শরণখোলা ১০ফুট লম্বা অজগর উদ্ধার

শরণখোলা প্রতিনিধি : বাগেরহাটের শরণখোলায় কৃষকের সবজি ক্ষেত থেকে ১০ ফুট লম্বা একটি অজগর সাপ উদ্ধার করেছে ওয়াল্ড টিম ও ভিটিআরটি সদস্যরা। শুক্রবার সন্ধ্যায় ধরার পরে রাতে সুন্দরবনে অবমুক্ত করা হয়েছে অজগরটি। ওয়াইল্ড টিমের শরণখোলা মাঠ কর্মকর্তা এইচ এম আলম হাওলাদার জানান, সাউথখালী ইউনিয়নের বনসংলগ্ন পূর্ব সোনাতলা গ্রামের ইসমাইল খানের সবজি ক্ষেত থেকে অজগরটি ধরা হয়। এসময় ভিলেজ টাইগার রেসপন্স টিমের (ভিটিআরটি) সদস্য সাগর হাওলাদার সঙ্গে ছিলেন। সাপটি বনবিভাগের কাছে হস্তান্তর করা হয়েছে। পূর্ব সুন্দরবনের শরণখোলা রেঞ্জের সহকারী বনসংরক্ষক মো. জয়নাল আবেদীন জানান, রাত সাড়ে সাতটার দিকে অজগরটি রেঞ্জ অফিস সংলগ্ন বনে অবমুক্ত করা হয়েছে। ১০ফুট লম্বা সাপটির ওজন প্রায় আট কেজি।

করোনা শনাক্তের হার ৬ শতাংশের নিচে নামল

ঢাকা অফিস:  গতকালের তুলনায় করোনাভাইরাসে মৃত্যু ও শনাক্ত আজ কমেছে। দেশে গত ২৪ ঘণ্টায় (আজ সকাল ৮টা পর্যন্ত) করোনাভাইরাসে সংক্রমিত হয়ে ১৬ জনের মৃত্যু হয়েছে। গতকাল ৩১ জনের মৃত্যু হয়। একই সময় নতুন করে আরও ৭৮৫ রোগী শনাক্ত হয়েছেন। শনাক্তের হার গত ২৪ ঘণ্টায় ৬ এর নিচে। এ নিয়ে দেশে করোনায় মৃত্যু হলো ৭ হাজার ৭৩৪ জনের। আর শনাক্ত রোগীর সংখ্যা ৫ লাখ ২০ হাজার ৬৯০।
আজ শুক্রবার স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে এসব তথ্য জানানো হয়।
স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের হিসাবে, গতকাল বৃহস্পতিবার শনাক্তের সংখ্যা ছিল এক হাজার সাত। বুধবার দেশে করোনায় মৃত্যু হয়েছিল ১৭ জনের। শনাক্তের সংখ্যা ছিল ৯৭৮।
গতকাল টানা ছয় দিন পর নতুন রোগীর সংখ্যা হাজার পার হয়। সে সংখ্যা আজ শুক্রবার আবার হাজারের নিচে নেমে এসেছে। স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের হিসাবে গত বুধবার ৯৭৮ জন, মঙ্গলবার ৯৯১ জন, সোমবার ৯১০, রোববার ৮৩৫, শনিবার ৬৮৪ ও গত শুক্রবার ৯৯০ জন করোনাভাইরাসে নতুন করে সংক্রমিত হন।

গত ২৪ ঘণ্টায় দেশে অ্যান্টিজেনভিত্তিক পরীক্ষাসহ ১৩ হাজার ৬৮১ জনের নমুনা পরীক্ষা করা হয়। পরীক্ষার সংখ্যা বিবেচনায় রোগী শনাক্তের হার ৫ দশমিক ৭৪ শতাংশ। গত ২৪ ঘণ্টায় সুস্থ হয়েছেন ৮৩৩ জন।

গত বছরের ডিসেম্বরে চীনের উহানে প্রথম করোনাভাইরাসের সংক্রমণ ধরা পড়ে। ক্রমেই মহামারি আকারে সংক্রমণ বিশ্বের প্রায় সব দেশে ছড়িয়ে পড়ে। বাংলাদেশে গত ৮ মার্চ প্রথম সংক্রমণ শনাক্তের কথা জানায় সরকার।

শুরুর দিকে রোগী শনাক্তের হার কম ছিল। মে মাসের মাঝামাঝি থেকে সংক্রমণ বাড়তে শুরু করে। ওই মাসের শেষের দিক থেকে রোগী শনাক্তের হার ২০ শতাংশের ওপর চলে যায়। আগস্টের তৃতীয় সপ্তাহ পর্যন্ত সেটি ২০ শতাংশের ওপর ছিল। এরপর থেকে নতুন রোগীর পাশাপাশি শনাক্তের হারও কমতে শুরু করেছিল। একপর্যায়ে দৈনিক রোগী শনাক্তের হার ১০ শতাংশ পর্যন্ত নেমেছিল। এখন আবার তা কমে ৫ শতাংশে এসে ঠেকেছে।

মাস দুয়েক সংক্রমণ নিম্নমুখী থাকার পর নভেম্বরের শুরুর দিকে নতুন রোগী ও শনাক্তের হারে ঊর্ধ্বমুখী প্রবণতা শুরু হয়। নভেম্বরের মাঝামাঝি থেকে দৈনিক নতুন রোগী শনাক্তের গড় দুই হাজার ছাড়ায়। অবশ্য কিছুদিন ধরে নতুন রোগী শনাক্তের সংখ্যা দুই হাজারের কম। তিন সপ্তাহ ধরে পরীক্ষার তুলনায় রোগী শনাক্তের হার ১০ শতাংশের নিচে।

জনস্বাস্থ্যবিদেরা বলছেন, টিকা না আসা পর্যন্ত সংক্রমণ প্রতিরোধের মূল উপায় স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলা। বিশেষ করে বাইরে বের হলে মুখে মাস্ক পরা শতভাগ নিশ্চিত করা এবং কিছু সময় পরপর সাবান–পানি দিয়ে হাত ধোয়ার বিধি মেনে চলতে হবে। স্বাস্থ্যবিধি মেনে না চললে সংক্রমণ আরও বেড়ে যাওয়ার আশঙ্কা আছে।

দাকোপ মাধ্যমিক শিক্ষক সমিতির নির্বাচন অনুষ্ঠিত

দাকোপ প্রতিনিধি : দাকোপে উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষক সমিতির ত্রি বার্ষিক নির্বাচনে আশীষ মন্ডল সভাপতি এবং পীযুষ মজুমদার সাধারণ সম্পাদক নির্বাচীত হয়েছে। নির্বাচনে ৫ পদে বিনা প্রতিদ্বন্দিতায় নির্বাচীত।
শুক্রবার সকাল ৯ টা থেকে বিকাল ৩ টা পর্যন্ত উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষক সমিতি ভবনে একটানা ভোট গ্রহন অনুষ্ঠিত হয়। মোট ৬৫৮ ভোটারের মধ্যে ৬৫০ জন ভোটার তাদের ভোটাধীকার প্রয়োগ করেন। নির্বাচনে সভাপতি পদে প্রতিদ্বন্দিতাকারী ৪ প্রার্থীর মধ্যে আশীষ কুমার মন্ডল ২১৬ ভোট পেয়ে নির্বাচীত হয়েছেন। নিকটতম প্রতিদ্বন্দি তপন কুমার সরদার পেয়েছেন ১৯৬ ভোট। সাধারণ সম্পাদক পদে ৪ জনের মধ্যে পীযুষ কান্তি মজুমদার ২৬১ ভোট পেয়ে নির্বাচীত হয়েছেন। নিকটতম প্রতিদ্বন্দি দেবাশীষ রায় পেয়েছেন ১৯৫ ভোট। সহসভাপতি পদে ৭ জনের মধ্যে নির্বাচীত ৫ জন হলেন অজয় কুমার রায় ৪৩৪, নিহার রঞ্জন রায় ৪১০, মহিবুর রহমান শেখ ৪১০, চিন্ময় বিশ্বাস ৪০০ এবং অচিন্ত্য কুমার হালদার ৩৯৯ ভোট পেয়ে নির্বাচীত হয়েছেন। সহ-সাধারণ সম্পাদক পদে বিদ্যুৎ কবিরাজ ৩৯১ ভোট পেয়ে নির্বাচীত। নিকটতম প্রতিদ্বন্দি অশোক কুমার মন্ডল পেয়েছন ২৪৯ ভোট। সাংগঠনিক সম্পাদক পদে নীহার রায় ৪১৩ ভোট পেয়ে নির্বাচীত, নিকটতম প্রার্থী রমজান আলী সানা পেয়েছেন ২২৭ ভোট। মহিলা বিষয়ক সম্পাদক পদে কনিকা মন্ডল ৪০৮ ভোট পেয়ে বিজয়ী হয়েছেন। বিনা প্রতিদ্বন্দিতায় নির্বাচীতরা হলেন সমাজ কল্যাণ সম্পাদক জি এম কাইয়ুম হাসেন ডালিম, অর্থ সম্পাদক হিমাংকর বর্মন, ক্রীড়া সম্পাদক দেবাশিষ রায়, সাহিত্য সম্পাদক ভবতোষ মন্ডল এবং প্রচার সম্পাদক পদে বিপ্রদাস মন্ডল। নির্বাচনে কমিশনার হিসাবে দায়িত্ব পালন করেন প্রশান্ত কুমার মন্ডল, মানিক চন্দ্র গাইন, অশোক গাইন, মহাদেব রায় এবং প্রকাশ বিশ্বাস। এ ছাড়া প্রিজাইডিং অফিসারের দায়িত্ব পালন করেন প্রদীপ কুমার সাহা।

ইন্টারপোলের রেড নোটিশ পি কে হালদারের বিরুদ্ধে

ঢাকা অফিস: ইন্টারপোল এনআরবি গ্লোবাল ব্যাংক ও রিলায়েন্স ফাইন্যান্স লিমিটেডের সাবেক ব্যবস্থাপনা পরিচালক (এমডি) প্রশান্ত কুমার (পি কে) হালদারের বিরুদ্ধে রেড নোটিশ জারি করেছে । বাংলাদেশের পুলিশের অনুরোধে আজ শুক্রবার এ নোটিশ জারি হয়েছে বলে নিশ্চিত করেছেন পুলিশের সহকারী মহাপরিদর্শক সোহেল রানা।

এর আগে হাইকোর্ট ৫ জানুয়ারি পি কে হালদারের মা লীলাবতী হালদারসহ ২৫ ব্যক্তির দেশত্যাগে নিষেধাজ্ঞা দিয়েছেন । তাঁরা যাতে বিদেশ না যেতে পারেন, সে বিষয়ে ব্যবস্থা নিতে বলা হয়েছে। এর পাশাপাশি তদন্তের প্রয়োজনে দুর্নীতি দমন কমিশন (দুদক) আইন অনুসারে তাঁদের জিজ্ঞাসাবাদ করতে পারবে।

অভিযোগ রয়েছে পি কে হালদার ইন্টারন্যাশনাল লিজিং অ্যান্ড ফাইন্যান্স সার্ভিস লিমিটেডসহ বিভিন্ন আর্থিক প্রতিষ্ঠানের দায়িত্বে থেকে অন্তত সাড়ে তিন হাজার কোটি টাকা লোপাট করেছেন। তিনি এখন পলাতক।

ইন্টারপোলের অফিসিয়াল ওয়েবসাইটে রেড নোটিশ সম্পর্কে বলা হয়েছে, এটি কোনো আন্তর্জাতিক গ্রেপ্তারি পরোয়ানা নয়। বিশ্বব্যাপী আইন প্রয়োগকারীদের কাছে হস্তান্তর, আত্মসমর্পণ বা অনুরূপ আইনি পদক্ষেপের অপেক্ষায় থাকা ব্যক্তিকে শনাক্ত করার ও গ্রেপ্তারের অনুরোধ।

এ নোটিশ মূলত দুই ধরনের তথ্য বহন করে। এক, ব্যক্তিকে শনাক্ত করার জন্য তাঁর নাম, জন্মতারিখ, জাতীয়তা, চুল ও চোখের রং, ফটোগ্রাফ ও আঙুলের ছাপ। দুই, ব্যক্তি যে অপরাধের জন্য পলাতক, সে সম্পর্কিত তথ্য, যা সাধারণত হত্যা, ধর্ষণ, শিশু নির্যাতন বা সশস্ত্র ডাকাতি হতে পারে। রেড নোটিশ সদস্যদেশের অনুরোধে ইন্টারপোল দ্বারা প্রকাশিত হয়।

সোহেল রানা বলেন, বাংলাদেশ পুলিশের এনসিবি ইন্টারপোল শাখা পি কে হালদারের বিরুদ্ধে রেড নোটিশ জারি করার জন্য ইন্টারপোলের কাছে আবেদন করেছিল। সেই আবেদনে তাঁর সম্ভাব্য লোকেশন উল্লেখ করা হয়েছে। তাঁর বিরুদ্ধে দুর্নীতি দমন কমিশনের (দুদক) যে মামলা এবং যেসব অভিযোগ রয়েছে, সেগুলো সুনির্দিষ্টভাবে উল্লেখ করে দেওয়া হয়েছে। আবেদনটি ইন্টারপোলের একটি বিশেষ কমিটি পর্যালোচনা করে তাঁর বিরুদ্ধে রেড নোটিশ জারি করেছে। ইন্টারপোলের এই রেড নোটিশ আগামী পাঁচ বছরের জন্য জারি থাকবে। ইন্টারপোল সারা বিশ্বে তাদের শাখা অফিসে নোটিশটি প্রেরণ করেছে।

দিহানকে জবানবন্দি শেষে কারাগারে পাঠিয়েছে আদালত

ঢাকা অফিস: রাজধানীর কলাবাগানে ইংলিশ মিডিয়ামের ও–লেবেলের ছাত্রীকে ধর্ষণের পর হত্যা মামলার একমাত্র আসামি তানভীর ইফতেখার দিহান আদালতে ১৬৪ ধারায় জবানবন্দি দিয়েছেন। পরে তাকে কারাগারে পাঠিয়েছেন আদালত।

আজ শুক্রবার ঢাকার চিফ মেট্রোপলিটন ম্যাজিস্ট্রেট (সিএমএম) আদালতে তিনি এ জবানবন্দি দেন। জবানবন্দি রেকর্ড শেষে তাঁকে কারাগারে পাঠানোর আদেশ দেন আদালত। দেশ সংযোগকে এ তথ্য নিশ্চিত করেন ঢাকা মহানগর পুলিশের (ডিএমপি) অপরাধ ও তথ্য বিভাগের উপপরিদর্শক (এসআই) শহিদুল ইসলাম।

এর আগে আজ দুপুরে কলাবাগান থানা-পুলিশ তানভীরকে আদালতে হাজির করে স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি রেকর্ড করার আবেদন করে ।

ডিএমপির অপরাধ ও তথ্য বিভাগের উপপরিদর্শক স্বপন কুমার রায় বলেন, এই মামলায় কলাবাগান থানা-পুলিশ গ্রেপ্তারকৃত আসামিকে ১৬৪ ধারায় স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি রেকর্ড করার জন্য আবেদন করে। আসামি আদালতের কাছে স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি দিয়েছেন। পরে আদালত তাঁকে কারাগারে পাঠানোর আদেশ দেন ।

ধর্ষণের পর হত্যার অভিযোগ এনে কিশোরীর বন্ধুকে আসামি করে নিহতের বাবা কলাবাগান থানায় গতকাল বৃহস্পতিবার রাতে মামলা করেন। মামলায় তানভীরকে আসামি করা হয়।

পুলিশের সঙ্গে কথা বলে এবং মামলার কাগজপত্রের তথ্য অনুযায়ী, গতকাল দুপুরে কলাবাগানে বন্ধুর (আসামি) বাসায় অসুস্থ হয়ে পড়লে ওই কিশোরীকে আনোয়ার খান মডার্ন কলেজ হাসপাতালে নিয়ে আসা হয়। পরে কর্তব্যরত চিকিৎসক কিশোরীকে মৃত ঘোষণা করেন। তার লাশ ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের মর্গে পাঠানো হয়।

নিউমার্কেট অঞ্চলের পুলিশ বলেছে, গতকাল দুপুরে ধানমন্ডির আনোয়ার খান মডার্ন মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ কলাবাগান থানায় ফোন করে জানায়, এক তরুণ এক কিশোরীকে হাসপাতালে মৃত অবস্থায় এনেছেন। কিশোরীর রক্তক্ষরণ হচ্ছে। তখন নিউমার্কেট অঞ্চল পুলিশের জ্যেষ্ঠ সহকারী কমিশনার (এসি) আবুল হাসান ওই তরুণকে আটকে রাখতে হাসপাতাল কর্তৃপক্ষকে অনুরোধ করেন। এরই মধ্যে কলাবাগান থানার পুলিশ আনোয়ার খান হাসপাতালে গিয়ে ওই তরুণকে আটক করে। খবর পেয়ে তরুণটির তিন বন্ধু হাসপাতালে গেলে পুলিশ তাঁদেরও আটক করে।

নিহত কিশোরীর পরিবারের অভিযোগ, কৌশলে মেয়েটিকে বাড়ি থেকে ডেকে নিয়ে ধর্ষণের পর হত্যা করা হয়েছে।