মোংলায় স্কুল শিক্ষার্থী হাত-পা ও মুখ বেধে ধর্ষন : আটক ১

মোংলা প্রতিনিধি : মোংলায় অষ্টম শ্রেনীর এক স্কুল শিক্ষার্থী ধর্ষনের শিকার হয়েছে বলে অভিযোগ উঠেছে। বৃহস্পতিবার দুপুরে উপজেলার চাঁদপাই ইউনিয়নের দক্ষিন মালগাজী গ্রামে নিজ ঘরে হাত-পা আর মুখ বেধে জোর পুর্বক ধর্ষন করে বলে ওই ছাত্রী অভিযোগ করে। ধর্ষনের এ ঘটনায় প্রসেনজিৎ দাস (৩৫) নামে এক যুবককে আটক করেছে পুলিশ। প্রতিবেশীরা জানায়, দক্ষিন মালগাজী গ্রামের গার্লস স্কুলের ৮ম শ্রেনীতে পরে এলাকার প্রকাশ মিস্ত্রীর কিশোরী মেয়ে। পিতা চট্টগ্রামের দিন মজুরের কাজ করেন। দুই মেয়ের মধ্যে বড় মেয়ে শশুরালয় চলে যাওয়ায় ওই স্কুল পড়–য়া মেয়েকে নিয়ে মা রুনুমা মিস্ত্রী নিজ বাড়ীতে বসবাস করতেন। দীঘদিন যাবত ছোট মেয়ে স্কুলে আসা-যাওয়ার পথে প্রায়ই কু-প্রস্তাপ দিয়ে আসছিল প্রতিবেশী প্রশেনজিৎ দাস। বৃহস্পতিবার দুপুরে ওই স্কুল শিক্ষার্থী বাড়িতে একা থাকায় প্রতিবেশী যুবক প্রসেনজিৎ তাদের ঘরে প্রবেশ করে এবং মেরে ফেলার ভয়ভীতি দেখিয়ে মুখ ও হাত-পা বেঁধে জোর পুর্বক তাকে ধর্ষন করে। এক পর্যায় কিশোরীর চিৎকারে প্রতিবেশীরা এগিয়ে আসলে ধর্ষক যুবক প্রসেনজিৎ পালানোর চেষ্টা করে। স্থানীয়রা ধাওয়া করে তাকে আটকে করে পুলিশে খবর দেয়। দুপুরের দিকে পুলিশ এসে তাকে আটক করে থানায় নিয়ে যায়। একই সঙ্গে আলামত সংগ্রহ সহ ধর্ষিত কিশোরীকে উদ্ধার করেছে পুলিশ। এ ঘটনায় ধর্ষিতার মা রুনুমা মিস্ত্রী বাদী হয়ে মোংলা থানায় একটি ধর্ষন মামলা দায়ের করেছে। এ বিষয় মোংলা থানার এস আই সেকেন্ড অফিসার জাহাঙ্গীর হোসেন জানান, ধর্ষিতার ডাক্তারি পরীক্ষার জন্য শুক্রবার বাগেরহাট জেলা সদর হাসপাতালে পাঠানো হবে। তিনি আরো জানান, ঘটনার পর পরই সহকারী পুলিশ সুপার আসিফ ইকবাল ঘটনাস্থল পরিদর্শন সহ সার্বিক বিষয় খোঁজ খবর নেন এবং ধষিতার পরিবারকে মামলা সহায়তার করারও আশ্বস্ত করেন। ধর্ষনের পুরো ঘটনা অনুসন্ধানে পুলিশের তদন্ত চলছে। তবে ডাক্তারী পরীক্ষা সম্পন্ন হলে এ বিষয় নিশ্চিত হওয়া সম্ভব হবে বলেও তিনি জানান পুলিশের এ কর্মকর্তা।

ভারতে বিতর্কিত নাগরিকত্ব সংশোধনী বিল পাস

আন্তর্জাতিক : তীব্র বিরোধিতায়ও রাজ্য সভায় পাস নাগরিকত্ব বিল, উত্তপ্ত ভারত। লোকসভায় পাসের পর ভারতের পার্লামেন্টের উচ্চকক্ষ রাজ্যসভায় পাস হলো নাগরিকত্ব সংশোধনী বিল। এখন থেকে এ বিলটি ভারতের আইনে পরিণত হতে যাচ্ছে। দিনভর উত্তপ্ত বিতর্কের পর ১২৫-১০৫ ভোটের ব্যবধানে বিলটি পাস হয় রাজ্যসভায়।

এর আগে, বুধবার রাজ্যসভায় বিলটি পেশ করেন স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী অমিত শাহ। তিনি বলেন, এতে ভারতে বসবাসকারী মুসলমানদের ভয় পাওয়ার কোনো কারণ নেই। এই আইন নিয়ে কারও উদ্বেগ থাকলে, তা আমলে নেয়া হবে। আগামী নির্বাচনের আগেই এই আইন বাস্তবায়ন করা হবে। বিভিন্ন মহলে এই আইন নিয়ে বিভ্রান্তি রয়েছে বলেও জানান তিনি।

রাজ্যেসভায় বিলটির সমর্থনে নিজের বক্তব্যে অমিত সাহ বলেন, ‘বাংলাদেশ, পাকিস্তান ও আফগানিস্তানে ধর্মীয় সংখ্যালঘুদের সঙ্গে ধর্মীয় প্রতারণা হয়েছে। এই বিলের মাধ্যমে প্রতারণার শিকার সব ধর্মীয় সংখ্যালঘু শরণার্থীদের অধিকার দেয়া হবে। এই আইনে বাইরের দেশগুলোর সংখ্যালঘুদের নাগরিকত্ব দেওয়া হবে, কারো নাগরিকত্ব হরণ করা হবে না।’

বিলটি পাস হওয়ায় ২০১৪ সালের ৩১শে ডিসেম্বরের আগে, নিজের দেশে ধর্মীয় কারণে নির্যাতনের শিকার হয়ে ভারতে পালিয়ে যাওয়া বাংলাদেশ, আফগানিস্তান ও পাকিস্তানের হিন্দু, বৌদ্ধ, খ্রিস্টান, শিখ, জৈন, পার্সিরা নাগরিকত্ব পাবেন।

এদিকে এ বিলের প্রতিবাদে ভারতের আসাম ও ত্রিপুরা রাজ্যে সোমবার সকাল থেকে বিক্ষোভ ও ধর্মঘট চলছে। এ ধর্মঘট ঠেকাতে ত্রিপুরায় কারফিউ জারি করেছে কেন্দ্রীয় সরকার। রাজ্যের বিভিন্ন স্থানে করা হয়েছে সেনা মোতায়েন। ভারতের সংবাদ মাধ্যম ইন্ডিয়া টুডে জানিয়েছে, শেষ খবর পাওয়া পর্যন্ত আসামে অন্তত এক হাজার বিক্ষোভকারীকে আটক করেছে পুলিশ। এছাড়া, ত্রিপুরায় ইন্টারনেট বন্ধ করে দেওয়া হয়েছে বলেও খবর পাওয়া গেছে।

দালাল আইন বাতিল করে ছেড়ে দেওয়া হয় যুদ্ধাপরাধীদের

ঢাকা অফিস : পাকিস্তানি দোসরদের বিচারের আওতায় আনতে প্রনয়ণ করা হয় দালাল আইন। কিন্তু, পরবর্তীতে দালাল আইন বাতিল করে আসামিদের কারাগার থেকে ছেড়ে দেয়া হয়।
১৯৭৫ এর ১৫ই আগস্টের পর দেশকে পাকিস্তানী ভাবধারায় ফিরিয়ে নিতে সবধরনের চেষ্টাই করেছিল তখনকার শাসকগোষ্ঠী। জিয়াউর রহমানের প্রত্যক্ষ নির্দেশনায় দালাল আইন বাতিল করে কারাগার থেকে ছেড়ে দেয়া হয়েছিল ১০ হাজারেরও বেশি এদেশের পাকিস্তানী দোসরদের। এমনকি, পরেও যাতে যুদ্ধাপরাধীদের বিচার না করা যায় তা নিশ্চিত করতে নষ্ট করা হয় বিভিন্ন আলামত।

মুক্তিযুদ্ধে বিজয়ের পর ১৯৭২ সালের ১০ই জানুয়ারী দেশে ফেরেন জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান। এর দু’দিন পরই বঙ্গবন্ধু জানালেন পাকিস্তানের এদেশীয় দোসরদের বিচারের আওতায় আনা হবে। এরই পরিপ্রেক্ষিতে ২৪শে জানুয়ারি প্রণয়ন করা হয় দালাল আইন।

১৯৭৩ সালের অক্টোবর পর্যন্ত এই আইনের আওতায় সারা দেশে ২৮৮৪টি মামলা হয়। আটক করা হয় ৩৭ হাজারের মত রাজাকার আলবদর আলশামসসহ পাকিস্তানের এদেশীয় দোসরদের। বিচারের জন্য গঠন করা হয় ৭৩টি বিশেষ ট্রাইব্যুনাল। এছাড়া, ১৯৭৩ সালে পাকিস্তানি যুদ্ধবন্দীদের বিচারের জন্য পাশ করা হয় আন্তর্জাতিক অপরাধ ট্রাইব্যুনাল আইন।

এরপর, একটি কমিশন গঠন করে আটক দোসরদের মধ্যে যুদ্ধাপরাধের সুনির্দিষ্ট অভিযোগ নেই এমন ২৬ হাজার জনকে সাধারণ ক্ষমা ঘোষণা করেন বঙ্গবন্ধু। তবে, শর্ত জুড়ে দেয়া হয়, তাদের বিরুদ্ধে ভবিষ্যতে যুদ্ধাপরাধের কোনো প্রমাণ পাওয়া গেলে বিচারের আওতায় আনা হবে। আর খুন, ধর্ষণ, দস্যুবৃত্তি, অগ্নিসংযোগ, অপহরণের মতো বেশ কিছু গুরুতর অপরাধে বাকিদের বিচারের মুখোমুখি করা হয়। এর মধ্যে, ১৯৭৫ সাল পর্যন্ত মৃত্যুদণ্ড, যাবজ্জীবনসহ বিভিন্ন মেয়াদে সাজা হয় ৭৫২ জনের।

এ বিষয়ে আন্তর্জাতিক অপরাধ ট্রাইব্যুনাল তদন্ত সংস্থার প্রধান আব্দুল হান্নান খান বলেন, ‘অপরাধ সংঘটিত হওয়ার পরপরই যে বিচার শুরু হয়েছিল সেখানে সর্বোচ্চ সাজা একজনই পেয়েছিল কিন্তু সুপ্রিম কোর্টে সে রায় টেকেনি।’ দালাল আইনের দুর্বলতার কথা উল্লেখ করে হান্নান খান বলেন, ‘কোনো মামলা সিআরপিসি হলেই তা সাধারণ মামলা হয়ে যায়। কিন্তু, যারা যুদ্ধাপরাধী তারাতো সাধারণ অপরাধী নয়।’

বঙ্গবন্ধুকে হত্যার পর জেনারেল জিয়ার তত্ত্বাবধানে বাতিল করে দেয়া হয় দালাল আইন। মুক্ত করে দেয়া হয় কারাগারে থাকা ১১ হাজারের মত যুদ্ধাপরাধীকে।

মুক্তিযোদ্ধা ও সাবেক সেনাপ্রধান লে. জে. (অব.) এম হারুন অর রশীদ বীরপ্রতীক বলেন, ‘একটা জেলখানায় হাজার বছরের ইতিহাস সংরক্ষিত আছে। কারা জেলে আসছে, কবে আসছে এবং কি অপরাধে তারা জেলে এসেছে সব নথি আছে। শুধুমাত্র একাত্তর পরবর্তী সময় ১৯৭২, ৭৩, ৭৪ এবং ১৯৭৫ সালে যারা জেলে গেল তাদের নাম-নথি সংরক্ষণ করা নেই। এ সময়টিতে, বিভিন্ন থানায় যেসব মামলা হয়েছে সেগুলোরও কোনো নথি নেই। যাদের বিচারের আওতায় আনা হয়েছে বা সাজা হয়েছে তার দলিল থাকবে না কেন? আর এসব দলিল না থাকার অর্থ হলো এসব নথিপত্র ধ্বংস করা হয়েছে।’

তবে, এতকিছু করেও পার পায়নি যুদ্ধাপরাধীরা। বঙ্গবন্ধুকন্যা শেখ হাসিনা দ্বিতীয়বারের মত ক্ষমতায় এসে গঠন করেন আন্তর্জাতিক অপরাধ ট্রাইব্যুনাল। বিচারের মুখোমুখি করা হয় নেতৃস্থানীয় যুদ্ধাপরাধীদের।

এ পর্যন্ত, ট্রাইব্যুনালে হওয়া ১০৪টি মামলার মধ্যে রায় হয়েছে ৪১টির। এসব রায়ে মৃত্যুদণ্ড দেয়া হয়েছে ৬৮ জনকে। আমৃত্যু কারাদণ্ড দেয়া হয়েছে ২৫ জনকে। আপিলের রায়ের পর এখন পর্যন্ত ফাঁসি কার্যকর হয়েছে ৬ যুদ্ধাপরাধীর।

সিনিয়র আইনজীবী সৈয়দ রেজাউর রহমান জানান, পৃথিবীতে আমাদের দেশ ছাড়া অন্য কোথাও নিজস্ব আইনে যুদ্ধাপরাধীদের বিচার হয়নি। বাংলাদেশ এ ব্যাপারে গৌরবের অধিকারী।

তবে, ট্রাইব্যুনালের সংখ্যা না বাড়ালে এবং সাক্ষী নিরাপত্তা আইন করা না হলে যুদ্ধাপরাধীদের বিচার প্রক্রিয়া ব্যহত হবে বলে মনে করেন সংশ্লিষ্টরা।