ফুলতলায় জন্মদিন পালন শেষে মেধাবী কলেজ ছাত্রী সেবিকা দাসের মৃত্যু

ফুলতলা অফিসঃ জন্মদিনের কেক খেয়ে ও উৎসব পালন শেষ করে মারা গেল সেবিকা দাস (২২) নামে মেধাবী এক এইচএসসি পরীক্ষার্থী। সে ফুলতলার ধোপাখোলা গ্রামের প্রভাত দাসের কন্যা ও সরকারী সিটি কলেজ খুলনার এইচএসসি পরীক্ষার্থী। পারিবারিক সূত্র জানায়, মঙ্গলবার ছিল সেবিকার জন্মদিন। এ উপলক্ষে সন্ধ্যায় তার ধোপাখোলা গ্রামস্থ বাড়িতে আত্মীয় স্বজন ও বন্ধু বান্ধবীদের নিয়ে ঘরোয়াভাবে উৎসব পালন করে। পরে কেক কেটে ও মিষ্টি বিতরনের মাধ্যমে অভ্যাগতদের আপ্যায়িত করা হয়। রাত ১১টার দিকে সেবিকা দাস অসুস্থ্য হয়ে পড়লে চিকিৎসার জন্য তাকে ধোপাখোলা গ্রামের ডাঃ আঃ গনি মোল্যা কাছে নেয়া হয়। সেখানে চিকিৎসা শেষে বাড়িতে আনা হলে ভোররাতে গুরুতর অসুস্থ্য হয়ে পড়ে। ভোরের দিকে চেম্বারে আনা হলে ডাঃ মিজানুর রহমান অনেক আগেই সেবিকার মৃত্যু ঘটেছে বলে তিনি জানান। অসুস্থ্য সেবিকা দাসকে তার কাছে আনা হলে গ্যাস ও বমির ইনজেকশন পুশ করা হয়েছিল বলে ডাঃ আঃ গনি জানিয়েছেন। গতকাল সকাল ১০টা ফুলতলা ক্যাশ খোলা মহাশ্মশানে তার শেষকৃত্য সম্পন্ন হয়।

চট্টগ্রাম ৩৩০০ পিস ইয়াবাসহ আটক ৩

নিজস্ব প্রতিবেদক : চট্টগ্রাম মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ অধিদপ্তর (ডিএনসি)’র মাদক বিরোধী অভিযানে পৃথক অভিযান চালিয়ে ৩ হাজার ৩০০ পিস ইয়াবাসহ ৩ ইয়াবা মাদক ব্যবসায়ীকে আটক করেছেন। আটককৃতরা হচ্ছে ইয়াবা ব্যবসায়ী মো: আবুল বশর(৪৫), মো:আব্দুল মোতালেব(৫৮) এবং মো: রিয়াজ (২২)। ১৯ ফেব্রুয়ারি বুধবার ডিএনসি’র চট্টগ্রাম মেট্রো: উপঅঞ্চল সার্কেল দিনব্যাপী নগরীতে পৃথক অভিযান চালিয়ে তাদেরকে আটক করেন।
চট্টগ্রাম মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ অধিদপ্তর, মেট্রো: উপঅঞ্চল সূত্র মতে, সংস্থার উপ-পরিচালক মো: রাশেদুজ্জামান এর সার্বিক তত্ত্বাবধানে ডবলমুরিং সার্কেল উপ-পরিদর্শক মো: আবদুল মতিন মিঞা এর নেতৃত্বে কোতোয়ালী থানাধীন এলাকায় এক মাদক বিরোধী অভিযান চালান। এ সময় এক হাজার আটশত পিস ইয়াবাসহ মৃত ফকির মোহাম্মদ এর পুত্র মাদক ব্যবসায়ী মো: আবুল বশরকে আটক করেন। এছাড়া চান্দগাঁও সার্কেল পরিদর্শক লোকাশীষ চাকমা এর নেতৃত্বে অপর এক অভিযানে মৃত সুন্দর আলী মিয়ার পুত্র মো:আব্দুল মোতালেবকে আটক করেন। এ সময় তার কাছ থেকে ৫০০ পিস ইয়াবাস উদ্ধার করা হয়। অপরদিকে ডবলমুরিং সার্কেলের পরিদর্শক মো: নজরুল ইসলাম এর নেতৃত্বে গত রাতে অপর এক অভিযানে মো: হাবিবুর রহমানের পুত্র মাদক ব্যবসায়ী মো: রিয়াজ এক হাজার পিস ইয়াবাসহ গ্রেফতার করা হয়। প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে আসামীরা অপরাধ স্বীকার করে জানায়,তারা দীর্ঘদিন ধরে বিভিন্ন কৌশলে ইয়াবা ট্যাবলেট ঢাকা ও চট্টগ্রামসহ দেশের বিভিন্ন স্থানে পাচার করে আসছে।
আটককৃতদের বিরুদ্ধে মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ আইন, ২০১৮ মোতাবেক সংশ্লিষ্ট থানায় তিনটি নিয়মিত মামলা দায়ের করা হয়।

দাকোপে ১৫ দিনে ৩ টি অস্বাভাবিক মৃত্যু : স্বজনদের দাবী পরিকল্পিত হত্যাকান্ড

আজগর হোসেন ছাব্বির, দাকোপ : খুলনার দাকোপ উপজেলায় ফেব্রুয়ারীর প্রথম ১৫ দিনে ১টি অস্বাভাবিক মৃত্যুসহ ২ টি রহস্যজনক আত্মহত্যার ঘটনা নিয়ে নানামুখী গুঞ্জন চলছে। ভিকটিমদের স্বজনরা রহস্যজনক এই মৃত্যুকে পরিকল্পিত হত্যাকান্ড বলে দাবী করছে। তবে পুলিশ বলছে ময়না তদন্ত রিপোর্ট না পাওয়া পর্যন্ত স্পষ্ট কিছু বলা যাবেনা।
উপজেলার হোগলাবুনিয়া গ্রামের আমিন উদ্দিন গাজীর পুত্র আঃ জলিল গাজী (৭০) প্রতিদিনের ন্যায় ৩ ফেব্রুয়ারী ভোররাতে বাড়ী হতে পানখালী দাতনেমারী বিলে নিজের মৎস্য ঘেরে যায়। দিন শেষে সন্ধ্যার পর তার বাড়ী ফেরার কথা। কিন্তু সেদিন রাতে বাড়ী না ফেরায় পরিবারের সদস্যরা সাম্ভব্য সব জায়গায় খুজতে থাকে। পরেরদিন মঙ্গলবার বেলা ১১ টার দিকে নিজ ঘেরের ডোবায় তার লাশ পাওয়া যায়। লাশের এক চোখ ও গাল দিয়ে রক্ত ঝরতে দেখা যায়। এ ছাড়া কানের লতিতে সামান্য ক্ষতের চিহ্ন অনুভুত হয়। এ ঘটনায় দায়ের হওয়া অপমৃত্যু মামলার বাদী মৃতের পুত্র আমান গাজী বলেন, জমিজমা সংক্রান্ত বিরোধের জের হিসাবে প্রতিবেশী স্বজনরা আমার পিতাকে পরিকল্পিতভাবে হত্যা করেছে বলে আমার ধারনা। আমি সন্দেহভাজনদের বিষয়ে মামলার তদন্ত কর্মকর্তা এস আই মামুনকে জানিয়েছি। সন্দেহভাজনরা অনেকেই ঘটনার পর থেকে এলাকা ছাড়া।
অপরদিকে গত ৭ ফেব্রুয়ারী শুক্রবার রাতে স্বামীর বাড়ীতে ঘরের আড়ায় রশিতে ঝুলে শান্তনা রায় নামের এক কলেজ ছাত্রী আত্মহত্যা করে বলে জানা যায়। প্রেমের সম্পর্কের সুত্রে দাকোপের তিলডাঙ্গা গ্রামের পরিক্ষিত রায়ের পুত্র পার্থ প্রতিম রায়ের সাথে ধোপাদী গ্রামের বিধান রায়ের কন্যা শান্তনা রায়ের গত ডিসেম্বর ২০১৯ বিয়ে হয়। পার্থ কৃষি ডিপ্লোমার ছাত্র এবং শান্তনা ইংলিশ অনার্সের ছাত্রী। পার্থের পরিবার জানায়, বিয়ের পূর্বেই প্রেমের সম্পর্কের কারনে দু’জনে অবাধে মেলা মেশা করতো। এমনকি তাদের বাড়ীতে শান্তনা রাত্রী যাপন করতো। বিয়ের কিছুদিন আগে পার্থের বাড়ীতে এসে থাকাকালীন দু’জনের মান অভিমানের জেরে শান্তনা এক সাথে ২০ টি জন্ম বিরতি করন ফেমিকন ট্যাবলেট খেয়ে একবার অসুস্থ হয়ে পড়ে। পার্থের প্রতিবেশী মামী আল্পনা রায় বলেন, দু’জন প্রায় ঝগড়া বিবাদ করতো, এমনকি ঘটনার দিন দু’জনের মাঝে ঝগড়ার বিষয়টি তিনি জানেন। আত্মহত্যার সংবাদে সেখানে যাওয়া শান্তনার কাকা বিপুল রায় পারিবারিক কলহের তাদের মেয়েকে হত্যা করে ঝুলিয়ে দেওয়ার দাবী করে বলেন, আমরা অনেক অনুরোধ করলেও ঘরের ভিতর থেকে বাইরে এনে আমাদের লাশটি দেখার সুযোগ দেওয়া হয়নি। লাশের ঠোটে ও মুখের দু’পাশে রক্ত জমাট বাঁধা ফুলা জখমের চিহ্ন ছিল। তিনি বিষয়টি হত্যাকান্ড হিসাবে দাবী করে বলেন, আমরা ওই দিনই থানায় লিখিত অভিযোগ দিয়েছিলাম। কিন্তু পুলিশ প্রাথমিকভাবে অপমৃত্যু মামলা রেকর্ড করে ময়না তদন্ত রিপোর্ট দেখে পরবর্তী পদক্ষেপ নেওয়ার কথা জানিয়েছে। গত ১৫ ফেব্রুয়ারী শনিবার ভোররাতে পূর্ব বাজুয়া নিজ বাড়ীর পাশে সজিনা গাছে ঝুলন্ত অবস্থায় গৌরপদ মন্ডল (৫২) এর লাশ পাওয়া যায়। ৭ ভাইয়ের মধ্যে গৌরপদ ছিলেন অবিবাহিত। পরিবারের দাবী কঠিন ব্যাধিতে আক্রান্ত থাকায় বিরক্ত হয়ে হয়ত আত্মহত্যা করেছে। তবে এলাকায় গুঞ্জন আছে নিজের ভাইয়ের স্ত্রীর সাথে সম্পর্ককে সন্দেহের চোখে দেখা হত। যে কারনে এই আত্মহত্যা রহস্য বলে ধারনা করা হচ্ছে। আকর্ষিক দাকোপে এই অস্বাভাবিক মৃত্যুর ঘটনা বেড়ে যাওয়ায় উদ্বিগ্ন সচেতন মহল। এলাকাবাসী ১৫ দিনে ঘটে যাওয়া এই মৃত্যু রহস্য উদঘাটনের দাবী জানিয়ে বলেন, সঠিক তথ্য বেরিয়ে না আসলে এবং যদি অপরাধ সংগঠিত হয়ে থাকে তবে তার বিচার না হলে এমন অস্বাভাবিক মৃত্যু বেড়ে যাবে।

ফুলতলায় ডেকোরেটর ব্যবসায়ী মোস্তাফিজের অত্যাচার থেকে রক্ষা পেতে ভুক্তভোগীদের সাংবাদিক সম্মেলন

ফুলতলা অফিসঃ ফুলতলার আলকা গ্রামের মাবুদ সরদার বুলু অভিযোগ করে বলেন, একই গ্রামের মৃতঃ আঃ হামিদ সরদারের পুত্র ডেকোরেটর ব্যবসায়ী সরদার মোস্তাফিজুর রহমানের সরকারী জমি দখল, বিভিন্ন প্রতিষ্ঠানের নামে সরকারি বরাদ্দ গ্রহণ, এলাকার নিরিহ মানুষকে হুমকী, মামলায় হয়রানী ও তার অত্যাচারে এলাকাবাসী অতিষ্ঠ হয়ে উঠেছে। তার অপকর্মের বিরুদ্ধে কেউ প্রতিবাদ করলে পুলিশের ভয়ভীতি ও বিভিন্ন পত্রিকায় যড়যন্ত্রমুলক ও মিথ্যা তথ্য পরিবেশন ও অপপ্রচারে লিপ্ত থাকেন। মোস্তাফিজের বিরুদ্ধে বিভিন্ন সময়ে মানববন্ধন, স্মারকলিপি পেশ ও আদালতে একাধিক অভিযোগ থাকলেও কার্যকরী কোন পদক্ষেপ নেয়া হয়নি।

মঙ্গলবার বিকালে প্রেসক্লাব ফুলতলায় অনুষ্ঠিত সাংবাদিক সম্মেলনে লিখিত বক্তৃতায় তিনি এ অভিযোগ তুলে ধরেন। লিখিত বক্তৃতায় বিভিন্ন সময়ে মোস্তাফিজ সরদারের অপকর্ম তুলে ধরে বলেন, খুলনা-যশোর মহাসড়ক সংলগ্ন সরকারি বালিকা বিদ্যালয়ের পাশে পানি নিষ্কাশনের ড্রেন ও কার্লভার্ট এর উপর সরকারি জায়গা দখল করে সরকারি অর্থ বরাদ্দ নিয়ে একটা ক্লাবের নামে বহুতল বিশিষ্ট ভবন নির্মানাধীন। এ ব্যাপারে ঐ বিদ্যালয়ের তৎকালিন প্রধান শিক্ষক শিলা রানী বিভিন্ন দপ্তরে অভিযোগ দেয়ায় ভবনের কাজ সাময়িক স্থগিত রয়েছে। ফুলতলা উত্তর বাজার মসজিদ সংলগ্ন তাজপুর মৌজার সরকারি খাস খতিয়ানভুক্ত জমিতে পাকা ঘর নির্মান করে ভাড়া দেয়া, আলকা সরদার পাড়ায় মাদ্রাসার নামে সরকারি বরাদ্দ গ্রহণসহ বহু অপকর্মে লিপ্ত। এ সমস্ত অপকর্মের বিরুদ্ধে কেউ মুখ খুললেই তাকে নানা ধরনের হয়রানী, জীবন নাশের হুমকী ও পুলিশ প্রশাসনের ভয় দেখানো হয়। আলকা গ্রামের শামীম সরদারের পরিবারকে হুমকী দেয়ায় খুলনার বিজ্ঞ আদালতে মোস্তাফিজ গং এর বিরুদ্ধে অভিযোগ (নং-২৫০/১৮) দায়ের, একই গ্রামের মোকলেজ সরদারের জায়গা দখলে আদালতে অভিযোগ (নং-৪৫৬/১৮) দায়ের এবং দেওয়ানী মামলা (নং-১২০/১৮) দায়ের করেন।

সম্প্রতি মোস্তাফিজুর রহমান ব্যস্ততম ফুলতলা-জামিরা সড়কের স্থানীয় বিদ্যুৎ অফিসের পাশে নির্মানাধিন তার বহুতল ভবনের প্রশস্ত সিঁড়ি সরকারি রাস্তায় প্রতিবন্ধকতা সৃষ্টি করে। এতে প্রতিবাদ করায় আমার পুত্র ফুলতলা বাজারের ব্যবসায়ী ও সাবেক ছাত্রলীগ নেতা মাকিত সরদারের বিরুদ্ধে যড়যন্ত্র শুরু করে। তারই অংশ হিসেবে গত শুক্রবার সন্ধ্যায় বাস চালক ও হেলপারকে লাঞ্চিত করা হয়েছে এমন মিথ্যা অভিযোগ তুলে পত্রিকাতে মাকিত সরদারকে সন্ত্রাসী বলে আখ্যায়িত করে। যদিও তার বিরুদ্ধে থানায় বা অন্য কোথাও কোন মামলা বা অভিযোগ নেই। ডেকোরেটর ব্যবসায়ী সরদার মোস্তাফিজুর রহমানের সরকারী জমি দখল, বিভিন্ন প্রতিষ্ঠানের নামে সরকারি বরাদ্দ গ্রহণ, এলাকার নিরিহ মানুষকে হামলা, মামলায় হয়রানী ও তার অত্যাচার থেকে বাঁচতে এবং দখলদার মোস্তাফিজুর রহমানের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা গ্রহনের জন্য সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের প্রতি আবেদন জানিয়েছেন। সাংবাদিক সম্মেলনকালে অন্যান্যের মধ্যে কাজী ইমরান হোসেন রাজীব, শামীম হাসান, তাপস সরকার তপু, মোঃ জিল্লুর রহমান, মোঃ শাহীন মোল্যা, মাইনুর রহমান চঞ্চল, অনুপ বিশ্বাস প্রমুখ উপস্থিত ছিলেন।