মানসেবায় যুব স্বেচ্ছাসেবকরা ফ্রন্টলাইন যোদ্ধা : ডা. হাসান শাহরিয়ার কবির

চট্টগ্রাম ব্যুরো:বাংলাদেশ রেড ক্রিসেন্ট সোসাইটি চট্টগ্রাম জেলা ইউনিটের উদ্যোগে যুব রেড ক্রিসেন্ট চট্টগ্রামের বাস্তবায়নে চট্টগ্রামের উপজেলা পর্যায়ে স্বেচ্ছাসেবক নিয়ে ৩ টি উপজেলা সীতাকুন্ড, পটিয়া ও সাতকানিয়াতে যুব স্বেচ্ছাসেবকদের রেড ক্রস রেড ক্রিসেন্ট মৌলিক ও প্রাথমিক চিকিৎসা প্রশিক্ষণের সনদ বিতরণ আজ ১৯ নভেম্বর চট্টগ্রাম জেলা রেড ক্রিসেন্ট মাঠ প্রাঙ্গনে অনুষ্ঠিত হয়। সোসাইটির ম্যানেজিং বোর্ড সদস্য ও রেড ক্রিসেন্ট চট্টগ্রাম জেলা ইউনিটের ভাইস চেয়ারম্যান ডাঃ শেখ শফিউল আজম এর সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন চট্টগ্রাম বিভাগীয় পরিচালক (স্বাস্থ্য) ডা: হাসান শাহরিয়ার কবির। বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন রেড ক্রিসেন্ট সিটি ইউনিটের কার্যকরী পর্ষদ সদস্য মহসিন উদ্দীন চৌধুরী ফয়সাল, আনোয়ার আজম। যুব রেড ক্রিসেন্ট চট্টগ্রামের যুব প্রধান মোঃ ইসমাইল হক চৌধুরী ফয়সাল এর স্বাগত বক্তব্যে আরো উপস্থিত ছিলেন জেমিসন রেড ক্রিসেন্ট মাতৃসদন হাসপাতালের ইনচার্জ মোস্তাফিজুর রহমান, চট্টগ্রাম জেলা ইউনিটের ইউনিট লেভেল অফিসার আব্দুর রশিদ খান, সিটি ইউনিটের ইউনিট লেভেল অফিসার মুহাম্মদ ইয়াহইয়া বখতিয়ার, প্রশাসনিক কর্মকর্তা আশরাফ-দৌল্লা সুজন। অনুষ্ঠান সঞ্চালনায় ছিলেন যুব রেড ক্রিসেন্ট চট্টগ্রামের যুব উপ প্রধান-২ মোঃ মঈনুল ইসলাম ।
প্রধান অতিথির বক্তব্যে ডা. হাসান শাহরিয়ার কবির বলেন, রেড ক্রিসেন্টে প্রাথমিক চিকিৎসা প্রশিক্ষণ তাদের প্রাতিষ্ঠানিক শিক্ষার পাশাপাশি নিজের আত্মবিশ্বাস বৃদ্ধিতে ব্যাপক ভূমিকা পালন করবে। মানসেবায় যুব স্বেচ্ছাসেবকরা ফ্রন্টলাইন যোদ্ধা। মানব সেবার জন্য আন্তরিকতার প্রয়োজন রয়েছে। মানসেবায় যুব স্বেচ্ছাসেবকরা স্বাস্থ্য সেবা, দূর্যোগ কালীন সময়ে কাজ করে আমাদের হাতকে শক্তিশালী করবে তার পাশাপাশি প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার হাতকে শক্তিশালী করবে।
সভাপতির বক্তব্যে ডাঃ শেখ শফিউল আজম বলেন, প্রশিক্ষিত হয়ে যুব স্বেচ্ছাসেবকরা উপজেলা পর্যায়ে মানবসেবার ব্রত নিয়ে কাজ করে যাবে।
এতে ৩ টি উপজেলার মোট ৯০ জন প্রশিক্ষণে অংশগ্রহণ করে উক্ত প্রশিক্ষণের শুধুমাত্র কৃতকার্যকারী ও উপজেলা পর্যায়ে ১ম, ২য় ও ৩য় স্থান অধিকারকারীদের মাঝে অতিথিবৃন্দ পুরষ্কার ও সনদ বিতরণ করেন

বিক্রেতা-ক্রেতা বান্ধব পরিবেশ মান-মর্যাদার সাথে জড়িত: চসিক প্রশাসক সুজন

চট্টগ্রাম ব্যুরো:চট্টগ্রাম সিটি কর্পোরেশনের প্রশাসক মোহাম্মদ খোরশেদ আলম সুজন আগ্রাবাদ সিঙ্গাপুর ব্যাংকক মার্কেটের ব্যবসায়ীদের সাথে মতবিনিময় সভায় তাদের চাহিদামত মার্কেটের উন্নয়নে সচেষ্ট থাকার আশ্বাস দিয়ে বলেন, নগরীর এই অত্যাধুনিক মার্কেকটির বিক্রেতা-ক্রেতাবান্ধব পরিবেশের সাথে সকলের মান-মর্দাদা রক্ষার বিষয়টি জড়িত। তাই এই ক্ষেত্রে ব্যবসায়ীদের ভুমিকা বড়। তিনি আরো বলেন, অথনৈতিক সক্ষমতা না থাকায় ব্যবসায়ীদের সকল চাহিদা এক সাথে পূরণ করা সম্ভব নয়। তবে ব্যবসায়ীদের কাছ থেকে পাওনা সময় মত পরিশোধ করা হলে চসিকের সেবা প্রদানে কোন ঘাটতি থাকবে না। তিনি এ সময় এই মার্কেটের ৫ম তলায় ফুড জোনের কাজের অগ্রগতি পরিদর্শন করেন এবং এই জোনের বরাদ্দ প্রাপ্ত ৬০টি দোকানের মধ্যে ৪৩টি দোকান থেকে পাওনা বাবদ মোট ৬৩ লাখ ৫০ হাজার টাকার চেক গ্রহণ করেন। সমিতির ভারপ্রাপ্ত সভাপতি আলহাজ্ব মো. আলী নেওয়াজ চৌধুরীর সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত মতবিনিময় সভায় বক্তব্য রাখেন সমিতির সহ সভাপতি আলহাজ্ব নুরুল আলম, সাধারণ সম্পাদক আলহাজ্ব মো. নাজিম উদ্দিন, সমিতির উপদেষ্টা এস এম ফরিদুল আলম ফরহাদ, এবিএম জুলফিকার আলী ভুট্রো, আলহাজ্ব এ বিএম শহীদুল ইসলাম চৌধুরী, মো. শফিউল আলম (জামান্স), আলহাজ্ব শওকত আলী, মো. আইয়ুব, রাশেদ ইকবাল চৌধুরী, সালাউদ্দিন আরিফ, মো. ইউসুফ আলী, মো. বশির, চসিকের পক্ষ থেকে উপস্থিত ছিলেন প্রধান প্রকৌশলী লে. কর্নেল সোহেল আহমেদ পিএসসি, প্রধান রাজস্ব কর্মকর্তা মুফিদুল আলম,পিএস টু প্রশাসক আবুল হাশেম, তত্তাবধায়ক প্রকৌশলী আবু সালেহ, নির্বাহী প্রকৌশলী আবু সাদাত তৈয়ব, এস্টেট অফিসার কামরুল ইসলাম চৌধুরী।