চট্টগ্রামের স্বার্থে সর্বোচ্চ ত্যাগ স্বীকারে প্রস্তুত: রেজাউল

চট্টগ্রাম ব্যুরো: চসিক নির্বাচনে ভোটারদের স্বাস্থ্যবিধি মেনে ভোটকেন্দ্রে গিয়ে ভোটাধিকার প্রয়োগের আহ্বান জানিয়েছেন আওয়ামী লীগ মনোনীত মেয়র প্রার্থী রেজাউল করিম চৌধুরী। মঙ্গলবার (১২ জানুয়ারি) বিকেলে নগরের পশ্চিম ষোলশহর, শুলকবহর ও চকবাজার ওয়ার্ডে গণসংযোগকালে তিনি এসব কথা বলেন।

রেজাউল বলেন, দেশ, জাতি ও চট্টগ্রামের স্বার্থে সর্বোচ্চ ত্যাগ স্বীকারে প্রস্তুত আমি। বঙ্গবন্ধুর ডাকে মহান মুক্তিযুদ্ধে প্রাণবাজি রেখে হানাদারদের বিরুদ্ধে লড়াই করেছি। বঙ্গবন্ধু আমাদের শিখিয়ে গেছেন কি করে মানুষকে ভালোবাসতে হয়, কি করে মানুষের কল্যাণ করতে হয়।

তিনি বলেন, করোনা মহামারিতে আমরা যখন ডাক্তার নার্সদের নিয়ে মানুষকে সেবা দিতে, সাহস দিতে নগরব্যাপী ছুটে বেড়াচ্ছিলাম। একজন ডাক্তার তখন মিথ্যা গুজব ছড়িয়ে ডাক্তার, স্বাস্থ্যকর্মী ও ক্লিনিক মালিকদের মনোবল ভেঙে দিয়েছিলেন।

রেজাউল বলেন, আমরা যখন রোগীদের দ্রুত হাসপাতালে আনার জন্য গাড়ি, অক্সিজেন নিয়ে মানুষের পাশে দাঁড়িয়েছি, তখন ওই ডাক্তারের প্ররোচণায় ক্লিনিকগুলোতে থালা ঝুলানো হয়েছে। হাসপাতাল, ক্লিনিকের গেইটে স্বজন হারাতে হয়েছে আমাদের।

তিনি বলেন, আমরা যখন ব্যক্তি উদ্যোগে সাধারণ চিকিৎসা দিতে ওয়ার্ডে ওয়ার্ডে চিকিৎসা সেবা ক্যাম্প করেছি, করোনা সন্দেহভাজন রোগীদের জন্য আইসোলেশন সেন্টার করে অক্সিজেন নিশ্চিত করেছি, তখন ওই ডাক্তার সাহেব ও তার দলের লোকেরা ঘরে বসে গুজব ছড়াতে ব্যস্ত ছিল।

‘ওই ‘গুজবি ডাক্তার’ এখন মেয়র হতে চায়। মেয়র হতে গেলে ভোট লাগবে, ভোটের জন্য মানুষের কাছে যেতে হবে। তা না করে তারা যায় অফিসে নালিশ জানাতে। তারা এখন জনগণের কাছে ভোট চায়তে লজ্জা পায়। ’

রেজাউল বলেন, আমরা রাজনীতি করি মানুষের কল্যাণের জন্য, মেয়র হতে চাই মানুষের সেবা করার জন্য। বঙ্গবন্ধু কন্যা শেখ হাসিনা চট্টগ্রামকে আন্তর্জাতিকভাবে গুরুত্বপূর্ণ একটি সিটি হিসেবে গড়তে চান। চট্টগ্রামের মানুষের জীবনমানের উন্নতি করতে চান।

‘চট্টগ্রামের মানুষের সেবা করার জন্য, গুরুত্বসম্পন্ন বিশ্বমানের চট্টগ্রাম গড়ার জন্য তিনি আমার প্রতি আস্থা রেখে মেয়র পদে মনোনয়ন ও নৌকা প্রতীক দিয়ে আপনাদের কাছে পাঠিয়েছেন ভোট চাইতে। আপনারা স্বাস্থ্যবিধি মেনে উৎসব মূখর পরিবেশে নৌকা প্রতীকে ভোট দিন। ’

এ সময় নগর আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ও সাবেক সিটি মেয়র আ জ ম নাছির উদ্দীন, সাংগঠনিক সম্পাদক নোমান আল মাহমুদ, নগর আওয়ামী লীগের সদস্য মো. বেলাল উদ্দিন, নগর যুবলীগের যুগ্ম আহ্বায়ক ফরিদ মাহমুদ, ৭ নম্বর পশ্চিম ষোলশহর ওয়ার্ড আওয়ামী লীগ সভাপতি জাহাঙ্গীর আলম, সাধারণ সম্পাদক আবদুল রহিম, কাউন্সিলর প্রার্থী মো. মোবারক আলী, ৮ নম্বর শুলকবহর ওয়ার্ড আওয়ামী লীগ সভাপতি আতিকুর রহমান, সাধারণ সম্পাদক শেখ সরওয়ার্দী, কাউন্সিলর প্রার্থী মোরশেদ আলম, কাউন্সিলর প্রার্থী সায়েদ গোলাম হায়দার মিন্টু প্রমুখ উপস্থিত ছিলেন।

চট্টগ্রামে করোনা ভ্যাকসিন বিতরণ ব্যবস্থাপনার কাজ শুরু

চট্টগ্রাম ব্যুরো: চট্টগ্রামে করোনাভাইরাস ভ্যাকসিন বিতরণ ব্যবস্থাপনার কাজ শুরু করেছে প্রশাসন। চট্টগ্রাম সিটি করপোরেশনের উদ্যোগে গঠন করা হয়েছে ১৪ সদস্যের কমিটি। চট্টগ্রামের স্বাস্থ্য সংশ্লিষ্টরা বলছেন, ভ্যাকসিন প্রদানের তালিকায় অগ্রাধিকার পাবেন সম্মুখসারির যোদ্ধারা। তবে বিতরণ ব্যবস্থাপনার পুরো প্রক্রিয়াটি সরকারিভাবে করা হলে ভ্যাকসিনের সমবন্টন হবে বলে মত জনস্বাস্থ্য রক্ষায় কাজ করা সংগঠনগুলোর।

গত ৩ জানুয়ারি করোনা ভ্যাকসিন বিতরণ ব্যবস্থাপনা বিষয়ে বৈঠক করেন চসিক প্রশাসকের নেতৃত্বে একটি কমিটি। বৈঠকে ভ্যাকসিন বিতরণের পুরো প্রক্রিয়া সম্পর্কে আলোচনা হয়। নির্ধারণ করা হয় কর্মপরিকল্পনা। এছাড়া বিভিন্ন টিকা প্রদানের জন্য গঠন করা জেলা ও উপজেলা পর্যায়ের কমিটিগুলোকে সক্রিয় করা হবে বলে জানান স্বাস্থ্য সংশ্লিষ্টরা।

স্বাস্থ্য বিভাগ সূত্র জানায়, জাতীয় পরিচয়পত্র নম্বর দিয়ে অ্যাপের মাধ্যমে করোনার টিকা পাওয়ার জন্য নিবন্ধন করতে হবে। এখন চলছে অ্যাপ তৈরির কাজ। টিকা বিতরণের ব্যাপারে আগাম ঘোষণা দেওয়া হবে।

 

তালিকায় থাকছেন যারা

করোনার ভ্যাকসিন গ্রহণে কারা অগ্রাধিকার পাবেন তা নিয়ে সরকারের একটি নির্দেশনা রয়েছে। এর সঙ্গে সমন্বয় করে প্রস্তুত করা হচ্ছে তালিকা।চট্টগ্রাম বিভাগীয় পরিচালক (স্বাস্থ্য) ডা. হাসান শাহরিয়ার কবীর গণমাধ্যমকে বলেন, করোনার সম্মুখ সারির যোদ্ধাসহ, মুমূর্ষু ও বয়োজ্যেষ্ঠ রোগীদের ভ্যাকসিন দেওয়ার তালিকায় অগ্রাধিকার ভিত্তিতে রাখা হবে।

তিনি বলেন, ফ্রন্টলাইনে থাকা ব্যক্তি ছাড়াও রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতাহীন, বয়োজ্যেষ্ঠ জনগোষ্ঠি এবং দীর্ঘমেয়াদি রোগে যারা ভুগছেন তারা তালিকায় থাকবেন। এভাবেই সরকারের পক্ষ থেকে নির্দেশনা রয়েছে। তাছাড়া এই বিশাল কর্মযজ্ঞ বাস্তবায়নে আলাদা কমিটি আছে। ভ্যাকসিন সঠিক তাপমাত্রায় সংরক্ষণ এবং বিতরণে সরকারের নির্দেশনা অনুযায়ী কাজ করা হবে। তিনি আরও বলেন, ভ্যাকসিন কারা পাবেন এ নিয়ে একটি তালিকা প্রণয়নের কাজ চলছে। তালিকা চূড়ান্ত করে মন্ত্রণালয়ে পাঠাতে হবে। পাশাপাশি স্বাস্থ্যকর্মীদের প্রশিক্ষণের ব্যবস্থা করা হবে।

 

ভ্যাকসিন ব্যবস্থাপনায় চসিকের উদ্যোগ

ভ্যাকসিন ব্যবস্থাপনা সুষ্ঠুভাবে সম্পন্ন করতে গত ৩ জানুয়ারি চসিক প্রশাসকের উদ্যোগে সভা অনুষ্ঠিত হয়। এতে ঠিক করা হয় কর্মপরিকল্পনা। চসিক প্রশাসক খোরশেদ আলম সুজন বলেন, করোনা নিয়ে যেসব এনজিও কাজ করেছে তাদেরকে কমিটিতে রাখতে নির্দেশনা রয়েছে। ভ্যাকসিন কারা পাবেন এ বিষয়েও একটি নির্দেশনা আছে। ১০ জানুয়ারির মধ্যে একটি তালিকা জমা দিতে বলা হয়েছে মন্ত্রণালয় থেকে। যারা বিভিন্ন রোগে আক্রান্ত হয়ে স্বাস্থ্য ঝুঁকিতে আছেন তাদের তালিকায় রাখার ব্যাপারে কাজ চলছে। তাদের এনআইডি নাম্বার সহ সব তথ্য প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ে পাঠিয়ে দেওয়া হবে। সেখানে ডাটাবেজ তৈরি করা হবে।

চসিক প্রশাসক বলেন, ভ্যাকসিন ব্যবস্থাপনা তদারকিতে একটি টেকনিক্যাল টিম গঠন করা হবে। চট্টগ্রাম বিভাগীয় স্বাস্থ্য পরিচালক, চট্টগ্রাম সিটি করপোরেশনের প্রধান স্বাস্থ্য কর্মকর্তা এবং চট্টগ্রাম মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালের দুইজন মেডিসিন বিশেষজ্ঞ চিকিৎসক থাকবেন। তারা ভ্যাকসিন কিভাবে সংরক্ষণ করতে হবে, কোথায় রাখতে সে বিষয়ে পরামর্শ দিবেন এবং ভ্যাকসিন রাখার জায়গাগুলো সরেজমিন পরিদর্শন করছেন।

 

ভ্যাকসিন বিতরণ ব্যবস্থা কেমন হবে?

অন্যান্য টিকাদান কর্মসূচি যেভাবে সম্পন্ন করা হয় ঠিক একইভাবে সম্পন্ন করা হবে করোনার ভ্যাকসিন বিতরণ প্রক্রিয়া। তার আগে স্বাস্থ্যকর্মীদের দেওয়া হবে প্রশিক্ষণ। সিভিল সার্জন ডা. সেখ ফজলে রাব্বি গণমাধ্যমকে বলেন, করোনার টিকা সবাই পাবেন। তবে তা পর্যায়ক্রমে। সরকারের নীতি নির্ধারক মহল থেকে যে নির্দেশনা আসবে আমার মাঠ পর্যায়ে তা বাস্তবায়ন করবো। সরকারের যে ইপিআই কার্যক্রম আছে তা তৃণমূল পর্যন্ত বিস্তৃত। ইপিআই ভ্যাকসিনগুলো যেভাবে সংরক্ষণ করা হয়, করোনার ভ্যাকসিনগুলোও সংরক্ষণ করা হবে একইভাবে। এজন্য আমরা আলাদা করে ‘আইএলআর’ ফ্রিজ প্রস্তুত রেখেছি। যেখানে এই বিশেষ ফ্রিজের স্বল্পতা রয়েছে তা আনার ব্যবস্থা করছি। আশা করছি সংরক্ষণে কোনো সমস্যা হবে না।

সিভিল সার্জন বলেন, টিকা প্রদানেও কোনো সমস্যা হবে না। স্বাস্থ্যের যে জনবল আছে তা নিয়ে আমরা সহজেই টিকাদান কার্যক্রম চালাতে পারবো। টিকাদান কার্যক্রম শুরুর আগে স্বাস্থ্য সংশ্লিষ্টদের প্রশিক্ষণের ব্যবস্থা করা হবে। সরকার ভ্যাকসিন যদি উপজেলা কিংবা ইউনিয়ন পর্যায়ে দিতে চায়, সবক্ষেত্রে আমাদের সক্ষমতা রয়েছে।

ডা. সেখ ফজলে রাব্বি বলেন, পুরো প্রক্রিয়া শুরু হওয়ার আগে একটি খসড়া তালিকা চাওয়া হয়েছিল মন্ত্রণালয় থেকে। তখন আমার ২ লাখ ৭০ হাজার মানুষের একটি খসড়া তালিকা পাঠিয়েছি। তবে সেটি চূড়ান্ত নয়।

 

ধনীদের অর্থের বিনিময়ে ও গরীবদের ফ্রি দেওয়ার দাবি

ভ্যাকসিন পাইকারি হারে না দিয়ে ধনীদের অর্থের বিনিময়ে এবং গরীবদের বিনামূল্যে দেওয়ার দাবি জানিয়েছেন জনস্বাস্থ্য বিশেষজ্ঞ ডা. মাহফুজুর রহমান। এছাড়া করোনা ভ্যাকসিন দেওয়ার আগে অ্যান্টিবডি টেস্ট করা জরুরি বলে মনে করেন তিনি।

ডা. মাহফুজুর রহমান বলেন, যাদের করোনা হয়েছে তাদের অ্যান্টিবডি টেস্ট করা ছাড়া ভ্যাকসিন দেওয়াটা অপ্রয়োজনীয়। কারণ একই ধরনের দুটি অ্যান্ডিবডি যদি শরীরে যায় তাহলে বিরূপ প্রতিক্রিয়া সৃষ্টি হতে পারে। তাই অ্যান্টিবডি টেস্ট ছাড়া ভ্যাকসিন নেওয়াটা অপ্রয়োজনীয়। যাদের অ্যান্টিবডি নেই তাদের জরুরি ভিত্তিতে দেওয়া উচিত।

তিনি আরও বলেন, ভ্যাকসিন ব্যবস্থাপনা সরকারিভাবে হওয়া দরকার। সরকারি হাসপাতালগুলোর মান নিয়ন্ত্রণ ব্যবস্থা উন্নত করে তারপর কার্যক্রম চালু করা দরকার। পাশাপাশি বেসরকারি হাসপাতাল যেগুলো মান নিয়ন্ত্রণ করতে পারবে তাদের হাতেও ভ্যাকসিন দেওয়া যেতে পারে। তবে ভ্যাকসিন সাপ্লাই করতে হবে সরকারের পক্ষ থেকে। পাইকারি হারে ধনী-গরীব সকলকে বিনামূল্যে টিকা দান করা ঠিক হবে না। যার টাকা আছে সে কেন বিনা পয়সায় ভ্যাকসিন নিতে যাবে? বেসরকারি হাসপাতালে ভ্যাকসিন প্রক্রিয়া চালু হলে ধনীরা সেখান থেকে অর্থের বিনিময়ে ভ্যাকসিন নিবেন। আবার বেসরকারি হাসপাতালে ভ্যাকসিন দেওয়ার ক্ষেত্রে এটাও লক্ষ্য রাখতে হবে, শাহেদ কোম্পানির মতো কোনো কোম্পানির হাতে যেন ভ্যাকসিন চলে না যায়।

জানা গেছে, যুক্তরাজ্যের কোভিশিল্ড টিকা ভারতের সেরাম ইনস্টিটিউট থেকে আমদানি করছে বেক্সিমকো ফার্মাসিউটিক্যালস লিমিটেড। এ টিকার প্রথম চালানে ৫০ লাখ ডোজ আসার কথা রয়েছে বাংলাদেশে।

 

 

 

 

বটিয়াঘাটায় ৫৩পিচ কচ্ছপ সহ আটক ১

বটিয়াঘাটা প্রতিনিধি : বটিয়াঘাটায় অবৈধ ভাবে কচ্ছপ বিক্রির দায়ে নিরাপদ বিশ্বাস নামের এক ব্যক্তিকে ৬ মাসের কারাদন্ড প্রদান করেছে ভ্রাম্যমাণ আদালত। উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা ও নির্বাহী ম্যাজিষ্ট্রেট মোঃ নজরুল ইসলাম মঙ্গলবার বিকাল তিনটায় বটিয়াঘাটা বাজারে সাপ্তাহিক হাটবারের দিনে এক ভ্রাম্যমাণ আদালত পরিচালনা করে তাঁকে এ কারাদন্ড প্রদান করেন। এর আগে জীব বৈচিত্র্য ও বন্যপ্রাণী সংরক্ষণ বিভাগের মোঃ মফিজুর রহমানের নেতৃত্বে একটি টিম এক অভিযান চালিয়ে তাকে ৫৩পিচ কচ্ছপ সহ আটক করে উক্ত আদালতে সোপর্দ করে। বিভাগের জেলহাজতে প্রেররণ করা হয়। তার বিরুদ্ধে বন্যপ্রাণী সংরক্ষণ আইনে একটি মামলা রুজু হয়েছে।

চট্টগ্রাম নগরীর রহমতগঞ্জের রাশেদ আতঙ্কে এলাকাবাসী

মোঃ ওমর ফারুক (বাবু), চট্টগ্রাম: প্রকাশ্য দিবালোকে পিস্তল থেকে ফাঁকা গুলি ছুঁড়ে কখনো কখনো ভাড়াটে গুন্ডা ও অস্ত্রের মহড়া দিয়ে ভয় ভীতি প্রদর্শন করে কোটি কোটি টাকা চাঁদাবাজি করার অভিযোগ উঠেছে চট্টগ্রাম মহানগরে এক তথাকথিত নেতা রাশেদুল আলম রাশেদের নামে।

প্রয়াত মহানগর আওয়ামী লীগের  জামাল খান ওয়ার্ডের সাধারণ সম্পাদক স্বচ্ছ রাজনীতি বিদ মোরশেদুল আলমের ছোট ভাই রাশেদ।
চট্টগ্রাম মহানগরের ২০ নং জামালখান ওয়ার্ডের  রহমত গঞ্জ এলাকার জাহানারা ম্যানসনের বাসিন্দা এ রাশেদ।

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক স্থানীয় এক বাসিন্দা জানিয়েছেন, নতুন ভবন নির্মাণ, জায়গা ক্রয় এবং নতুন ব্যবসা চালু করতে হলেও মোটা অংকের টাকা দিতে হয়,  অন্যথায় জীবননাশের হুমকি পাশাপাশি  কাজ বন্ধ রাখতে হয়।

১৯৮৫ সালে বাচ্চু- বাচ্চু সংসদের সাধারন সম্পাদক ছিলেন রাশেদ, ১৯৮৬ সালে দেব পাহাড়ের জসীম হত্যা মামলার আসামী হওয়ার পর পলাতক হয়ে আত্মগোপন করে কানাডা চলে যান।

পরবর্তী রাশেদের বিরুদ্ধে কোতোয়ালি, চকবাজার ও পাঁচলাইশ থানার চাঁদাবাজি ও অস্ত্র মামলা হলে দীর্ঘ সময় দেশের বাইরে অবস্থান করেন ।  কোনো এক অদৃশ্য কারণে মামলাগুলো ধামাচাপা পড়ে যায়।

বিভিন্ন সময়ে ভিন্ন ভিন্ন  নেতার ছবি সম্বলিত পোস্টার ও ব্যানার  ছাপিয়ে নিজের অস্তিত্বের কথা জানান দেয় এ রাশেদ।

দীর্ঘদিন বাইরে থাকার পর দেশে এসে আবারও পুরনো রুপে ফেরত আসা রাশেদ চট্টগ্রাম গণপূর্ত বিভাগ ঠিকাদার সমিতির সভাপতি নির্বাচিত হয়।
পেশী শক্তি প্রয়োগ করে ঠিকাদার সমিতির সভাপতি বনে যাওয়া রাশেদ গণপূর্ত মন্ত্রণালয়ের ঠিকাদারী কাজে একছত্র অধিপত্যে বিস্তার শুরু করে। সাধারণ ঠিকাদার দের কাছ থেকে ৪% হারে চাঁদা আদায় করে রাতারাতি কোটি কোটি টাকার মালিক হয়ে যায়।

তারেক আহম্মদ ( ছদ্মনাম)  নামে এক ঠিকাদার বলেন, কখনও ঠিকাদারী কাজ না করে হঠাৎ করে সভাপতি পদে আসীন হয়েছে গ্যাং গড ফাদার  রাশেদ। মহানগর আওয়ামীলীগের কোন পদে না থেকে দলের নাম ভাঙ্গিয়ে  চাঁদাবাজি করে দলের ভাবমূর্তি নষ্ট করে নিজেকে নিয়ে গেছে টাকার পাহাড়ে।

পি ডাব্লিউ ডি এর একজন তালিকাভুক্ত ঠিকাদার রাশেদের বিরুদ্ধে মামলা করতে গেলে সরকার দলীয় একজন নেতার নির্দেশে কোতোয়ালি থানা মামলা গ্রহণে বিরত থাকে।

রাশেদের দোর্দণ্ড দাপটে অনেকটা জিম্মি এলাকাবাসী। তবে রাশেদের এ সব অপকর্মের পিছনে ডান হাত হিসেবে কাজ করে সি এন্ড বি রনি  প্রকাশ বন্দুক রনি ও  সিজার বড়ুয়া প্রকাশ বুলেট সিজার । রাশেদের বিপক্ষে কেউ কথা বললে  বা কেউ প্রতিবাদ করলে শারীরিক হেনেস্তা ও বিব্রতকর অবস্থার শিকার হতে হয়।

ভুক্তভোগীরা একাধিক ব্যক্তির নাম প্রকাশ না করার শর্তে প্রতিবেদককে জানান অস্ত্রধারী সশস্ত্র সন্ত্রাসী রাশেদ ও তার সহযোগীদের অনৈতিক কর্মকাণ্ডের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা গ্রহণের জন্য চট্টগ্রাম জেলা প্রশাসক স্বরাষ্ট্র সচিব মহোদয়ের হস্তক্ষেপ কামনা করছি।

মোংলায় ইয়াবাসহ মাদক ব্যবসায়ী আটক

মোংলা (বাগেরহাট) প্রতিনিধি : মোংলায় ৩৩ পিচ ইয়াবাসহ এক মাদক ব্যবসায়ীকে আটক করেছে কোস্ট গার্ড। এ সময় তার কাছ থেকে জব্দ করা হয়েছে একটি মোবাইল ফোন ও নগদ দুই হাজার তিনশত সাতচল্লিশ টাকা। কোস্ট গার্ড পশ্চিম জোন’র (মোংলা) গোয়েন্দা কর্মকর্তা লে : এম মাজহারুল হক জানান, গোপন সংবাদের ভিত্তিতে সোমবার রাতে উপজেলার বুড়িরডাঙ্গা এলাকায় অভিযান চালায় কোস্ট গার্ড সদস্যরা। এ সময় ওই এলাকা থেকে ৩৩ পিচ ইয়াবাসহ সোহাগ শেখ (৩১) নাম এক মাদক ব্যবসায়ীকে আটক করে অভিযানকারীরা। আটক সোহাগ বুড়িরডাঙ্গার ইব্রাহিম শেখের ছেলে। সোহাগ নিজেই মাদক সেবনের পাশাপাশি ক্ষুদ্র ক্ষুদ্র মাদক সেবনকারীদের কাছে বিক্রি করে আসছিল। যার ফলে যুবসমাজ ধীরে ধীরে বড় ক্ষতির দিকে ধাবিত হচ্ছিল। মাদকসহ আটক সোহাগকে মঙ্গলবার মোংলা থানায় হস্তান্তর করা হয়েছে। আটককৃতের বিরুদ্ধে মাদক দ্রব্য আইনে মামলা দায়েরের পর মঙ্গলবারই বাগেরহাট জেলহাজতে পাঠিয়েছে পুলিশ।
কোস্ট গার্ড কর্মকর্তা মাজহারুল হক বলেন, কোস্ট গার্ডের আওতাভুক্ত এলাকায় আইনশৃঙ্খলা পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণ, জননিরাপত্তার পাশাপাশি ডাকাতি দমন, অবৈধ অনুপ্রবেশ ও মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণরোধে জিরো টলারেন্স নীতি অবলম্বন করে নিয়মিত অভিযান অব্যাহত রেখেছে এবং ভবিষ্যৎতেও চলমান থাকবে।

পাইকগাছায় আন্তঃ জেলা ডাকাত দলের ৬ সদস্য আটক

পাইকগাছা প্রতিনিধি : পাইকগাছায় আন্তঃজেলা ডাকাত দলের ৬ সদস্যকে পুলিশ বিভিন্ন জেলা থেকে আটক করেছে। এ ব্যাপারে মঙ্গলবার দুপুরে ওসি এজাজ শফী, তার কার্যালয়ে সাংবাদিক সম্মেলনে আটক ডাকাতদের ব্যাপারে লিখিত বক্তব্য প্রদান করেন। সংবাদ সম্মেলনে তিনি বলেন, ১৪/১২/২০২০ তারিখ রাত দেড়টায় উপজেলার গদাইপুর ইউনিয়নের কার্তিকের মোড় নামক স্থানে ঢাকা থেকে ছেড়ে আসা কিংফিশার পরিবহন থামিয়ে যাত্রীদের জিম্মি করে। এ সময় ডাকাতরা অস্ত্রের মুখে যাত্রীদের কাছ থেকে নগদ টাকা, স্বর্ণালংকার সহ সাত লক্ষ টাকার মালামাল লুট করে। এ ব্যাপারে পরিবহনের সুপারভাইজার আছাফুর রহমান বাদী হয় পাইকগাছা থানায় ১৫ ডিসেম্বর ৪জনকে অজ্ঞাতনামা আসামী করে থানায় মামলা করে, যার নং- ১১, তারিখ- ১৫/১২/২০২০ইং। ধারা- ৩৯৪, প্যানেল কোড- ১৮৬০। তথ্য প্রযুক্তি ব্যবহার করে মামলার তদন্ত কর্মকর্তা অনিষ মন্ডল অন্যান্য অফিসারদের সাথে নিয়ে সোমবার উপজেলা গোপালপুর গ্রামের মিজানুর গাজীর ছেলে সাইদুল গাজী (২১), রাড়ুলী গ্রামের মৃত হাকিম গাজীর ছেলে ইমরান গাজী (২১) কে মাদারীপুর সদর থানার একটি ইট ভাটা থেকে আটক করে। তাদের দেয়া তথ্যানুযায়ী থানা পুলিশের বিশেষ টিম একই দিন বিকেলে বিভিন্ন সময় রাড়ুলীর মকবুল গাজীর ছেলে বাপ্পি গাজী (২১) কে ষষ্ঠি তলা বাজার, গোপালপুর গ্রামের মৃত আকছেদ গাজীর ছেলে মেহেদী হাসান (২১) কে পিচের মাথা ও গদাইপুর গ্রামের মৃত তাছের মোড়লের ছেলে আল-আমিন (৩৫) কে পাইকগাছা বাজার থেকে আটক করে এবং ফতেপুর গ্রামের খলিল গাজীর ছেলে তাকবির হোসেন (২৩) কে থানার পার্শে ওয়াপদার রাস্তা থেকে আটক করে। ধৃত আসামী আল-আমিনের দেয়া তথ্য অনুযায়ী গদাইপুর ইউপি চেয়ারম্যান গাজী জুনায়েদুর রহমান, ইউপি সদস্য শেখ জাকির হোসেন লিটন ও জবেদ আলী গাজীকে নিয়ে অস্ত্র উদ্ধারে গেলেও তার আগেই অস্ত্রগুলো সরিয়ে ফেলা হয়েছে বলে ওসি এজাজ শফী জানান। তিনি সাংবাদিক সম্মেলনে আরো বলেন, ধৃত ডাকাত দলের বিরুদ্ধে পাইকগাছা থানাসহ বিভিন্ন থানায় হত্যা, বিস্ফোরক, অস্ত্র, চুরি ও দশ্যুুতার মামলা রয়েছে। এ ব্যাপারে ধৃত আসামী আল-আমিনের কাছে এ প্রতিনিধি ওসি এজাজ শফী’র সামনে জানতে চাইলে সে জানায়, বাস, ট্রাক ডাকাতি, চুরি করেছি। তার একান্ত সহযোগী সাইদুল ইসলাম অন্যান্য আসামীদের একত্রিত করে এ সব ডাকাতি সংগঠিত করত বলে জানায়। মামলার তদন্ত কর্মকর্তা অনিষ মন্ডল জানায়, আসামীদের ৭ দিনের রিমান্ড চেয়ে বিজ্ঞ আদালতে সোপর্দ করা হয়েছে।

নিখোঁজ সংবাদ

দাকোপ প্রেসক্লাবের সাবেক সাধারণ সম্পাদক আজগর হোসেন ছাব্বিরের পিতা আফতাব উদ্দীন খান (৯০) সোমবার সকাল ৭ টার দিকে দারোগার ভিটা তেতুলতলাস্হ নিজ বাড়ী থেকে হারিয়ে গেছে। হারিয়ে যাওয়ার সময় তার পরনে ছিল লুঙ্গি সুয়েটার ও ফতুয়া। গায়ের রং শ্যামলা, উচ্চতা আনুঃ ৫ ফুট ২ ইঞ্চি। তার স্মৃতি শক্তি লোপ পেয়েছে। এ বিষয়ে বটিয়াঘাটা থানার সাধারন ডায়েরী নং ৭৪৩ তাং ১১/০১/২০২১। যদি কোন ব্যক্তি তার সন্ধান পান তাহলে বটিয়াঘাটা থানা অথবা ০১৯২২৬২৬১০০ এই নাম্বারে যোগাযোগ করার জন্য অনুরোধ করা গেল।

দিঘলিয়ায় ১০ জুয়ারি আটক

দিঘলিয়া প্রতিনিধি : উপজেলার সেনহাটী মাসুদ শেখের বাড়ি থেকে সোমবার রাত সাড়ে ৮ টার দিকে ১০ জুয়াড়িকে গোপন সংবাদের ভিত্তিতে আটক করেছে দিঘলিয়া থানা পুলিশ।
জানাযায়, দিঘলিয়া উপজেলার সেনহাটী গ্রামের জুয়াড়ি মাসুদ শেখের বাড়িতে জুয়ার আসর চলছে দীর্ঘদিন ধরে। সোমবার রাত সাড়ে ৮ টার দিকে থানা পুলিশ সংবাদ পেয়ে এস আই রানা ও এস অই আলঙ্গীরের নেতৃত্বে অভিযান চালিয়ে জুয়াড়ি মাসুদ শেখ সহ ১০ জনকে আটক করে। এ সময় জুয়াড়িদের নিকট থেকে ৫ হাজার টাকা ও জুয়া খেলার সামগ্রী উদ্ধার করে। জুয়াড়িরা হলো মাসুদ শেখ (৫০), আলামিন (২৫), শাহাজান (৫০), খালেক (৫৫), কবির (৫০), ইবাদ আলী (৫০), মিলন (৩২), রাজ (৩৬), আলঙ্গীর (২২), ইয়ার আলী (৬০), কে আটক করে। দিঘলিয়া থানায় অফিসার ইনচার্জ আহসান উল্লাহ চৌধুরী বলেন, মাদক ও জুয়ার বিরুদ্ধে অভিযান অব্যাহত রয়েছে। এদের কোন প্রকার ছাড় দেয়া হবে না।

মোংলায় আ’লীগের মেয়র প্রার্থীর নির্বাচনী ইশতিহার ঘোষণা

মোংলা (বাগেরহাট) প্রতিনিধি : মোংলা পোর্ট পৌরসভার নির্বাচনকে ঘিরে নির্বাচনী ইশতিহার ঘোষণা করেছেন আওয়ামী লীগের নৌকা প্রতীকের মেয়র প্রার্থী শেখ আ: রহমান। মঙ্গলবার দুপুরে পৌর শহরের শেখ আ: হাই সড়কের স্থানীয় আওয়ামী লীগের দলীয় কার্যালয়ে আয়োজিত এক সংবাদ সম্মেলনে তিনি তার নির্বাচনী ইশতিহার তুলে ধরেন। ইশতিহারে উল্লেখ করেন, তিনি মেয়র নির্বাচিত হলে পৌরসভার ঘরে ঘরে সুপেয় পানির ব্যবস্থা, স্বাস্থ্য সেবা নিশ্চিত, পানি নিষ্কাশনের জন্য সরকারী খাল পুন:খনন ও পৌরসভার বড় পুকুর সংস্কার, মাদক ও নেশামুক্ত পৌরসভা গঠন, পৌর কবরখানার উন্নয়ন ও শ্মশানঘাটের ব্যবস্থা, ভূমিহীন ও গৃহহীন পরিবারকে পুন:বাসন, রাস্তাঘাট ও প্রয়োজনীয় ড্রেন, ব্রীজ ও কালর্ভাড নির্মাণসহ ২৩টি উন্নয়ন প্রকল্প বাস্তবায়ন করবেন। আসন্ন এ নির্বাচনে নির্বাচিত হয়ে তার ঘোষিত ইশতিহার বাস্তবায়নে তিনি স্থানীয় সাংবাদিকসহ পৌরসভার সকল বাসিন্দাদের কাছে সহযোগীতা কামনা করেন। আওয়ামী লীগের নৌকা প্রতীকের মেয়র প্রার্থী শেখ আ: রহমানের ইশতিহার ঘোষিত অনুষ্ঠানে স্থানীয় আওয়ামী লীগের নেতৃবৃন্দরা উপস্থিত ছিলেন।
আগামী ১৬ জানুয়ারী অনুষ্ঠিত হবে মোংলা পোর্ট পৌরসভার নির্বাচন।