ে। এতে বাসে থাকা ১৮ জন যাত্রী আহত হয় । আহতদের ফায়ার সার্ভিস কর্মীরা উদ্ধার করে বাগেরহাট সদর হাসপাতালসহ স্থানীয় ক্লিনিকে ভর্তি করে।

তালায় ১৬ দলীয় ফুটবল টুর্নামেন্ট অনুষ্ঠিত

এস আর সাঈদ, কেশবপুর (যশোর) : তালা উপজেলার বালিধা ফুটবল মাঠে একতা যুবসংঘের আয়োজনে ১৬ দলীয় ফুটবল টুর্নামেন্টের ফাইনাল খেলা বৃহস্পতিবার বিকালে অনুষ্ঠিত হয়েছে। খেলায় কেশবপুর নিধি স্পোটিং ক্লাব ১-০ গোলে গৌরীঘোনা ফুটবল একাদশকে পরাজিত করে চ্যাম্পিয়ান হওয়ার গৌরব অর্জন করে। খেলা শেষে প্রধান অতিথি হিসাবে ১৬ দলীয় ফুটবল টুর্নামেন্টের ফাইনালে চ্যাম্পিয়ান কেশবপুর নিধি স্পোটিং ক্লাবের খেলোয়ারদের হাতে ফ্রিজ তুলে দেন তালা উপজেলা পরিষদের ভাইস চেয়ারম্যান সরদার মশিয়ার রহমান। উল্লেখ্য কেশবপুর উপজেলা ক্রীড়া সংস্থার সাধারণ সম্পাদক ও নিধি স্পোটিং ক্লাবের চেয়ারম্যান জয় সাহা জানান, সম্প্রতি নিধি স্পোটিং ক্লাব ১৮ টি ফুটবল টুর্নামেন্টের ফাইনাল খেলায় অংশ নিয়ে ১৬ টিতে চ্যাম্পিয়ান হওয়ার গৌরব অর্জন করেছে।