ডুমুরিয়ায় বঙ্গবন্ধুর স্বদেশ প্রত্যাবর্তন দিবস পালিত

ডুমুরিয়া (খুলনা) প্রতিনিধি : ১০ জানুয়ারি জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের স্বদেশ প্রত্যাবর্তন দিবস উপলক্ষ্যে ডুমুরিয়ায় আনন্দ শোভাযাত্রা অনুষ্ঠিত হয়েছে। রোববার বিকেলে উপজেলা আওয়ামী লীগ কার্যালয় থেকে বের হয়ে শোভাযাত্রাটি প্রধান প্রধান সড়ক প্রদক্ষিণ করে। শোভাযাত্রার নেতৃত্বে ছিলেন উপজেলা আওয়ামী লীগ নেতা বিমল কৃষ্ণ বসাক, গোপাল চন্দ্র দে, মোল্যা সোহেল রানা, সরদার আব্দুল গণি, আবু বক্কার খান, মোল্যা জাহিদুল ইসলাম, অধ্যাপক বিষ্ণুপ্রসাদ মল্লিক, শোভা রানী হালদার, এসএম জাহাঙ্গীর আলম, অধ্যাপক আমিনুল ইসলাম খান, খান নজরুল ইসলাম, আছফার হোসেন জোয়ার্দ্দার, গাজী তৌহিদ আহমেদ, ডাঃ দীন মোহাম্মদ খোকা, মাসুদ রানা নান্টু, সৌমিত্র বিশ্বাস, জামিল আক্তার লেলিন, এমএম হুমায়ুন কবির, শীলা রানী মন্ডল, হাবিবুর রহমান হাবিব, প্রভাষক গোবিন্দ ঘোষ, শেখ ইকবাল হোসেন, রবিউল ইসলাম আন্টু, কাজী মেহেদী হাসান রাজা, সুমন সরদার, শিমু আক্তার, খান আবুল বাশার, শেখ মাসুদ রানা প্রমুখ। শোভাযাত্রা শেষে দলীয় কার্যালয়ের সামনে নেতাকর্মীর উদ্দেশ্যে বক্তৃতা করেন সাবেক মৎস্য ও প্রানিসম্পদ মন্ত্রী নারায়ণ চন্দ্র চন্দ এমপি এবং ডুমুরিয়া উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান গাজী এজাজ আহমেদ। এরআগে সাবেক মন্ত্রী ও উপজেলা চেয়ারম্যান দলীয় নেতাকর্মীদের সঙ্গে নিয়ে জাতির পিতার প্রতিকৃতিতে পুষ্পমাল্য অর্পন করেন।

পাইকগাছায় বোনকে খুঁজে পেতে ভাইয়ের সাংবাদিক সম্মেলন

পাইকগাছা প্রতিনিধি : পাইকগাছা প্রেস ক্লাবে বোন কে খুঁজে পেতে অসহায় ভাইয়ের সাংবাদিক সম্মেলন অনুষ্ঠিত হয়েছে। লিখিত বক্তব্যে ঋষি সম্প্রদায়ের মেয়ে নিয়ে হত্যা,গুম করার আশংকায় জেলে সম্প্রদায়ের লোকজনের বিরুদ্ধে সাংবাদিক সম্মেলনে অভিযোগ করা হয়।

রবিবার দুপুরে উপজেলার ভবানীপুর গ্রামের মৃত বিষ্ণু দাশের পুত্র রমেশ দাশ পাইকগাছা প্রেসক্লাবে এক লিখিত বক্তব্য বলেন, আমরা ঋষি সম্প্রদায়ের লোক হইতেছি। তার বোন পম্পা দাশ(১৮) কে তালা উপজেলার খানপুর গ্ৰামের সঞ্জয় দাশের সহিত বিবাহ হয়। কিন্তু ভবানীপুর গ্রামের জেলে সম্প্রদায়ের প্রহল্লাদ বিশ্বাসের পুত্র আকাশ বিশ্বাস ফুঁসলিয়ে এনে বিবাহ করে । কিন্তু আকাশের পরিবার সহ পিতা-মাতা বিবাহ মেনে নেয়নি। কয়েক দিন আগে আমার বোন কে খুঁজতে জামাইয়ের বাড়িতে গেলে ভগ্নিপতি ও বোন বাড়ীতে নেই বলে জানায় আকাশের পরিবার । আকাশের পিতা প্রহল্লাদ বিশ্বাসের কাছে বোন ও ভগ্নিপতি সম্পর্কে জানতে চাইলে আমাকে হুমকি স্বরুপ বিভিন্ন কথা বলে। বিষয়টি আমার সন্দেহ হলে পাইকগাছা থানায় ৮/১১/২০ তারিখে ৩৭২ জিডি করেন। এর পর আকাশের পিতা বিভিন্ন হুমকি ধামকি দিচ্ছে । তাই তাদেরকে সন্ধেহ তার বোন পম্পা ও বোন জামাই আকাশ কে তারা গুম বা হত্যা করতে পারে বলে আশঙ্কা করছে । তাই তারা প্রশাসনের হস্তক্ষেপ কামনা করেছেন।

বটিয়াঘাটায় হুইপ পঞ্চানন বিশ্বাস এর কম্বল বিতরন

বটিয়াঘাটা প্রতিনিধি : জাতীয় সংসদের হুইপ পঞ্চানন বিশ্বাস এমপি বলেছেন, সরকারের পাশাপাশি প্রতিটি বিত্তবানদের এগিয়ে আসতে হবে। তাহলে সমাজের অসহায় ভাসমান মানুষের দুঃখ কষ্ট লাঘব হবে। দুঃখী মানুষের দুঃখ কষ্ট লাঘবে বঙ্গবন্ধু কন্যা বর্তমান সরকারের প্রধানমন্ত্রী জননেত্রী শেখ হাসিনা নিরলস প্রচেষ্টা চালিয়েছে যাচ্ছেন। তিনি রবিবার বেলা ১১টায় বটিয়াঘাটা বাজার চত্বরে নিজস্ব বাসভবনের সামনে অসহায় ছিন্নমূল মানুষের মাঝে শীতবস্ত্র কম্বল বিতরনকালে এ কথা বলেন। বিতরনকালে আ’লীগনেতা সত্যেন্দ্র নাথ সরকার, আ’লীগনেতা সাবেক ইউপি সদস্য খোকন মল্লিক, হুইপ তনয় সহকারী শিক্ষক পল্লব কুমার বিশ্বাস রিটু, হুইপ এর সহকারী দেবাশীষ মন্ডল, মিলন মল্লিক প্রমূখ। এ সময় হুইপ পঞ্চানন বিশ্বাস দুই শতাধিক অসহায় পরিবারের মাঝে শীতবস্ত্র কম্বল বিতরন করেন।

ডুমুরিয়ায় সমবায় অফিসারের পদন্নোতিতে সংবর্ধনা

ডুমুরিয়া (খুলনা) প্রতিনিধি : ডুমুরিয়া উপজেলা সমবায় অফিসার এফ এম সেলিম আখতার পদন্নোতি লাভ করে জেলা অফিসার হিসেবে নিয়োগ প্রাপ্ত হয়েছেন। তার এই কৃতিত্বের প্রতি অভিনন্দন ও শুভেচ্ছা জানিয়ে রোববার সকালে উপজেলা সমবায় কার্যালয়ে এক বিদায় সংবর্ধনার আয়োজন করা হয়।
জানা গেছে, এফ এম সেলিম আখতার ২০১৭ সালের ১৩ আগস্ট ডুমুরিয়া উপজেলা সমবায় অফিসার হিসেবে যোগদান করেন। তিনি নিজ কর্মক্ষেত্র হিসেবে ডুমুরিয়া উপজেলায় সমবায় ভিত্তিক কার্যক্রমে নিয়োজিত ছিলেন। তার সহযোগিতায় উপজেলার সমবায়ীদের উন্নয়নসহ গঠিত হয় অনেক দুদ্ধ খামার।
জানা গেছে, পরিশ্রমী এই অফিসার পদন্নোতি পেয়ে সরাসরি চুয়াডাঙ্গা জেলা অফিসার হিসেবে নিয়োগ প্রাপ্ত হয়েছেন। তার এই কৃতিত্বে গতকাল রোববার সকালে সমবায় কার্যালয়ে এক সংবর্ধনার আয়োজন করা হয়। এ সময় অফিসের সকল কর্মকর্তা-কর্মচারীরা তাকে বিদায়ী সংবর্ধনা ও ফুলেল শুভেচ্ছা জ্ঞাপন করেন। একই সাথে ওই পদে নবাগত অফিসার সরদার জাহিদুর রহমানকে বরণ করে নেওয়া হয়। তিনি জেলার দিঘলিয়া উপজেলা সমবায় অফিসার হিসেবে দায়িত্বরত ছিলেন। এ সময় নবাগত সমবায় অফিসার সরদার জাহিদুর রহমান অফিসের সকলের সাথে কুশল ও শুভেচ্ছা বিনিময় করেন।

খুলনা জেলা সুনাম কমিটির সভা অনুষ্ঠিত

খুলনা অফিস : সুনাম খুলনা জেলা কমিটির ত্রৈমাসিক সভা সংগঠনের সহ সভাপতি মাহফুজুর রহমান মুকুল’র সভাপতিত্বে ও সাধারন সম্পাদক প্রভাষক এস এম সোহেল ইসহাক’র পরিচালনায় উমেশচন্দ্র পাবলিক লাইব্রেরিতে অনুষ্ঠিত হয়। এসময় সভায় উপস্থিত ছিলেন ও বক্তৃতা প্রভাষক পঞ্চানন মণ্ডল, পলাশ দাশ, শারি’র খুলনা জেলা মিডিয়া সমন্বয়কারী শরিফুল ইসলাম সেলিম, প্রকল্প সমন্বয়কারী বিষ্ণু পদ দাস, এ্যাডভোকেসী কর্মকর্তা শান্তনু কুমার দাশ, তরিকুল ইসলাম বাপী, রিংটন মণ্ডল, জগন্নাথ কর্মকার, ইয়াফেস ইস্তেহাদ দীপ, আপু রায়হান আকাশ, অমল মজুমদার, সাগর সেন, বাহালুল আলম, বেনজির আহমেদ মুকুল, এ‍্যাড. মনিবুর রহমান, নয়ন পাল, প্রদ্দুত রায়, মিঠুন দাস, বাপ্পী কুমার দে, চিরনজিত ঢালী।

বেনাপোলে ট্রাক চাপায় নিহত ১

যশোর প্রতিনিধি : যশোর-বেনাপোল মহাসড়কের নতুনহাটে ট্রাকের ধাক্কায় অ্যাম্বুলেন্স দুমড়ে মুচড়ে চালক মামুন হোসেন মানিক (৩৩) নিহত হয়েছেন। শনিবার রাত ৮টার দিকে এ দুর্ঘটনাটি ঘটে। নিহত মানিক যশোরের বেসরকারি কুইন্স হসপিটালের অ্যাম্বুলেন্স চালক।

হাসপাতালের ম্যানেজার মিঠু সাহা জানান, ওইদিন বিকেলে তাদের হাসপাতালে চিকিৎসা নেয়া এক রোগীকে বেনাপোলের বাড়িতে নামাতে যান অ্যাম্বুলেন্স চালক মানিক। সেখান থেকে ফেরার পথে রাত ৮টার দিকে যশোর-বেনাপোল মহাসড়কের নতুনহাট এলাকায় পৌছুলে বিএসআরএম (ইস্পাত কারখানা) এর একটি ট্রাক নিয়ন্ত্রণ হারিয়ে অ্যাম্বুলেন্সটিকে ধাক্কা দেয়। এতে অ্যাম্বুলেন্সটি দুমড়ে মুচড়ে যায় ও চালক মানিক মারা যান। এসময় ট্রাকটির চালক রড বোঝাই গাড়ি ফেলে পালিয়ে যায়। ঘটনার পর পুলিশ খবর পেয়ে মানিকের মরদেহ উদ্ধার করে।

এ বিষয়ে যশোর চাঁচড়া ফাঁড়ির ইনচার্জ মোহাম্মাদ রাকিবুজ্জামান জানান, খবর পেয়ে আমরা ঘটনাস্থলে গিয়ে নিহত মানিকের মরদেহ উদ্ধার করে যশোর জেনারেল হাসপাতালের মর্গে এনেছি। কিন্তু বিষয়টি হাইওয়ে পুলিশের আওতায় হওয়ায় তারা পরবর্তী ব্যবস্থা গ্রহণ করেছে।

যশোর নাভারণ হাইওয়ে থানার ওসি আসাদুজ্জামান বলেন, অ্যাম্বুলেন্স চালক মানিক ঘটনাস্থলেই মারা গেছেন। ট্রাকের চালক ও হেলপার পালিয়ে গেছে। তবে ট্রাকটি পুলিশের হেফাজতে রয়েছে। এ ঘটনায় মামলা হয়েছে।

পাইকগাছায় ধর্ষন ও অপহরন মামলা আসামী খায়রুল আটক

পাইকগাছা : পাইকগাছায় বিয়ের প্রস্তাব প্রত্যাখান করায় খায়রুল ইসলামের বিরুদ্ধে নারী-শিশু নির্যাতন দমন আইনে মামলা হয়েছে। মামলটি করেছেন ভুক্তভোগী সোনিয়া আক্তার ( ২১)। পুলিশ খায়রুলকে আটক করেছেন। সে উপজেলার রামনগর গ্রামের সামাদ গাজীর ছেলে। পুলিশ ভিকটিমের ডাক্তারী পরীক্ষার জন্য রবিবার সকালে খুমেক হাসপাতালে প্রেরন করেছেন। মামলা সুত্রে জানাগেছে ৭ বছর পুর্বে উপজেলার কাশিমনগর গ্রামের সামাদ গাজীর মেয়ে ( ভিকটিম) কপিলমুনি মেহেরুন্নেছা বালিকা বিদ্যালয়ে লেখা-পড়ার সময় খারুলের সাথে পরিচয় হয়। এর পর কলেজে ওঠার পর আসা-যাওয়ার পথে খায়রুল প্রেম নিবেদন করত। খায়রুল বিয়ের প্রলোভন দেখায়। এ ভাবে সম্পর্ক গড়ে উঠে। পর্যায়ে ক্রমে খায়রুল বিভিন্ন সময়ে শারিরিক সম্পর্ক গড়ে তোলে। পরবর্তীতে খায়রুল বিয়ের প্রস্তাব প্রত্যাখান করলে ভিকটিম ক’দিন পুর্বে খায়রুলের বাড়ীতে উঠলে সে কৌশল অবলম্বন করেন। অভিযোগ উঠে খায়রুল পরবর্তীতে মটর সাইকেলে করে ভিকটিমকে তার বাড়ীতে নিয়ে যায়। এ ঘটনায় আপোষ মিমাংসা না হওয়ায় ভিকটিম শেষ পর্যন্ত ধর্ষন ও অপহরণের অভিযোগে ৭/৯(১) ২০০০ নারী শিশু নির্যাতন দমন সংশোধনী ২০০৩ আইনে খায়রুলের বিরুদ্ধে মামলা করেছেন,যার নং-৮। মামলার তদন্ত কর্মকর্তা ইন্সপেক্টর মোঃ আশরাফুল আলম বলেন এ মামলার আসামী খায়রুলকে গ্রেপ্তার করে ভিকটিমের ডাক্তারী পরীক্ষার জন্য খুমেক হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে। খায়রুল কে পাইকগাছা উপজেলা সিনিয়র জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আদালতে প্রেরণ করা হয়। বিঞ্জ আদালত খায়রুল এর জামিন আবেদন নামঞ্জুর করে জেলহাজতে প্রেরণ করেছে ।

মোংলায় ভুমিদস্যুদের হামলার শিকার মাদ্রাসা শিক্ষক মিজানুর রহমান

মোংলা প্রতিনিধিঃ বাগেরহাটের মোংলায় উপজেলায় সুন্দরবন ইউনিয়নে নিজ মালিকানা ভুমিতে মাছ চাষের জন্য উপযোগী করার সময় ভুমিদস্যু বাহিনীর হামলার শিকার হয়েছেন মাদ্রাসা শিক্ষক মিজানুর রহমান। এসময় শিক্ষক মিজানুরের কাছ থেকে নগদ টাকা ছিনিয়ে নেয়ার অভিযোগ উঠেছে। এঘটনায় অভিযোগ দাখিলের ছব্বিশ ঘন্টা পরও ভুমিদস্যুদের আটক না করার অভিযোগ উঠেছে পুলিশের বিরুদ্ধে।
থানায় দাখিলকৃত অভিযোগ সুত্রে জানাযায়,উপজেলার সুন্দরবন ইউনিয়নের খড়মা মৌজায় নিজ বাড়ী সংলগ্ন দেড় একর ভুমির মালিক মোংলা পৌরশহরের মহসেনিয়া মাদ্রাসার শিক্ষক মিজানুর রহমান। দির্ঘদিন তার(শিক্ষকের)ওই ভুমিটি জোর পূর্বক দখল করে রাখে স্থানীয় প্রভাবশালী ভুমি দস্যু মিরাজ ও কাউছার। বৃহঃপতিবার (৭ জানুয়ারী) নিজের মালিকানা ভুমিতে মাছ চাষের জন্য স্থানীয় কিছু শ্রমিক দিয়ে নেটজাল ঘেরা দিতে গেলে ভুমি দস্যু মিরাজুল ইসলাম ও কাউছার হাওলাদারের নেতৃত্বে সন্ত্রাসীরা শিক্ষক মিজানুরের উপর হামলা চালিয়ে মারধর করে। এসময় তার পকেটে থাকা নগদ ২৪ হাজার পাচশত টাকা ছিনিয়ে নিয়ে যায় সন্ত্রাসী গ্রুফটি। কর্মরত শ্রমিকরা শিক্ষক মিজানুরকে সন্ত্রাসীদের হামলা থেকে উদ্ধার করে।
এবিষয়ে মিজানুর রহমান জানান,প্রভাবশালী ওই ভুমিদস্যু বাহিনী মোংলার কিছু রাজনৈতিক নেতাদের ছত্রছায়ায় এলাকায় অনেক নিরিহ মানুষের জায়গা দখল করে মাছ চাষ করছে। তাদের অত্যাচারে মানুষ এখন অতিষ্ঠ। আমার উপর হামলার ঘটনায় আমি মোংলা থানায় একটি অভিযোগ দাখিল করেছি। তবে পুলিশ একদিন পরও কাউকে আটক করেনি। উল্টো মুঠোফোনে মোংলা থানার এএসআই আবুল হোসেন তাদের মৎস্য ঘেরের কাজ বন্ধ রাখার জন্য হুমকি দিচ্ছেন।
এবিষয়ে মোংলা থানার এএসআই আবুল হোসেন জানান,শিক্ষক মিজানুর রহমানের অভিযোগের ভিত্তিতে তিনি ঘটনাস্থলে গিয়ে খোজ খবর নিয়েছেন। আসামীদের বিরুদ্ধে কোন ব্যবস্থা না নিয়ে কেন ভুমি মালিকদের তাদের ভুমিকে কাজ বন্ধ নির্দেশ দিয়েছেন? এমন প্রশ্নের কোন উত্তর না দিয়ে এড়িয়ে যান তিনি।

বঙ্গবন্ধুর স্বদেশ প্রত্যাবর্তনের মধ্য দিয়ে স্বাধীনতার পূর্ণতা পায় বাংলাদেশ : কেইউজে’র নেতৃবৃন্দ

বিজ্ঞপ্তি : যথাযোগ্য মর্যাদায় জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের স্বদেশ প্রত্যাবর্তন দিবস পালন করেছে খুলনা সাংবাদিক ইউনিয়ন (কেইউজে)। দিবসের শুরুতে গতকাল রবিবার সকাল সাড়ে ১০টায় খুলনা প্রেসক্লাবস্থ বঙ্গবন্ধুর ভাস্কর্যে নেতৃবৃন্দ শ্রদ্ধাঞ্জলি নিবেদন করা হয়। পরে প্রেসক্লাব চত্বরে আলোচনা সভায় অনুষ্ঠিত হয়। সভায় সভাপতিত্ব করেন ইউনিয়নের সভাপতি মো. মুন্সি মাহবুব আলম সোহাগ। সভা পরিচালনা করেন সাধারণ সম্পাদক ও বিএফইউজে’র নির্বাহী সদস্য মো. সাঈয়েদুজ্জামান সম্রাট।
সভায় নেতৃবৃন্দ বলেন, ‘৯ মাস রক্তক্ষয়ী যুদ্ধের পর ১৯৭১ সালের ১৬ ডিসেম্বর বাংলাদেশ স্বাধীন হয়। অথচ এরপরও স্বাধীনতার মহানায়ক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানকে পাকিস্তানের কারাগারে বন্দি করে রাখা হয়। চূড়ান্ত বিজয়ের ২২ দিন পাকিস্তান কারাগার থেকে মুক্ত হয়ে ’৭২ এর ১০ জানুয়ারি দেশে প্রত্যাবর্তন করেন। তাঁর এই স্বদেশ প্রত্যাবর্তনের মধ্য দিয়ে দেশের মানুষ স্বাধীনতার পূর্ণাঙ্গ স্বাদ পায়।’
সভায় অন্যান্যের মধ্যে বক্তৃতা করেন সাবেক সভাপতি বীরমুক্তিযোদ্ধা মকবুল হোসেন মিন্টু, সাবেক সভাপতি ও খুলনা প্রেস ক্লাবের সভাপতি এস এম জাহিদ হোসেন, মহানগর আ’লীগের সহ-সভাপতি বেগ লিয়াকত আলী, কেইউজে’র সাবেক সভাপতি শেখ আবু হাসান, সাবেক সাধারণ সম্পাদক মো. শাহ আলম, সাংবাদিক নেতা মহেন্দ্রনাথ সেন, এস এম ফরিদ রানা, নেয়ামুল হোসেন কচি, জয়নাল ফরাজী, নূর হাসান জনি, রকিব উদ্দিন পান্নু, আসাদুজ্জামান রিয়াজ ও আমিরুল ইসলাম।
সভায় আরও উপস্থিত ছিলেন সাবেক সভাপতি ও নির্বাহী সদস্য আনোয়ারুল ইসলাম কাজল, সাবেক সাধারণ সম্পাদক মল্লিক সুধাংশু, দেবব্রত রায়, ওয়াহেদ উজ্জামান বুলু, আলমগীর হান্নান, সুনীল দাস, মিলন হোসেন, শেখ কামরুল আহসান, হাসান আল মামুন, দিলীপ পাল, আবু নুরাইন খন্দকার, সাগর সরকার, শরিফুল ইসলাম বনি, রীতা রানী দাস, দিলীপ বর্মণ, প্রবীর বিশ^াস, আঃ সাত্তার, শেখ আব্দুল হামিদ, হাসানুর রহমান তানজির, শেখ রাসেল, সোহেল রানা, এস এম বাহাউদ্দিন, তুফান গাইন, হেলাল মোল্লা, সাংবাদিক শশাঙ্ক স্বর্ণকার, শেখ মো. সেলিম, কলিন হোসেন আরজু, আলি আবরার, হাবিবুর রহমান, রফিক আলী, আমিরুল ইসলাম বাবু, সম্মিলিত রাইটার্স ফোরামের প্রতিষ্ঠাতা সভাপতি এস এম শের আলী শেরবাগ, সাধারণ সম্পাদক নুরুন নাহার হীরা প্রমুখ।
সভায় দৈনিক নওয়াপাড়া পত্রিকার সম্পাদক ও প্রকাশক আসলাম হোসেন মৃত্যুতে গভীর শোক ও সমবেদনা এবং মরহুমের বিদেহী আত্মার মাগফেরাত কামনা করা হয়। বিএফইউজে’র সভাপতি মোল্লা জালাল’র আশু রোগমুক্তি, সুস্থতা ও দীর্ঘায়ু কামনা করা হয় এবং সভা থেকে সাংবাদিক রকিব উদ্দিন পান্নুর বিরুদ্ধে ষড়যন্ত্র মোকাবেলায় জন্য সকলকে ঐক্যবদ্ধ হওয়ার আহ্বান জানানো হয়।

গাওঘরা বহুমূখী মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের সভা অনুষ্ঠিত

বিজ্ঞপ্তি : বটিয়াঘাটার গাওঘরা বহুমূখী মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের সার্বিক উন্নয়নের লক্ষ্যে শনিবার সকাল ১১টায় স্থানীয় গণ্যমান্য ব্যক্তিদের সমন্বয়ে এক সভা অনুষ্ঠিত হয়েছে।
বিদ্যালয় মিলনায়তনে অনুষ্ঠিত সভায় সভাপতিত্ব করেন প্রতিষ্ঠানের পরিচালনা পরিষদের সভাপতি,ইউসিসি এর চেয়ারম্যান এসএম ফরিদ রানা। বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক মোঃ সাহেব আলী শেখের সঞ্চালনায় উপস্থিত ছিলেন ও বক্তব্য রাখেন সুরখালী ইউপির প্যানেল চেয়ারম্যান শাহারা বেগম, গাওঘরা সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়ের সভাপতি গোলাম মোস্তফা শেখ, মোঃ মসলেম মল্লিক, রকিব উদ্দীন মুন্সী, আঃ মজিদ মোল্যা, মোঃ শহিদুল্লাহ বিশ্বাস, গোলাম মহম্মদ ফকির, মোকছেদ মোড়ল, জগত আলী মোড়ল খোকন, ডাঃ আঃ আজিজ শেখ, শাহাবুদ্দীন গোলদার, আতিয়ার রহমান বিশ্বাস, রেজাউল বিশ্বাস, রফিকুল ইসলাম, হাবিবুর রহমান ঢালী, নজরুল ইসলাম, আনোয়ার শেখ, আজিজুর মোল্যা, বিএম আক্তার, রমজান শেখ, পিন্টু মোল্যা, জিল্লুর গাজী, কামরুল ইসলাম, সানজিদা বেগম, মিসেস মোস্তফা, মিস আশা খাতুন, সহকারী প্রধান শিক্ষক আঃ রাজ্জাকসহ বিদ্যালয় শিক্ষকবৃন্দ। সভায় বক্তরা বিদ্যালয়ের উন্নয়নে সকলের সহযোগীতা এবং স্থাবর সম্পত্তি নির্ধারণ করতে ঐক্যমত পোষণ করেন।