শোকের মাস আগস্ট

ঢাকা অফিস : শুরু হলো শোকের মাস। আগস্ট মানেই বাঙালি জাতির বেদনা বিধুর শোকের মাস। বাংলাদেশের ইতিহাসে সবচেয়ে কলঙ্কজনক অধ্যায় এ মাসের ১৫ তারিখ।  ১৯৭৫ সালের ১৫ই আগস্ট একদল বিপথগামী সেনাসদস্য সর্বকালের সর্বশ্রেষ্ঠ বাঙালি বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানকে সপরিবারে হত্যা করে।

বাঙালির ইতিহাসে কলঙ্কিত এক অধ্যায় সূচিত হয়েছে আগস্ট মাসে। ইতিহাসের দীর্ঘ পথ পেরিয়ে বাঙালি জাতি সে নিষ্ঠুর হত্যার বিচারের রায় কার্যকরের মাধ্যমে কলঙ্কমুক্ত হলেও ঘাতকদের বিরুদ্ধে তীব্র ঘৃণার চেতনাকে নতুন করে জাগিয়ে তোলে এ মাস।

ঘাতকরা শুধু বঙ্গবন্ধুকেই হত্যা করেনি, ঘৃণ্য নরপশুরা একে একে হত্যা করেছে বঙ্গবন্ধুর সহধর্মিণী বেগম ফজিলাতুন্নেসা মুজিব, বঙ্গবন্ধুর ছেলে শেখ কামাল, শেখ জামাল, শিশুপুত্র শেখ রাসেলসহ পুত্রবধূ সুলতানা কামাল ও রোজি জামালকে। জঘন্যতম এই হত্যাকান্ড থেকে বাঁচতে পারেনি বঙ্গবন্ধুর ভাই শেখ নাসের, ভগ্নিপতি আবদুর রব সেরনিয়াবাত, ভাগ্নে যুবনেতা ও সাংবাদিক শেখ ফজলুল হক মণি, কর্নেল জামিলসহ ১৬ জন সদস্য ও আত্মীয়স্বজন।

১৫ আগস্ট দিনটিকে জাতীয় শোক দিবস হিসেবে পালন করে আসছে জাতি। তবে আওয়ামী লীগ পুরো আগস্ট মাসজুড়েই শোক পালন করে। বঙ্গবন্ধুর ৪৪তম শাহাদাত বার্ষিকী উপলক্ষ্যে আওয়ামী লীগসহ এর সহযোগী ও ভাতৃপ্রতিম সংগঠনগুলো নানা কর্মসূচি  গ্রহণ করেছে।

চাকরির নামে প্রতারণা

ঢাকা অফিস : নিয়োগের নামে প্রতারণা করে কর্মকর্তা-কর্মচারিদের প্রায় অর্ধকোটি টাকা হাতিয়ে নেয়ার অভিযোগ উঠেছে লাইভ সেভার লিমিটেড নামে একটি প্রতিষ্ঠানের বিরুদ্ধে। এঘটনায় নিজেই প্রতারণার স্বীকার বলে দাবি প্রতিষ্ঠানটির চেয়ারম্যান ও ফরিদপুর পৌরসভার প্যানেল মেয়র মির্জা জাকির হোসেনের। আর এ ঘটনায় তদন্ত করে ব্যবস্থা নেয়ার কথা জানিয়েছে পুলিশ।

২০১৯ সালে ঔষধ ও চিকিৎসাসামগ্রী উৎপাদন এবং বাজারজাত করতে যাত্রা করে উত্তরার সাত নম্বর সেক্টরের লাইভ সেভার লিমিটেড। প্রতিষ্ঠার পর দেশব্যাপী পাঁচ হাজার থেকে আড়াই লাখ টাকা পর্যন্ত জামানত নিয়ে বিভিন্ন পদে প্রায় সাতশ নারী পুরুষকে নিয়োগ দেয় লাইভ সেভার কর্তৃপক্ষ। শুরু থেকেই কর্মকর্তা কর্মচারীদের বেতন না দিয়ে টালবাহানা করে আসছে বলে অভিযোগ ভুক্তভোগীদের।

বেতন নিয়ে টালবাহানার সাথে সাথে নারী কর্মিদের যৌন হয়রানীর অভিযোগ পাওয়া গেছে প্রতিষ্ঠানটির ব্যবস্থাপনা পরিচালকের বিরুদ্ধে।

এঘটনায় জামানতের টাকা নেয়ার কথা স্বীকার করলেও প্রতিষ্ঠানটির কর্মকান্ড নিয়ে কোন সদুত্তর দিতে পারেননি প্রতিষ্ঠানটির ব্যবস্থাপনা পরিচালক জাহিদ রেজা।

আর বিনিয়োগ করে নিজেই প্রতারণার স্বীকার বলে দাবি করেন প্রতিষ্ঠানটির চেয়ারম্যান মির্জা জাকির হোসেন।

উত্তরা থানার উপ-পরিদর্শক বদরুল আলম বলেন, এ ঘটনায় তদন্ত করে ব্যবস্থা নেয়ার হবে।

ডেঙ্গু জ্বরে আরও ৩ জনের মৃত্যু

ঢাকা অফিস : রাজধানীসহ সারাদেশে ডেঙ্গু পরিস্থিতি ভয়াবহ রূপ নিয়েছে। প্রতিদিনই আক্রান্ত রোগীর সংখ্যা আগের সব রেকর্ড ভেঙে নতুন রেকর্ড করছে। বর্তমানে সরকারি-বেসরকারি বিভিন্ন হাসপাতালে চিকিৎসাধীন ডেঙ্গু রোগীর সংখ্যা ৪ হাজার ৯০৩ জন।

ডেঙ্গুতে আক্রান্ত হয়ে আজ ঢাকা মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে একজন ও সলিমুল্লাহ মেডিক্যালে একজন এবং হলি ফ্যামিলি হাসপাতালে একজন মারা গেছেন।এতে, এ পর্যন্ত ডেঙ্গু জ্বরে আক্রান্ত হয়ে মৃতের সংখ্যা বেড়ে দাঁড়িয়েছে ১৮ জনে।

বৃহস্পতিবার সকালে, রাজধানীর সোহরাওয়ার্দী হাসপাতালে গিয়ে দেখা যায়, ডেঙ্গু পরীক্ষার জন্য দীর্ঘ লাইন ধরে অপেক্ষা করছেন রোগীরা। হাসপাতালটিতে এখন পর্যন্ত ডেঙ্গু আক্রান্ত রোগীর সংখ্যা ৩১২ জন। গত ২৪ ঘন্টায় রাজারবাগ পুলিশ লাইনস হাসপাতালে ভর্তি হয়েছে ৩৯ জন রোগী। এছাড়াও পুলিশ লাইনস হাসপাতালে ডেঙ্গু জ্বরে আক্রান্ত রোগী ভর্তি আছেন ১৬৫ জন, যাদের মধ্যে ১১৮ জন পুলিশ সদস্য রয়েছেন।

এদিকে, স্যার সলিমুল্লাহ মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতাল একশ শয্যার ডেঙ্গু ইউনিট উদ্বোধন করেছেন স্বাস্থ্যমন্ত্রী ডা. জাহিদ মালেক। হাসপাতালটিতে ডেঙ্গু আক্রান্ত হয়ে মোট ভর্তি রোগীর সংখ্যা ৩২৮ জন। এখানে, গত ২৪ ঘন্টায় ভর্তি হয়েছেন ৮৫ জন রোগী। এছাড়াও রাজধানীর অন্যান্য হাসপাতালে ডেঙ্গু আক্রান্তদের সংখ্যা বেড়েই চলছে।

রাজধানী ঢাকার পর সারা দেশে ছড়িয়ে পড়ছে ডেঙ্গু। ডেঙ্গু আক্রান্ত হয়ে প্রতিদিনই হাসপাতালে ছুটছে নতুন রোগী। ঢাকার বাইরের হাসপাতালে যারা চিকিৎসা নিতে আসছেন তাদের অধিকাংশই ঢাকা থেকে ফেরার পর আক্রান্ত হয়েছেন ডেঙ্গুতে।

রাজবাড়ী সদর হাসাপাতাল: জেলার প্রধান চিকিৎসা কেন্দ্র হলেও এখানে ডেঙ্গু শনাক্তের কোনো ব্যবস্থা না থাকায় চরম ভোগান্তিতে রোগী ও তাদের স্বজনরা।

ডেঙ্গু রোগীর সংখ্যা বেড়েছে ময়মনসিংহ মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালেও। আলাদা কোনো ওয়ার্ড না থাকায় চাপ সামলাতে রীতিমত হিমশিম খাচ্ছে হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ।

ডেঙ্গুতে আক্রান্তের সংখ্যা বাড়ছে মুন্সীগঞ্জেও। এছাড়া শেরপুর সদর হাসপাতালে রোগীর চাপ বাড়ায় খোলা হয়েছে আলাদা কর্ণার। যেখানে শুধুমাত্র ডেঙ্গু রোগীরা চিকিৎসা নেবেন।

কুমিল্লা মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালের চিত্রও প্রায় এক। এছাড়া যশোরে আক্রান্তদের চিকিৎসায় আলাদা ওয়ার্ড চালু করেছে যশোর জেনারেল হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ। ডেঙ্গু নির্ণয়ে বাগেরহাট সদর হাসপাতালে চালু করা হয়েছে আলাদা সেল।

এদিকে, ডেঙ্গুর চিকিৎসায় আলাদা বেড রাখার পাশাপাশি ডেঙ্গু কর্ণার চালু করেছে নেত্রকোণা আধুনিক সদর হাসপাতাল। এছাড়া, দিনাজপুর এম আব্দুর রহিম মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে রোগীর চাপ সামলাতে খোলা হয়েছে তিনটি ওয়ার্ড। অন্যদিকে, গাজীপুর, চাঁদপুর, বগুড়া ও নেত্রকোণায় প্রতিদিনই বাড়ছে ডেঙ্গু আক্রান্তের সংখ্যা।

বিয়ের আসরে ঢুকে কনের বাবা হত্যা

ঢাকা অফিস : রাজধানীর মগবাজারে এক বিয়ের অনুষ্ঠানে ঢুকে কনের বাবা এবং মাকে ছুরিকাঘাত করেছে এক যুবক। এ ঘটনায় কনের বাবা মারা গেছেন।

বৃহস্পতিবার দুপুরে, মগবাজারের দিলুরোড এলাকায় প্রিয়াংকা স্যুটিং হাউজ নামের একটি কমিউনিটি সেন্টারে এ ঘটনা ঘটে। এ ঘটনায় সজীব আহমেদ রকি নামের এক  যুবককে গণপিটুনি দেয় বিয়েতে আগত অতিথিরা। পরে, তাকে পুলিশ হেফাজতে ঢাকা মেডিক্যাল কলেজ  হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে।

হাতিরঝিল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) আবদুর রশিদ বিষয়টি জানান, বিয়ের কনে ছিলেন স্বপ্না আক্তার ফাতেমা নামের ১৮ বছরের একটি মেয়ে। তাঁর বাবার নাম তুলা মিয়া (৪৫)। মায়ের নাম ফিরোজা খাতুন। হাতে গোনা কয়েকজনকে নিয়ে বিয়েটি অনুষ্ঠিত হচ্ছিল। এ সময় সজীব আহমেদ রকি নামের এক ছেলে সেন্টারে ঢুকে হট্টগোল সৃষ্টি করে। একপর্যায়ে কনের বাবা ও মাকে ছুরিকাঘাত করে। এতে কনের বাবা তুলা মিয়া মারা গেছেন। গুরুতর জখম মা ফিরোজা খাতুন বর্তমানে হাসপাতালে চিকিৎসাধীন আছেন।

রকি পুলিশকে জানান, বিয়ের কনেকে তিনি ভালোবাসেন। অন্য পুরুষের সঙ্গে তাঁর বিয়ে সইতে না পেরে তিনি এমন করেছেন।