খুলনা জেলা পরিষদ চেয়ারম্যানের অনুদান প্রদান

বটিয়াঘাটা প্রতিনিধি : খুলনা জেলা পরিষদের চেয়ারম্যান, জেলা আওয়ামীলীগের সভাপতি ও সাবেক বিরোধীদলীয় হুইপ আলহাজ্ব শেখ হারুনুর রশীদ বলেছেন,বর্তমান সরকার একটি কঠিন ক্রান্তিকাল অতিক্রম করছে। কোভিক১৯, ঘূর্ণিঝড় আম্ফান সহ একের পর এক প্রাকৃতিক দূর্যোগ সরকারকে মোকাবিলা করে যেতে হচ্ছে। এতকিছুর পরেও বঙ্গবন্ধু কন্যা প্রধানমন্ত্রী জননেত্রী শেখ হাসিনার একক দূরদর্শিতার কারনে সাধারণ খেঁটে খাওয়া, নিম্নবিত্ত ও মধ্যবিত্ত মানুষের মাঝে নানান উপকরণ উপহার দিয়ে সামগ্রিক অর্থনৈতিক চাঁকা সচল রেখে দেশকে উন্নয়নের দিকে এগিয়ে নিয়ে যাচ্ছেন। বঙ্গবন্ধুর যোগ্য কন্যা বিধায় এটা সম্ভব হচ্ছে।

তিনি বৃহষ্পতিবার (১০ সেপ্টেম্বর) বিকাল ৩ টায় বটিয়াঘাটা উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যানের কার্যালয়ে নতুন বাসস্ট্যান্ড এলাকায় ভয়াবহ অগ্নিকান্ডে ক্ষতিগ্রস্ত দোকান মালিকদের মাঝে আর্থিক অনুদান প্রদান, উপজেলা চেয়ারম্যান ও উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা, থানা পুলিশ, উপজেলা প্রেসক্লাব ও সর্বসাধারণের মাঝে পিপিই এবং মাস্ক বিতরনকালে এ কথাগুলি বলেন। উপজেলা চেয়ারম্যান ও আলীগের সভাপতি মোঃ আশরাফুল আলম খানের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত বিতরণী সভায় বিশেষ অতিথি ছিলেন জেলা পরিষদের প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা(উপ সচিব) মোঃ আসাদুজ্জামান, সচিব তপন কুমার পাল, উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মোঃ নজরুল ইসলাম, জেলা আলীগের সাবেক সাংগঠনিক সম্পাদক ও যুবলীগের সভাপতি মোঃ কামরুজ্জামান জামাল, জেলা পরিষদের সদস্য ও উপজেলা আলীগের সম্পাদক দিলীপ হালদার, প্রকল্প বাস্তবায়ন কর্মকর্তা এমদাদুল হক ও উপজেলা প্রেসক্লাবের সভাপতি প্রতাপ ঘোষ। অন্যান্যের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান চঞ্চলা মন্ডল,উপজেলা প্রেসক্লাবের সম্পাদক ইন্দ্রজিৎ টিকাদার, ইউপি চেয়ারম্যান শেখ হাদীউজ্জামান হাদী, ইসমাইল হোসেন বাবু, জিএম মিলন গোলদার, জেলা যুবলীগনেতা জামিল খান, সাবেক ছাত্রলীগ নেতা মাহফুজুর রহমান, বিধান চন্দ্র রায়, জেলা সৈনিকলীগের সদস্য সচিব সাবেক ছাত্রনেতা এসএম ফরিদ রানা,জেলা ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক ইমরান হোসেন ইমু, তাপস জোয়ার্দার, সাবেক ছাত্রনেতা আজিজুর রহমান, সাংবাদিক মোঃ মনিরুজ্জামান, উপজেলা যুবলীগের সভাপতি অনুপ বিশ্বাস, ইউপি সদস্যা বিউটি বিশ্বাস, অলিউর রহমান মনি, আমির মোমেনীন রানা, অনুপম মল্লিক, মফিজুর রহমান মুন্না, ফাহিম হাসান প্রমূখ। প্রধান অতিথি এ সময় প্রধানমন্ত্রীর উপহার হিসেবে জেলা পরিষদের অর্থায়নে প্রত্যেককে দশ হাজার টাকা করে দশজন ক্ষতিগ্রস্তদের মাঝে সর্বমোট ১লক্ষ টাকা প্রদান করেন।

ফুলতলা উপজেলা কেন্দ্রীয় জামে মসজিদে শিল্পপতি ফেরদৌস ভুঁইয়া সাধারণ সম্পাদক মনোনীত হওয়ায় অভিনন্দন

ফুলতলা (খুলনা) প্রতিনিধিঃ ফুলতলা উপজেলা কেন্দ্রীয় জামে মসজিদ পরিচালনা কমিটির সভাপতি ইউএনও এবং সাধারণ সম্পাদক ফুলতলার আইয়ান জুট মিলের ব্যবস্থাপনা পরিচালক আলহাজ্ব ফেরদৌস আহমেদ ভুঁইয়া পুনরায় মনোনীত হওয়ায় অভিনন্দন জানিয়ে বিবৃতি দিয়েছেন বিভিন্ন রাজনৈতিক, সামাজিক ও সাংবাদিক নেতৃবৃন্দ। বিবৃতিদাতারা হলেন জেলা আওয়ামীলীগ নেতা বিএমএ সালাম, ওয়ার্কার্স পার্টির জেলা সম্পাদক কম. আনছার আলী মোল্যা, উপজেলা আওয়ামীলীগের সভাপতি ও উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান আলহাজ্ব শেখ আকরাম হোসেন, সাধারণ সম্পাদক সরদার শাহাবুদ্দিন জিপ্পী, আরএমও ডাঃ মিজানুর রহমান, উপজেলা ভাইস চেয়ারম্যান কে এম জিয়া হাসান তুহিন, মৃনাল হাজরা, মোঃ কামরুজ্জামান নান্নু, ইউপি চেয়ারম্যান শেখ মনিরুল ইসলাম, শরীফ মোহাম্মদ ভুইয়া শিপলু, আলী আজম মোহন, ইসমাইল হোসেন বাবলু, ক্রীড়া সংস্থার সাধারণ সম্পাদক হুমায়ন আহমেদ ভুঁইয়া, অধ্যক্ষ সমীর কুমার ব্র², মাধ্যমিক শিক্ষক সমিতির সভাপতি অধ্যক্ষ গাজী মারুফুল কবির, প্রভাষক রেজোয়ান হোসেন রাজা, প্রেসক্লাব সভাপতি তাপস কুমার বিশ্বাস, সাধারণ সম্পাদক সেকেন্দার আলী, সিনিয়র সাংবাদিক শেখ মনিরুজ্জামান, সাংগঠনিক সম্পাদক মোঃ নেছার উদ্দিন, ইউপি সদস্য শেখ আঃ রশিদ, মাসুদ পারভেজ মুক্ত, মহাসিন বিশ্বাস, আলমগীর মোল্যা, নজরুল ইসলাম প্রমুখ।

ফুলতলায় ইসলামী ব্যাংকের সিআরএম মেশিনের উদ্বোধন

ফুলতলা (খুলনা) প্রতিনিধিঃ ইসলামী ব্যাংক বাংলাদেশ লিমিটেড ফুলতলা শাখায় সিআরএম (ক্যাশ রিসোলিং মেশিন) এর উদ্বোধন বৃহস্পতিবার বিকালে শাখা কার্যালয়ে অনুষ্ঠিত হয়। শাখা ব্যবস্থাপক মোঃ রুস্তম আলীর সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে অন্যান্যের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন ফুলতলা বাজার বণিক কল্যাণ সোসাইটির সভাপতি মোঃ ফিরোজ জমাদ্দার, প্রেসক্লাব ফুলতলা সভাপতি তাপস কুমার বিশ্বাস, উপজেলা প্রেসক্লাব সভাপতি শামসুল আলম খোকন, সহকারী অধ্যাপক মোঃ নেছার উদ্দিন। অন্যান্যের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন ম্যানেজার অপারেশনাস মোঃ বজলুর রহমান শেখ, প্রিন্সিপাল অফিসার জাহিদুর রহমান, অফিসার আলী হোসেন, ব্যবসায়ী আহসানুল হক লড্ডন, জাহাঙ্গীর হোসেন মোড়ল, তৌহিদুর রহমান মিলন প্রমুখ। প্রসঙ্গতঃ সিআরএম মেশিনের মাধ্যমে একই গ্রাহক দিনে সর্বোচ্চ ২ লাখ টাকা জমা এবং ৫০ হাজার টাকা উত্তোলন করতে পারবে। এ অঞ্চলে ব্যাংকিং সুবিধায় এটিই প্রথম।

ঝালকাঠির নলছিটির আ’লীগনেতাকে বহিস্কারের দাবি

মো:নজরুল ইসলাম, ঝালকাঠি : অনিয়ম, দুর্নীতি, অর্থ আতœসাত ও অশালীন আচরণের অভিযোগে ঝালকাঠির নলছিটি উপজেলার সুবিদপুর ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ইউপি চেয়ারম্যান আবদুল মান্নান সিকদারকে দল থেকে বহিস্কারের দাবি জানানো হয়েছে। বুধবার সন্ধায় ঝালকাঠি প্রেস ক্লাব মিলনায়তনে সংবাদ সম্মেলনে এ দাবি জানান ইউনিয়ন ও ওয়ার্ড আওয়ামী লীগের নেতৃবৃন্দ। সংবাদ সম্মেলনে লিখিত বক্তব্য পাঠ করেন ২ নম্বর ওয়ার্ড আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক দেলোয়ার হোসেন। এর আগে গত ৭ সেপ্টেম্বর একই অভিযোগে ইউনিয়ন পরিষদের সদস্যরা চেয়ারম্যানের বিরুদ্ধে অনাস্থা প্রকাশ করেন উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তার কাছে।

সংবাদ সম্মেলনে ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সভাপতি গিয়াস উদ্দিন মাষ্টার অভিযোগ করেন, সুবিদপুর ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক আবদুল মান্নান সিকদার ইউপি চেয়ারম্যান নির্বাচিত হওয়ার পর ক্ষমতার অপব্যাবহার করে নানা অনিয়নম ও দুর্নীতি করে আসছেন। দলের লোকজনকে উপেক্ষা করে বিএনপি-জামায়াতের লোকদের বিভিন্ন কাজে প্রধান্য দিচ্ছেন। ইউনিয়নের বিভিন্ন প্রকল্পের কোন কাজ না করেই লাখ লাখ টাকা আত্মসাত করেন আবদুল মান্নান। তিনি স্থানীয় আওয়ামী লীগ নেতাকর্মীদের বিরুদ্ধে অবস্থান সুযোগ পেলেই হয়রানি করে আসছেন বলেও সংবাদ সম্মেলনে অভিযোগ করা হয়। গত পাঁচ বছর ধরে তাঁর যন্ত্রণায় অতিষ্ট আওয়ামী লীগ নেতৃবৃন্দ দুর্নীতিবাজ মান্নান সিকদারকে দল থেকে বহিস্কারের দাবি জানান।

সংবাদ সম্মেলন শেষে তাদের এ দাবী নিয়ে জেলা আওয়ামীলীগের সভাপতি,সাধারন সম্পাদক ও নলছিটি উপজেলা আওয়ামী লীগের বরাবরে অভিযোগ করেন।

অভিযোগ অস্বাীকার করে ইউপি চেয়ারম্যান আবদুল মান্নান সিকদার জানান, অনৈতিক প্রস্তাবে রাজি না হওয়ায় মিথ্যা তথ্য তুলে ধরে তাঁর বিরুদ্ধে সংবাদ সম্মেলন করা হয়েছে। এর পেছনে অন্য কোন কারণ আছে বলেও জানান তিনি।

পরিত্রাণের কর্মকর্তা উজ্জ্বল দাসের দাবী অপহরণের ঘটনা মিথ্যা

এস আর সাঈদ, কেশবপুর (যশোর) : গৃহবধূ ঋতুপর্ণা দাসের অপহরণের ঘটনা মিথ্যা দাবী করে পরিত্রাণের প্রোগ্রাম অফিসার উজ্জ্বল কুমার দাস বুধবার বিকালে কেশবপুর উপজেলা প্রেসক্লাবে সংবাদ সম্মেলন করেছেন।
সংবাদ সম্মেলনে পরিত্রাণের প্রোগ্রাম অফিসার উজ্জ্বল কুমার দাস লিখিত বক্তব্য পাঠকালে বলেন, কেশবপুর উপজেলার বড়েঙ্গা দাস পাড়ার ভদ্র দাসের কন্যা ঋতুপর্ণা দাস গত ৫ই আগষ্ট কলেজের আসার পথে নিখোঁজ হয় এবং ৬ ই আগষ্ট ভদ্র দাস নিজে বাদী হয়ে তার মেয়েকে খুঁজে পাওয়ার জন্য কেশবপুর থানায় একটি সাধারণ ডায়েরী করেন যার নং – ১৮৮। যেহেতু ঋতুপর্না নিখোঁজ এই মর্মে কেশবপুর থানায় একটি সাধারণ ডায়েরী হয়েছে, ঋতুপর্ণার পিতা ভদ্র দাস আমার আত্নীয় ও এই কম্যুনিটির সন্তান হিসেবে আমার সামাজিক দায়বদ্ধতার কারনে আমি তাদের আইনের সাহায্যে নেওয়ার পরামর্শ দিয়ে সহযোগিতা করি। এক পর্যায়ে জানা যায়, লিটন সরকার ঋতুপর্ণা দাস-কে তার পরিবারের অমতে ফুসলিয়ে বিবাহ বন্ধনে আবদ্ধ করেছে এবং কৌশলে লিটন সরকার ও তার বোন ঋতুপর্ণার কাছে থেকে স্বর্ণালংকার ছিনিয়ে নিয়েছে। পুলিশ প্রশাসনের দৃষ্টির অগোচরে থেকে লিটন সুকৌশলে ঋতুপর্নাকে পাটকেল ঘাটা থানার পুটিখালী দাস পাড়ায় তার বোন লতিকা দাসের বাড়িতে আছে আবদ্ধ করে রেখেছে জানতে পেরে গত ০৯ আগস্ট সকাল ১০.০০ টার সময়ে ভদ্র দাস, তার মেয়েকে তারা ( পিতা-ভদ্র দাস, ভাই উজ্জ্বল দাস, বৌদি ) উদ্ধার করে বাড়িতে নিয়ে আসে। আমি উভয় পক্ষকে সমঝোতার জন্য অনুরোধ করি। এক পর্যায় ভদ্র দাস তার মেয়ের সন্ধান পেয়ে এ ব্যাপারে পাটকেল ঘাটা থানার এসআই সৃব্রত মহোদয় আমার কাছে জানতে চাইলে আমি ঘটনার সত্যতা জানায় এবং কেশবপুর থানা থেকে ঋতুপর্ণার পিতাকে পারস্পারিক সমঝোতার পরামর্শ প্রদান করি। লিটন সরকারের পরিবারও আমার আত্নীয় হওয়ায় তাদের সাথে একাধিকবার যোগাযোগ করে ব্যাপারটি তাদের পারিবারিকভাবে সমাধানের জন্য পরামর্শ প্রদান করি। লিটন সরকার উজ্জ্বল দাস কর্তৃক অপহরণ এ ধরনের মিথ্যা তথ্য গণমাধ্যমে সরবরাহ করে বিভ্রান্তিকর পরিস্থিতির জন্ম দিয়েছে। এখানে আমি উজ্জ্বল দাস ঘটনার দিন সেখানে উপস্থিত ছিলাম না , উপস্থিত ছিল ঋতুপর্ণা দাসের সহোদর উজ্জ্বল দাস। এখানে সুস্পষ্টভাবে প্রমাণিত এক শ্রেনীর মানুষ যারা নারীর মানবাধিকার স্বিকার করে না, নারীকে অবদমিত রাখতে চাই, নারীর মর্যাদা নিয়ে ছিনিমিনি খেলতে চাই তারা আমার বিরুদ্ধে মনগড়া, মিথ্যা, উদ্দেশ্য প্রণোদিতভাবে মিথ্যাচার করছে যা খুবই ন্যাক্কার জনক এবং গণমাধ্যমের প্রতি জনআস্থার সীমাবদ্ধতা তৈরি করে।
আমি যখন দুই পরিবারের মধ্যে তাদের বৈবাহিক সম্পর্ক নিয়ে মধ্যস্থতায় ব্যর্থ হয়েছি তখন লিটন সরকার আমার প্রতি অযথা ক্ষিপ্ত হয়ে সাতক্ষীরা জেলার বিজ্ঞ আদালতে পারিবারিক সম্পর্ক পুন উদ্ধারের জন্য আমাকে জড়িয়ে ১০০ ধারায় একটি অভিযোগও দায়ের করেছেন, পাটকেল ঘাটা থানায় একটি জিডিও করেছেন। আর এতে প্রমানিত হয় ঋতুপর্না অপহরণ হয়নি বা তাকে কেউ অপহরন করেনি, সে তার পিতৃলয়ে আছে।
গত ০৩ সেপ্টেম্বর হতে ঋতুপর্না দাসকে কেন্দ্র করে মিথ্যা অপহরনের বিষয়টি নিয়ে আমার নাম, আমার ফেসবুকের ছবি,আমার প্রতিষ্ঠানের লগো ব্যবহার করে বিভিন্ন পত্র পত্রিকায় এবং সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে যে মিথ্যাচার করছে সেটা উদ্দ্শ্যে প্রণোদিত, অনভিপ্রেত, প্রকৃত ঘটনা আড়াল করার ব্যক্তিস্বার্থ চরিতার্থ করবার হীন উদ্দ্শ্যের একটি অপকৌশল মাত্র।
সংবাদ সম্মেলনে তিনি তার নাম, তার ফেসবুকের ছবি এবং সংগঠনের লগো ব্যাবহার করে ঋতুপর্ণা দাসের অপহরনের অভিযোগ মিথ্যা ও বানোয়াট দাবী করেন। তিনি এই ন্যাক্কারজনক ঘটনার তীব্র নিন্দা জ্ঞাপন করেন। তাকে জড়িয়ে সে সংবাদ পরিবেশিত হচ্ছে তার তীব্র প্রতিবাদ জানান এবং যে মিথ্যা ডায়েরী করা হয়েছে সেটা প্রত্যাহারের দাবি জানান এবং সেই সঙ্গে সঙ্গে মদদদাতা সকল স্বার্থান্বেষীদের-কে আইনের আওতায় এনে বিচার দাবি করেন। তিনি সঠিক এবং নায়বিচার পেতে সরকারের আইনপ্রয়োগকারী বিভিন্ন সংস্থার প্রতি অনুরোধ জানান।

গাছ লাগানোর পাশাপাশি পরিচর্যা করতে হবে : খুলনা সিটি মেয়র

খুলনা অফিস : খুলনা সিটি কর্পোরেশনের মেয়র তালুকদার আব্দুল খালেক বলেন, গাছ লাগানোর পাশাপাশি গাছের পরিচর্যা করতে হবে। পরিবেশের ভারসাম্য রক্ষায় বৃক্ষরোপণের কোন বিকল্প নেই।

খুলনা সিটি মেয়র আজ (বৃহস্পতিবার) দুপুরের সার্কিট হাউজে খুলনা মহানগর এবং উপজেলার সকল প্রাথমিক বিদ্যালয়ে একসাথে জুম অ্যাপের মাধ্যমে বৃক্ষরোপণ কর্মসূচির উদ্বোধন অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তৃতায় এসব কথা বলেন।

খুলনা জেলা প্রশাসনের উদ্যোগে ‘মুজিববর্ষ’ উপলক্ষে ‘গ্রিন বেল্ট ফেইজ-২’ প্রকল্পের আওতায় খুলনা জেলায় এক লাখ ২০ হাজার বৃক্ষরোপণের অংশ হিসেবে এ কর্মসূচির উদ্বোধন করা হয়।

সিটি মেয়র বলেন, ১৯৭৪ সালে জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান ‘সবুজ বিপ্লব’ এর ডাক দিয়েছিলেন। খুলনায় ১৯৭৪ সালে লাগানো অনেক গাছ এখনো বিদ্যমান আছে এবং শহরের সৌন্দর্য বৃদ্ধি করছে। একটি দেশের পরিবেশের ভারসাম্য রক্ষায় ২৫ শতাংশ বৃক্ষ থাকা জরুরি। তিনি আরও বলেন, আমরা যদি প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার বৃক্ষরোপণ কর্মসূচিতে সাড়া দিয়ে যার যার অবস্থান থেকে গাছ লাগাই এবং গাছের যত্ন নিই, তাহলে অল্প সময়ের মধ্যেই দেশে ২৫ শতাংশ বৃক্ষের লক্ষ্যমাত্রা অর্জন করা সহজ হবে।

খুলনার জেলা প্রশাসক মোহাম্মদ হেলাল হোসেনের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি ছিলেন খুলনা পরিবেশ অধিদপ্তরের পরিচালক সাইফুর রহমান খান, মহানগর আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক এমডিএ বাবুল রানা, জেলা প্রাথমিক শিক্ষা অফিসার এএসএম সিরাজুদ্দোহা, মহানগর মুক্তিযোদ্ধা কমান্ডার অধ্যাপক আলমগীর কবির, খুলনা প্রেসক্লাবের সভাপতি এসএম নজরুল ইসলাম এবং খুলনা সাংবাদিক ইউনিয়নের সভাপতি মুন্সি মাহবুব আলাম সোহাগ। অন্যান্যের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (সার্বিক) গোলাম মাঈনউদ্দিন হাসান, রূপান্তরের নির্বাহী পরিচালক স্বপন গুহ, খুলনা প্রেসক্লাবের সাধারণ সম্পাদক মামুন রেজা প্রমুখ। এছাড়া জুম অ্যাপের মাধ্যমে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা এবং প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষকরা অনুষ্ঠানে যুক্ত ছিলেন।

পরে সিটি মেয়র তালুকদার আব্দুল খালেক খুলনা সার্কিট হাউজ প্রাঙ্গণে অতিথিদের নিয়ে গাছের চারা রোপণ করেন।

সাতবাড়িয়ায় আ’লীগেনতা জি এম হোসেনের মত বিনিময়

রাজীব চৌধুরী, কেশবপুরঃ যশোর জেলার কেশবপুর উপজেলার ১০ নং সাতবাড়িয়া ইউনিয়ন আওয়ামীলীগের আহবায়ক জি.এম.হোসেন সাতবাড়িয়া ইউনিয়নের দুইটি ওয়ার্ডে দলীয় নেতা কর্মী ও সাধারণ জনগণের সাথে গত বুধবার সন্ধ্যায় মতবিনিময় করেন।তিনি ১০ নং সাতবাড়িয়া ইউনিয়নের বেগমপুর(০১নং ওয়ার্ড), কড়িয়াখালি(০৪ নং ওয়ার্ড) তে আওয়ামীলীগের দলীয় নেতা,কর্মী ও সাধারণ জনগণের সাথে মত বিনিময় করেন।মত বিনিময়ের সময় উপস্হিত ছিলেন ইউনিয়ন আওয়ামীলীগের যুগ্ম আহবায়ক মোঃ খলিলুর রহমান,আওয়ামীলীগ নেতা মোঃ আলাউদ্দীন মোড়ল,আব্দুস সবুর,আব্দুর রহমান,আব্দুল লতিফ,ইউনিয়ন যুবলীগের যুগ্ম আহবায়ক হারুন অর রশিদ লিটন সহ প্রমুখ।

কেশবপুরে সাবেক শিক্ষামন্ত্রীর মৃত্যুবার্ষিকী পালিত

এস আর সাঈদ, কেশবপুর (যশোর) : যশোরের কেশবপুর উপজেলা আওয়ামী লীগের উদ্যোগে সাবেক সফল শিক্ষামন্ত্রী ও আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় উপদেষ্টা মন্ডলীর সদস্য মরহুম এ.এস.এইচ.কে সাদেক-এর ১৩ তম মৃত্যুবার্ষিকী বুধবার দুপুরে দলীয় কার্যালয়ে কোরআরখানি, দোয়া মাহফিল ও স্মরণসভা অনুষ্ঠিত হয়েছে। উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি বিশিষ্ট শিক্ষাবিদ এস এম রুহুল আমিনের সভাপতিত্বে ও সাধারণ সম্পাদক গাজী গোলাম মোস্তফার পরিচালনায় অনুষ্ঠিত স্মরণসভায় বক্তব্য রাখেন যশোর জেলা পরিষদের সদস্য আলহাজ্ব হাসান সাদেক, উপজেলা আওয়ামী লীগের সহ-সভাপতি তপন কুমার ঘোষ মন্টু, দপ্তর সম্পাদক মফিজুর রহমান মফিজ প্রমুখ। দোয়া পরিচালনা করেন হাফেজ খলিলুর রহমান।

কেশবপুরে মাছের পোনা অবমুক্তকরণ

এস আর সাঈদ, কেশবপুর (যশোর) : যশোরের কেশবপুর উপজেলা মৎস্য দপ্তরের আয়োজনে ২০২০-২১ অর্থ বছরে রাজস্ব খাতের অর্থায়নে অভ্যান্তরীন জলাভূমি এবং প্লাবিত ধানক্ষেত, সরকারী প্রতিষ্ঠানিক ও প্লাবিত জলাশয়ে ৪ শত কেজি মাছের পোনা অবমুক্তকরণ অনুষ্ঠিত হয়েছে। উপজেলা সিনিয়র উপজেলা মৎস্য অফিসার সজীব সাহার পরিচালনায় বুধবার সকালে উপজেলা পরিষদ পুকুরে মাছের পোনা অবমুক্ত করেন উপজেলা নির্বাহী অফিসার নুসরাত জাহান। এসময় অন্যান্যের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন উপজেলা সহকারী কমিশনার (ভূমি) ইরুফা সুলতানা, উপজেলা ভাইস চেয়ারম্যান নাসিমা সাদেক ও পলাশ মল্লিক, উপজেলা কৃষি অফিসার কৃষিবিদ মহাদেব চন্দ্র সানা, উপজেলা সহকারী মৎস্য অফিসার এম আলমগীর হোসেন, উপজেলা প্রেসক্লাবের সভাপতি এস আর সাঈদ, থানার এস আই আব্দুল আজিজ প্রমুখ।