আগামী ১০ নভেম্বর থেকে দুবলার চরে রাস উৎসব শুরু

বিজ্ঞপ্তি : শত বছরের ঐতিহ্যবাহী সুন্দরবনের দুবলার চরে তিন দিনব্যাপী রাস উৎসব শুরু হচ্ছে রবিবার ১০ নভেম্বর। প্রতি বছর কার্ত্তিক মাসের পূর্ণিমা তিথিতে সুন্দরবন পূর্ব বিভাগের শরণখোলা রেঞ্জের দুবলার চরের আলোরকোলে এই রাস উৎসব হয়ে আসছে।  বুধবার বিকাল ৪টায় খুলনা বিভাগীয় কমিশনার লোকমান হোসেন এর সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত এক সভায় বলেন, দুবলার চরে রাসমেলা উপলক্ষে হাজার হাজার লোকের আগমন ঘটে। ফলে আইন-শৃঙ্খলা রক্ষা, কন্ট্রোল রুম স্থাপন, যাতায়াত ব্যবস্থা, পরিবেশ দূষণরোধ, অস্থায়ী টয়লেট স্থাপন সহ নানা বর্জ্যর সঠিক ব্যবস্থাপনায় এ বছর সুষ্ঠু স্যানিটেশন ব্যবস্থা করা হচ্ছে। সনাতন ধর্মাবলম্বী ছাড়াও অন্য ধর্মের মানুষ দুবলার চরের আলোরকোলে রাস উৎসবে অংশ গ্রহন করেন। এবারও লক্ষাধিক লোকের সমাগম হবে বলে আয়োজকেরা আশা করছেন। রাস উৎসবের জন্য সুন্দরবন পূর্ব ও পশ্চিম বিভাগে মোট আটটি প্রবেশ পথ নির্ধারণ করেছে বনবিভাগ। প্রবেশ পথ ঘুলো হল, ঢাংমারী, বগী, কচিখালী, শরণখোলা স্টেশন, বুড়িগোয়ালিনি, কৈখালী, কয়রা কাশিয়াবাদ এবং নলিয়ান। এসব স্থান থেকে বনভিাগের কাছ থেকে অনুমতি নিয়ে সুন্দরবনে প্রবেশ করা যাবে। সুন্দরবন বিভাগের বনসংরক্ষক জানান, আলোরকোলে দর্শনার্থীদের জন্য আটটি প্রবেশ দ্বার রাখা হয়েছে। নিবন্ধিত একশ ফুটের বেশি লম্বা লঞ্চ প্রতি প্রবেশ ফি এক হাজার টাকা, একশ ফুটের নিচের লঞ্চের প্রবেশ ফি ৮০০ টাকা, পঞ্চাশ ফুটের নিচে ৫০০ টাকা, ইঞ্জিন চালিত ট্রলার প্রতি ৩০০ টাকা, ষ্পীডবোট ২০০ টাকা এবং নৌকা প্রতি ১০০ টাকা রাখা হয়েছে। “প্রতিটি লঞ্চ ও ট্রলার রাখার জন্য (অবস্থান ফি) বন বিভাগকে দিতে হবে ২০০ থেকে ৩০০ টাকা করে। সুন্দরবনে ঢুকতে প্রতি দর্শনার্থীকে তিনদিনের জন্য ৫০ টাকা হারে প্রবেশ ফি দিতে হবে।” রাস উৎসবকে ঘিরে সুন্দরবনে কঠোর নিরাপত্তা নেওয়া হয়েছে জানিয়ে সিএফ বলেন, সুন্দরবনে আসা সনাতন ধর্মাবলম্বী ও পর্যটকদের নিরাপত্তা দিতে বনবিভাগ, কোস্টগার্ড, নৌবাহিনী, র্যা ব ও পুলিশ আলাদা আলাদা টিম করে টহল দিবে। অন্যদিকে উৎসবের আড়ালে কোন চোরা শিকারিরা যাতে বনের কোন ক্ষতিসাধন না করতে পারে সেজন্য বনবিভাগের কঠোর নজরদারি থাকবে।

ধর্মঘটের বিষয়ে সন্ধ্যা ৬টায় ক্রিকেটারদের সংবাদ সম্মেলন

ঢাকা অফিস : বেতন-ভাতা বাড়ানোসহ ১১ দফা দাবিতে আন্দোলন ও ধর্মঘটের বিষয়ে সংবাদ সম্মেলন করবেন ক্রিকেটাররা।  বেতন-ভাতা বাড়ানোসহ ১১ দফা দাবিতে আন্দোলন ও ধর্মঘট এবং সাম্প্রতিক বিষয় নিয়ে সংবাদ সম্মেলন করবেন ক্রিকেটাররা। এ লক্ষে আজ বুধবার সন্ধ্যা ৬টায় রাজধানীর গুলশাল-২ নম্বরের সিক্স সিজন হোটেলে সংবাদ সম্মেলন করবেন সাকিব-তামিম-মুশফিক ও মাহমুদুল্লাহসহ দেশের শীর্ষ ক্রিকেটাররা। এরই মধ্যে, গুলশানের সিক্স সিজন হোটেলটিতে পৌঁছেছেন ক্রিকেটাররা।

এদিকে, বিসিবি সভাপতি নাজমুল হাসান পাপনের পক্ষ থেকে আন্দোলনরত ক্রিকেটারদের সব দাবি মেনে নেওয়ার কথা জানালেও ক্রিকেটারদের কাছ থেকে কোন সাড়া মেলেনি। এমনকি, বিকেল ৫টা পর্যন্ত বিসিবিতে বোর্ড কর্মকর্তারা অপেক্ষ করলেও কোনো ক্রিকেটারের দেখা মেলেনি।

দেশের শীর্ষ ক্রিকেটারদের ১১ দফা দাবি নিয়ে বাংলাদেশ ক্রিকেট বোর্ডের (বিসিবি) প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা নিজামুদ্দিন চৌধুরী বলেন, ‘খেলোয়াড়েরা আমাদের কাছে খুবই গুরুত্বপূর্ণ। ক্রিকেটারদের দাবি বিবেচনা করা হবে। সব দাবি আর্থিক, তাই এগুলো চাইলে সমাধান সম্ভব। দ্রুত সমস্যা সমাধানের জন্য তামিমের সঙ্গে কথা হয়েছে। তাদের বলা হয়েছে বোর্ড আজ বিকেল ৫টা পর্যন্ত অপেক্ষা করবে।’ কিন্তু এর পরেও দেখা মেলেনি সাকিব-তামিমদের।

স্বেচ্ছাসেবক লীগ সভাপতির পদ থেকে মোল্লা আবু কাওসারকে অব্যাহতি

ঢাকা অফিস : ক্যাসিনোকাণ্ডে স্বেচ্ছাসেবক লীগ সভাপতির পদ থেকে মোল্লা আবু কাওসারকে অব্যাহতি দেয়া হয়েছে।  আজ বুধবার এ তথ্য জানান আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের।

গত সোমবার জাতীয় রাজস্ব বোর্ডের (এনবিআর) কেন্দ্রীয় গোয়েন্দা সেল (সিআইসি) থেকে সংশ্লিষ্ট ব্যাংকগুলোকে কাওসারসহ তার স্ত্রী পারভীন লুনা, মেয়ে নুজহাত নাদিয়া নীলা এবং তাদের প্রতিষ্ঠান ফাইন পাওয়ার সল্যুয়েশন লিমিটেডের ব্যাংক হিসাব জব্দ করে। এ কারণে সংগঠনের ভিতরে- বাইরে সম্মেলনের আগেই তাকে দায়িত্ব থেকে অব্যাহতি হতে পারে বলে ধারনা করা হচ্ছিলো।

সম্প্রতি রাজধানীর ক্যাসিনো কারবারে ওয়ান্ডারার্স ক্লাবের সঙ্গে সম্পৃক্ত থাকার অভিযোগে বিভিন্ন গণমাধ্যমের শিরোনামে আসেন মোল্লা কাওসার। ১৮ই সেপ্টেম্বর মতিঝিলের আরামবাগে ঢাকা ওয়ান্ডারার্স ক্লাবের ক্যাসিনোতে অভিযান চালায় র‌্যাব। অভিযানে প্রচুর মাদকদ্রব্য, ২০ হাজার ৫০০ টাকার জাল নোট, ১০ লাখ ২৭ হাজার টাকা ও ক্যাসিনোর সরঞ্জাম জব্দ করা হয়।

অভিযানে ঢাকা ওয়ান্ডারার্স ক্লাবের মালিকানা হিসেবে মোল্লা মো. আবু কাওছারের নাম ওঠে আসে। অভিযোগ ওঠে, ক্লাবটির মালিকানার পাশাপাশি সভাপতিও তিনি। তবে সভাপতি হলেও মালিকানার অভিযোগটি অস্বীকার করে বিবৃতি দেয় স্বেচ্ছাসেবক লীগ।

তিতাসের মৃত্যুতে যুগ্ম সচিবের দায় নেই

ঢাকা অফিস : ফেরিঘাটে স্কুলছাত্র তিতাসের মৃত্যুতে যুগ্ম সচিব আব্দুস সবুরের কোন দায় নেই। হাইকোর্টে জমা দেয়া মন্ত্রিপরিষদ বিভাগের তদন্ত প্রতিবেদনে এ কথা জানানো হয়েছে।

বুধবার, বিচারপতি এফ আর এম নাজমুল আহসান ও বিচারপতি কে এম কামরুল কাদেরের বেঞ্চে এ শুনানি হয়।

আদালত এ ঘটনায় নৌপরিবহন মন্ত্রনালয় ও মাদারিপুর জেলা প্রশাসকের করা তদন্ত প্রতিবেদন ৭ই নভেম্বরের আগে জমা দেয়ার নির্দেশ দেন। ওইদিন এ বিষয়ে পরবর্তী শুনানি হবে।

শুনানিতে রিটকারি আইনজীবী জহিরউদ্দিন লিমন আদালতকে বলেন, ‘নৌপরিবহন মন্ত্রনালয়ের তদন্তে যুগ্ম সচিব আব্দুস সবুরের জন্য ফেরি ছাড়তে দেরি করা হয়েছে বলে ইন্ডিপেন্ডেন্ট টেলিভিশনের প্রতিবেদনে প্রকাশিত হয়েছে। এ ঘটনায় সচিব দায় এড়াতে পারেন না।’

পরে, আদালত নৌপরিবহন মন্ত্রনালয় ও জেলা প্রশাসকের তদন্ত প্রতিবেদন চান। ভিআইপির জন্য অ্যাম্বুলেন্স আছে জেনেও ফেরি আটকে রাখা যায়না, আইনেও তা নেই বলে শুনানিতে মন্তব্য করেন আদালত।

প্রসঙ্গত, গত ২৫শে জুলাই সরকারের এটুআই প্রকল্পের যুগ্ম-সচিব আব্দুস সবুর মন্ডলের গাড়ির অপেক্ষায় ফেরি পার হতে তিন ঘণ্টা দেরি হয়। এ সময়, অ্যাম্বুলেন্সে থাকা তিতাসের মৃত্যুর অভিযোগ ওঠে। স্বজনদের অভিযোগ, ঘাট কর্মকর্তা ও পুলিশের কাছে অনুরোধের পরও ওই কর্মকর্তা না আসা পর্যন্ত কাঁঠালবাড়ি ঘাট থেকে ফেরি ছাড়েনি। এমনকি, ৯৯৯ নম্বরে ফোন করে সাহায্য চাওয়ার পরও ফেরি চালু করা যায়নি।

প্রায় তিন ঘণ্টা অপেক্ষার পর যুগ্ম সচিবের গাড়ি আসলে ‘ফেরি কুমিল্লা’ যাত্রা শুরু করে। কিন্তু, ততক্ষণে নদী পার হওয়ার আগেই রাত সাড়ে ১২টার দিকে মারা যায় ৬ষ্ঠ শ্রেণির ছাত্র তিতাস ঘোষ।

তালায় অজ্ঞাত যবুকের মরদেহ উদ্ধার

তালা প্রতিনিধি : সাতক্ষীরার তালায় অজ্ঞাত এক যবুকের মরদেহ উদ্ধার করেছে পুলিশ। বুধবার সকালে উপজেলার পাটকেলঘাটা থানার নগরঘাটা এলাকার সমন ডাঙ্গার ঘের থেকে তার মরদেহ উদ্ধার করা হয়।
পাটকেলঘাটা থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) কাজী ওয়াহিদ মুর্শেদ জানান, নগরঘাটার সমনডাঙ্গা বিলে একটি মৎস্য ঘেরে লাশ ভাসতে দেখে স্থানীয়রা পুলিশকে খবর দেয়। পুলিশ ঘটনাস্থল থেকে মরদেহটি উদ্ধার করে। মরদেহের পরনে ছিল লুঙ্গি ও গেঞ্জি। বয়স আনুমানিক ২২ বছর।
ওসি আরও বলেন,কয়েকদিন আগের মরদেহ হবে। মরদেহটি পঁচে গেছে এবং মরদেহের অধিকাংশ জায়গা মাছে খেয়ে ফেলেছে। গায়ে আঘাতের চিহৃ পাওয়া যায়নি বলে তিনি জানান। পুলিশ মরদেহটি উদ্ধার করে ময়না তদন্তের জন্য সাতক্ষীরা সদর হাসপাতাল মর্গে প্রেরন করেছে। তার পরিচয় জানার চেষ্টা চলছে।