বিষমুক্ত খাবারের যোগান দিতে প্রতিটি বাড়িতে কৃষি খামার গড়ে তুলতে হবে -এমপি নারায়ণ চন্দ্র চন্দ

তাপস কুমার বিশ্বাস, ফুলতলা অফিসঃ সাবেক মন্ত্রী নারায়ণ চন্দ্র চন্দ এমপি বলেছেন, সুস্থ্য থাকতে হলে নিয়মিতভাবে আহারে বিষমুক্ত ফল, মাছ ও শাকসবজি পরিমিতভাবে খাদ্যাভাস করতে হবে। বিষমুক্ত খাবারের যোগান দিতে হলে গ্রামের প্রতিটি বাড়িতে আধুনিক প্রযুক্তিতে সবজি চাষ, ফলজ বাগান ও মৎস্য চাষ এবং গো খামার গড়ে তুলতে হবে। কৃষি জমিতে কোন শিল্প কলকারখানা তৈরি ও বালুর ব্যবসার মাধ্যমে পরিবেশের ক্ষতি করা যাবে না। মুজিববর্ষে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নির্দেশে নাগরিক অধিকার নিশ্চিত করতে সকল গৃহহীনদের বাসস্থান ও কর্মসসংস্থানের ব্যবস্থা করা হচ্ছে।

সোমবার বেলা ১১টায় খুলনার ফুলতলা উপজেলা চত্বরে ৩ দিন ব্যাপী কৃষি মেলার উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তৃতায় তিনি এ কথা বলেন। গোপালগঞ্জ, খুলনা, বাগেরগাট, সাতক্ষীরা ও পিরোজপুর কৃষি উন্নয়ন প্রকল্পের আওতায় ও কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তর ফুলতলার উদ্যোগে অনুষ্ঠিত মেলার সভাপতিত্ব করেন ইউএনও পারভীন সুলতানা। স্বাগত বক্তৃতা করেন উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা কৃষিবিদ মোছাঃ রীনা খাতুন। অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি ছিলেন খুলনার কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তরের উপ-পরিচালক পঙ্কজ কান্তি মজুমদার, উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান আলহাজ্ব শেখ আকরাম হোসেন, সহকারী কমিশনার (ভূমি) রুলী বিশ্বাস। কৃষি কর্মকর্তা শামীমআরা নিপার পরিচালনায় অন্যান্যের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন জেলা আওয়ামীলীগ নেতা বিএমএ সালাম, মোঃ আসলাম খান, উপজেলা আওয়ামীলীগের সাধারণ সম্পাদক সরদার শাহাবুদ্দিন জিপ্পী, ভাইস চেয়ারম্যান কে এম জিয়া হাসান তুহিন, ওসি মোঃ মনিরুল ইসলাম, মুক্তিযোদ্ধা কমান্ডার কাজী জাফর উদ্দিন, আবু তাহের রিপন, রবিন বসু, উপজেলা শিক্ষা কর্মকর্তা মুহাঃ আবুল কাশেম, রিসোর্স কর্মকর্তা রবিউল ইসলাম রনি, বিআরডিবি কর্মকর্তা মোঃ আফরুজ্জামান, প্রাণী সম্পদ কর্মকর্তা ডাঃ সুমাইয়া ইয়াসমিন প্রমুখ। এর পূর্বে প্রধান অতিথি নারায়ণ চন্দ্র চন্দ এমপির নেতৃত্বে বর্ণাঢ্য র‌্যালী শেষে ৩দিন ব্যাপী কৃষি মেলার আনুষ্ঠানিক উদ্বোধন করেন। এদিকে সকাল ১০টায় এমপি নারায়ণ চন্দ্র চন্দ ফুলতলা ইউনিয়ন পরিষদ কমপ্লেক্সে উপস্থিত থেকে উন্মুক্তভাবে যাচাইকৃত ভাতাভোগী, অস্বচ্ছল বিধবা, বয়স্ক ও প্রতিবন্ধীদের কার্ড প্রদানের উদ্বোধন করেন। এ সময় ইউএনও পারভীন সুলতানা, ইউপি চেয়ারম্যান শেখ আবুল বাশার, সমাজসেবা অফিসার মোঃ শাহীন আলম প্রমুখ।

দাকোপে যুবককে গলাকেটে হত্যা

দাকোপ প্রতিনিধি : দাকোপের খেজুরিয়া এলাকায় সুব্রত মন্ডল (৩০) নামে যুবককে গলাকেটে হত্যা করেছে দূর্বৃত্তরা। রাতে অজ্ঞাত ফোনে বাড়ী থেকে বের হওয়ার পর ভোরবেলা পাশ্ববর্তী বিলে তার লাশ পাওয়া যায়। দাকোপ থানা পুলিশসহ সিআইডি ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছে।
থানা পুলিশ ও নিহতের পরিবার সুত্রে জানা যায় পশ্চিম ঢাংমারী নিজ মুদি দোকানে থাকা অবস্থায় রবিবার রাত আনুমানিক ৮ টার দিকে সুব্রতের কাছে একটি ফোন আসে। এ সময় সে স্ত্রীকে দোকানে রেখে মোটর সাইকেল নিয়ে বেরিয়ে যায়। রাত গভীর হলে সে ফিরে না আসায় এবং তার মোবাইল বন্দ পাওয়ায় পরিবারের লোকজন সাম্ভব্য সকল স্থানে খুজতে থাকে। খোজাখুজির এক পর্যায়ে রাত আড়াইটার দিকে আমতলা খেজুরিয়া সড়কের ফাকা রাস্তায় সুব্রতের মোটর সাইকেল পাওয়া যায়। বিষয়টি তাৎক্ষনিক দাকোপ থানা পুলিশকে জানালে পুলিশ সংশ্লিষ্ট ওয়ার্ডের ইউপি সদস্য নিমাই মন্ডলকে মোটর সাইকেলটি তার হেফাজাতে রাখার নির্দেশ দেয়। এভাবে অনুসন্ধান চলাকালে ভোর সাড়ে ৫ টার দিকে সেখানকার বিলে সুব্রতের গলাকাটা লাশ পাওয়া যায়। বিষয়টি জানতে পেরে পুলিশের সিনিয়র এএসপি হুমায়ুন কবির, দাকোপ থানার অফিসার ইনচার্জ সফিকুল ইসলাম চৌধুরীর নেতৃত্বে থানা পুলিশ এবং খুলনার সিআইডি ক্রাইম সিন ম্যানেজমেন্ট প্রতিনিধিরা ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেন। তারা লাশ হেফাজাতে নিয়ে ময়না তদন্তের জন্য খুলনায় পাঠানোর প্রক্রিয়ায় আছে। জানা যায় লাশের অদুরে সিগারেটের অংশ এবং জিলাপীর টুকরোসহ কিছু আলামত পাওয়া গেছে। তবে সুব্রতের কাছে থাকা মোবাইল ফোন স্বর্ণের চেইন ও আংটি পাওয়া যায়নি। হত্যাকান্ডের মোটিভ সম্পর্কে পুলিশ বা নিহতের পরিবারের পক্ষ থেকে প্রাথমিকভাবে কোন ধারনা দিতে পারেনি। ১ সন্তানের জনক সুব্রত পেশায় মোটর সাইকেল চালক ও মুদি দোকানী। সে ঢাংমারী গ্রামের হ্নদয় মন্ডলের একমাত্র পুত্র। এ রিপোর্ট লেখা পর্যন্ত পুলিশ ঘটনাস্থলে অবস্থান করছে।

এসএসসি পরিক্ষার্থীদের সম্মানে সুতারখালী যুব পরিষদের প্রীতিভোজ

দাকোপ প্রতিনিধি : চালনাস্থ সুতারখালী যুব কল্যান পরিষদের উদ্যোগে এসএসসি ও সমমানের পরিক্ষার্থীদের প্রীতিভোজ ও সাংস্বৃতিক প্রতিযোগীতা অনুষ্ঠিত হয়েছে।
সোমবার সকাল ১০ টায় দাকোপ উপজেলা পরিষদ অডিটোরিয়ামে অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তৃতা করেন উপজেলা নির্বাহী অফিসার আব্দুল ওয়াদুদ। চালনাস্থ সুতারখালী যুব কল্যান পরিষদের সভাপতি সাংবাদিক আজগর হোসেন ছাব্বিরের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথির বক্তৃতা করেন খুলনা জেলা পরিষদ সদস্য ও সংগঠনের প্রধান উপদেষ্টা কে,এম কবির হোসেন, সুতারখালী ইউপি চেয়ারম্যান মাসুম আলী ফকির, চালনা পৌরসভার পানেল মেয়র এসএম আব্দুল গফুর। বক্তৃতা করেন সংগঠনের উপদেষ্টা সদস্য মুক্তিযোদ্ধা মোজাম্মেল হক, আলহাজ্ব মুজিবর রহমান গাজী, আলহাজ্ব আঃ হালিম, মাষ্টার অহিদুজ্জামান, মাওলানা মিজানুর রহমান, মাওলানা আব্দুল মান্নান, মীর মুনসুর আলী, অলিউল্লাহ সানা, মীর কামাল হোসেন বাদশা, জিএম শাহজামাল, নুরনবী ঢালী, মহিরুদ্দিন শিকারী, হুমায়ুন কবির হীরা, খায়রুল ইসলাম মিঠু, হাসান গাজী, হাফিজুর রহমান, হান্নান গাজী, ফয়সাল আহম্মেদ, শচীন্দ্রনাথ মন্ডল, মেজবাহ উদ্দিন প্রমুখ। অনুষ্ঠানটি পরিচালনা করেন সংগঠনের সম্পাদক আলহাজ্ব ইমদাদুল হক।