ছাত্রলীগের নতুন কমিটির পদ পেতে নেতাকর্মীর দৌড়ঁঝাপ

মো:নজরুল ইসলাম, ঝালকাঠি : ঝালকাঠি জেলা ছাত্রলীগের কমিটি মেয়াদ উত্তীর্ণ হওয়ায় নতুন কমিটি নিয়ে জল্পনা-কল্পনা শুরু হয়েছে। পদ পেতে নেতাকর্মীরাও শুরু করেছেন দৌঁড়ঝাপ। বেশ ক’দিন ধরে ফেসবুক সহ সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে শীর্ষ পদ প্রত্যাশীদের ছবিসহ প্রচার প্রচারণাও দেখা যাচ্ছে পুরোদমে। সংগঠনটির সাধারণ নেতাকর্মীরাও আলোচনার শীর্ষে রেখেছেন বিষয়টিকে।

গঠনতন্ত্র অনুযায়ি ছাত্রলীগ কমিটির মেয়াদ ২ বছর। সর্বশেষে ঝালকাঠি ছাত্রলীগের কাউন্সিল হয় ২০১৫ সালের ২০ জুলাই। কমিটির মেয়াদ শেষ হয়েছে অনেক আগেই। গত কমিটিতে সদস্য পদের জন্য বয়স নির্ধারিত ছিল সর্বোচ্চ ২৯ বছর। তবে এবার তা বাড়িয়ে ৩০ করার দাবী উঠেছে।

এদিকে জেলা ছাত্রলীগের সভাপতি ও সম্পাদকের শীর্ষ দুই পদ পেতে ইতোমধ্যেই দেড় ডজন নেতাকর্মীরা মাঠে নেমেছেন । নিজেদের পছন্দের পদ পেতে শুরু করেছে নানা লভিং করে নিজের পছন্দের পদ ভাগতে পছন্দের নেতাদের সাথে নানা তদ্বীর শুরু হয়েছে বলেও জানা গেছে ।

নানা আলোচনা এবং আগামী মাসের প্রথম দিকে নুতন কমিটি হতে পারে এমন তথ্য নিশ্চিত করেছে দলীয় একটি সুত্র। এ জন্য বিভিন্ন গোয়েন্দা সংস্থার মাধ্যমে সম্ভাব্য প্রার্থীদের সম্পর্কে খোঁজ নেওয়া হয়েছে বলেও জানা গেছে।

এদেরমধ্যে পদ পেতে ইচ্ছুক জেলা ছাত্রলীগ নেতাদের মুল বক্তব্য আমাদের সবার অভিভাবক আলহাজ্ব আমির হোসেন আমু এমপি মহোদয় বিষয়টি বিবেচনা করবেন বলেই আমাদের বিশ্বাস। যারা যোগ্য তাদেরকে স্থান পাবে এমনটাই আমা করেন তারা।

এ ব্যাপারে জেলা ছাত্রলীগের সভাপতি শফিকুল ইসলাম শফিক ও জেলা ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক এসএম আল আমিন বলেন, নতুন কমিটির হাতে দায়িত্ব ছেড়ে দিতে পারলে আমারও ভাল B। সেক্ষেত্রে আমাদের সবার অভিভাবক আলহাজ্ব আমির হোসেন আমু এমপি মহোদয় এবং কেন্দ্রিয় ছাত্রলীগের নির্দেশনায় পরবর্তী ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।

মোংলা পোর্ট পৌরসভার নির্বাচনের দাবীতে মানববন্ধন

মোংলা (বাগেরহাট) প্রতিনিধি : মেয়াদ উত্তীর্ণ মোংলা পোর্ট পৌরসভার দ্রুততম সময়ে অবাধ, সুষ্ঠু, নিরপেক্ষ ও গ্রহণযোগ্য নির্বাচনের দাবীতে মোংলায় মানববন্ধন কর্মসূচী পালিত হয়েছে। রবিবার বেলা ১১টার দিকে পৌর শহরের চৌধুরীর মোড়ে এ মানববন্ধনের আয়োজন করে ‘সর্বদলীয় সম্প্রীতি উদ্যোগ’ নামক কমিটি। মানববন্ধন চলাকালে পথসভায় সভাপতিত্ব করেন ‘সর্বদলীয় সম্প্রীতি উদ্যোগ’র মোংলা সমন্বয়কারী সাবেক উপজেলা ভাইস চেয়ারম্যান ও সাংবাদিক মোঃ নূর আলম শেখ। এ সময় অন্যান্যের মধ্যে বক্তব্য রাখেন উপজেলা আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক উৎপল মন্ডল, সুজন’র ভারপ্রাপ্ত সভাপতি অধ্যাপক শেখ নজরুল ইসলাম, উপজেলা যুবলীগের সিনিয়র সহ-সভাপতি রফিকুল ইসলাম সোহাগ, পৌর বিএনপি নেতা আব্দুস সালাম ব্যাপারী, বিএনপি নেতা আব্দুর রশিদ, শ্রমিকলীগ নেতা নুরউদ্দিন আল মাসুদ ও সিপিবি নেতা মোঃ নাজমুল হক।
মানববন্ধন কর্মসূচীতে বক্তারা বলেন, দশ বছর অতিক্রান্ত হতে যাচ্ছে কিন্তু তারপরও মোংলা পোর্ট পৌরসভার নির্বাচন হচ্ছেনা। মোংলা পোর্ট পৌরসভার সর্বশেষ নির্বাচন অনুষ্ঠিত হয়েছে ২০১১ সালের ১৩ জানুয়ারী। বর্তমান পরিষদের মেয়াদকাল উত্তীর্ণ হওয়ার পরেও সীমানা সংক্রান্ত আইনি জটিলতায় আটকে যায় নির্বাচন। আর তাই আমরা মোংলা পোর্ট-পৌরসভার দ্রুততম সময়ে একটি অবাধ, সুষ্ঠু, নিরপেক্ষ ও গ্রহণযোগ্য নির্বাচনের দাবি করছি।
‘সর্বদলীয় সম্প্রীতি উদ্যোগ’র সমন্বয়কারী নুর আলম শেখ বলেন, আওয়ামী লীগ, বিএনপি, কমিউনিস্ট পার্টিসহ বিভিন্ন সাংস্কৃতিক ও সামাজিক সংগঠনের নেতৃত্ব স্থানীয় ২০জন ব্যক্তিবর্গের সমন্বয়ে ‘সর্বদলীয় সম্প্রীতি উদ্যোগ’ গঠিত হয়েছে। যার উদ্দেশ্য হচ্ছে এলাকার শান্তি-শৃঙ্খলা-সৌহার্দ্য-সম্প্রীতি বৃদ্ধিতে গণতন্ত্র ও মৌলিক মানবাধিকার রক্ষায় কাজ করা। আর তাই আমরা মোংলা পোর্ট পৌরসভার নাগরিকদের গণতান্ত্রিক অধিকার সুরক্ষায় দ্রুততম সময়ের মধ্যে একটি অবাধ, সুষ্ঠু, নিরপেক্ষ ও গ্রহণযোগ্য পৌর নির্বাচনের দাবি জানাচ্ছি। আমরা সকল দলের মানুষ নিয়েই পৌর নির্বাচনের দাবীতে মানববন্ধন কর্মসূচীর মত আন্দোলনে নেমেছি। মানববন্ধন শেষে সর্বদলীয় সম্প্রীতির উদ্যোগ’র পক্ষ থেকে উপজেলা নির্বাহী অফিসার কমলেশ মজুমদারের মাধ্যমে স্থানীয় সরকার মন্ত্রণালয় ও নির্বাচন কমিশন বরাবর স্মারকলিপি প্রদাণ করা হয়।