কেশবপুরে শাহীন চাকলাদারের পথসভা

এস আর সাঈদ, কেশবপুর (যশোর) : যশোর-৬ কেশবপুর সংসদীয় আসনে উপ-নির্বাচনে আওয়ামী লীগ মনোনীত নৌকার প্রার্থী ও যশোর জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক শাহীন চাকলাদার বলেছেন, জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের আদর্শের দল হল বাংলাদেশ আওয়ামী লীগ। আর আদর্শের দল আওয়ামী লীগের প্রতীক হল নৌকা। আগামী ১৪ জুলাই যশোর-৬ কেশবপুর সংসদীয় আসনে উপ-নির্বাচনে বঙ্গবন্ধুর আদর্শের প্রতীক নৌকায় ঐক্যবদ্ধভাবে ভোট দিয়ে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার হাতকে শক্তিশালী করতে হবে। নৌকা বিজয়ী হলেই কেবল উন্নয়ন হয়। আর কেশবপুরের উন্নয়নের ধারাকে অব্যাহত রাখতে নৌকার কোন বিকল্প নেই।
তিনি আরো বলেন, করোনা ভাইরাস মোকাবেলায় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা সার্বক্ষণিক নিজে মনিটোরিং করছে। আওয়ামী লীগ সরকার করোনা ভাইরাস মোকাবেলায় ক্ষতিগ্রস্থ দরিদ্র ও অসহায়দের মাঝে খাদ্যসামগ্রী, নগদ অর্থ, ভিভিন্ন প্রকার ভাতা, ১০ টাকা কেজি দরে চাউল-সহ বিভিন্ন প্রকার সাহায্য-সহযোগিতা প্রদান করেছে। বিএনপি-জাতীয় পার্টি এই করোনা ভাইরাস মোকাবেলায় জনগণের পাশে দাঁড়ায়নি। অথচ বিএনপি করোনা ভাইরাসের উজুহাতে এই উপ-নির্বাচন থেকে সরে দাঁড়ানোর ঘোষণা দিয়ে ষড়যন্ত্রে লিপ্ত রয়েছে। আগামী ১৪ জুলাই যশোর-৬ কেশবপুর সংসদীয় আসনে উপ-নির্বাচনে সর্বোচ্চ ভোটারদের উপস্থিত নিশ্চিত করে বিএনপির ঐ ষড়যন্ত্রের উচিত জবাব দিতে হবে।
গতকাল বিকাল থেকে সন্ধ্যারাত পর্যন্ত ত্রিমোহিনী ইউনিয়নের বরণডালী বাজার ও ত্রিমোহিনী ইউনিয়ন পরিষদ চত্ত্বর এবং সাতবাড়িয়া ইউনিয়নের সাতবাড়ীয়া বাজার, বেগমপুর বাজার ও কোমরপোল বাজারে পথসভায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি একথা বলেন। উক্ত ২টি ইউনিয়নে ৫টি পথসাভায় অন্যান্যের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন যশোর জেলা আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক আফজাল হোসেন, ঝিকরগাছা উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান মনিরুল ইসলাম, মণিরামপুর উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান নাজমা খানম, যশোর সদর উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি মোহিত কুমার নাথ, , কেশবপুর উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি এস এম রুহুল আমীন, সহ-সভাপতি সাবেক উপজেলা চেয়ারম্যান এইচ এম আমির হোসেন, সহ-সভাপতি এ্যাড, রফিকুল ইসলাম পিটু, সাধারণ সম্পাদক গাজী গোলাম মোস্তফা, অভয়নগর উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক সরদার ওলিয়ার রহমান, পৌর আওয়ামী লীগের যুগ্ম-আহ্বায়ক এ্যাড. মিলন মিত্র, উপজেলা আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক ইউপি চেয়ারম্যান কাজী মুস্তাফিজুল ইসলাম মুক্ত, আইন বিষয়ক হুসাইন মোহাম্মদ ইসলাম, উপজেলা কৃষকলীগের সভাপতি সৈয়দ নাহিদ হাসান, ত্রিমোহিনী ইউপি চেয়ারম্যান এস এম আনিসুর রহমান, সাতবাড়িয়া ইউপি চেয়ারম্যান শামছুদ্দিন দফাদার, গৌরীঘোনা ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের তথ্য ও গবেষণা সম্পাদক সাঈদুর রহমান সাঈদ, ত্রিমোহিনী ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের আহ্বায়ক বাবুল, যুগ্ম-আহ্বায়ক আব্দুল জব্বার, সাতবাড়িয়া ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের আহ্বায়ক জি এম হোসেন, আবু বক্কার সিদ্দিক, মশিয়ার গাইন, মশিয়ার দফাদার, যুবলীগনেতা ওহেদুজ্জামান মিন্টু, রাজু, হাসান, আমজাদ, পৌর স্বেচ্ছাসেবক লীগের আহ্বায়ক আবুল বাসার খান প্রমুখ।

সাঁথিয়ায় ফেসবুকে কু-রুচিপূর্ণ পোস্ট করায় থানায় অভিযোগ

পাবনা প্রতিনিধিঃ নাইম আহম্মকে নিয়ে বিভিন্ন অনলাইন ও সংবাদপত্রে সংবাদ প্রকাশের ঘটনায় তার পক্ষে ঘনিষ্ঠ একজন সাংবাদিকদের নিয়ে ফেসবুকে কু-রুচিপূর্ণ পোস্ট দেন। নাইম পাবনার মোবাইল ব্যবসায়ী ও সাঁথিয়া উপজেলার বিষ্ণুপুর গ্রামের আবুল কাশেমের ছেলে।
মঙ্গলবার রাতে মোঃ মারুফ হাসান নামের একজন তার ফেসবুক আইডি থেকে লেখেন সাংবাদিকরা বিশিষ্ট শিল্পপতি ও তরুণ রাজনীতিবিদ নাইম আহম্মদের ভাইয়ের নিকট চাঁদা চেয়ে না পেয়ে কিছু অসাধু সাংবাদিক তার বিরুদ্ধে ভ’য়া সংবাদ প্রকাশ করেছেন। এমন নেক্কার জনক সংবাদের তীব্র প্রতিবাদ জানাই।
ফেসবুক পোস্টটি সাংবাদিকদের দৃষ্টি গোচর হলে সাঁথিয়া প্রেসক্লাবের সকল সদস্য মিলিত হয়ে সাঁথিয়া থানা উপস্থিত হয়ে একটি অভিযোগ দায়ের করেন।
প্রেসক্লাবের সভাপতি জয়নুল আবেদীন রানার স্বাক্ষরিত অভিযোগে বলা হয়, মারুফ হাসানের পোস্টটি আমাদের পেশার উপর আঘাত এবং সামাজিক ভাবে হেয় প্রতিপন্নর শামিল বলে আমরা মনে করি। এবং কোন সাংবাদিক চাঁদা না পেয়ে সংবাদ প্রকাশ করেছে তা জানতে চাওয়া হয়।
সাঁথিয়া থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) আসাদুজ্জামান বিষয়টি দ্রৃততম সময়ে তদন্ত পূর্বক ব্যবস্থা গ্রহণের আশ^াস দেন।

গাইবান্ধায় ধর্ষককে গ্রেফতারের দাবিতে পুলিশ সুপারকে স্মারকলিপি প্রদান

গাইবান্ধা প্রতিনিধি : গৃহ পরিচারিকাকে ধর্ষণের অভিযোগে অভিযুক্ত সুনির্দিষ্ট মামলার আসামি গাইবান্ধা সরকারি বালক উচ্চ বিদ্যালয়ের শিক্ষক ইউনুস আলীসহ গাইবান্ধা জেলার সংঘটিত নারী শিশু নির্যাতনকারীদের গ্রেফতার ও দৃষ্টান্ত মুলক শাস্তির দাবিতে গতকাল বুধবার বাংলাদেশ নারীমুক্তি কেন্দ্র ও সমাজতান্ত্রিক মহিলা ফোরামের উদ্যোগে গাইবান্ধা পুলিশ সুপারকে স্মারকলিপি প্রদান করেন।

স্মারকলিপি প্রদানকালে উপস্থিত ছিলেন বাংলাদেশ নারীমুক্তি কেন্দ্রের সভাপতি সুভাসিনী দেবী, সাধারণ স¤পাদক নিলুফার ইয়াসমিন শিল্পী, সমাজতান্ত্রিক মহিলা ফোরামের আহবায়ক ইসরাত জাহান লিপি, লিজা উলা প্রমুখ। স্মারকলিপি প্রদান পূর্বে এক সংক্ষিপ্ত সভায় নেতৃবৃন্দ বলেন, সারাদেশের ন্যায় এই সময় গাইবান্ধা জেলাতেও কয়েকটি নারী শিশু নির্যাতন ও ধর্ষণের ঘটনা ঘটছে। ধর্ষক বিত্তশালী ও ক্ষমতাবান হওয়ায় পার পেয়ে যাচ্ছে। সম্প্রতি অন্যতম ঘটনা হলো গাইবান্ধা সরকারি বালক উচ্চ বিদ্যালয়ের শিক্ষক ইউনুস আলী তার গৃহপরিচারিকা কিশোরীকে ধর্ষণ করে এবং তার বিরুদ্ধে থানায় সুনির্দিষ্ট অভিযোগের ভিত্তিতে মামলা হলেও তাকে গ্রেফতার করা হচ্ছে না। ফলে নেতৃবৃন্দ উদ্বেগ ও বিস্ময় প্রকাশ করে বলেন, প্রশাসনের এ ভুমিকার কারণে অপরাধ প্রবনতা বৃদ্ধি পাবে। আমাদের সমাজে বিচার হীনতার কারণে খুন, ধর্ষন হচ্ছে। তাই অবিলম্বে সুষ্ঠু তদন্ত সাপেক্ষে ধর্ষনকারী শিক্ষক ইউনুস আলীসহ গাইবান্ধা জেলায় সংগঠিত নারী শিশু নির্যাতনকারীদের গ্রেফতার ও দৃষ্টান্ত মুলক শাস্তির দাবী জানান।

আটোয়ারীতে ক্ষতিগ্রস্থদের মাঝে ঢেউটিন ও চেক বিতরণ

মনোজ রায় হিরু, আটোয়ারী : পঞ্চগড়ের আটোয়ারীতে সম্প্রতি অগ্নিকান্ড ও ঝড়ে ক্ষতিগ্রস্থ হওয়া দুইটি শিক্ষা প্রতিষ্ঠান সহ ৩৮টি পরিবারের মাঝে ঢেউটিন এবং অনুদানের চেক বিতরণ করা হয়েছে। বুধবার (৮জুলাই) দুপুরে দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা ও ত্রান মন্ত্রনালয়ের অধিনে আটোয়ারী উপজেলা প্রশাসন ঢেউটিন ও চেক বিতরণের আয়োজন করে। বিতরণ অনুষ্ঠানে উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান মো: তৌহিদুল ইসলাম, উপজেলা নির্বাহী অফিসার আবু তাহের মো: সামসুজ্জামান, ভাইস চেয়ারম্যান মো: শাহাজাহান, উপজেলা প্রকল্প বাস্তবায়ন কর্মকর্তা মো: ওয়ালিফ মন্ডল ও রাধানগর ইউ’পি চেয়ারম্যান মো: আবু জাহেদ ও ধামোর ইউ’পি চেয়ারম্যান নজরুল ইসলাম দুলাল উপস্থিত থেকে ক্ষতিগ্রস্তদের মাঝে ঢেউটিন ও চেক তুলে দেন। উল্লেখ্য, উপজেলার নন এমপিওভুক্ত শিক্ষা প্রতিষ্ঠান ধামোরহাট আদর্শ বালিকা বিদ্যালয় ও মোলানী আদর্শ নিম্ন মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের প্রত্যেককে ৩ বান্ডিল ঢেউটিন ও ৯ হাজার টাকার চেক এবং ব্যক্তি পর্যায়ের ক্ষতিগ্রস্থ প্রত্যেককে ২ বান্ডিল ঢেউটিন ও ২ হাজার টাকার চেক বিতরণ করা হয়।

মোংলায় রাস্তার দু’পাশে শত শত ট্রাকের জট : দুর্ঘটনার আশংকা

মোংলা (বাগেরহাট) প্রতিনিধি : মোংলা বন্দরের শিল্প এলাকার বিভিন্ন কলকারখার মালামাল পরিবহণকারী গাড়ী পার্কিংয়ের জন্য বন্দরের নিজস্ব জমিতে নির্মিত পৌর ট্রাক টার্মিনালটি হঠাৎ করে বন্ধ করে দেয়ায় ভোগান্তী বেড়েছে বন্দরের শিল্প এলাকা জুড়ে। ফলে বিভিন্ন ফ্যাক্টরীগুলোর গাড়ী এখন রাখতে হচ্ছে রাস্তার দু’পাশে। এতে রাস্তা সংকুচিত হয়ে পড়ায় অন্যান্য যানবাহন চলাচলেও বিঘ্ন ঘটার পাশাপাশি দুর্ঘটনার আশংকাও বেড়েই চলেছে। রাস্তার উপর ও পাশে গাড়ী রাখায় রাস্তাও ক্ষতিগ্রস্থ হচ্ছে। স্থানীয় পুলিশের পক্ষ থেকে গত মাসের ৭ তারিখ পৌর ট্রাক টার্মিনালটি বন্ধ করে দেয়ায় শিল্প এলাকায় এমন পরিস্থিতির সৃষ্টি হয়েছে। যদিও হাইওয়ের টোল আদায়কৃত টার্মিনাল বন্ধের নিদের্শনা থাকলেও ভুল বুঝাবুঝির কারণেই বন্দরের নিজস্ব এলাকায় নির্মিত টার্মিনালটিও বন্ধ করে দেয়া হয়েছে। এদিকে টার্মিনাল বন্ধ থাকায় আর্থিক ক্ষতিতে পড়েছে পৌর কর্তৃপক্ষ। টার্মিনালের আয় দিয়ে পৌর কর্মচারীদের বেতনসহ পৌরবাসীর সেবায় ব্যয় করা হতো। অচিরেই টার্মিনালটি চালু না হলে পৌর কর্মচারীদের বেতন দেয়া বন্ধ হওয়াসহ নাগরিক সেবাও বিঘ্নিত হবে।

খোঁজ খবরে জানা গেছে, বন্দর কর্তৃপক্ষের কাছ থেকে জমি অধিগ্রহণ করে দিগরাজ এলাকায় প্রায় ৫ কোটি টাকা ব্যয়ে ট্রাক টার্মিনাল নির্মাণ করে মোংলা পোর্ট পৌরসভা। ২০১৮ সালে ১লা মে টার্মিনালটির উদ্বোধন পর বন্দর ও শিল্প এলাকার সকল সকল ট্রাক গত তিন বছর ধরে সেখানেই পার্কিং করে আসছিল। এবং সেখান থেকে সিরিয়াল অনুযায়ী বিভিন্ন ফ্যাক্টরীর মালামাল নিয়ে দেশের বিভিন্ন স্থানে যাতায়াত করতো ট্রাকগুলো। ওই টার্মিনাল থেকে বছরে প্রায় ৪০ লাখ টাকা আয়ে হয়ে আসছিল পৌর কর্তৃপক্ষের। আয়ের ওই টাকার একটি অংশ চুক্তি মোতাবেক বন্দর কর্তৃপক্ষ পেতো আর বাকী টাকা দিয়ে পৌর কর্তৃপক্ষ তাদের কর্মচারীদের বেতন পরিশোধসহ জনসাধারণের সুযোগ-সুবিধায় ব্যয় করে আসছিল। মোংলা বন্দরের শিল্প এলাকায় গড়ে ওঠা সিমেন্ট, এলপিজিসহ বিভিন্ন ধরণের ২০ ফ্যাক্টরী এবং বন্দরের ও ইপিজেরে পণ্য পরিবহণে নিয়োজিত প্রায় ৭শ ট্রাকের আসা যাওয়া ও অবস্থান বন্দরের শিল্প এলাকায়। শিল্প এলাকার বন্দরের নিজস্ব এ সড়কের যানজট কমাতে এবং রাস্তার ক্ষয়ক্ষতি এড়াতে বন্দর কর্তৃপক্ষ ও পৌরসভা যৌথভাবে এ ট্রাক টার্মিনালটি নির্মাণ করে। অথচ গত ৮ জুন পুলিশ টার্মিনালটি বন্ধ করে দেয়।
এ বিষয়ে মোংলা থানার অফিসার ইনচার্জ মো: ইকবাল বাহার চৌধুরী বলেন, উর্ধতন কর্তৃপক্ষ ও পরিবহণ মালিক সমিতির দাবীর প্রেক্ষতি যাতে মহাসড়কের কোথাও কোন টোল আদায় না হয় সেজন্য টার্মিনালটি বন্ধ করে দেয়া হয়েছে। এটা যদি হাইওয়ের বাহিরে এবং বন্দরের নিজস্ব জায়গায় হয়ে থাকে তাহলে তারা কাগজপত্র দেখালে একটা সুরহা করা যেতে পারে।
মোংলা পোর্ট পৌরসভার মেয়র আলহাজ্ব মো: জুলফিকার আলী বলেন, বিশ্ব ব্যাংক থেকে লোন নিয়ে প্রজেক্টের মাধ্যমে টার্মিনালটি করা হয়েছে। এটি বন্ধ করে দেয়ায় কিস্তি দেয়ায় অনিশ্চিত হয়ে পড়বে। এছাড়া এটি হাইওয়য়ের আওতাভুক্ত নয়। বন্দরের নিজস্ব জায়গায় এবং রাস্তাটি বন্দরের নিজস্ব। ভুল বুঝার কারণেই পৌর টার্মিনালটি বন্ধ করে দেয়া হয়েছে। এতে পৌরসভা আর্থিক ক্ষতির মুখে পড়েছে। কারণ টার্মিনালের আয় দিয়ে পৌরসভার কর্মচারীদের বেতন ও বিভিন্ন উন্নয়নমুলক কাজ করা হতো। দ্রুত এটি চালু না হলে কর্মচারীদের বেতন দেয়া অসম্ভব হয়ে পড়বে।
মোংলা বন্দর কর্তৃপক্ষের চেয়ারম্যান রিয়ার এডমিরাল এম শাহজাহান বলেন, টার্মিনাল ও বন্দরের শিল্প এলাকার এ রাস্তা বন্দরের নিজস্ব জায়গার উপর এটি হাইওয়ের আওতাভুক্ত নয়। মুলত ভুল বুঝাবুঝিতে পৌর ট্রাক টার্মিনালটি বন্ধ করে দেয়া হয়েছে। এনিয়ে সংশ্লিষ্ট দপ্তরে পৌর কর্তৃপক্ষ ইতিমধ্যে চিঠি দিয়েছে আমরাও চেষ্টা করছি আশা করা যায় স্বল্প সময়ের মধ্যে এটির সুরহা হয়ে যাবে।

আটোয়ারীতে নন এমপিও শিক্ষক-কর্মচারীরা পেলো প্রধানমন্ত্রীর অনুদানের চেক

মনোজ রায় হিরু, আটোয়ারী : করোনা ভাইরাসের কারনে ক্ষতিগ্রস্থ পঞ্চগড়ের আটোয়ারী উপজেলায় অবস্থিত নন এমপিও ভুক্ত বিভিন্ন শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের শিক্ষক-কর্মচারীরা পেলো প্রধানমন্ত্রীর দেওয়া অনুদানের চেক। উপজেলা প্রশাসনের আয়োজনে বুধবার (৮জুলাই) সকালে পরিষদের অডিটোরিয়ামে উপজেলা নির্বাহী অফিসার আবু তাহের মো: সামসুজ্জামানের সভাপতিত্বে চেক বিতরণ করা হয়। একাডেমিক সুপারভাইজার মো: রেজাউন নবী রেজার সঞ্চালনায় চেক বিতরণ অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান মো: তৌহিদুল ইসলাম এবং বিশেষ অতিথি ছিলেন উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষা অফিসার মো: তোবারক হোসেন। মাননীয় প্রধানমন্ত্রীকে ধন্যবাদ জানিয়ে অন্যান্যের মধ্যে আরও উপস্থিত থেকে বক্তব্য রাখেন পঞ্চগড় জেলা পরিষদের সদস্য মো: মাজেদুর রহমান বকুল, ভাইস চেয়ারম্যান মো: শাহাজাহান, উপজেলা আইসিটি কর্মকর্তা মো: শহিদুল ইসলাম, আটোয়ারী আদর্শ মহিলা ডিগ্রী কলেজের অধ্যক্ষ মো: আব্দুল মান্নান, আটোয়ারী মডেল পাইলট উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক মো: আঃ কুদ্দুশ ও আলহাজ¦ আবুল হোসেন নিম্ন মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের (নন এমপিও) প্রধান শিক্ষক মো: তাছাফুর রহমান বাচ্চু। উল্লেখ যে, উপজেলার নন এমপিও ভুক্ত ৩৪ টি শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের ২ শত শিক্ষক-কর্মচারী করোনা কালীন এ দুর্যোগে অনুদানের চেক পেয়ে প্রধানমন্ত্রীকে আন্তরিক ধন্যবাদ জ্ঞাপন করেন।

খুলনায় মাদকসহ আটক ৩

খুলনা অফিস : খুলনা মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রন অধিদপ্তর মাদক বিরোধী অভিযান চালিয়ে মাদকসহ ৩ জন কে আটক করেন। আটককৃতরা হচ্ছে মাদক ব্যবসায়ী একলাছ মোল্লা( ৫০); হাসান শেখ(২৫)ও রাজু হাওলাদার। পরবতীতে ভ্রাম্যমান আদালতের মাধ্যমে তাদেরকে বিভিন্ন মেয়াদে সাজা প্রদান করা হয়। নির্বাহী ম্যাজিস্টেট সেটু কুমার বড়ুয়া ভ্রামামান আদালত পরিচালনা করেন। বুধবার ল্নচরা, বাগমারা ও রুপসা উপজেলায় অখিযান চালিয়ে তাদেরকে আটক করেন।
মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রন গোয়েন্দা শাখা পরিদর্শক পারভিন আক্তার জানান, তারা দীর্ঘদিন ধরে মাদক ব্যবসা পরিচালনা করে আসছিলো। আমাদের এই মাদক বিরোধী অভিযান চলমান থাকবে বলে তিনি উল্লেখ করেন।

বটিয়াঘাটার ভূমি -দস্যু জেসমিনের বিরুদ্ধে সংবাদ সম্মেলন

খুলনা অফিস : বটিয়াঘাটার গজালিয়ার মৃত এনছার আলীর কাছ থেকে ১৯৬৩ সালে ২ একর জমি ক্রয় করে ৮৪ শতক জমি স্থায়ীভাবে ভোগ দখল করে আসছে একই এলাকার আলী আহমদ ও ছেলে রফিকুজ্জামান। বাকি জমি জোর জবর দখল করে খেয়ে আসছে তারা। যে জমির বর্তমান পর্যন্ত আর.এস গেজেট ও খাজনা পরিোশধ করা আছে। ৮৪ শতক জমি বাদে বাকি জমি ৬২ সালের ওরেশ দেখিয়ে এবং ভুয়া কাগজপত্র তৈরি করে বিক্রি করে ভোগ দখল করে আসছে আব্দুল মজিদ ও জেসমিন গং। তার পর ও সরল বিশ্বাসে এনছার আলীর ছেলে আব্দুল মজিদ কে ঐ জমি ইজারা দিলে ঠিকমতো ইজারা না দেওয়ায় অন্যকে ইজারা দেওয়ার কারণেই শত্রু হয়ে দাঁড়ায় রফিকুজ্জামান। তার ইজারাদারদের হুমকি-ধামকি ও দাদার সম্পত্তির ওয়ারেশ হিসাবে ভোগদখলে বাধা সৃষ্টিকারী হিসাবে দেয়াল হয়ে দাঁড়ায় আব্দুল মজিদ এর কন্যা জেসমিন বেগম । রফিকুজ্জামান এর ইজারাদারদের চাষবাসের ঘের থেকে মাছ ধরতে গেলে মৃত এনছার আলীর কোন পূত্র বাধা দিতে না আসলে ও প্রাচীর হয়ে দাঁড়ায় জেসমিন বেগম এবং সংঘর্ষের জটলা সৃষ্টি করে উল্টো থানায় অভিযোগ করে। থানা কব্জা করে মাছ ধরা থেকে এস আই স্বপ্নের মাধ্যমে বিরত রাখে রফিকুজ্জামানের ইজারাদার দেরকে। উপায়ন্ত না পেয়ে প্রথমে উপজেলা চেয়ারম্যান আশরাফুল আলম খান এর নিকট প্রথমে অভিযোগ দায়ের করে ও পরে থানা নির্বাহী কর্মকর্তার কাছে লিখিত অভিযোগ দেয় রফিকুজ্জামান। ভূমি -দস্যু ও দখল বাজ জেসমিন গং সকল দরবারে জমির কাগজ পত্র দেখাতে ব্যর্থ হয়ে গত ১লা জুলাই মিথ্যা সংবাদ একটি সম্মেলন করে রাজত্ব কায়েম করার পায়তারা করছে বলে ভুক্তভোগী রফিকুজ্জামানের অভিযোগ। আজ রফিকুজ্জামান তার সংবাদ সম্মেলনের মাধ্যমে তীব্র নিন্দা ও প্রতিবাদ জানিয়ে খুলনা প্রেস ক্লাবে লিখিত বক্তব্য পাঠ করে। বক্তব্যে তিনি উল্লেখ করেন, আব্দুল মজিদ শেখের বর্তমান কোনো জমাজমি নাই এবং বৈধ কোনো আয়ের পথ নাই তার মেয়ে জেসমিন ও তার জামাই ওয়াহেদ মোল্লার। এরা সমন্বয়ে গজালিয়া গ্রামে সন্ত্রাসী চক্র গড়ে তুলে, মাদক বিক্রি, ছিনতাই, চুরি, নারী কেলেঙ্কারি সহ অসংখ্য ঘটনা ঘটীয়ে জীবিকা নির্বাহ করে যা বটিয়াঘাটা থানায় তাদের প্রতিটি অপকর্মের রেকর্ড আছে। জেসমিন বেগম অতি ধূর্ত ও মামলা বাজ, ভূমি জবর দখল কারী, তার প্রমাণ তার ভাসুর দ্বয়। তার ভাসুর আজাদ মোল্লা ও তাহের মোল্লার জমি দখল করে তাদের নামে মিথ্যা মামলা ও অভিযোগ দিয়ে এলাকা ছাড়া করেছে ভূমি-দস্যু জেসমিন। একই এলাকার মালেকের কাছে কিছু সংখ্যক জমি বিক্রি করে সে দুর্বল ব্যক্তি হওয়ায় জমি দখল থেকে তাকে বঞ্চিত করেছে। রেহাই পায় নাই একই এলাকার রফিকুল নামে ওদুদ এর চাচাতো ভাই, সূত্রে জানা যায় ওদুদ এর কাছ থেকেও কিছু সংখ্যক জমি ইজারা নেয় আব্দুল মজিদ এর মেয়ে জেসমিন বেগম তার স্বামী ওয়াহেদ মোল্লা। ইজারা নেওয়া জমি থেকে অতিরিক্ত ২ বিঘা জমি জোর করে দখল করে ভোগ করায় রফিকুল থানায় অভিযোগ ও দায়ের করে। ভুক্তভোগীরা সহ রফিকুজ্জামান এর দাবি পিতার জমি বিক্রি করার পর ছেলের কন্যা অর্থাৎ(পুৎনী) দাদার জমি সে কোন সূত্রে জমি দাবি করতে পারে, জাতির বিবেকের কাছে প্রশ্ন ছুড়েদেয়। তিনি আরো বলেন যার জমি সে ভোগ করলে তাকে কি ভূমি দখলবাজ বলে নাকি তার জমি অন্য কেউ জবরদখল করে ভোগ করলে তাকে ভূমিদস্যু ও সন্ত্রাসী বলে এটাও প্রশ্নবিদ্ধ করে তাকে।
তার নামে মিথ্যা ভিত্তিহীন সংবাদ প্রকাশে করায় তীব্র নিন্দা প্রকাশ করে রফিকুজ্জামান এবং একই সাথে ভবিষ্যতে মিথ্যা তথ্য দিয়ে সংবাদ সম্মেলন করে সাধারণ জনগনকে বিভ্রান্ত করে হেয় প্রতিপন্ন করতে না পারে, তার বিনীত অনুরোধ এর পাশাপাশি রফিকুজ্জামান জানায় আমার পিতৃকুল থেকে আমার বংশ কুলের প্রত্যেকেই সুশিক্ষায় শিক্ষিত এবং আমার নামে থানায়, কোট-কাচারিতে কোন মামলা অভিযোগ নেই।বাবার আমল থেকেই মসজিদ মাদরাসা ও মানুষদের কে জায়গা জমি ভোগ দখলের জন্য দান করে দেই। তথাপি জেসমিন বেগম সংবাদ সম্মেলনে আমার বিরুদ্ধে লিখেছে ভূমি-দস্যু ও সন্ত্রাসী তার জন্য তীব্র ঘৃণা প্রকাশ করেন রফিকুজ্জামান। একই সাথে ইজারাদারদের জমাজমি চাষাবাদের বাধার সৃষ্টিকারী এবং মিথ্যা অংশীদারত্বের আবেদনের মাধ্যমে রফিকুজ্জামান ভোগ দখলীয় জমির জবর দখলের চেষ্টায় ব্যর্থ জেসমিন গং এর বিরুদ্ধে গতকাল সংবাদ সম্মেলনের মাধ্যমে প্রতিবাদ ও নিন্দা জ্ঞাপন করে এবং যাতে এহেনো কর্মকাণ্ড আর না করতে পারে তার জন্য উর্ধতন কর্তৃপক্ষের আশু হস্তক্ষেপ কামনা করে।