হেফাজতের আমির আল্লামা শফি আর নেই

রিটন দে লিটন, চট্টগ্রাম:হেফাজতে ইসলামের আমির আল্লামা শাহ আহমদ শফি আর নেই (ইন্না লিল্লাহি ওয়া ইন্না ইলাইহি রাজিউন)। মৃত্যুকালে তার বয়স হয়েছিল ১০৪ বছর। আজ শুক্রবার (১৮ সেপ্টেম্বর) সন্ধ্যায় তিনি পুরান ঢাকার গেন্ডারিয়ায় আজগর আলী হাসপাতালে শেষ নিঃশ্বাস ত্যাগ করেন। তার মৃত্যুতে রাষ্ট্রপতি ও প্রধানমন্ত্রী শোক প্রকাশ করেছেন।

এর আগে বিকেলে আল্লামা শফিকে এয়ার এম্বুলেন্সে করে ঢাকায় আনা হয়। আজ দুপুরে তার শারীরিক অবস্থা অবনতি হলে এয়ার এম্বুলেন্সে করে তাকে ঢাকায় নেয়ার পরামর্শ দেন চিকিৎসকরা।

জানা যায়, হাটহাজারী মাদ্রাসার শিক্ষার্থীদের আন্দোলনের মধ্যে গতকাল বৃহস্পতিবার (১৮ সেপ্টেম্বর) দুপুরে অসুস্থ হয়ে পড়েন আল্লামা শফি। রাতে তাকে নগরীর চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজ (চমেক) হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া হয়। সকালে হাসপাতালের বিশেষজ্ঞ চিকিৎসকরা মেডিকেল বোর্ডে বসেন। দেশের শীর্ষস্থানীয় এ আলেমের অবস্থা সংকটাপন্ন হওয়ায় তাকে ঢাকায় নিয়ে যাওয়ার পরামর্শ দেন চিকিৎসকরা। পরে আজ বিকেলে তাকে ঢাকার আজগর আলী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়।

প্রসঙ্গত, দেশের শীর্ষ কওমী আলেম আল্লামা আহমদ শফির শরীরের বাসা বেঁধেছে নানা রোগ। ১০৫ বছর বয়সী এ প্রবীণ আলেম ডায়াবেটিস, উচ্চ রক্তচাপসহ বার্ধক্যজনিত রোগে ভুগছিলেন। ফলে প্রায় তাকে হাসপাতালে ভর্তি হতে হয়। গত কয়েক মাসে শরীরে নানা জটিলতা দেখা দিলে একাধিক বার চট্টগ্রাম ও ঢাকার হাসপাতালে কয়েকদিন চিকিৎসা নিতে হয় বড় হুজুরখ্যাত আল্লামা শফিকে।

এক নজরে আল্লামা শফীর জীবনী
বাংলাদেশের ইসলামি শীর্ষ ব্যক্তিত্বদের একজন ছিলেন শাহ আহমদ শফী। যিনি আল্লামা শাহ আহমদ শফী বা আল্লামা শফী নামেও পরিচিত।হেফাজতে ইসলাম বাংলাদেশের প্রতিষ্ঠাতা ও আমির ছিলেন তিনি। একইসঙ্গে ছিলেন বেফাকুল মাদারিসিল আরাবিয়া বাংলাদেশের চেয়ারম্যান। এছাড়া তিনি আল জামেয়াতুল আহলিয়া দারুল উলুম মইনুল ইসলাম মাদ্রাসার (হাটহাজারী মাদ্রাসা নামে পরিচিত) মহাপরিচালক ছিলেন।

আল্লামা শফীর জন্ম চট্টগ্রামের রাঙ্গুনিয়ার পাখিয়ারটিলা গ্রামে। রাঙ্গুনিয়ার সরফভাটা মাদ্রাসায় পটিয়ার আল জামিয়াতুল আরাবিয়া মাদ্রাসা এবং হাটহাজারীর দারুল উলুম মঈনুল ইসলাম মাদ্রাসার পর ভারতের দারুল উলুম দেওবন্দ মাদ্রাসাতেও চার বছর লেখাপড়া করেন। ১৯৮৬ সালে হাটহাজারী মাদ্রাসার মহাপরিচালক পদে যোগ দেন তিনি। এরপর থেকে টানা ৩৪ বছর ধরে তিনি ওই পদে ছিলেন।
বৃহস্পতিবার (১৭ সেপ্টেম্বর) দুপুরে অসুস্থ হয়ে পড়েন আল্লামা শফী। রাতে অ্যাম্বুলেন্সে করে তাকে চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া হয়। সকালে হাসপাতালের বিশেষজ্ঞ চিকিৎসকরা মেডিকেল বোর্ডে বসেন। শারীরিক অবস্থা সংকটাপন্ন হওয়ায় বিকেলে এয়ার অ্যাম্বুলেন্সে তাঁকে ঢাকায় নিয়ে যাওয়া হয়। ঢাকাতেই সন্ধ্যায় তিনি শেষ নিঃশ্বাস ত্যাগ করেন।

আল্লামা শফী ২০০৯ সালে আজিজুল হক ও অন্যান্য সিনিয়র ইসলামী ব্যক্তিদের সঙ্গে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার প্রতি একটি যৌথ বিবৃতি দেন। যেখানে, ইসলামের নামে সন্ত্রাস ও জঙ্গি কার্যক্রমের নিন্দা জ্ঞাপন করা হয়।

২০১০ সালে তিনি হেফাজতে ইসলাম প্রতিষ্ঠা করেন।

বাংলায় ১৩টি ও উর্দুতে নয়টি বইয়ের রচয়িতা তিনি। আলেমদের বড় একটি পক্ষের কাছে খুব শ্রদ্ধার পাত্র। তবে নারীবিরোধী নানা বক্তব্যের জন্য বিভিন্ন সময় হয়েছেন সমালোচিত। যুদ্ধাপরাধীদের বিচারের দাবিতে ২০১৩ সালে গণজাগরণ আন্দোলন শুরুর পর হেফাজতে ইসলামের নেতৃত্বে তিনি বেশি আলোচনায় আসেন।
২০১৭ সালে তার সঙ্গে বৈঠকের পর কওমির সনদের স্বীকৃতি এবং সুপ্রিম কোর্ট থেকে ভাস্কর্য অপসারণের ঘোষণা দেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।

হাটহাজারী মাদ্রাসার মহাপরিচালক হিসেবে কওমি মাদ্রাসাগুলোর নেতৃত্ব দিয়ে আসছিলেন আহমদ শফী, যাদের কাছে তিনি ‘বড় হুজুর’ নামে পরিচিত। তিনি কওমি মাদ্রাসা বোর্ড বেফাকুল মাদারিসিল আরাবিয়া বাংলাদেশেরও (বেফাক) সভাপতি ছিলেন।

রূপসায় ধান ক্ষেতে হাস্যোজ্জ্বল এক কৃষকের গল্প

মোঃ আবদুর রহমান : জমির পরিমাণ মাত্র ৪ বিঘা। এ জমিতে বোরো ও আমন মৌসুমে আধুনিক পদ্ধতিতে ধান চাষ করে জীবিকা চলে ইসলাম সরদারের। রূপসা উপজেলার আলাইপুর গ্রামের তুরফান সরদারের ছেলে ইসলাম সরদারের বয়স প্রায় ৬৮ এর কাছাকাছি। দুই ছেলে ও স্ত্রী নিয়ে ইসলাম সরদারের সুখের জীবন।
আমন ও বোরো মৌসুমে বেশি ফলনের জন্য তিনি দেশি জাতের পরিবর্তে উচ্চ ফলনশীল ও হাইব্রিড জাতের ধান চাষ করেন । সুস্থ ও সবল চারা উৎপাদনের জন্য ইসলাম সরদার আদর্শ বেড পদ্ধতিতে বীজতলা তৈরি করেন । এ পদ্ধতিতে বীজতলার চারার যত্ন-পরিচর্যা, পোকামাকড় ও রোগবালাই দমন এবং পানি সেচ ও নিষ্কাশনে সুবিধা হয় বলে তিনি জানান। উর্বরতা বজায় রাখার জন্য তিনি জমিতে পর্যাপ্ত জৈব সারও ব্যবহার করেন । তিনি বোরো মৌসুমে হিরা-২ ও ব্রিধান-৬৭ এবং আমন মৌসুমে ব্রিধান-৭১, ব্রিধান-৭৫ ও ব্রিধান- ৮৭ জাতের ধান চাষ করেন ।
ব্রিধান -৮৭ অধিক ফলনশীল জাতের একটি রোপা আমন ধান । এ জাতের ধানের চাল লম্বা ও চিকন হওয়ায় বিদেশে রপ্তানিযোগ্য। রূপসা উপজেলা কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তরের উদ্যোগে রাজস্ব খাতের অর্থায়নে এবছর ইসলাম সরদারের ৩৩ শতক জমিতে ব্রিধান-৮৭ জাতের রোপা আমন ধানের একটি প্রদর্শনী স্থাপন করা হয়। এজন্য বিনামূল্যে প্রয়োজনীয় বীজ ও সারসহ আন্তঃপরিচর্যার জন্য নগদ পনের শ’ টাকা সহায়তা দেয়া হয়েছে । স্থানীয় উপ-সহকরী কৃষি কর্মকর্তা মোঃ আবদুর রহমান এর পরামর্শে তিনি সুষম মাত্রায় সার ব্যবহারের পর সারি ও লোগো পদ্ধতিতে প্রদর্শনীর জমিতে ২৫ দিন বয়সের ধানের চারা রোপণ করেন। এরপর ভালো ফলনের আশায় নিবিড় পরিচর্যা যথা- সময়মতো আগাছা দমন , ইউরিয়া সার উপরি প্রয়োগ, পানি সেচ এবং পোকামাকড় ও রোগবালাই দমনের ব্যবস্থা করে চলেছেন। ইতোমধ্যে ব্রিধান-৮৭ জাতের ধানের চারাগুলো কুশি থেকে কাইচ থোড় ও থোড়ে রূপান্তরিত হয়েছে। আমন ধানের সবুজ রঙে ভরে গেছে পুরো ক্ষেত । এজাতের ধানের বাড়-বাড়তি দেখে ইসলাম সরদারের মনে নতুন আশার সঞ্চার করেছে । এধান থেকে ভালো ফলন পাবেন বলে তিনি মনে করেন। তাই পরিচর্যা শেষে ধান ক্ষেতে তাকে হাস্যোজ্জ্বল দেখা যায়।
আদর্শ কৃষক ইসলাম সরদার কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তরের যে কোন উন্নত প্রযুক্তি গ্রহণ ও ব্যবহারে যেমন আগ্রহী , তেমনি এলাকার কোন কৃষি বিষয়ক সমস্যায় অন্য কৃষকদেরও পরামর্শ দিয়ে সেবা করে থাকেন । এতে সমাজে তার মর্যাদা বেড়েছে, পরিচিতি পেয়েছেন একজন আদর্শ কৃষক হিসেবে । তার দেখাদেখি এলাকার অনেক কৃষক আধুনিক পদ্ধতিতে ধান চাষে আগ্রহী হয়ে উঠেছেন এবং তাদের মাঝে এক নতুন আশার সঞ্চার করেছে । সর্বোপরি, ইসলাম সরদার নিঃসন্দেহে আগামী দিনের ধান চাষিদের জন্য একটি অনুপ্রেরণাদায়ক ব্যক্তি হিসেবে থাকবেন বলে আমরা মনে করি।

লেখক উপ-সহকারী কৃষি কর্মকর্তা উপজেলা কৃষি অফিস , রূপসা, খুলনা।

ডুমুরিয়ায় শিক্ষকের নিকট চাঁদাবজি মামলার নিষ্পত্তি

ডুমুরিয়া প্রতিনিধি : ডুমুরিয়ায় শিক্ষকের নিকট থেকে চাঁদাবাজির মামলাটি অবশেষে আপোষনামা’র মাধ্যমে নিষ্পত্তি হয়েছে। ৯/৯/২০ তারিখে উভয় পক্ষের সম্মতিতে খুলনা বিজ্ঞ সিনিয়র জুডিশিয়াল ম্যাজিষ্ট্রেট ৩নং আমলী আদালতে আপোষ মিমাংশা হয়।
আপোষনামা সুত্রে জানা গেছে, গত ০২/০৯/২০ তারিখে ডুমুরিয়া থানায় একটি চাঁদাবজি মামলা দায়ের হয় যার নং-০২। মামলার বাদি ছিলেন উপজেলা সদরের হাজিডাঙ্গা গ্রামের শিক্ষক শেখর চন্দ্র মন্ডল। আর বিবাদী ছিলেন এনামুল, পালশ, লিটন গাজী, আসাদ জোয়ার্দার, সোহানসহ অজ্ঞাতনামা ৩/৪জন। পরবর্তীতে ইউপি চেয়ারম্যান গাজী হুমায়ুন কবির বুলুসহ গন্যমন্য ব্যক্তিবর্গের মধ্যস্থতায় গত ০৯/০৯/২০ তারিখে বিজ্ঞ সিনিয়র জুডিশিয়াল ম্যাজিষ্ট্রেট ৩নং আমলী আদালত খুলনা’তে মামলাটি আপোষনামা’র মাধ্যমে মামলাটি নিষ্পত্তি হয়।

ডুমুরিয়ায় বালি ব্যবসায়ীকে জরিমানা

ডুমুরিয়া প্রতিনিধি : ডুমুরিয়ায় অবৈধ ভাবে বালি উত্তোলনের অপরাধে শুক্রবার দুপুরে এক ঠিকাদারকে ভ্রাম্যমান আদালতের মাধ্যমে সাজা প্রদান করা হয়েছে।
আদালত সুত্রে জানা গেছে, উপজেলার সাহস ইউনিয়নের মন্দির সংলগ্ন সরকারি বন্ধ খাল থেকে ঠিকাদার ইমরান হোসেন সরদার অবৈধ ভাবে শ্যালো চালিত মেশিনের সাহায্যে বালি উত্তোলন করছিল। ডুমুরিয়া উপজেলা সহকারি কমিশনার (ভুমি) ও নির্বাহী ম্যাজিষ্ট্রেট ডা. সঞ্জীব দাশ ঘটনাস্থলে গিয়ে এক ভ্রাম্যমান আদালত পারিচালনা করেন। তিনি দীর্ঘ শুনানি শেষে বালু ও মাটি ব্যবস্থাপনা আইনের ২০১০ সালের (১৫) ধারামতে ৫০ হাজার টাকা জরিমানা অন্যথায় এক মাসের কারাদন্ডাদেশ প্রদান করেন। অভিযুক্ত ইমরান সরদার আদালতে ৫০ হাজার টাকা জরিমানা দিয়ে মুক্তি পায়।

চট্টগ্রাম নগরীতে “শিক্ষা দিবসে” শিক্ষা সামগ্রী বিতরণ

রিটন দে লিটন: সংগ্রাম ও ঐতিহ্যের মহান জাতীয় শিক্ষা দিবস উপলক্ষে বিভিন্ন স্কুল ও কলেজ ছাত্রছাত্রীদের মাঝে শিক্ষা সামগ্রী বিতরণ ও আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত হয়।

বৃহস্পতিবার ১৭ সেপ্টেম্বর বিকেল ঘটিকার সময় হালিশহর পুলিশ লাইনের সামনে অনুষ্ঠিত সভায়
সভাপতিত্ব করেন চট্রগ্রামের বেসরকারি কেন্দ্রীয় কারা পরিদর্শক সাবেক ছাত্রনেতা আজিজুর রহমান আজিজ ও চট্টগ্রাম মহানগর ছাত্রলীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক রনি মির্জার সঞ্চলনায় উক্ত আলোচনা সভায় প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিতি ছিলেন আইন বিষয়ক সম্পাদক চট্টগ্রাম মহানগর আওয়ামীলীগ ইফতেখার সাইমুল চৌধুরী ।

বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিতি ছিলেন চট্টগ্রাম মহানগর আওয়ামীলীগের বন ও পরিবেশ বিষয়ক সম্পাদক মশিউর রহমান চৌধুরী,মোঃ আব্দুল আহাদ শ্রম বিষয়ক সম্পাদক চট্টগ্রাম মহানগর আওয়ামীলীগ।
লায়ন মোঃ হোসেন ত্রাণ ও দূর্যোগ বিষয়ক সম্পাদক, চট্টগ্রাম মহানগর আওয়ামীলীগ। প্রধান বক্তা ছিলেন বাংলাদেশ আওয়ামী যুবলীগ কেন্দ্রীয় কার্যনির্বাহী সংসদ এর সাবেক গ্রন্থনা ও প্রকাশনা সম্পাদক শহীদুল হক রাসেল, আব্দুল্লাহ আল ইব্রাহিম, সাধারণ সম্পাদক ২৭ নং দক্ষিণ আগ্রাবাদ ওয়ার্ড আওয়ামীলীগ।
জাফরুল্লাহ হায়দার চৌধুরী সবুজ, যুগ্ন সাধারণ সম্পাদক ও বাংলাদেশ আওয়ামীলীগ মনোনীত কাউন্সিলর পদ প্রার্থী ২৭ নং দক্ষিণ আগ্রাবাদ ওয়ার্ড।

আবুল হাসনাত বেলাল, বাংলাদেশ আওয়ামীলীগ মনোনীত কাউন্সিলর পদ প্রার্থী ১৪ নং লালখান বাজার ওয়ার্ড,তরুন সমাজ সেবক মোঃ হাসান, ২৭ নং ওয়ার্ড আওয়ামী লীগ নেতা আব্দুল মজিদ চান্দু, মোঃ বাবুল, যুবলীগ নেতা নোমান, নাজমুল হোসেন, ডবলমুরিং থানা ছাত্রলীগের সভাপতি ফরহাদ সায়েম, মহানগর ছাত্রলীগের সম্পাদক মোঃ ওমর ফারুক, মহানগর ছাত্রলীগের উপ সম্পাদক  বোরহান উদ্দিন ফরহাদ, এস কে বাবলু, সদস্য ফয়সাল অভি, আবুল কালাম আজাদ, এহতেশামুল জিসান, শিমুল, শহিন আলম, সিরাজ, কমল, মোঃ রাশেদ, ইসলামিয়া বিশ্ববিদ্যালয় থেকে ছাত্রলীগের সম্পাদক মন্ডলীর সদস্য আবু কাইসার তুষার, আল-আমিন হোসেন, মিলু, মোঃ ইমন, শুভ বড়ুয়া, খোরশেদ আলম জুয়েল, ইমরান হোসেন শশী, আবু তাহের রাজিব, ঐশিক সরকার, রিফাত, মেহেদী হাসান রিদয়, অপি, আশিক, রাহুল, ফয়সাল, দাউদ, আরবি, আসিফ প্রমুক। উক্ত অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি ইফতেকার সাইমুল বলেন স্ব স্ব কলেজ ছাত্র নেতারা স্ব স্ব কলেজ এর দাবি নিয়ে আন্দোলন করতে হবে। বিশেষ অতিথি মশিউর রহমান বলেন ছাত্রলীগের সকল নেতৃবৃন্দ কে ছাত্রদের অধিকার নিয়ে রাজপথে কথা বলতে হবে।
আজিজুর রহমান আজিজ বলেন আমি ছাত্র রাজনীতির করেছি আমি তাই সবসময় ছাত্রদের অধিকার নিয়ে কথা বলি ছাত্রদের পাশে সবসময় থাকতে চাই।