বটিয়াঘাটায় কৃষক প্রশিক্ষণ অনুষ্ঠিত

বটিয়াঘাটা প্রতিনিধি : বটিয়াঘাটা উপজেলা কৃষি সম্প্রসারন অধিদপ্তরের আয়োজনে গত ২৭ থেকে ২৯ আগষ্ট পর্যন্ত তিন দিন ব্যাপি স্ব-স্ব ইউনিয়নে প্রযুক্তি হস্থান্তর উপলক্ষ্যে ৩য় পর্যায়ের কৃষক প্রশিক্ষণ অনুষ্ঠিত হয়। উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা কৃষিবিদ মোঃ রবিউল ইসলামের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত প্রশিক্ষণ কর্মশালায় প্রশিক্ষক হিসেবে প্রশিক্ষণ দেন জেলা প্রশিক্ষক মোঃ হাফিজুর রহমান। প্রশিক্ষনে উপস্থিত ছিলেন অতিরিক্ত কৃষি কর্মকর্তা রেহানা পারভীন, কৃষি সম্প্রসারন কর্মকর্তা শামীম আরা নিপা, কৃষি সম্প্রসারণ কর্মকর্তা ইনসাদ ইবনে আমিন প্রমূখ। প্রতি ব্যাচে ৩০ জন করে সর্ব মোট ৯০ জন কৃষককে প্রশিক্ষন দেওয়া হয়।

বটিয়াঘাটায় হুইপ পঞ্চানন বিশ্বাস এমপি কে ফুলেল শুভেচ্ছা

বটিয়াঘাটা প্রতিনিধি : জাতীয় সংসদের হুইপ পঞ্চানন বিশ্বাস এমপি কে বৃহস্পতিবার বিকাল ৫ টায় তার তার নিজস্ব বাসভবন কার্যালয়ে বটিয়াঘাটা উপজেলার গঙ্গারামপুর ইউনিয়নের আমতলা সার্বজনীন পূঁজা মন্দির পরিচালনা কমিটির উদ্দ্যোগে এলাকার শতাধিক গন্যমান্য ব্যক্তিবর্গ ফুলেল শুভেচ্ছা জ্ঞাপন করেন। এ সময় অন্যানের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন মন্দির কমিটির সভাপতি পিয়াস কান্তি মন্ডল, সাধরণ সম্পাদক বিলাস চক্রবর্তী, কোষাধ্যক্ষ প্রশান্ত চক্রবর্তী, সাবেক ইউপি সদস্য খোকন মল্লিক, আ’লীগ নেতা পলাশ সরকার, শৈলেন্দ্র নাথ হালদার, অশোক মন্ডল, যাদব গোলদার, সবিনয় গোলদার, মিলন মন্ডল, মন্দির পূজাউদযাপন পরিষদের সভাপতি প্রনব গোলদার, সাধারণ সম্পাদক যাদব চক্রবতী, সরোজ রায়, নারায়ন মন্ডল, অমিত মন্ডল, বিপ্লব রায়, নারায়ণ বিশ্বাস, উত্তম মন্ডল, সমীরন মন্ডল, মানস রায়, মাধব গোলদার, মনিতোষ গোলদার, অপু মন্ডল,হরিচাঁদ মন্ডল প্রমূখ। নেতৃবৃন্দ হুইপ পঞ্চানন বিশ্বাসকে মন্দিরের সার্বিক সমস্যার কথা তুলে ধরলে তিনি সকল সমস্যার পর্যায়ক্রমে সমাধানের আশ্বাস প্রদান করেন।

ধর্ষণ চেষ্টার শাস্তি দুই যুবককে জুতাপেটা !

এম শিমুল খান, গোপালগঞ্জ : গোপালগঞ্জের কোটালীপাড়া উপজেলা এক স্কুল ছাত্রীকে ধর্ষণ চেষ্টার শাস্তি হিসেবে দুই যুবককে জুতা পেটা করা হয়েছে। গত মঙ্গলবার সন্ধ্যায় উপজেলার কুশলা ইউনিয়নের মান্দ্রা গ্রামে ধর্ষণ চেষ্টার সালিশ বৈঠকে হামিদ শেখ (১৯) ও হালিম শিকদার (১৮) নামে দুই যুবককে জুতা পেটা করা হয়।
হামিদ শেখ মান্দ্রা গ্রামের হাবিব শেখের ছেলে। অপরদিকে হালিম শিদকার একই গ্রামের আনিস শিকদারের ছেলে।
এলাকাবাসি সুত্রে জানাগেছে, গত সোমবার সন্ধ্যায় মান্দ্রা ইউনাইটেট ইনস্টিটিউশনের ৬ষ্ঠ শ্রেণির এক ছাত্রী প্রাইভেট পড়ে বাড়ি ফেরার সময় হামিদ শেখ ও হালিম শিকদার নামের দুই যুবক ওই স্কুল ছাত্রীকে ধর্ষণের চেষ্টা করে। এ সময় ওই ছাত্রীর চিৎকারের আশপাশের লোকজন ছুটে আসলে হামিদ ও হালিম পালিয়ে যায়।
বিষয়টি এলাকায় জানাজানি হয়ে গেলে গতকাল মঙ্গলবার মান্দ্রা গ্রামের জনৈক আজাহার শেখের বাড়িতে এক সালিশ বৈঠক হয়। সালিশ বৈঠকে হাবিব ডাক্তার, হামিম শেখ, সালাম দাড়িয়া, ইলিয়াছ শেখ, মামুন শেখ, হাসান মিয়া নামে এলাকার সালিশবর্গ উপস্থিত ছিলেন।
সালিশবর্গদের নির্দেশে মামুন শেখ ও হাসান মিয়া হামিদ এবং হালিমকে জুতা পেটা করে।
সালিশকারক হাবিব ডাক্তার বলেন, এলাকার শান্তির জন্য হামিদ ও হালিমকে জুতা পেটা করা হয়েছে। তবে ওই দুই যুবকের অভিভাবকরাই তাদের জুতা পেটা করেছে।
ওই স্কুল ছাত্রীর পিতা বলেন, এলাকার মুরব্বিদের অনুরোধে সালিশ বৈঠকের মাধ্যেমে বিষয়টি মিমাংসা হয়েছে। সালিশ বৈঠকে ওই দুই যুববকে জুতা পেটা করা হয়েছে। এ ছাড়া সাদা কাগজে একটি মিমাংসাপত্র লেখা হয়েছে। মিমাংসাপত্রটি সালিশকারক হামিম শেখের কাছে রয়েছে।
কোটালীপাড়া থানার ওসি (তদন্ত) মো: জাকারিয়া বলেন, এ ধরণের ঘটনায় সালিশ বৈঠকের মাধ্যেমে মিমাংসা করার আইনগত কোন বিধান নেই। ওই স্কুল ছাত্রীর পরিবারের পক্ষ থেকে অভিযোগ দায়ের করলে আইনগত ব্যবস্থা নিবো।

তালায় ছাদ থেকে পড়ে শ্রমিকের মৃত্যু

তালা প্রতিনিধি : সাতক্ষীরার তালায় ছাদ থেকে পড়ে ইব্রাহীম সরদার (৩০) নামের এক গ্লাস শ্রমিকের মৃত্যু হয়েছে। বৃহস্পতিবার (২৯ আগষ্ট) সকাল ১১ টার দিকে এ দূর্ঘটনা ঘটে।সে সাতক্ষীরা সদর উপজেলার খড়িবিলা গ্রামের মুনসুর সরদারের ছেলে।
স্থানীয় জানান,নিহত ইব্রাহীমসহ কয়েকজন শ্রমিক বৃহস্পতিবার তালার মেলা বাজারের শফিকুল ইসলামের বাসভবনে তিন তলা ভবনে গ্লাস লাগানোর কাজ করছিল। এসময় গ্লাস লাগানোর জন্য ব্যবহৃত দড়ি ছিড়ে গেলে ইব্রাহীম মাটিতে পড়ে গুরুত্ব আহত হয়। মূমূর্ষ অবস্থায় স্থানীয়রা তাকে উদ্ধার করে তালা হাসপাতালে নিয়ে আসলে অবস্থার অবনতি হলে তাকে দ্রুত সাতক্ষীরা সদর হাসপাতালে প্রেরণ করা হলে সাতক্ষীরা নেওয়ার পথে তার মৃত্যু হয়।তালা থানার ওসি মেহেদী রাসেল মৃত্যুর বিষয়টি নিশ্চিত করেন।

এক গ্রামে ৩৮ ডেঙ্গু রোগী !

কুষ্টিয়া : কুষ্টিয়ার দৌলতপুর উপজেলার ছাতারপাড়া গ্রামে সন্ধান মিলেছে ৩৮ জন ডেঙ্গু রোগীর। এ ঘটনায় ডেঙ্গু আতঙ্ক ছড়িয়েছে আশপাশের গ্রামগুলোতে। ওই গ্রামে ডেঙ্গু নিয়ন্ত্রণে মেডিক্যাল টিম গঠন করেছে স্থানীয় স্বাস্থ্য বিভাগ।

দৌলতপুর উপজেলার ছাতারপাড়া গ্রামে ঈদের পর থেকে ডেঙ্গু রোগের প্রাদুর্ভাব দেখা দেয়। স্থানীয় স্বাস্থ্য বিভাগের হিসেব মতে গেল ২৬শে আগস্ট পর্যন্ত ওই গ্রামে ডেঙ্গুতে আক্রান্ত হয়েছেন ৩৮ জন। এর মধ্যে, দৌলতপুর ও মিরপুর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স ও কুষ্টিয়া জেনারেল হাসপাতালে চিকিৎসা নিচ্ছেন ২৫ জন।  অন্যরা চিকিৎসা নিয়ে বাড়ি ফিরেছেন।

এদিকে, একটি গ্রামে ৩৮ জন ডেঙ্গু রোগী শনাক্ত হওয়ায় আতঙ্ক ছড়িয়ে পড়েছে পুরো দৌলতপুরবাসীর মধ্যে। স্থানীয়রা জানান, গেল ঈদে ঢাকা থেকে গ্রামের মানুষরা ছুটি কাটাতে গ্রামের আসার পর থেকেই ডেঙ্গু ছড়িয়ে পড়েছে।

তবে, স্থানীয় প্রশাসন ও স্বাস্থ্য বিভাগের দাবি ডেঙ্গু প্রতিরোধ ও মানুষকে সচেতন করতে তারা কাজ করে যাচ্ছেন।

কুষ্টিয়া সিভিল সার্জন (ভারপ্রাপ্ত) ডা. সেলিম হোসেন ফরাজি বলেন, ‘গ্রামে ডেঙ্গু পরিস্থিতি পর্যবেক্ষণে গিয়ে দেখা যায় ১৫ জন ডেঙ্গু আক্রান্ত হয়েছিলেন। তবে, তারা এখন ভালো আছেন। ডেঙ্গু প্রতিরোধে ওই গ্রামের একটি মেডিক্যাল টিম গঠন করে দেয়া হয়েছে।’ এমনকি ডেঙ্গু প্রতিরোধে জনগণকে সচেতন করা হয়েছে বলেও জানান তিনি।

কুষ্টিয়ার দৌলতপুরের উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা শারমিন আক্তার বলেন, ‘ গ্রামের মানুষদের সচেতন করতে বিভিন্ন সচেতনতামূলক লিফলেট দেয়া হয়েছে। এছাড়া, ওষুধ ও স্যালাইন সরবরাহ করা হয়েছে। এমনকি, তাদের পরামর্শ দেয়া হয়েছে তারা যেন তাদের বাড়ির আঙ্গিনা, আশপাশে ঝোপঝাড় পরিষ্কার রাখে এবং দিনে ও রাতে ঘুমানোর সময় মশারি ব্যবহার করে।

এলাকাবাসীর দাবি ডেঙ্গু রোগ যেন, আশ-পাশের গ্রামগুলোতে ছড়িয়ে না পড়ে সে বিষয়ে কার্যকর পদক্ষেপ নেবে সংশ্লিষ্টরা।

রিফাত হত্যায় স্ত্রী মিন্নির জামিন, গণমাধ্যমের সঙ্গে কথা না বলার নির্দেশ

বরগুনা : বরগুনার চাঞ্চল্যকর রিফাত শরীফ হত্যা মামলায় তার স্ত্রী আয়েশা সিদ্দিকা মিন্নিকে জামিনের আদেশ দিয়েছেন হাইকোর্ট। আজ বৃহস্পতিবার, বিচারপতি এম ইনায়েতুর রহিম ও বিচারপতি মোস্তাফিজুর রহমানের হাইকোর্ট বেঞ্চ এ আদেশ দেন। তবে, জামিনে থাকাকালীন গণমাধ্যমের সামনে কথা না বলার নির্দেশ দিয়ে আদালত বলেছেন গণমাধ্যমের সঙ্গে কথা বললে তার জামিন বাতিল হবে। আর জামিনে থাকা অবস্থায় মিন্নি তার বাবা মোজাম্মেল হক কিশোরের জিম্মায় থাকবেন।

এ সময়, রিফাত হত্যায় তার স্ত্রী আয়েশা সিদ্দিকা মিন্নি জড়িত থাকার বিষয়ে গণমাধ্যমে কাছে বরগুনা পুলিশ সুপারের দেয়া বক্তব্য দুঃখজনক ও হতাশাজনক বলে উল্লেখ করেন হাইকোর্ট। এসপির দেয়া বক্তব্যের বিষয়ে পুলিশের মহাপরিদর্শককে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নিতে নির্দেশ দেন আদালত।

আদালত বলেন, ‘আসামি ধরেই গণমাধ্যমের সামনে হাজির করে অতিউৎসাহী হয়ে বক্তব্য দিতে দেখা যায়। যতক্ষণ পর্যন্ত আদালত দ্বারা দোষী সাবাস্ত না হবে ততক্ষণ পর্যন্ত বলা যাবে না সে অপরাধী।’ একই সঙ্গে, গণমাধ্যমে আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর বক্তব্য দেয়া নিয়ে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রণালয়কে নীতিমালা প্রণয়নের নির্দেশ দেন।

এদিকে, মিন্নির জামিনের বিরুদ্ধে আপিলের ঘোষোণা দিয়েছে রাষ্ট্রপক্ষ।

আদালতে মিন্নির জামিন আবেদনের পক্ষে শুনানি করেন জ্যেষ্ঠ আইনজীবী জেডআই খান পান্না, তাকে সহযোগিতা করেন আইনজীবী মশিউর রহমান, মাক্কিয়া ফাতেমা, জামিউল হক ফয়সাল। অন্যদিকে, রাষ্ট্রপক্ষে ছিলেন ডেপুটি অ্যাটর্নি জেনারেল মো. সারোয়ার হোসেন বাপ্পী।

গতকাল বুধবার, বিচারপতি এম ইনায়েতুর রহিম ও বিচারপতি মোস্তাফিজুর রহমানের হাইকোর্ট বেঞ্চে মিন্নিকে জামিন দেয়ার বিষয়ে রুলের শুনানি শেষ হয়। এ সময়, মামলার তদন্ত কর্মকর্তা হুমায়ুন কবির হাইকোর্টে মামলার তথ্য-উপাত্ত দাখিল করেন।

এর আগে, রিফাত শরীফকে নৃশংসভাবে কুপিয়ে হত্যা মামলার প্রত্যক্ষদর্শী ও প্রধান সাক্ষী তার স্ত্রী আয়েশা সিদ্দিকা মিন্নিকে কেন জামিন দেয়া হবে না তা জানতে চেয়ে এক সপ্তাহের রুল জারি করে হাইকোর্ট। একই সঙ্গে, মামলার তদন্ত কর্মকর্তাকে তলব করে বিচারপতি এম ইনায়েতুর রহিম ও বিচারপতি মোস্তাফিজুর রহমানের হাইকোর্ট বেঞ্চ। এছাড়া, বরগুনার এসপিকে মিন্নির দোষ স্বীকার নিয়ে সংবাদ সম্মেলনের ব্যাখ্যা দিতে বলা হয়।

গত ৫ই আগস্ট হাইকোর্টের সংশ্লিষ্ট শাখায় মিন্নির পক্ষে জামিন আবেদন করেন জ্যেষ্ঠ আইনজীবী জেডআই খান পান্না।

রিফাত হত্যায় জড়িত থাকা সন্দেহে গত ১৬ই জুলাই সকাল পোনে দশটার দিকে জিজ্ঞাসাবাদের কথা বলে মিন্নিকে বরগুনা পুলিশ লাইনে নিয়ে আসা হয়। ওইদিন রাত ৯টার দিকে তাকে গ্রেপ্তার দেখিয়ে বরগুনা কারাগারে পাঠানো হয়। পরের দিন, বিকেল সোয়া তিনটার দিকে কারাগার থেকে বরগুনার সিনিয়র জুডিশিয়াল ম্যাজিষ্ট্রেট মোহাম্মদ সিরাজুল ইসলাম গাজীর আদালতে হাজির করে ৫ দিনের রিমান্ডে নেয় পুলিশ। রিমান্ডে নেয়ার ৪৮ ঘন্টা পরেই ১৯শে জুলাই বেলা দুইটার দিকে মিন্নিকে বরগুনা সিনিয়র জুডিশিয়াল ম্যাজিষ্ট্রেট মোহাম্মদ সিরাজুল ইসলাম গাজীর আদালতে হাজির করে ১৬৪ ধারায় স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি নেয়া হয়। একইদিন রাত সাড়ে ৭টার দিকে মিন্নিকে বরগুনা কারাগারে পাঠানো হয়। সেই থেকে মিন্নি বরগুনা কারাগারে রয়েছেন।

প্রসঙ্গত, গত ২৬শে জুন সকালে প্রকাশ্যে বরগুনা সরকারি কলেজ গেটের সামনে রিফাত শরীফকে কুপিয়ে আহত করা হয়। গুরুতর আহত অবস্থায় বরিশাল শের-ই-বাংলা মেডিক্যালে নেয়ার পর সেখানেই রিফাত শরীফ মারা যান। এ ঘটনায় রিফাতের বাবা আবদুল হালিম দুলাল শরীফ বাদী হয়ে ১২ জনকে আসামি করে বরগুনা থানায় হত্যা মামলা করেন।

বটিয়াঘাটায় পুষ্টি বিষয়ক গোল টেবিল বৈঠিক অনুষ্ঠিত

বটিয়াঘাটা প্রতিনিধি : বে-সরকারী উন্নয়ন সংস্থা ম্যাক্সনিউট্রি ওয়াশ জে,জে,এস প্রকল্পের উদ্দ্যোগে বুধবার সকাল ১০ টায় বটিয়াঘাটা উপজেলা প্রেসক্লাবের সাংবাদিকদের সাথে পুষ্টি বিষয়ক এক গোল টেবিল বৈঠিক স্থানীয় বিআরডিবি মিলনায়তনে অনুষ্ঠিত হয়। উপজেলা প্রেসক্লাবের সভাপতি প্রতাপ ঘোষের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত বৈঠকে নিরাপদ খাবার পানি ও স্যানিটেশন ব্যবস্থা সাধারণ মানুষের মধ্যে বৃদ্ধি করা, ওয়াশ বিষয়ক টেকসই উন্নয়ন করা ও স্থানীয় মানুষ, সরকারি প্রতিষ্ঠান ও বে-সরকারী উদ্যোক্তাদের সাথে যোগসূত্র স্থাপনের বিভিন্ন বিষয় নিয়ে বিস্তারিত আলোচনা হয়। সভায় বক্তব্য রাখেন জে,জে এস এর প্রজেক্ট ব্যবস্থাপক আব্দুল বাকী, ওয়াশ গভনেন্স এন্ড ক্যাপাসিটি বিল্ডিং অফিসার মোঃ ফরিদুজ্জামান, বিজনেস অফিসার মোঃ আকরাম হোসেন, বেবী ওয়াশ অফিসার তৌহিদা সুলতানা, উপজেলা প্রেসক্লাবের সাধারণ সম্পাদক ইন্দ্রজিৎ টিকাদার, কোষাধ্যক্ষ মোঃ মনিরুজ্জামান,সাংবাদিক শাহীন বিশ্বাস, এড, প্রশান্ত কুমার বিশ্বাস, আহসান কবীর, পরিতোষ রায়, বুদ্ধদেব মন্ডল, মহিদুল ইসলাম শাহীন, এস,এম ভুট্টো, গাজী তরিকুল ইসলাম, শাওন হাওলাদার, ইমরান হোসেন, তরিকুল ইসলাম, প্রমূখ।

বিদ্রোহী প্রার্থীদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা আগামী মাসে

ঢাকা অফিস : দলের দুঃসময়ের কাণ্ডারি আর যতো ত্যাগী নেতাই হোন না কেন- উপজেলা নির্বাচনে বিদ্রোহী প্রার্থীর হয়ে শৃঙ্খলা ভাঙ্গার শাস্তি পেতেই হবে।  এ কথা বলেছেন আওয়ামী লীগ নেতারা। জানালেন, আগামী মাসের শুরুতেই তাদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেয়া হবে।

গেলো ১০ই মার্চ শুরু হয়ে পাঁচ ধাপের শেষ হয় উপজেলা পরিষদ নির্বাচন। একে ঘিরে ক্ষমতাসীন আওয়ামী লীগের তৃণমূলে দেখা দেয় বিশৃঙ্খলা। প্রায় আড়াইশো নেতা বিদ্রোহী প্রার্থী হয়ে দলীর প্রাথীর বিরুদ্ধে লড়েন এ নির্বাচনে। তাদের সমর্থন দেয়ার অভিযোগ আছে তৃণমূলের আরো ৬ জনের মতো নেতার বিরুদ্ধে।

৫ই এপ্রিল দলের কার্যনির্বাহী সংসদের বৈঠকে অভিযুক্তদের বিরুদ্ধে তদন্ত করে ব্যবস্থা নিতে নির্দেশ দেন দলের সভাপতি শেখ হাসিনা। তারপর পাঁচমাস পার হতে চললেও শাস্তিমুলক ব্যবস্থা নেয়া যায়নি নানা কারণে।

আওয়ামী লীগের সভাপতিমণ্ডলীর সদস্য কাজী জাফরউল্লাহ বলেন, ‘বিদ্রোহী প্রার্থীদের কারণে আওয়ামী লীগের দলীয় ভাবমূর্তী যে নষ্ট হচ্ছে বা তৃণমূলে আমাদের নেতাকর্মীদের মধ্যে ভুল বোঝাবুঝি হচ্ছে। বেশির ভাগ নেতাকর্মী মনে করেন, দলের ভেতরে থেকে যারা বেইমানি করে এই ধরনের নেতাকর্মীদের দাঁত ভাঙা জবাব দিলে ভবিৎষতে আমরা ভালো থাকবো।’

আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক মাহবুব উল আলম হানিফ বলেন, ‘হঠাৎ করে বন্যা, ডেঙ্গু, শোকের মাস- এ কারণে এই মাসে আমরা কাউকে শোকজ বা চিঠি দেয়া থেকে বিরত থাকার সিদ্ধান্ত নিয়েছিলাম।’

দলীয় শৃঙ্খলা বজায় রাখতে অভিযুক্তদের ব্যাপারে কঠোর মনোভাব রয়েছে কেন্দ্রীয় নেতাদের। মাহবুব উল আলম হানিফ বলেন, ‘দলীয় সিদ্ধান্ত অমান্য করে সরাসরি বিদ্রোহী প্রার্থী হিসেবে অংশ নেয়া– এটা কোনো দায়িত্ববান নেতাকর্মীর আচরণ হতে পারে না।’

আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক জাহাঙ্গীর কবির নানক বলেন, ‘শেখ হাসিনার স্বাক্ষরিত মনোনয়ন দেয়া হয়েছে। সেই মনোনয়নের বিরোধিতা করার অধিকার কারো নেই। সে যত ত্যাগিই হোক।’

সেপ্টেম্বরের দ্বিতীয় সপ্তাহের মধ্যেই কারণ দর্শানোর চিঠি হাতে পাবেন অভিযুক্তরা। জবাব সন্তোষজনক না হলে গঠনতন্ত্র অনুযায়ী ব্যবস্থা নেবে দল বলে জানিয়েছেন আওয়ামী লীগ নেতারা।

সব চ্যানেল চলবে বঙ্গবন্ধু স্যাটেলাইটে

ঢাকা অফিস : বঙ্গবন্ধু স্যাটেলাইটের মাধ্যমে সবগুলো চ্যানেল অনুষ্ঠান সম্প্রচার করবে, এমন সিদ্ধান্ত নিয়েছে টেলিভিশন মালিকদের সংগঠন এ্যাটকো।

বিকেলে রাজধানীর ওয়েস্টিন হোটেলে সভা শেষে জানানো হয়, বিজ্ঞাপনের ওপর চাপ কমাতে সব চ্যানেল একসাথে পে চ্যানেল হিসেবে কাজ করার ব্যাপারে চেষ্টা চলছে।

তবে সঠিক টিআরপি রেটিং এর ক্ষেত্রে কোন কোম্পানীর সাথে কাজ করা হবে সে বিষয়ে এখনো কোন সিদ্ধান্ত হয়নি। সভায় উপস্থিত ছিলেন, বিভিন্ন টেলিভিশনের মালিক ও তাদের প্রতিনিধিরা।

কেশবপুরে পুলিশি বিশেষ অভিযানে গ্রেফতার ১১

কেশবপুর, যশোর :  যশোরের কেশবপুরে বিশেষ অভিযানে নিয়মিত মামলা ও বিভিন্ন মামলায় ওয়ারেন্টভুক্ত ১১ জন আসামিকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ। তাদেরকে যশোর আদালতে পাঠানো হয়েছে।

কেশবপুর থানার কর্মকর্তা ইনচার্জ (ওসি) মো. শাহিন জানান, সোমবার ও মঙ্গলবার রাতে বিশেষ অভিযান পরিচালনা কালে নিয়মিত মামলায় উপজেলার বারুইহাটি গ্রামের মশিয়ার রহমান সরদারের ছেলে রেজাউল করিম (৩৫) ও বিভিন্ন মামলায় ওয়ারেন্টভুক্ত পলাতক আসামি ভোগতি গ্রামের মৃত ইনতাজ আলী মোড়লের ছেলে শহিদুল ইসলাম (৪০), আলতাপোল গ্রামের মৃত ইছাহাক আলীর ছেলে আবদুল ওয়াদুদ (৪৫), মৃত আবুল কাশেম মোড়লের ছেলে কবির হোসেন (৪০), কামাল হোসেন (৩৫) ও শাহাদৎ হোসেন (৩৭), কবির হোসেনের স্ত্রী সলিমুন্নেছা বেগম (৩০), মধ্যকুল গ্রামের মশিয়ার রহমানের স্ত্রী হামিদা বেগম (৩৫), ইয়াসির আর রাফির স্ত্রী জোহরা বেগম (৪০), কড়িয়াখালি গ্রামের হাফিজুর রহমানের স্ত্রী হারিচা বেগম (৪২) ও বিদ্যানন্দকাটি গ্রামের খোকন মোড়লের ছেলে আবদুল গনি মোড়লকে (৪৫) গ্রেফতার করা হয়েছে। তাদের বিরুদ্ধে নিয়মিত মামলা ও আদালত কর্তৃক বিভিন্ন মামলায় ওয়ারেন্ট রয়েছে। গ্রেফতাকৃতদের যশোর আদালতে পাঠানো হয়েছে।