আজ মহাকবি মাইকেল মধুসূদন দত্তের ১৯৬ তম জন্মবার্ষিকী

রাজীব চৌধুরী,কেশবপুর: আজ ২৫ শে জানুয়ারি ২০২০ সাল মহাকবি মাইকেল মধুসূদন দত্তের ১৯৬তম জন্মবার্ষিকী।মহাকবি মাইকেল মধুসূদন দত্ত ১৮২৪ সালের ২৫ শে জানুয়ারি যশোর জেলার কেশবপুর উপজেলার সাগরদাঁড়ী গ্রামের কপোতাক্ষ নদ তীরবর্তী বিখ্যাত দত্ত পরিবারে জন্মগ্রহণ করেন।তার পিতার নাম রাজনারায়ন দত্ত মাতা জাহ্নবী দেবী। মহাকবি মাইকেল মধুসূদন দত্ত উনবিংশ শতাব্দীর অন্যতম শ্রেষ্ঠ বাঙালি কবি ও নাট্যকার এবং প্রহসন রচকার। জীবনের পড়ন্ত বেলায় স্বল্প সময়ে মাত্র চারটি নাটক ও দুটি প্রহসন রচনা করেছিলেন এর মাধ্যমে তিনি বাংলা নাটককে অবিস্মরণীয় ঐশ্বর্যমন্ডিত করেছিলেন। মধুসূদন দত্ত তাঁর অনন্যসাধারণ প্রতিভার দ্বারা বাংলা ভাষার অন্তর্নিহিত শক্তিকেই আবিষ্কার করেছিলেন। তিনি বাংলা ভাষা ও সাহিত্যের অনন্য উৎকর্ষ সাধন করেন। আর এর জন্য তিনি বাংলা সাহিত্যের ইতিহাসে অমর হয়ে থাকবেন চিরকাল। তিনি বাংলার নবজাগরণ সাহিত্যের অন্যতম পুরোধা ব্যক্তিত্ব। তিনি বাংলা ভাষায় সনেট ও অমিত্রাক্ষর ছন্দের প্রবর্তক। তাঁর লেখা মেঘনাদবধ কাব্য অমিত্রাক্ষর ছন্দে রচিত। বাংলা সাহিত্যের পাশাপাশি ইংরেজী সাহিত্যেও তার অবদান রয়েছে। মহাকবি মাইকেল মধুসূদন দত্তের জন্মবার্ষিকী উপলক্ষে জেলা প্রশাসন যশোর এর আয়োজনে সাগরদাঁড়ীতে সপ্তাহব্যাপী মধুমেলা আরম্ভ হয়েছে।

থ্রি-হুইলার চলাচলের দাবিতে ফুলতলা বাজারে চলছে অনির্দিষ্টকালের ধর্মঘট

তাপস কুমার বিশ্বাস, ফুলতলা অফিসঃ খুলনা-যশোর মহাসড়কের ফুলতলা বাজার পর্যন্ত থ্রি হুইলারসহ সকল যানবাহনের স্বাভাবিক চলাচলের দাবিতে গতকাল (শনিবার) ভোর থেকে অনির্দিষ্টকালের জন্য ফুলতলা বাজারে ধর্মঘট শুরু হয়েছে। গতকাল সকাল ১০টায় ফুলতলা বাজারস্থ জামরুলতলা মোড়ে বণিক কল্যাণ সোসাইটির সভাপতি মোঃ ফিরোজ জমাদ্দারের সভাপতিত্বে ব্যবসায়ীদের এক সমাবেশ অনুষ্ঠিত হয়। এ সময় অন্যান্যের মধ্যে বক্তৃতা করেন বণিক নেতা মনির হাসান টিটো, রবিন বসু, এস কে মিজানুর রহমান, আজিজুল হক ফারাজি, দুলাল অধিকারী, মাহাবুব আলম মিঠু, জাহাঙ্গীর আলম মোড়ল, তারেক হাসান নাইচ, শেখ মাসুম, মিন্টু খান, ইলিয়াস মোল্যা, সাগর গাজী, শাহীন আলম, জয়দেব সেন, দেবাশিষ বিশ্বাস, রঞ্জু খান প্রমুখ। এদিকে ব্যবসায়ীদের কর্মসূচির সাথে একাত্ত্বতা ঘোষনা করে বক্তব্য রাখেন মটর শ্রমিক নেতা সনজিৎ বসু, ট্রাক শ্রমিক নেতা পংকোজ দে, মাহেন্দ্র ইউনিয়ন নেতা জাহাঙ্গীর সিকদার, বকুল ভ্ইুয়া। এছাড়া সকল রাজনৈতিক দলের স্থানীয় নেতৃবৃন্দ ব্যবসায়ীদের যৌতিক দাবির প্রতি সমর্থন জানান হয়। পরে ব্যবসায়ীরা মিছিল সহকারে থানা চত্বরে সমবেত হয়ে দাবির বিষয়টি জানান। পরে জামরুল তলায় অনুষ্ঠিত সমাবেশ থেকে কর্মসূচি ঘোষনা করা হয়। কর্মসূচির মধ্যে রয়েছে খুলনা জেলা প্রশাসক, পুলিশ সুপার, জেলা পরিষদের চেয়ারম্যান ও ইউএনও বরাবর স্মারকলিপি পেশ, শান্তিপূর্ণ সমাবেশ ও মিছিল এবং দাবি পূরণ না হওয়া পর্যন্ত বাজারের সকল ধরনের প্রতিষ্ঠান বন্ধ ঘোষনা। প্রসঙ্গতঃ উচ্চ আদালতের রায় অনুযায়ী খুলনা-যশোর মহাসড়কের পথের বাজার থেকে শেষ সীমানা পর্যন্ত থ্রি-হুইলার,ইজিবাইক ও মাহেন্দ্র চলাচল নিষিদ্ধ থাকায় ফুলতলা বাজারের ব্যবসায়ে চরম মন্দাভাব বিরাজ করছে।