বটিয়াঘাটায় কৃষকদের মাঝে বীজ-সার ও নগদ অর্থ বিতরণ

বটিয়াঘাটা প্রতিনিধি : বটিয়াঘাটায় ঘুর্ণিঝড় “বুলবুল” এ ক্ষতিগ্রস্থ ক্ষুদ্র ও প্রান্তিক কৃষকদের সহায়তা প্রদানের লক্ষ্যে কৃষি পূনর্বাসন কর্মসূচীর আওতায় রবি- ২০১৯-২০২০ মৌসূমে ভূট্টা, শীত ও গ্রীষ্মকালীন মূগ ও বসত বাড়ীতে শাক সবজি উৎপাদনে বিনা মূল্যে বীজ, সার, ও নগদ অর্থ সরবরাহের উপকরণ বিতরণী অনুষ্ঠান উপজেলা চেয়ারম্যান মোঃ আশরাফুল আলম খানের সভাপতিত্বে সোমবার বেলা ১২ টায় স্থানীয় কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তরের নিজস্ব সভাকক্ষে অনুষ্ঠিত হয়। কৃষি কর্মকর্তা কৃষিবীদ মোঃ রবিউল ইসলামের সঞ্চলনায় অনুষ্ঠিত সভায় অন্যান্যের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মোঃ নজরুল ইসলাম, ভাইস চেয়ারম্যান নিতাই গাইন, মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান চঞ্চলা মন্ডল, কৃষি সম্প্রসারণ কর্মকর্তা ইনসাদ ইবনে আমিন ও আবু বকর স্দ্দিক, ইউপি চেয়ারম্যান গোলাম হাসান, সাংবাদিক যথাক্রমে মনিরুজ্জামান, মোঃ আহসান কবির, বিপ্রদাস রায়, ইমরান হোসেন, ইউপি সদস্য মোঃ শাহাজান প্রমূখ। এ সময় ভূট্টা চাষে ৩৫০জন , শাকসবজি চাষে ১০০জন, মূগ চাষে ১৪০জন সহ সর্বমোট ৫৯০ জন কৃষককে পর্যায়ক্রমে বিনা মূল্যে বীজ, সার ও নগদ ৫ শত টাকা প্রতিজন কৃষকে প্রদান করা হয়।

বটিয়াঘাটায় আইন শৃংখলা কমিটির সভা অনুষ্ঠিত

বটিয়াঘাটা প্রতিনিধি : বটিয়াঘাটায় আইন শৃংখলা কমিটির মাসিক সভা সোমবার বেলা ১১ টায় স্থানীয় পরিষদ সম্মেলন কক্ষে উপজেলা নির্বাহী অফিসার ও কমিটির সভাপতি মোঃ নজরুল ইসলামের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত হয়। সভায় অন্যান্যের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন সহকারী কমিশনার (ভূমি) মোঃ রাশেদুজ্জামান, থানার অফিসার ইনচার্জ মোঃ রবিউল কবির, অধ্যক্ষ অমিতেষ দাস,ভাইস চেয়ারম্যান নিতাই গাইন, উপজেলা প্রেসক্লাবের সভাপতি প্রতাপ ঘোষ, প্রাথমিক শিক্ষা কর্মকর্তা হাবিবুর রহমান, আনসার ভিডিপি কর্মকর্তা শামছুন্নাহার খানম, ইউপি চেয়ারম্যান যথাক্রমে মনোরঞ্জন মন্ডল, শেখ হাদী উজ-জামান হাদী, সরদার আব্দুল হাদী, গোলাম হাসান, আলীগ নেতা অধ্যাঃ মনোরঞ্জন মন্ডল, দেবপ্রসাদ বিশ্বাস, মোঃ মোশারফ হোসেন মুসা, প্রধান শিক্ষক অনিল কুমার মন্ডল, প্রধান শিক্ষক আনন্দ মোহন বিশ্বাস, হরিণটানা থানার প্রতিনিধি এসআই রুবেল মোহন্ত, সমাজসেবা অফিসারের প্রতিনিধি আঞ্জুমানারা বেগম প্রমূখ। সভায় উপজেলার সার্বিক আইন শৃংখলা পরিস্থিতি নিয়ে বিষদ আলোচনা করা হয়।

নির্ভয়া গণধর্ষন: ৪ জনের একই সঙ্গে ফাঁসি

আন্তর্জাতিক : ভারতে নির্ভয়া গণধর্ষন মামলায় দোষী চার জনের ফাঁসি আগামী ২২শে জানুয়ারি কার্যকর হবে। ফাঁসির জন্য চূড়ান্ত প্রস্তুতি চলছে দেশটির তিহার কারাগারে।
সাত বছরেরও বেশি আগে চলন্ত বাসে এক মেডিক্যাল ছাত্রীকে ধর্ষণ ও হত্যার মামলায় দোষীদের বিরুদ্ধে গত ৭ই জানুয়ারী মৃত্যু পরোয়ানা জারি করে দিল্লির পাতিয়ালা হাউস আদালত।

এই ঘটনায় নিহত তরুণী ভারতে ‘নির্ভয়া’ নামে পরিচিত। আগামী ২২ শে জানুয়ারি সকাল ৭টায় এই মামলায় দোষী প্রমাণিত হওয়া চারজন-পবন গুপ্ত, মুকেশ সিংহ, বিনয় শর্মা এবং অক্ষয় ঠাকুর সিংহকে ফাঁসিতে ঝুঁলিয়ে মৃত্যু কার্যকরের নির্দেশ দিয়েছে আদালত।

তিহারে বর্তমানে যে ফাঁসি কাঠ রয়েছে, তাতে একবারে ২ জনকে ফাঁসি দেওয়া যায় ৷ কিন্তু নির্ভয়া গণধর্ষণ কাণ্ডে ৪ জনের ফাঁসি হবে একসঙ্গে। একসঙ্গে যেন ৪ জনকেই ফাঁসি দেয়া যায়, তাই ৪ জনের ফাঁসি কাঠ তৈরি করা হচ্ছে।

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক তিহার জেলের এক কর্মকর্তা জানান, তিহার জেলের ইতিহাসে এই প্রথম ৪ অপরাধীকে একসঙ্গে ফাঁসি দেয়া হচ্ছে। রবিবার ফাঁসির মহড়া হয়েছে। ৪ জনের ওজন অনুযায়ী বালির বস্তা তৈরি করে পরীক্ষা করা হয়েছে ফাঁসি কাঠে কোনও রকম ক্রুটি আছে কিনা। বিহারের বক্সার জেলের বন্দিরা ফাঁসির দড়ি তৈরি করেছে। সেই দড়িতেই ফাঁসি হবে চার অপরাধীর।

বর্তমানে চার জনকে পৃথক সেলে রাখা হয়েছে। ২টি সিসিটিভি ক্যামেরা তাদের উপর নজরদারি করছে। জেল কর্তৃপক্ষ জানায়, ‘ওদের যদি কোনও শেষ ইচ্ছে থাকে, তা হলে জেল কর্তৃপক্ষ তা পূরণ করার চেষ্টা করবে। যদি পরিবারের সঙ্গে দেখা করতে চায়, তার ব্যবস্থাও করা হবে। আপাতত অন্যান্য বন্দিদের মতোই সপ্তাহে দু বার পরিবারের সঙ্গে দেখা করার সুযোগ পাচ্ছে তারা।’

তিহার জেল সূত্রের খবর, চারজন স্বাভাবিক ব্যবহার করছে। কোনও কিছু অস্বাভাবিক তাদের মধ্যে চোখে পড়েনি।

ক্যাসিনোকান্ডের অন্যতম হোতা দুই ভাই এনু ও রূপন গ্রেপ্তার

ঢাকা অফিস : ক্যাসিনোকাণ্ডের অন্যতম হোতা গেন্ডারিয়ার আওয়ামী লীগ নেতা এনামুল হক এনু ও তার ভাই রূপন ভুঁইয়াকে গ্রেপ্তার করেছে গোয়েন্দা পুলিশ-সিআইডি। গত বছর ক্যাসিনোবিরোধী অভিযান শুরু হওয়ার পর থেকেই এই দুই ভাই আলোচনায় আসেন। তখন থেকেই তারা পলাতক ছিলেন।
সোমবার দুপুরে তাদের গ্রেপ্তারের তথ্য জানান পুলিশের অপরাধ তদন্ত বিভাগ-সিআইডি। তবে কখন ও কোথা থেকে তাদের গ্রেপ্তার করা হয়েছে তা জানা যায়নি। বেলা ২টায় সিআইডি সদর দপ্তরে সংবাদ সম্মেলনে এনামুল হক ও রূপন ভূঁইয়াকে গ্রেপ্তারের বিষয়ে বিস্তারিত জানাবে সিআইডি।

তাদের দুজনের নামে একানব্বইটি ব্যাংক একাউন্ট পাওয়া গেছে, এগুলোতে ১৯ কোটি টাকা রয়েছে। এগুলো আগেই জব্দ করে রাখা হয়েছে । তবে গ্রেপ্তারের সময় তাদের সঙ্গে থাকা নগদ চল্লিশ লাখ টাকা উদ্ধার করা হয়। তারা বিদেশে পালনোর চেষ্টা করছিল বলে জানায় সিআইডি।

গত বছরের ২৪শে সেপ্টেম্বর এনামুল ও রূপনসহ তাদের দুই কর্মচারীর বাসায় অভিযান চালায় র‍্যাব। সেখান থেকে পাঁচ কোটি টাকা এবং সাড়ে সাত কেজি সোনা উদ্ধার করা হয়। পরে ঢাকার বিভিন্ন এলাকায় তাদের ১৫টি বাড়ির সন্ধানের তথ্য পাওয়া যায়। এ ঘটনায় গেণ্ডারিয়া ও ওয়ারী থানায় সাতটি পৃথক মামলা করা হয়।

আইন-শৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনী বলছে, এনু ও রুপন মতিঝিলে ওয়ান্ডারার্স ক্লাবে ক্যাসিনোকাণ্ডের অন্যতম হোতা। স্থানীয়ভাবেও তাদের পরিবার ‘জুয়াড়ি পরিবার’ হিসেবে চিহ্নিত। পরে একাধিকবার অভিযান চালিয়েও এত দিন তাদের ধরা যায়নি।

এনামুল হক ওরফে এনু ভূঁইয়া গেণ্ডারিয়া থানা আওয়ামী লীগের সহসভাপতি ও রূপন একই ইউনিটের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক। স্থানীয় আওয়ামী লীগ নেতারা বলছেন, তারা দুই ভাইসহ পুরো পরিবারের অন্তত নয়জন সংগঠনের বিভিন্ন পদে রয়েছে।