বটিয়াঘাটার জলমায় শীতার্থ মানুষের মাঝে শেখ হারুনের কম্বল বিতরণ

বিজ্ঞপ্তি : বটিয়াঘাটার জলমা ইউনিয়নে মল্লিকের মোড়ে রবিবার খুলনা জেলা আওয়ামীলীগের সভাপতি, জেলা পরিষদ চেয়ারম্যান ও সাবেক বিরোধী দলীয় হুইপ শেখ হারুনুর রশিদ শীতার্থ মানুষের মাঝে কম্বল বিতরণ করেছেন।
এসময় উপস্থিত ছিলেন স্থানীয় সরকার ও সমবায় মন্ত্রণালয়ের (অব:) সচিব প্রশান্ত কুমার রায়, খুলনা জেলা আ’লীগের সাবেক যুগ্ম সম্পাদক সরফুদ্দীন বিশ্বাস বাচ্চু, সিনি: সাংগঠনিক সম্পাদক,জেলা যুবলীগ সভাপতি কামরুজ্জামান জামাল, জেলা পরিষদ সদস্য জয়ন্তী রানী সরদার, বটিয়াঘাটা উপজেলা আ’লীগের সাবেক সাধারণ সম্পাদক রবীন্দ্রনাথ ঢালী, ইউপি চেয়ারম্যান মনোরঞ্জন মন্ডল, ইউপি চেয়ারম্যান শেখ হাদি-উ-জ্জামান হাদী, জেলা যুবলীগনেতা সরদার জাকির হোসেন, জামিল খান, এসএম ফরিদ রানা, বিধান চন্দ্র রায়, জলমা ইউনিয়ন আ’লীগ সভাপতি নারায়ন চন্দ্র সরকার, বীরমুক্তিযোদ্ধা কার্তিক চন্দ্র বিশ্বাস, নারায়ন রায়, বিপ্লব মল্লিক, ইন্দ্রজীৎ টিকাদার, বিধান হালদার, গৌতম রায়, অনুপম টিকাদার, ধ্রব বৈরাগী, যুবলীগনেতা বিএম আব্দুল হাই, গাজী রুবেল প্রমূখ।

সাতক্ষীরার বাস নিয়ন্ত্রণ হারিয়ে খালে : আহত১০

সাতক্ষীরা প্রতিনিধি : সাতক্ষীরার শাকদহ ব্রিজ এলাকায় দ্রুতগামী যাত্রীবাহি বাস নিয়ন্ত্রণ হারিয়ে খালের পানিতে পড়ে ১০ যাত্রী আহত হয়েছে। রবিবার দুপুরে তালা উপজেলার পাটকেলঘাটা থানাধীন শাকদহ ব্রীজের পাশেই এ ঘটনাটি ঘটে।
স্থানীয়রা জানান, খুলনা থেকে ছেড়ে আসা সাতক্ষীরা গামী একটি যাত্রীবাহি বাস শাকদহ ব্রিজের পাশে আসার পর নিয়ন্ত্রন হারিয়ে খালের মধ্যে পড়ে যায়। এতে বাসের ১০ জন যাত্রী গুরুরতর আহত হয়। আহতদের মধ্যে তিনজনের নাম পরিচয় জানা গেছে। তারা হলেন, খুলনার বোরহান উদ্দিনের গর্ভবতি স্ত্রী রেক্সোনা পারভিন (২০), সাতক্ষীরার পাঁচপোতা গ্রামের জাহাঙ্গীর আলমের স্ত্রী বিউটি বেগম ও সোবহান মোল্লার স্ত্রী রেবেকা খাতুন (৩৮)।
পাটকেলঘাটা থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা কাজী ওয়াহিদ মুর্শেদ বিষয়টি নিশ্চিত করে জানান, এ ঘটনার পরপরই পুলিশ ও ফায়ার সার্ভিসের একটি টিম ঘটনাস্থলে পৌছিয়ে আহতদের উদ্ধার করে সাতক্ষীরাসদর হাসপাতালসহ বিভিন্ন হাসপাতালে ভর্তি করে। তিনি আরো জানান, দূর্ঘটনায় কবলিত বাসের ড্রাইভার ও হেলপার পালিয়ে যাওয়ায় তাদের আটক করা সম্ভব হয়নি।

হাজারো ফুলের শুভেচ্ছায় ইউএনও আহমেদ জিয়াউর রহমানকে বিদায়

মহিদুল ইসলাম( শাহীন) বটিয়াঘাটা : বটিয়াঘাটা উপজেলা নির্বাহী অফিসার আহমেদ জিয়াউর রহমানকে বটিয়াঘাটা বাসি তুলনা করেছেন ৯ মাসে যেমন দেশ স্বাধীন হয়েছে, তেমনি ৯ মাসে বটিয়াঘাটা জয় করেছেন এই কর্মকর্তা। এজন্য তাকে উপজেলা বাসি ঐতিহাসিক বিদায় সংবর্ধনা প্রদান করেছেন। গত বৃহস্পতিবার বেলা ২ টায় উপজেলার পরিষদের আয়োজনে উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান আশরাফুল আলম খানের সভাপতিত্বে প্রধান অতিথি ছিলেন বিদায়ী উপজেলা নির্বাহী অফিসার আহমেদ জিয়াউর রহমান, অন্যান্যের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন ভাইস চেয়ারম্যান নিতাই গাইন, চঞ্চলা মন্ডল, এসিল্যান্ড রাশেদুজ্জামান, প্রিনসিপ্যাল অমিতেষ দাশ,উপজেলা আ,লীগ সম্পাদক দিলীপ হালদার,  ইউপি চেয়ারম্যান যথাক্রমে মনোরঞ্জন মন্ডল, আশিকুজ্জামান, মোল্যা ইসমাইল হোসেন, গোলাম হাসান, মিজানুর রহমান মিলনসহ বীর মুক্তিযোদ্ধাবৃন্দ, উপজেলা আ,লীগ, উপজেলা পরিষদ, উপজেলা প্রানী সম্পদ অফিস, মংস্য অফিস, কৃষি অফিস, এলজিইডি অফিস, সমাজসেবা অফিস, মহিলা বিষয়ক অফিস, যৃব উন্নয়ন অফিস, উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স, মাধ্যমিক শিক্ষা অফিস, বিআরডিবি অফিস, তথ্য অফিস, প্রাথমিক শিক্ষা অফিস, পরিসংখ্যান অফিস, হিসাব রক্ষন অফিস, আনছার ভিডিবি অফিস, নির্বাচন কমিশন অফিস, বন বিভাগ, পোষ্ট অফিস, সাব রেজিষ্ট্রী অফিস, বটিয়াঘাটা সরকারি ডিগ্রি কলেজ, মাধ্যমিক শিক্ষক সমিতি, প্রাথমিক শিক্ষক সমিতি, সোনালী ব্যাংক, কৃষি ব্যাংক, পুবালী ব্যাংক, রুপালী ব্যাংক, পল্লী সঞ্চয় ব্যাংক, হেঃ কোঃ সরকারি মাধ্যমিক বিদ্যালয়, চক্রাখালি সরকারি মাধ্যমিক বিদ্যালয়সহ বিভিন্ন শিক্ষা প্রতিষ্টান, বিভিন্ন এনজিও,সাংবাদিক , উপজেলা স্বেচ্ছাসেবক লীগ, কৃষকলীগ, যুবলীগ,ছাত্রলীগ এবং বিভিন্ন ওয়ার্ডের মেম্বরগন তাদের নিজ নিজ প্রতিষ্ঠানের সকলকে সঙ্গে নিয়ে বিদায়ী অতিথিকে ফুলেল শুভেচছা জানান। উপজেলার আ,লীগ সভাপতি ও উপজেলা পরিষদের তিন বারের নির্বাচিত উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান আশরাফুল আলম খান বলেন, এই উপজেলার ইতিহাসে যতগুলো ইউএনও এসেছেন তার মধ্যে তিনি সৎ ও কর্মঠ বিধায় তাকে এই ঐতিহাসিক বিদায় সংবর্ধনা প্রদান করা হয়েছে, আমরা যদি ভালোকে ভালো না বলি তাহলে সমাজ থেকে ভালো শব্দটি বিদায় নেবে। একজন ইউপি চেয়ারম্যান বলেন, অল্প সয়ের মধ্যে যতটুকু তাকে চিনেছি তাতে মনে হয় উপজেলায় যত রাস্তায় ইটের কাজ হবে তত রাস্তায় ১নাম্বার ইট তিয়ে কাজ করতে হবে। অন্য একজন জনপ্রতিনিধি বলেন, ঘুর্নি ঝড় বুলবুলে আমরা বাইরে বের হতে পারিনি অথচ এই মহৎ মানুষটি হেটে হেটে ছাতা মুড়ি দিয়ে বিভিন্ন এলাকায় যেয়ে খোঁজখবর নিয়েছেন। সদর ইউপি চেয়ারম্যান বলেন, বিশাল বড় এই মঞ্চের সামলে শত শত ফুলের ডালী ও বটিয়াঘাটা মাঠ জুড়ে মানুষের ঢল, তাদের উপস্থিতিই প্রমান করে তিনিই শতভাগ সং একজন ব্যাক্তি। একটি বাড়ি একটি খামারের সভাপতি শাহীন ও সম্পাদক সোলায়মান বলেন, ৯ মাসে দেশ স্বাধীন হয়েছে কিন্তু এখন সেই স্বাধীন দেশের সুর্য্য সন্তান এই ইউএনও ৯ মাসে বটিয়াঘাটা জয় করেছেন, তারা আরও জানান,মাননীয় প্রধান মন্ত্রী শেখ হাসিনা চায় দেশকে দুর্নিতী মুক্ত করতে, তবে দেশ দুর্নিতী মুক্ত করতে হলে দেশের প্রতি উপজেলায় এই বিদায়ী  ইউএনওর মতো মহৎ মানুষ প্রয়োজন। সার্বিক বিষয় বিদায়ী উপজেলা নির্বাহী অফিসার আহমেদ জিয়াউর রহমান বলেন, মহান আল্লাহ রাব্বুল আলামিন না চাইলে আজকের এই সন্মান পাওয়া যেতোনা। তাই সবাইকে বলতে চাই যার যার জায়গায় থেকে সৎ ভাবে কাজ করবেন তাহলে দেখবে এমর সন্মান সবাই পাবেন।