পাইকগাছায় নিজের লাগানো গাছ কাঁটতে যেয়ে বিপাকে মদন সাধু

মোঃ আসাদুল ইসলাম, পাইকগাছা : পাইকগাছায় নিজের লাগানো গাছ কাঁটতে যেয়ে বিপাকে গাছ মালিক মদন মোহন সাধু্! প্রতিবেশির শত্রুতাকে কেন্দ্র করে ঘোলা পানিতে মাছ শিকার করতে সাংবাদিকদের ভূল তথ্যদিয়ে মামা-ভ্যাগনা কে জড়িয়ে হেয় পতিপন্ন করার অভিযোগ পাওয়া গেছে।

জানাগেছে, উপজেলার মেলেক পুরাইকাঁটী এলাকার মৃত হরিপদ সাধুর পূত্র মদন মোহন সাধু পৈত্রিক সম্পত্তি বোয়ালিয়া-গদাইপুর সড়কের পাশে প্রায় ২৫ বছর আগে ১৭টি মেহগনি গাছ লাগায়। দিন দিন রাস্তা প্রসস্ত ও গাছ গুলো বড় এবং পানি সরানোর ড্রেন থাকায় গাছগুলো আজ রাস্তার পার্শে পড়ে।
গত ২৬ জুন২০১৯ তারিখ জমি ও গাছের মালিক মদন মোহন সাধু তার লাগানো গাছ কাঁটার অনুমতি চেয়ে নির্বাহী কর্মকর্তার নিকট আবেদন করলে তিনি বন কর্মকর্তাকে তদন্ত প্রতিবেদন দিতে বলেন। বন কর্মকর্তা ২২.০১.৪৭৬৪.৩৯৮.২৮.০০১.১৯-০৩ স্বারকের আবেদন সরজমিনে যেয়ে তদন্ত করে এবং অত্র এলাকার ৯ জন ব্যক্তিকে স্বাক্ষী রেখে মতামত দেন যে, ” গাছগুলি আবেদনকারীর ভোগদখলের অধিকার সহ পারিবারিক কাজে ব্যবহারের অনুমতি দেয়া যেতে পারে ” মর্মে তদন্ত প্রতিবেদন জমাদিলে সাবেক ইউএনও জুলিয়া সুকায়না ৯ জুলাই স্বাক্ষর ও সিল দিয়ে গাছের মালিকানা মদন মোহন কে দেন। সে মোতাবেক মদন মোহন সাধু পারিবারিক প্রয়োজনে গাছ কাঁটতে গেলে উপজেলা ভূমি অফিসের পেসকার প্রতুল জোয়াদ্দার ঘটনা স্থলে যেয়ে গাছ কাঁটা থেকে বিরত থাকার কথা বল্লে সাথে সাথে মদন মোহন সাধু গাছ কাঁটা বন্ধ করে। দু’টি গাছের ২টি কাঁটা ডাল ঘটনাস্থলে রাখা আছে।
এঘটনাকে কেন্দ্র করে প্রতিবেশির শত্রুতাকে কাজে লাগাতে মদন মোহন সাধুর ভ্যাগনে চম্পক সাধুকে জড়িয়ে সাংবাদিকদের মিথ্যা তথ্য সরবরাহ করে হেয়পতিপন্ন করেছে বলে জানাগেছে।

ফুলতলায় স্কুল ছাত্রকে অচেতন করে এনড্রয়েড সেট ছিনতাই

ফুলতলা (খুলনা) প্রতিনিধিঃ ইমন আহমেদ শেখ (১৪) নামে এক স্কুল ছাত্রকে নাকে চেতনানাশক ঔষুধ দিয়ে ও পিটিয়ে সজ্ঞাহীন করে তার এনড্রয়েড সেট ছিনিয়ে নিয়েছে মুখোশধারী দুর্বৃত্তরা। এ ঘটনা ঘটেছে রোববার রাত ৮টায় ফুলতলা উপজেলা পরিষদের পিছনে ভূঁইয়াবাড়ি মোড় এলাকায়। সে ফুলতলা রি-ইউনিয়ন স্কুল এন্ড কলেজের ৮ম শ্রেণির ছাত্র ও দামোদর ঋষিপাড়ার মৃতঃ শেখ ফেরদৌস হকের পুত্র।

পারিবারিক সূত্র জানায়, স্কুল ছাত্র ইমন মোবাইল ফোনে অনলাইন ক্লাস দেখার জন্য ফ্রি ইন্টারনেট সেবা পেতে সন্ধ্যায় উপজেলা চত্বরে যায়। রাত ৮টার তার বড় ভাই ইউসুফ এর ফোন পেয়ে বাসায় ফিরছিল। ভূঁইয়াবাড়ি মোড়ে পৌছালে অজ্ঞাত মুখোশধারী দুর্বৃত্তরা পিছন থেকে তার নাকে চেতনানাশক ঔষুধসহ নাক চেপে ধরে এবং পিটিয়ে সজ্ঞাহীন করে। এ সময় তার কাছ থেকে ১টি এনড্রয়েড সেট ছিনিয়ে নিয়ে অচেতন অবস্থায় পার্শ্ববর্তী একটি আম বাগানে ফেলে রেখে যায়। রাত আনুমানিক ২টার দিকে তার জ্ঞান ফিরলে সে বাড়িতে পৌছায়। তবে অবস্থা গুরুতর হওয়ায় তাকে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করা হয়। প্রসঙ্গতঃ সম্প্রতি একটা চক্র ঐ এলাকায় ছিনতাই, বøাকমেইল এবং দেনা-পাওনাদারদের জিম্মি করে আর্থিক মোটা অংকের অর্থ হাতিয়ে নিচ্ছে। ফলে নিরিহ এলাকাবাসি তাদের কাছে জিম্মি হয়ে পড়েছে।

ফুলতলা রি-ইউনিয়ন স্কুলের নব নির্বাচিত সভাপতিকে সংবর্ধনা

ফুলতলা (খুলনা) প্রতিনিধিঃ ফুলতলা রি-ইউনিয়ন স্কুল এন্ড কলেজে আলহাজ্ব হাসান ইমামুল হক ভুইয়া পুণঃরায় সভাপতি নির্বাচিত হওয়ায় শিক্ষক-কর্মচারীদের পক্ষ থেকে সোমবার বেলা ১১টায় শিক্ষক মিলনায়তনে সংবর্ধনা প্রদান করা হয়। এ সময় অন্যান্যের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন অবসরপ্রাপ্ত অধ্যক্ষ প্রফুল্ল কুমার চক্রবর্তী, অধ্যক্ষ অজয় কুমার চক্রবর্তী, সাবেক চেয়ারম্যান আজিজুল হক ফারাজি, পরিচালনা কমিটির সদস্য হানিফ মোহাম্মদ ভুইয়া লাকি, সহকারী প্রধান শিক্ষক দেলোয়ার হোসেন, শিক্ষক সন্দিপন রায় প্রমুখ।

অভয়নগরে অপহৃত এনজিও কর্মকর্তা উদ্ধার : নারীসহ আটক-৬

অভয়নগর (যশোর) প্রতিনিধি : যশোরের অভয়নগরে ইকবাল জাহিদ (৪০) নামে এক এনজিও কর্মকর্তাকে অপহরণের ১১ঘন্টা পর উদ্ধার করেছে পুলিশ। উদ্ধারের পর তাকে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করা হয়েছে। ঘটনার সাথে জড়িত এক নারীসহ ৬অপহরণকারীকে আটক করা হয়েছে। এ ঘটনায় অভয়নগর থানায় মামলা দায়ের হয়েছে। অপহৃত ইকবাল জাহিদ উপজেলার একতারপুর গ্রামের পীর মোহাম্মদ খাঁনের ছেলে। সে যশোরের আল আরাফা সঞ্চয় ও ঋণদাণ সমবায় সমিতি অভয়নগর উপজেলা শাখার মাঠ কর্মকর্তা। আটকৃতরা হলেন, যশোরের কাঠালতলা রায়পাড়ার এমএম শামসুর রহমানের ছেলে এমএম রুবেল হাসান বাবু (৩৩), অভয়নগরের গুয়াখোলা প্রফেসরপাড়ার মৃত মানিক মোল্যার ছেলে আকাশ মোল্যা (২৪), বুইকরা গ্রামের মালেকের চাতাল সংলগ্ন মুজিবর হাওলাদারের ছেলে রবিউল ইসলাম (৩৫), পাঁচকবর এলাকার মৃত গণি সরদারের ছেলে আবদুল মালেক (৩২), শুভরাড়া ইউনিয়নের ইছামতী গ্রামের মাজেদ খানের ছেলে ইমরুল খান (২৮) ও একই গ্রামের জাহিদ খানের মেয়ে কনা বেগম (২৫)। এজাহারসূত্রে জানা যায়, ইকবাল জাহিদ রোববার সকালে উপজেলার শুভরাড়া ইউনিয়নের ইছামতী গ্রামের দক্ষিণপাড়ায় ঋণ প্রদান কাজে জাহিদ খানের মেয়ে কনা বেগমের বাড়িতে যান। ঋণ প্রদানে জটিলতা দেখা দিলে কনা বেগমের ভাই ইমরুল খান স্থানীয় ও বহিরাগত সন্ত্রাসী দিয়ে ইকবাল জাহিদকে আটকে রাখে। পরে ১ লাখ ৫০ হাজার টাকা চাঁদা দাবি করে। দাবীকৃত চাঁদার টাকা আসামী এমএম রুবেল হাসান বাবুর নিকট দিতে বলে। টাকা পরিশোধ না করলে ইকবালকে হত্যার হুমকি দেয়া হয়। এসময় ইকবাল তার প্রতিষ্ঠানের জেলা হিসাবরক্ষণ কর্মকর্তা এরশাদুলকে বিষয়টি অবহিত করলে বিকালে রুবেলের কাছে এরশাদুল ১ লাখ ৩০ হাজার টাকা পৌঁছে দেয়। কিন্তু অপহরণকারীরা আরও ৫০ হাজার টাকা চাঁদা দাবি করে। দাবীকৃত চাঁদার টাকা না দেয়ায় ওইদিন সন্ধ্যায় ইকবালকে একটি সাদা রঙের হাইএস মাইক্রোযোগে ইছামতী গ্রাম থেকে নওয়াপাড়া বাজারের সোহাগ কাউন্টারে অপহরণ করে নিয়ে আসে। ওই কাউন্টারের ভিতরে নিয়ে টাকা পরিশোধে চাপ দিতে থাকে এবং মারপিট শুরু করে। পরে রাত ৯টার সময় তাকে উপজেলার পাঁচকবর এলাকায় মৃত গণি সরদারের ছেলে আবদুল মালেকের বাড়িতে নিয়ে আটকে রেখে বাকি ৫০হাজার টাকার জন্য ইকবালের স্ত্রী সালমাকে ফোন করে অপহরণকারীরা। টাকা দিতে দেরি হওয়ায় শুরু হয় ইকবাল জাহিদের ওপর শারীরিক নির্যাতন। এক পর্যায়ে ইকবাল জাহিদ রক্তাক্ত জখম হয়ে অচেতন হয়ে পড়েন। এসময় অপহরণকারীরা আহত ইকবালকে ওই মাইক্রোবাসে করে যশোরের কাঠালতলা এলাকায় নিয়ে যায়। সেখানে আদায়কৃত ১লাখ ৩০হাজার টাকা ১০জন অপহরণকারী নিজেদের মধ্যে ভাগবাটোয়ারা করে ইকবালকে নিয়ে অভয়নগরের সরখোলা গ্রামে ফিরে আসে। সেখানে শাকিলের নেতৃত্বে বিলের মধ্যে একটি গাছের সাথে ইকবালকে বেঁধে রাখে এবং অপহরণকারীরা বাকি টাকার জন্য অভয়নগর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে সালমাকে আসতে বলে। এদিকে ইকবালের স্ত্রী সালমাসহ পরিবারের অন্যান্য সদস্যরা বিষয়টি অভয়নগর থানার ওসি মো. তাজুল ইসলামকে অবহিত করলে শুরু হয় উদ্ধার অভিযান। বাকি টাকা পৌঁছে দিতে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ইকবালের স্ত্রীর সাথে সাদা পোষাকে পুলিশ অবস্থান করে। রাত আনুমানিক ৩টার সময় অপহরণকারীদলের এক সদস্য রবিউল ইসলাম মুক্তিপনের টাকা নিতে আসলে পুলিশ তাকে আটক করে। তার স্বীকারোক্তি মোতাবেক অপহৃত ইকবাল জাহিদকে সরখোলা বিলের মধ্য থেকে আহত অবস্থায় উদ্ধার করে পুলিশ। এসময় অপহরণকারীদলের মুলহোতা রুবেলকে আটক করলেও শাকিল ওই সময় দৌঁড়ে পালিয়ে যায়। পরে পুলিশ উপজেলার বিভিন্ন স্থানে অভিযান চালিয়ে কনা বেগমসহ আরও চারজনকে আটক করে। এঘটনায় সোমবার দুপুরে ৯জনের নাম উল্লেখ করে অপহৃত ইকবাল জাহিদ বাদী হয়ে অভয়নগর থানায় একটি মামলা দায়ের করেন। যার মামলা নং-৪। এ ব্যাপারে অভয়নগর থানার ওসি মো. তাজুল ইসলাম জানান, প্রায় ১১ঘন্টার অভিযান শেষে এক নারীসহ ৬ জন অপহরণকারীকে আটক করা হয়েছে। উদ্ধার করা হয়েছে মুক্তিপনের ১৫ হাজার টাকা, একটি চাকু ও অপহৃত এনজিও কর্মকর্তা ইকবালের মোটরসাইকেল। থানায় মামলা হয়েছে। বাকি আসামিদের আটকে পুলিশি অভিযান অব্যাহত আছে।

ডুমুরিয়ায় নারী ফোরামের সভা

ডুমুরিয়া (খুলনা) প্রতিনিধি : ডুমুরিয়া উপজেলা নারী ফোরামের দ্বি-বার্ষিক সভা অনুষ্ঠিত হয়েছে। সোমবার সকালে উপজেলা পরিষদ কার্যালয়ে সংগঠনের সহ-সভাপতি ও ইউপি সদস্য কবিতা রানী বিশ্বাসের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত সভায় বক্তৃতা করেন মঞ্জুয়ারা বেগম, জাহানারা বেগম, তুলশি রানী মন্ডল, লাকী সুলতানা, আরজিনা বেগম, প্রমিলা সরকার, আবেদা বেগম, আছমা পারভীন, আফরোজা সুলতানা প্রমুখ। সভায় আসন্ন ইউপি নির্বাচনে নারীদের অংশ গ্রহন নিশ্চিত, দেশব্যপি ধর্ষণ ও হত্যার প্রতিবাদ এবং বাল্য বিবাহ প্রতিরোধ নিয়ে আলোচনা করা হয়।

ডুমুরিয়ায় চিকিৎসার্থে অনুদান প্রদান

ডুমুরিয়া (খুলনা) প্রতিনিধি : ডুমুরিয়ায় অসহায় দম্পত্তির সন্তানের চিকিৎসার্থে উপজেলা পরিষদের তহবিল থেকে ১০ হাজার টাকা অনুদান প্রদান করা হয়েছে। সোমবার সকালে ডুমুরিয়া উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান গাজী এজাজ আহমেদ তার কার্যালয়ে এ টাকা প্রদান করেন।
এ সময় তিনি বলেন, উপজেলার খর্ণিয়া ইউনিয়নের ভদ্রদিয়া গ্রামের অসহায় দম্পত্তি আলামিন মোড়ল-আনোয়ারা বেগমের ঘরে সাড়ে চার বছর আগে একটি কন্যা সন্তানের জন্ম হয়। আদর করে তার নাম রাখে দিথি। কিন্তু আদরের দিথি জন্ম থেকেই কঠিন রোগে আক্রান্ত। তার শরীরের মাথার অংশ দেহের তুলনায় বড় আকৃতির। একমাত্র সন্তানের চিকিৎসায় সবই হারাতে বসেছে ওই পরিবার। তাই শিশুটির চিকিৎসার জন্য উপজেলা পরিষদ তহবিল থেকে ১০ হাজার টাকা দেওয়া হল। এ সময় উপস্থিত ছিলেন শরাফপুর ইউপি চেয়ারম্যান রবিউল ইসলাম রবি।

কেশবপুর স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ওয়াস প্রকল্পের উদ্বোধন

কেশবপুর (যশোর) প্রতিনিধি : যশোরের কেশবপুর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ওয়ার্ডের সহযোগিতায় ও এ্যামিরিকারর্সের বাস্তবায়নে সোমবার সকালে ওয়াস প্রকল্পের উদ্বোধন করা হয়েছে। ওয়ার্ডের নির্বাহী পরিচালক সৈয়দ আকমল আলীর সভাপতিত্বে প্রধান অতিথি হিসাবে ওয়াস প্রকল্পের উদ্বোধন ঘোষনা করেন উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা অফিসার ডাঃ মোঃ আলমগীর হোসেন। অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি হিসাবে উপস্থিত ছিলেন কেশবপুর উপজেলা প্রেসক্লাবের সভাপতি এস আর সাঈদ, উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের সহকারী স্বাস্থ্য পরিদর্শক আমিনুল ইসলাম ও প্রকল্পের সমন্বয়কারী আশিকুল আলম। উল্লেখ্য কেশবপুর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ছাড়াও ইতিপূর্বে উপজেলার ৬টি কমিউনিটি ক্লিনিকে ওয়াস প্রকল্প চালু করা হয়েছে।

ডুমুরিয়ায় ইয়াবাসহ আটক ১

ডুমুরিয়া (খুলনা) প্রতিনিধি : ডুমুরিয়া থানা পুলিশ সোমবার দুপুরে অভিযান চালিয়ে ৫০ পিচ ইয়াবাসহ মুছা শেখকে (২৫) আটক করেছে। সে উপজেলা সদরের ইউনুচ শেখের ছেলে।
পুলিশ সুত্রে জানা গেছে, গোপন সংবাদের ভিত্তিতে উপজেলা সদরের ইউনুচ শেখের ছেলে মুছা শেখের বাড়িতে অভিযান পরিচালনা করে থানা পুলিশ। এ সময় তার দেহ ও ঘরের ভিতরে তল্লাশি করে ৫০পিচ ইয়াবা পাওয়া যায়। এ বিষয়ে এস আই ইয়াছিন আরাফাত জানান, আটক মুছা খোলা বাজারে কাপড়ের ব্যবসা করে। কিন্তু গোপন সংবাদের ভিত্তিতে জানতে পারি সে মাদকের সাথে সম্পৃক্ত। তাই তার বাড়ি অভিযান চালিয়ে ৫০পিচ ইয়াবা উদ্ধার করা হয়েছে। এ বিষয়ে তার বিরুদ্ধে মাদক আইনে মামলার প্রস্তুতি চলছে।

দাকোপে ইমাম পরিষদের বিক্ষোভ সমাবেশ

আজগর হোসেন ছাব্বির : ফ্রান্সে রাষ্ট্রিয় পৃষ্টপোষকতায় মহানবী হযরত মুহাম্মদ (সঃ) এর ব্যঙ্গ চিত্র প্রদর্শনীর প্রতিবাদে দাকোপ উপজেলা ইমাম পরিষদের উদ্যোগে বিক্ষোভ মিছিল ও সমাবেশ অনুষ্ঠিত হয়েছে।
সোমবার জোহর নামাজ বাদ উপজেলা সদর চালনা হেড কোয়ার্টার জামে মসজিদ চত্বরে সমাবেশ অনুষ্ঠিত হয়। উপজেলা ইমাম পরিষদের সভাপতি অধ্যক্ষ মাওঃ অজিহুর রহমানের সভাপতিত্বে এবং সাধারণ সম্পাদক মাওলানা সাইফুল ইসলাম বিন হাসানের পরিচালনায় অনুষ্ঠিত সমাবেশে বক্তৃতা করেন উপজেলা ইমাম পরিষদের সহসভাপতি মুফতী শফিউল্লাহ, মুফতী আহসান হাবীব, সহসাধারণ সম্পাদক মাওলানা তাবারক হুসাইন, মুফতী মুস্তাফিজুর রহমান, মুফতী ইকরামুল ইসলাম, মুফতী ইকবল হুসাইন, মাওলানা আতিকুর রহমান, আলহাজ্ব দাউদ আলী, মাওলানা আনোয়ারুল হক, মাওলানা ইমরান হুসাইন, মাওলানা আঃ সাত্তার, মুফতী ইব্রাহীম হুসাইন, জি এম আজিজুল হক, মাওলানা ফয়জুল্লাহ, হাফেজ শাহ আলম মীর, মাওলানা আব্দুল্লাহ আল আমিন, মাওলানা আবুল হাসান, আলহাজ্ব ইমদাদুল হক প্রমুখ। সমাবেশে বক্তারা মহানবীর ব্যঙ্গ চিত্র প্রদর্শনের জন্য ফ্রান্সের বিরুদ্ধে সংসদে নিন্দা প্রস্তাব পাশের দাবী জানিয়ে ফ্রান্সের সকল পণ্য বর্জনের জন্য দেশবাসীর প্রতি আহবান জানান। সমাবেশে দাকোপের ৯ টি ইউনিয়ন ও পৌরসভার বিভিন্ন এলাকা হতে হাজার হাজার মানুষ মিছিল সহকারে যোগদান করে।
সমাবেশ শেষে এক বিক্ষোভ মিছিল চালনা বাজার প্রদক্ষিন শেষে একই স্থানে এসে দোয়া ও মোনাজাতের মাধ্যমে শেষ হয়।

‘আমি নিউজ করব না, প্লিজ…’

চট্টগ্রাম ব্যুরো: চট্টগ্রামের সীতাকুণ্ড উপজেলার বড় কুমিরা বাজার এলাকার একটি খালের পাড়ে অচেতন অবস্থায় পড়েছিলেন নগরীর ব্যাটারি গলি এলাকা থেকে ৪ দিন আগে নিখোঁজ হওয়া সাংবাদিক গোলাম সরোয়ার। স্থানীয় এক দোকানদার সরোয়ারকে খালে পড়ে খালি গায়ে পড়ে থাকতে দেখে আশপাশের সবাইকে ডেকে আনেন। পরে স্থানীয়রা সেখানে গেলে অজ্ঞান অবস্থাতেই বিড়বিড় করে বলতে থাকেন ‘আমি আর নিউজ করবো না, প্লিজ… আমি নিউজ আর করব না ভাই…’। ৪ দিনের অমানবিক নির্যাতনের পর এমনভাবেই বাঁচার আকুতি করছিলেন সাংবাদিক সরোয়ার। তাছাড়া তার মুখ থেকে আর কোন কথাই বের হচ্ছিল না। শুধু উচ্চস্বরে কান্নাকাটি করছিলেন তিনি।

পরে স্থানীয়দের বরাতে খবর পেয়ে এক সাংবাদিক ঘটনাস্থলে পৌঁছান। তখন অজ্ঞান অবস্থাতেই নিজের পরিচয় দেন সাংবাদিক সরোয়ার। পরে সীতাকুণ্ড থানার ওসি এবং কোতোয়ালী থানার ওসি ঘটনাস্থলে ছুঁটে যান। সাংবাদিক সরোয়ারকে উদ্ধার করে বড় কুমিরা বাজার এলাকার ওই খালে পাড় থেকে কোতোয়ালী থানা পুলিশের গাড়িতে করে নিয়ে যাওয়া হয় চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে।

এর আগে সাংবাদিক গোলাম সরোয়ারের নিখোঁজ রহস্য উদঘাটনের চেষ্টা করা হয় গনমাধ্যমের পক্ষ থেকে। তখন বেশ কয়েকটি প্রভাবশালী গোয়েন্দা সংস্থার সাথে কথা বলে জানা গেছে, তাদের ধারণা স্থানীয় একটি নিউজ পোর্টালে গোলাম সরোয়ার খুলশীতে প্রভাবশালীদের নিয়ন্ত্রণে ক্যাসিনো ব্যবসার নিউজ করার কারণেই হয়তো তাকে অপহরণ করা হয়েছে। সেই ধারণা আরও পোক্ত হচ্ছিল যেদিন ওই নিউজ প্রকাশিত হয়েছে, তার পরের দিনই নিজ বাসা ব্যাটারিগলির মুখ থেকে নিখোঁজ হন তরুণ এ সাংবাদিক। ওই এলাকা থেকেই তার মোবাইল ফোন বন্ধ ছিল।

খুলশীতে প্রভাবশালীদের নিয়ন্ত্রণে ক্যাসিনো ব্যাবসার নিউজ। এর পরপর  ব্যাটারি গলি এলাকা থেকে হঠাৎ গায়েব হওয়া। সন্ধান মেলার পর নিউজ না করার কথা বলে বলে উচ্চস্বরে কান্নাকাটি। সবমিলিয়ে আপাতত দৃষ্টিতে মনে হচ্ছে সরোয়ারের করা নিউজ করার খেসারত হিসেবেই হয়তো তাকে সহ্য করতে হয়েছে এ নির্মম নির্যাতন।

তাকে উদ্ধারের ঠিক পরের মুহুর্তের একটি ভিডিও ফুটেজে দেখা যাচ্ছে, উচ্চস্বরে কান্নাকাটি করছেন ৪ দিন আগে নিখোঁজ হওয়া তরুণ সাংবাদিক। ওই ভিডিও ফুটেজ দেখে বুঝাই যাচ্ছে ৪ দিনের অমানসিক নির্যাতনের শিকার হয়েছিলেন গোলাম সরোয়ার। নির্যাতনের ফলে মানসিকভাবে প্রচণ্ড ভেঙ্গে পড়েছেন তিনি।

এর আগে রোববার রাত ৮টার দিকে সিএমপি কমিশনার সালেহ মোহাম্মদ তানভীর গণমাধ্যমকে বলেন, ‘আমরা সাংবাদিক সরোয়ারকে উদ্ধারের খবর পেয়ে টিম পাঠিয়েছি। তাকে চট্টগ্রাম আনার পর তার সাথে কথা বলার পরই বিস্তারিত জানা যাবে।’

সীতাকুণ্ড থানার পরিদর্শক (তদন্ত) সুমন বণিক জানিয়েছেন, বর্তমানে তিনি অসুস্থ আছেন। তার সাথে কথা বলা সম্ভব হচ্ছেনা। তার জ্ঞান ফেরার পর কথা বলে বিস্তারিত জানতে পারবেন। এর আগে গত বৃহস্পতিবার (২৯ অক্টোবর) সকালে নগরীর ব্যাটারি গলির বাসা থেকে বের হয়ে নিখোঁজ হন অনলাইন নিউজ পোর্টাল সিটিনিউজ বিডির সাংবাদিক গোলাম সরোয়ার। এ ব্যাপারে তার প্রতিষ্ঠানের ব্যবস্থাপনা সম্পাদক জুবায়ের সিদ্দিকি কোতোয়ালি থানায় একটি জিডি করেন।

নিখোঁজের দুদিন পর পরপর দুবার তাঁর মোবাইল নম্বর থেকে সহকর্মী জুবায়ের সিদ্দিকী ও কামরুল হুদার নম্বরে ফোন এলেও অবস্থান শনাক্ত করতে পারেনি পুলিশ। সর্বশেষ আজ রোববার (১ নভেম্বর) রাত ৮টার দিকে ঢাকা-চট্টগ্রাম মহাসড়কের পাশ থেকে অজ্ঞান অবস্থায় তাকে উদ্ধার করে স্থানীয়রা হাসপাতালে নিয়ে যায়। এরপরই খোঁজ মিলে সাংবাদিক গোলাম সারোয়ারের।