কর্মহীন বাসচালক ও হেলপারের মাঝে খুলনা সিটি মেয়রের খাদ্যসামগ্রী বিতরণ

খুলনা অফিস :  খুলনা সিটি কর্পোরেশনের মেয়র তালুকদার আব্দুল খালেক করোনাভাইরাস প্রতিরোধে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ঘোষিত ‘মানবিক সহায়তা কর্মসূচির’ আওতায় আজ (রবিবার) সকালে খুলনা বিভাগীয় শ্রম দপ্তর চত্বরে পাঁচশ ৬০ কর্মহীন বাসচালক ও হেলপারের মাঝে আট কেজি করে চালসহ খাদ্যসামগ্রী বিতরণ করেন।

খাদ্যসামগ্রী বিতরণকালে মহানগর আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক এম ডি এ বাবুল রানা, খুলনা বিভাগীয় শ্রম দপ্তরের পরিচালক মোঃ মিজানুর রহমান, মহানগর শ্রমিক লীগের সাধারণ সম্পাদক রণজিৎ কুমার ঘোষ ও শ্রমিক নেতারা উপস্থিত ছিলেন।

উল্লেখ্য, এ পর্যন্ত এক হাজার দুইশত ২০ কর্মহীন বাসচালক ও হেলপারের মাঝে চালসহ নিত্যপ্রয়োজনীয় খাদ্যসামগ্রী বিতরণ করা হয়েছে। পর্যায়ক্রমে আরো এক হাজার ৮০ কর্মহীন বাসচালক ও হেলপারের মাঝে খাদ্যসামগ্রী বিতরণ করা হবে

পাটকেলঘাটায় গণধর্ষন মামলার ৩ আসামী গ্রেফতার

তালা (সাতক্ষীরা) সংবাদদাতা : সাতক্ষীরার তালা উপজেলায় গণধর্ষনের তিন আসামীকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ। গ্রেফতারকৃত হল, তালা উপজেলার মির্জাপুর গ্রামের মৃত মোমিন সরদারের পুত্র মমতাজ সরদারর (৪৫), অপর দুজন হল একই এলাকার শহিদুল সরদারের পুত্র সবুজ সরদার (২২) ও মোঃ বিল্লাল সরদার (৩৮)।

পুলিশ সূত্রে জানা যায়, গত ২৭ এপ্রিল উপজেলার জগদানন্দকাটি গ্রামের আল্লাদ বেগম (৩৮) গণধর্ষনের শিকার হয়ে আসমীদের বিরুদ্ধে পাটকেলঘাটার থানায় একটি মামলা দ্বায়ের করেন। এরপর আসামীরা আত্মগোপনে থাকার কারনে শনিবার (২মে) গভীর রাত পর্যান্ত থানা এলাকায় অভিযান চালিয়ে তাদেরকে গ্রেফতার করা হয়।

পাটকেলঘাটা থানা অফিসার ইনচার্জ (ওসি) কাজী ওয়াহিদ মুর্শেদ ঘটনার সত্যতা স্বীকার করে জানান, গ্রেফতারকৃত আসামীদের বিরুদ্ধে থানায় একটি গণধর্ষনের মামলা (নং-৮) রয়েছে। গ্রেফতারকৃত আসামীদের বিজ্ঞ আদালতে সোপর্দ করা হয়েছে।

তালায় পানিতে ডুবে শিশুর মৃত্যু

তালা (সাতক্ষীরা) সংবাদদাতা : সাতক্ষীরার তালায় পানিতে ডুবে এক শিশুর মৃত্যু হয়েছে। রবিবার সকালে তালার জালালপুরে এ ঘটনা ঘটেছে।
সূত্রে জানা যায়, রবিবার সকালে জালালপুর গ্রামের মোঃ ফারুক মোড়লের ছেলে মোহাম্মদ উল্লাহ(৩) পুকুরে ডুবে মারা যায়। শিশুটি খেলা করার সময় পানিতে পড়ে যায়।পরে পুকুর থেকে তাকে তুলে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে যাওয়া হলে কর্তব্যরত চিকিৎসকরা তাকে মৃত ঘোষনা করেন। তালা থানা ওসি মেহেদী রাসেল মৃত্যুর বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন।

মোংলার প্রধান কাঁচা বাজার নিয়ন্ত্রণে ১৩ সিন্ডিকেট

আবু হোসাইন সুমন, মোংলা : পবিত্র মাহে রমজান ও করোনা পরিস্থিতিতেও সাধারণ মানুষের রেহাই মিলছে না মোংলার প্রধান কাঁচা বাজারের ১৩ সিন্ডিকেট চক্রের কবল থেকে। করোনা প্রাদূর্ভাবে শ্রমিক অধ্যুষিত এখানকার মানুষগুলো যখন কর্মহীন হয়ে মানবেতর জীবনযাপন করছে, তখনই মোংলার প্রধান এ কাঁচা বাজারের পণ্যের উর্দ্ধগতিতে স্থানীয়রা আরো অসহায় হয়ে পড়েছেন। সিন্ডিকেট চক্রের বেপরোয়া বাজার নিয়ন্ত্রণই ভোগাচ্ছেন তাদের। এ নিয়ে সম্প্রতি উপজেলা নির্বাহী অফিসারের কাছে অভিযোগ দিলেও কোন প্রতিকার মেলেনি। বরং এতে সিন্ডিকেট চক্র আরো বেপরোয়া হয়ে উঠেছে।
খোঁজ খবর নিয়ে জানা গেছে, মোংলা পৌর শহরের অন্তত ২০ হাজার মানুষ প্রতিদিন কাঁচা বাজার করে থাকেন। করোনা ভাইরাস সংক্রমণ রোধে রোজার কয়েকদিন আগে কাঁচা বাজারটি স্থানীয় প্রশাসন স্থানান্তরিত করে শহরের খোলা জায়গায় হ্যালিপ্যাডে সরিয়ে আনে স্থানীয় প্রশাসন। বাজারটি সরিয়ে আনার আগে কাঁচা পণ্যের দাম ঊর্দ্ধগতির মধ্যে কিছুটা সহনশীল থাকলেও সম্প্রতি তরিতরকারির দাম বেপরোয়াভাবে বৃদ্ধি পেয়েছে। এতে করে এই মাহে রমজান ও করোনা দূর্যোগের সময় ক্রেতা সাধারণের নাভিশ্বাস উঠেছে।
করোনার সংক্রমণ থেকে রক্ষায় সরকারী নির্দেশনায় মোংলা বাজারের নিত্য প্রয়োজনীয় দোকানপাট ছাড়া অধিকাংশ ব্যবসা প্রতিষ্ঠান বন্ধ রয়েছে। বাণিজ্যিক জাহাজ, ইপিজেড ও শিল্পকলকারখানায় কমে গেছে কর্মসংস্থান। লবণ পানি অধ্যুষিত মোংলায় সবজি চাষ না হওয়ায় রমজান ও করোনা দুর্যোগ পরিস্থিস্থিতিতেও নিত্য প্রয়োজনীয় দ্রব্যমূল্যের বিশেষ করে কাঁচা তরিতরকারির অতিরিক্ত বাড়তি দামের কারণে অসহায় হয়ে পড়েছে গরীব আর নি¤œমধ্যবিত্ত পরিবারের মানুষগুলো। ক্রেতা সাধারণের অভিযোগ, কাঁচা বাজার কেন্দ্রিক গড়ে ওঠা ১৩ সিন্ডিকেট চক্রের কাছে জিম্মি হয়ে পড়েছেন তারা। আর খুচরা ব্যবসায়ীরা বলছেন, তারাও অসহায় সিন্ডিকেট চক্রের কাছে। সিন্ডিকেটের বেঁধে দেয়া দামের চেয়ে কোন খুচরা দোকানদার কম দামে পণ্য বিক্রি করতে পারে না। বর্তমান সময়ে প্রান্তিক চাষীরা সবজির তেমন দাম না পেলেও অভিযোগ উঠেছে মোংলার ১৩ জনের সংঘবদ্ধ দু’টি পৃথক সিন্ডিকেট আড়ৎদার চক্র কেনার চেয়ে কয়েকগুন বেশী দামে মোংলার প্রধান বাজারে কাঁচা পণ্য খুচরা দোকানদারদের কাছে বিক্রি করছে। আইনশৃংখলারক্ষাকারীর সদস্যদের হাত থেকে রক্ষা পেতে সিন্ডিকেট চক্র পণ্যের কেনার মুল রশিদ পরিবর্তন করে বেশী দাম লেখিয়ে ডপ্লুকেট স্লিপ তৈরী করে থাকে বলেও অভিযোগ রয়েছে।
অনুসন্ধানে জানা গেছে, এ সিন্ডিকেট চক্রের অন্যতম সদস্য হলো রফিক, কামরুল, জাহিদ, সুমন, বাদল, জামাল, নাসির, কবির, ফিরোজ, আলু শাজাহান, মান্নান, আঃ গণি ও কালু । কেজি প্রতি কোন কোন পণ্যে ১৫ থেকে ২০ টাকা পর্যন্ত বাড়তি দামে পণ্য কিনতে বাধ্য করছে খুচরা ব্যবসায়ীদের। যার ফলে খুচরা দোকানদের হাত ঘুরে ক্রেতাদের সে পণ্য কিনতে হচ্ছে আরো বেশী দামে। রাজনৈতিক পরিচয় বহনকারী ওইসব সিন্ডিকেটের হোতারা দেখাচ্ছেন নানা অজুহাত। অল্প দিনের ব্যবধানে এ চক্রের সদস্যরা আঙ্গুল ফুলে কলা গাছ বনে গেছেন।
কয়েকজন সাধারণ ক্রেতা ও খুচরা দোকানদাররা অভিযোগ করে বলেন, কয়েকজন পাইকার মিলে সিন্ডিকেট করে খুলনা থেকে কাঁচামাল এনে অনেক বেশী দামে তাদেরকে তা কিনতে বাধ্য করে। ফলে পণ্যের ক্রয় দাম অনেক বেশী ও তাদের সামান্য লাভ মিলিয়ে অন্যান্য স্থানের চেয়ে এখানে তরিতরকারির দাম বেশী পড়ে যায়। খুচরা ব্যবসায়ীদের অভিযোগ, খুলনা থেকে পেশী শক্তির জোরে প্রভাবশালী এ সিন্ডিকেট চক্র সাধারণ ব্যবসায়ীদের কাঁচা পণ্য কিনে আনতে দেয় না। তাদের বেধে দেয়া দামেই খুচরা দোকানদারদের পণ্য বিক্রি করতে বাধ্য হতে হয়। এ নিয়ে সম্প্রতি উপজেলা নির্বাহী অফিসারের কাছে অভিযোগ দিলেও কোন প্রতিকার মেলেনি। বরং এতে সিন্ডিকেট চক্র আরো বেপরোয়া হয়ে উঠেছে।
এদিকে পাইকারী আড়ৎদাররা অতিরিক্ত দাম নেয়ার অভিযোগ অস্বীকার করে বলেন, তারা খুবই স্বল্প পরিমাণ লাভ করে খুচরা ব্যবসায়ীদের কাছে পণ্য বিক্রি করেন। আড়ৎদারদের মধ্যে কোন সিন্ডিকেট নেই বলে তারা দাবি করেন।
এ ব্যাপারে মোংলা উপজেলা নির্বাহী অফিসার মোঃ রাহাত মান্নান মোংলা বাজারে কাঁচা বাজারের তরিতরকারীর দাম বেশি এমনটা স্বীকার করে বলেন, মোংলা বাজারে নিত্য কাঁচা পণ্যের দাম নিয়ন্ত্রণে রাখতে বাজার কেন্দ্রিক সিন্ডিকেট চক্রটি যতই প্রভাবশালী হোক না কেন তা চিহ্নিত করে তাদের আইনের আওতায় আনা হবে।

দাকোপে শেখ সোহেলের পক্ষে কর্মহীনদের মাঝে ত্রাণ বিতরণ

আজগর হোসেন ছাব্বির :দাকোপে করোনা ভাইরাস মোকাবেলায় চালনা পৌরসভার বিভিন্ন ওয়ার্ডের কর্মহীন দরিদ্র পরিবারের মাঝে খাদ্য সহায়তা ত্রাণ বিতরণ করেছেন বঙ্গবন্ধুর ভ্রাতুষ্পুত্র বাংলাদেশ ক্রিকেট বোর্ডের পরিচালক প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার স্নেহধন্য ভাই শেখ সোহেল।
রবিবার সকাল সাড়ে ৯ টার দিকে উপজেলা আওয়ামী লীগের দলীয় কার্যালয়ের পাশের মাঠে শেখ সোহেলের পক্ষে এই ত্রাণ সামগ্রী কর্মহীন ১শ’ পরিবারের হাতে তুলে দেন দাকোপ উপজেলা আওয়ামী লীগ সভাপতি ও সাবেক উপজেলা চেয়ারম্যান আলহাজ্ব শেখ আবুল হোসেন। বিতরনকৃত ত্রান সামগ্রীর মধ্যে ছিল চাল, ডাল ও আলু। এ সময় অন্যান্যের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন চালনা পৌরসভার মেয়র সনত কুমার বিশ্বাস, চালনা পৌর আওয়ামী লীগের সভাপতি শফিকুল ইসলাম আক্কেল, উপজেলা আওয়ামী লীগনেতা শিবপদ পোদ্দার, চালনা পৌরসভা আওয়ামী লীগের যুগ্ম-সাধারণ সম্পাদক মোঃ শিপন ভূঁইয়া যুবলীগনেতা নিতাই বাছাড়, পৌর যুবলীগ নেতা আরাফাত আজাদ প্রমুখ।

দাকোপে কারিতাসের অর্থ বিতরনে ব্যাপক দূর্ণীতির অভিযোগ

আজগর হোসেন ছাব্বির : দাকোপে এনজিও কারিতাসের করোনায় ক্ষতিগ্রস্থদের মাঝে নগত টাকা বিতরনে ব্যাপক দূর্ণীতি অনিয়মের অভিযোগ উঠেছে। বিষয়টি নিয়ে জানতে চাইলে সংস্থাটির দায়িত্বশীল কাউকে পাওয়া যায়নি। করোনায় দাকোপে এনজিওদের কোন তৎপরতা না থাকার দাবী উপজেলা প্রশাসনের।
দূর্যোগ প্রবন এলাকা হিসাবে দাকোপে বেসরকারী সংস্থা গুলো দাতা সংস্থার অর্থায়নে সব সময় নানা প্রকল্প বাস্তবায়ন করে থাকে। কিন্তু করোনা ভাইরাসের মত ভয়াবহ দূর্যোগে তাদের কোন তৎপরতা নেই। অথচ এই সময়টাই জনসাধারনের সরকারী বেসরকারী সহযোগীতা সব থেকে বেশী প্রয়োজন। এর মাঝে উপজেলার বাজুয়া অঞ্চল কেন্দ্রীক পরিচালিত বেসরকারী সংস্থা কারিতাস এক দফা নগত টাকা বিতরন করেছেন। কিন্তু সেখানে নানা দূর্ণীতি অনিয়মের অভিযোগ উঠেছে । জানা গেছে বাজুয়া, লাউডোপ এবং কামারখোলা ইউনিয়নের ৪ শ’ পরিবারে তারা পরিবার প্রতি ১৫৫০ টাকা হারে নগত অর্থ বিতরন করেছে। নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক সংস্থাটির সাথে এক সময় সংশ্লিষ্ট ছিলেন এমন দায়িত্বশীল পর্যায় থেকে জানা যায়, করোনার কারনে সরাসরি ক্ষতিগ্রস্থ অর্থাৎ যারা কর্মহীন হওয়ায় হাজিরা না থাকায় আয় বন্দ হয়েছে অথচ আতœ সম্মানের বিবেচনায় ত্রান চেয়ে নিতে পারেনা এমন পরিবারকে এই সহায়তার আওতায় আনার কথা। কিন্তু এখানে প্রকৃত দাবীদারদের বঞ্চিত করে যাদের দেয়া হয়েছে তাদের বেশীরভাগ পেয়েছে দলীয়করন ও স্বজনপ্রীতির আওতায়। অভিযোগ মতে জনপ্রতিনিধিদের মাধ্যমে সুবিধাভোগীদের তালিকা করায় এই অনিয়মটি হয়েছে। দেখা গেছে যে ব্যক্তিটি করোনায় আদৌ কর্মহীন হয়নি, বার বার সুবিধাভোগী জনপ্রতিনিধিদের কাছের মানুষ এমন ব্যক্তিরাই পেয়েছেন কারিতাসের অর্থ সহায়তা। বাজুয়া ইউনিয়নের সুবিধাভোগী জনপ্রতিনিধিদের কাছের মানুষ একাধীক ত্রান সহায়তা প্রাপ্ত চুনকুড়ির দীপক মন্ডল, বাজুয়ার কবি রায়, মোহন রায়দের মত মানুষ কারিতাসের এই সহায়তা পাওয়া তার উদহারন এমন দাবী তাদের। এ ব্যাপারে সেখানকার সুপারভাইজার সঞ্জিত সরদারের নিকট জানতে চাইলে তিনি বলেন, টাকা বিতরনের সময় আমি সেখানে ছিলাম না। যে কারনে বাজুয়ায় কত পরিবারকে দেওয়া হয়েছে বা অন্য কোন তথ্য আমার জানা নেই। এক পর্যায়ে প্রকল্পের দাকোপ এরিয়া ম্যানেজার যিনি বর্তমানে খুলনায় অবস্থান করছেন তার নাম্বার চাইলে তিনি বলেন নেই। সুপারভাইজার হিসাবে তার কাছে ম্যানেজারের নাম্বার থাকাটাতো স্বাভাবিক এমন প্রশ্নের উত্তরে তিনি বলেন আপনার কাছে বলতে আমি বাধ্য নয়। অপর এক সুপারভাইজারের কাছে অর্থ বিতরনের বিষয়ে জানতে চাইলে তিনিও বিষয়টি এড়িয়ে গিয়ে তার শুভাকাংখি স্থানীয় কয়েকজন গনমাধ্যম কর্মির সাথে কথা বলতে বলেন। এ ব্যাপারে জানতে চাইলে দাকোপ উপজেলা নির্বাহী অফিসার আব্দুল ওয়াদুদ বলেন, শুনেছি কারিতাস নগত অর্থ দিয়েছে তবে এর বাইরে কিছু জানিনা। তিনি বলেন করোনায় দাকোপে বেসরকারী সংস্থা গুলোর সামান্যতম সহযোগীতা বা তৎপরতা চোখে পড়ছেনা। এলাকাবাসী কারিতাসের মত একটি প্রতিষ্ঠিত এনজিও’র দাকোপে কর্মরতদের এমন প্রশ্নবিদ্ধ কর্মকান্ডের সঠিক তদন্তসহ ব্যবস্থা গ্রহনে সংস্থাটির উপর মহলের হস্তক্ষেপ কামনা করেছেন।

ফুলতলার মুক্তেশ্বরী হযরত বুড়ো ফকিরিয়া মসজিদ কমিটির ইফতার সামগ্রী বিতরণ

ফুলতলা (খুলনা) প্রতিনিধিঃ ফুলতলার গাড়াখোলা মুক্তেশ্বরী হযরত বুড়ো ফকিরিয়া (রহঃ) জামে মসজিদের মসজিদ কমিটির উদ্যোগে করোনা ভাইরাসের প্রাদুর্ভাবের কারণে শারীরিক দুরত্ব বজায় রেখে রোববার সন্ধ্যা এলাকার মুসল্লিদের মাঝে ইফতার সামগ্রী বিতরণ করা হয়। মসজিদ কমিটির সভাপতি আলহাজ্ব শেখ মোঃ ইসমাইল হোসেনের ব্যবস্থাপনায় এ সময় অন্যান্যের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন মসজিদ কমিটির সাধারণ সম্পাদক আতিয়ার রহমান সরদার, হাফেজ মোঃ ইসমাইল হোসেন, শেখ ওয়ালিউল্লাহ সুইম, শেখ বুলবুল, ইস্রাফিল শেখ প্রমুখ। উল্লেখ্যঃ এলাকার ১১০ পরিবারের মাঝে বাড়ি বাড়ি গিয়ে ইফতার সামগ্রী বিতরণ করা হয়।

ফুলতলায় ভ্রাম্যমান দুধ ডিম ও মুরগি বিক্রয় কেন্দ্রের উদ্বোধন

তাপস কুমার বিশ্বাসঃ ফুলতলা উপজেলা প্রাণিসম্পদ দপ্তরের উদ্যোগে রোববার সাড়ে ১০টায় করোনা ভাইরাসের প্রাদুর্ভাবের কারণে শারীরিক দুরত্ব বজায় রেখে অসহায় খামারীদের সহায়তা প্রদানের লক্ষ্যে ভ্রাম্যমান দুধ, ডিম ও মুরগি বিক্রয় কেন্দ্রের উদ্বোধন করা হয়। উদ্বোধন করেন উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা পারভীন সুলতানা। এ সময় অন্যান্যের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন উপজেলা প্রাণি সম্পদ কর্মকর্তা ডাঃ স্বপন রায়, ডাঃ সুমাইয়া ইসলাম, মহিলা বিষয়ক কর্মকর্তা ফারহানা ইয়াসমিন, খামারী জসিম ফারাজি প্রমুখ।

এ সময় নির্বাহী কর্মকর্তা পারভীন সুলতানা বলেন, পর্যায়ক্রমে ফুলতলার ৪টি ইউনিয়নে স্বল্পমূল্যে সাধারণ জনগনের মাঝে দুধ ডিম ও মুরগি বিক্রয় করা হবে। উদ্বোধনী দিনে ফুলতলার দামোদর ইউনিয়নে খামারীদের নিকট ৫৪০ লিটার দুধ, ৩ হাজার ১শ’ ডিম এবং ৭শ’ ১০টি মুরগী বিক্রয় করা হয়। প্রথম দিনেই ১ লক্ষ ৯৭ হাজার, ৯শ’ ৫০ টাকা বিক্রয় হয়েছে বলে প্রাণিসম্পদ কর্মকর্তা ডাঃ স্বপন রায় জানান।