রাবিতে জন্মাষ্টমী উদযাপন

রাবি প্রতিনিধিঃ উপাচার্য অধ্যাপক এম আব্দুস সোবহান বলেন, বাংলাদেশ সৃষ্টি হয়েছিল যে চারটি স্তম্ভের ওপর, এর অন্যতম হলো ধর্ম নিরপেক্ষতা। অথচ এক শ্রেণির লোক অপপ্রচার করে যে, ধর্ম নিরপেক্ষতা মানে ধর্মহীনতা। বাংলাদেশের মানুষ আবহমান কাল থেকে ধর্মীয় সম্প্রীতিতে বসবাস করে আসছে। তাই আমাদের সকলের হৃদয়ে ‘ধর্ম যার যার, উৎসব সবার’ নীতিটি লালন করতে হবে।

সোমবার সকাল ১০ টায় রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের (রাবি) কেন্দ্রীয় মন্দির প্রাঙ্গনে জন্মাষ্টমী উপলক্ষে আয়োজিত এক আলোচনা সভায় এসব কথা বলেন উপাচার্য ।

উপাচার্য সোবহান আরও বলেন, সত্য, ন্যায়, কল্যাণই অপরূপ। আর অপরূপ হলো শান্তি। পৃথিবীর প্রত্যেক ধর্মের মূল বাণীই হচ্ছে শান্তি। নবী, অবতার, রাম, কৃষ্ণ, স্বামী বিবেকানন্দ সকলের কাজই ছিল পৃথিবীতে শান্তি প্রতিষ্ঠা করা। অনুসন্ধানে সত্য ও শান্তি সহজে ধরা দেয় না। কিন্তু অনুসন্ধান করতে থাকলে একসময় সত্য এসে ধরা দেয়। তখন হৃদয়ে নিভৃত কণ্ঠে কে যেন বলে ওঠে, অপরূপকে দেখে গেলেম দুটি নয়নে।

কেন্দ্রীয় পূজা উদ্যাপন পরিষদের সাধারণ সম্পাদক সুব্রত কুমার ভৌমিকের সঞ্চালনায় আলোচনা সভায় মূল আলোচক ছিলেন হিসাববিজ্ঞান ও তথ্য ব্যবস্থা বিভাগের অধ্যপক মদন মোহন দে। সভাপতিত্ব করেন পূজা উদযাপন পরিষদের সভাপতি অধ্যাপক বিশ্বনাথ শিকদার।

এসময় আরও বক্তব্য দেন বিশ্ববিদ্যালয়ের উপ-উপাচার্য অধ্যাপক আনন্দ কুমার সাহা, রাজশাহীস্থ ভারতীয় সহকারী হাইকমিশনার শ্রী অভিজিৎ চট্টোপাধ্যায়। শুভেচ্ছা বক্তৃতা করেন পরিষদের কোষাধ্যক্ষ ড. কমল কৃষ্ণ বিশ্বাস। এর আগে সকাল ৯টায় কেন্দ্রীয় মন্দির প্রাঙ্গণ থেকে একটি শোভাযাত্রা বের হয়ে ক্যাম্পাসের প্রধান প্রধান সড়ক প্রদক্ষিণ করে। শোভাযাত্রায় শিক্ষক-শিক্ষার্থী-কর্মকর্তা-কর্মচারীরা অংশ নেন।

আটোয়ারীতে জাতীয় শোক দিবস উপলক্ষে আলীগের খাদ্য সামগ্রী বিতরন

এ রায়হান চৌধূরী রকি, আটোয়ারী, পঞ্চগড়ঃপঞ্চগড়ের আটোয়ারীতে জাতীয় শোক দিবস উপলক্ষে খাদ্য সামগ্রী বিতরন করা হয়েছে। উপজেলার রাধানগর ইউনিয়ন আওয়ামীলীগের আয়োজনে গত সোমবার দুপুরে ফায়াজ গ্রুপের সহযোগিতায় মডেল পাইলট উচ্চ বিদ্যালয় মাঠে এই খাদ্য সামগ্রী বিতরন করা হয়। উপজেলা যুবলীগের যুগ্ন আহবায়ক মোঃ কামরুজ্জামান কামুর সঞ্চালনায় উপজেলা আওয়ামীলীগের সভাপতি ও ধামোর ইউনিয়নের সাবেক চেয়ারম্যান আঃ রব এর সভাপতিত্বে আলোচনা সভায় প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত থেকে জাতীয় শোক দিবসের উপর গুরুত্বারোপ করে বক্তব্য রাখেন, বিশিষ্ঠ সমাজ সেবক, রাজনীতিবিদ ও ফায়াজ গ্রুপের ব্যবস্থাপনা পরিচালক আলহাজ¦ মনির হোসেন।
আলোচনা সভায় বিশেষ অতিথি হিসেবে উপজেলা আওয়ামীলীগের যুগ্ন সাধারণ সম্পাদক এ্যাড মোঃ আনিছুর রহমান, উপজেলা আওয়ামীলীগের যুগ্ন সাধারণ সম্পাদক মডেল পাইলট উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক মোঃ আঃ কুদ্দুশ, অন্যানের মধ্যে উপজেলা আওয়ামীলীগের সহ-সভাপতি আবুল কাসেম, সাংগঠনিক সম্পাদক মোঃ আনিছুর রহমান, উপজেলা যুবলীগের আহবায়ক ও রাধানগর ইউনিয়নের চেয়ারম্যান আবু জাহেদ, রাধানগর ইউনিয়ন আওয়ামীলীগের সভাপতি এএসএম আসাদুজ্জামান সাইদ, সাধারণ সম্পাদক জীতেন্দ্র নাথ বর্মন প্রমুখ উপস্থিত থেকে বক্তব্য রাখেন।
আলোচনা শেষে প্রধান অতিথি রাধানগর ইউনিয়নের প্রায় ৩ শতাধিক আওয়ামীলীগের অসহায় গরিব কর্মীদের মাঝে এই খাদ্য সামগ্রী বিতরন করেন।

আটোয়ারী সীমান্তে বিজিবি কর্তৃক ফেন্সিডিল সহ দুই যুবক আটক

এ রায়হান চৌধূরী রকি, আটোয়ারী, পঞ্চগড়ঃ পঞ্চগড়ের আটোয়ারীতে ভারতীয় ফেন্সিডিল সহ দুই যুবককে আটক করে আটোয়ারী থানায় সোপর্দ করেছে বিজিবি। বিজিবি সুত্রে জানা গেছে, ঠাকুরগাঁও ৩০ বিজিবি’র হাবিলদার মো: হাশেম আলী এর নেতৃত্বে একদল বিজিবি সদস্য রবিবার সন্ধায় উপজেলার বর্ষালুপাড়ার ভারত-বাংলাদেশ সীমান্তে বিজিবি ক্যাম্পের পশ্চিমে বাংলাদেশ সীমান্তের পাঁকা রাস্তায় ১৪ বোতল ফেন্সিডিল সহ দুই যুবককে সন্দেহাতীত ভাবে ধাওয়া করে আটক করে। আটককৃতরা হলেন পার্শ্ববর্তী ঠাকুরগাঁও জেলার রুহিয়া ঘনিবিষ্টপুর গ্রামের মো: নজরুল ইসলামের পুত্র মো: লাবু (৩০) ও মধুপুর গ্রামের মো: দবিরুল ইসলামের পুত্র মো: ছাদেকুল ইসলাম (২৫)। এসময় আটক কৃতদের ব্যবহৃত একটি ডায়াং ৮০ সিসি মোটরসাইকেল ও দুটি মোবাইল ফোন সহ নগদ ৫,৮৮৭ টাকা জব্দ করে বিজিবি। আটোয়ারী থানার অফিসার ইনচার্জ মোঃ আমিনুল ইসলাম ঘটনার সত্যতা শিকার করেন।

বনরক্ষিরা নিরাপত্তাহীন, নেই আধুনিক সরঞ্জাম

আজগর হোসেন ছাব্বির, দাকোপঃ বিশ্বের সর্ববৃহৎ ম্যানগ্রোভ সুন্দরবন আজ নানা কারনে হুমকির মুখে। এই বনের বহুমুখি ব্যবহার সীমিত করে সরকার বন রক্ষায় বিশেষ উদ্যোগ গ্রহন করেছে। বনের ৫২ শতাংশ এলাকা অভয়ারণ্য ঘোষনা জীব বৈচিত্র রক্ষায় গ্রহন করা হয়েছে নতুন প্রকল্প। কিন্তু বিশাল এই বনাঞ্চল রক্ষায় নিরাপত্তার দায়িত্বে থাকা বনরক্ষি এবং রক্ষিদের ব্যবহ্নত আগ্নেয়অস্ত্র এখন নিরাপত্তাহীনতার মধ্যে আছে।
পৃথিবীর সেরা ৭ টি স্থানের তালিকায় নাম লেখানোর প্রতিযোগীতায় যে সুন্দরবন বিশেষ স্থান দখল করে বাংলাদেশকে বিশ্বের কাছে নতুন পরিচয়ে পরিচিতি করিয়েছে সেই বন আজ নানা কারনে হুমকির মুখে। বন বিভাগের সংশ্লিষ্ট সুত্র মতে ৩ লাখ ১৭.৯৫০ হেক্টর আয়তনের সুন্দরবন শুরু থেকে বহুমুখি ব্যবহার হয়ে আসছিল। দেশের ৫ টি উপকুলিয় জেলার ৬ হাজার ১৭ বর্গকিলোমিটার এলাকা নিয়ে প্রাকৃতিকভাবে গড়ে উঠেছে বিশ্বের সর্ববৃহৎ একক ম্যানগ্রোভ বনাঞ্চল। নোনা পানি ও মিষ্টি পানির সংমিশ্রনে গড়ে ওঠা বনাঞ্চলে জীব বৈচিত্রের রয়েছে বিশাল সমারোহ। এ ছাড়া এই বনের মধু কাঠ গোলপাতা এবং বন অভ্যান্তরে ছোট বড় খালের বিভিন্ন প্রজাতির মাছ ও কাকড়া সংগ্রহের মাধ্যমে উপকুলের বৃহৎজনগোষ্টি তাদের জীবিকা নির্বাহ করে আসছে। আর এই বনভুমি এবং বনজ সম্পদকে নিরাপদ রাখতে সরকার বনরক্ষি নামে একটি বাহিনী নিয়োজিত করেছে। কিন্তু অতি সম্প্রতি কিছু অসাধু বনরক্ষিদের সহায়তায় বনজ সম্পদের অপব্যবহারের ফলে সুন্দরবন তাঁর আপন চেহারা আজ হারাতে বসেছে। যেখানে নির্বিচারে হচ্ছে বনজ সম্পদ পাচার, বন্যপ্রানী এবং বিশেষ প্রক্রিয়ায় মৎস্য সম্পদ নিধন করা হচ্ছে। আবার সুন্দরবনে গড়ে ওঠা দস্যুবাহিনীর কারনে প্রকৃত বনজীবিদের নিরাপত্তা এখন শতভাগ ঝুকির মুখে। যে কারনে সরকার সুন্দরবনের বহুমুখি ব্যবহার সংকোচিত করে বনের ঐতিহ্য রক্ষা এবং ভ্রমন পিপাসুদের দৃষ্টি আকর্ষনে সুন্দরবন কেন্দ্রীক পর্যটন শিল্প বিকাশে অধীক মনোযোগী হয়েছে। সুন্দরবনের রয়েল বেঙ্গল টাইগার এবং মায়াবী হরিণ বর্তমানে সবথেকে বেশী ঝুকির মুখে। পরিস্থিতি বিবেচনায় সরকার ১৯৯৬ সালে ১ লাখ ৩৯ হাজার ৬৯৯ দশমিক ৪৯৬ হেক্টর জায়গা জুড়ে অভয়ারণ্য ঘোষনা করে। বর্তমানে যেটি ২২ টি কম্পার্টমেন্ট নিয়ে সুন্দরবনের মোট আয়তনের ৫২.৯ শতাংশ এলাকা। এ বিষয়ে সুন্দরবন পশ্চিম বিভাগীয় কর্মকর্তা বশিরুল আল মামুন নতুন অভয়ারন্য ঘোষনার বিষয়টি নিশ্চিত করে বলেন, ঘোষিত এলাকায় বাঘ হরিণসহ অন্যান্য প্রাণীর নিরাপদ বিচরন নিশ্চিত করতে সব ধরনের পদক্ষেপ নেওয়া হচ্ছে। একই সাথে ঘোষিত এলাকায় সব ধরনের বনজ সম্পদ আহরন নিষিদ্ধ করা হবে। তিনি বলেন সুন্দরবন উপকুলবর্তী মানুষকে ভিন্ন পেশায় আকৃষ্ট এবং জনসচেতনতা বৃদ্ধিতে বিভিন্ন পরিকল্পনা গ্রহন করা হয়েছে। অপরদিকে সুন্দরবনের সম্পদ রক্ষায় নিয়োজিত বনরক্ষিদের জীবনমান ও নিরাপত্তা নিয়ে রয়েছে নানা প্রশ্ন। বিশাল এই বনভুমি রক্ষায় যে পরিমান জনবল দরকার বর্তমানে সেটা নেই। গহীন বনে তাঁদের জীবনের সার্বক্ষনিক ঝুকি নিয়ে দায়িত্ব পালন করতে হয়। যেখানে দস্যুবাহিনী অধীক সংখ্যায় অত্যাধুনিক আগ্নেয়অস্ত্র ব্যবহার করছে সেখানে বনরক্ষিদের অস্ত্র সেই পুরাতন আমলের। নেই দ্রুতগামী জলযান, ক্ষেত্র বিশেষ বনজ সম্পদ বিক্রি করে জলযানের তৈল কিনতে হয়। যেখানে তাঁদের দায়িত্ব পালনে শতভাগ ঝুকি থাকে অথচ নেই কোন ঝুকিভাতা। গত ২৮ জুলাই সুন্দরবনের কালাবগী ষ্টেশন কর্মকর্তা শ্যামাপ্রসাদ গহীন বনে নিয়মিত টহলে গিয়ে দস্যুবাহিনীর হাতে গুলিবিদ্ধ হয়। এ ধরনের ঘটনায় বর্তমানে বলা যায় বনরক্ষি এবং রক্ষিদের কাছে থাকা সরকারী আগ্নেয়অস্ত্র দুটোই নিরাপত্তাহীন। নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক এক কর্মকর্তা বলেন সরকার আমাদের যে অস্ত্র দিয়েছে সেই অস্ত্রের পর্যাপ্ত নিরাপত্তার ব্যবস্থা নেই। সরকারের এই পরিকল্পনা বাস্তবায়নে তাই অন্যান্য বিষয়ের সাথে আধুনিক যুগপযোগী বনরক্ষি বাহিনী গড়ে তোলার বিষয়টি গুরুত্ব দেওয়া দরকার। একই সাথে বনরক্ষি বাহিনীটিকে সুশৃংক্ষল করতে তাঁদের সুযোগ সুবিধা বৃদ্ধি করা দরকার এমনটাই মনে করে সচেতন মহল।

মেঘনায় দুটি ট্রলার ছিনতাই, হতাশায় জেলেরা

এম শরীফ আহমেদ, ভোলাঃ ভোলার মনপুরার মেঘনায় ইলিশ শিকারের সময় হামলা চালিয়ে দুই জেলে ট্রলার ছিনতাই করে নিয়ে গেছে।

সোমবার ভোর রাত ৪ টার দিকে জংলারখালের পূর্বপাশে বদনার চর সংলগ্ন মেঘনায় মাছ শিকারের সময়
জলদস্যুরা এই হামলা চালায়।ছিনতাই হওয়া ট্রলারের মাঝি হলেন, সিরাজ মাঝি ও বেলাল মাঝি।

এদের বাড়ি উপজেলার হাজিরহাট ইউনিয়নের বিভিন্নওয়ার্ডে।জলদস্যুদের  হামলার ঘটনা নিশ্চিত করেন আড়তদার নাছির কেরানী ও ছিনতাই হওয়া ট্রলারের মাঝি সিরাজ ও বেলাল মাঝি।

সিরাজ মাঝি ও বেলাল মাঝি জানান, সোমবার ভোর রাত ৪ টায় বদনার চর সংলগ্ন মেঘনায় মাছ শিকারের সময় মহিউদ্দিন বাহিনীর জলদস্যুদের তিনটি ট্রলার দেশী অস্ত্রের ভয় দেখিয়ে প্রথমে বেলাল মাঝির মাছ ধরার ট্রলারে হামলা চালায়।পরে সিরাজ মাঝির ট্রলারে হামলা চালায়।

এই সময় জলদস্যুরা ট্রলারে থাকা অপরজেলেদের মারধর করে।পরে জলদস্যুরা দুই ট্রলারে থাকা সকল জেলেদের বদনারচরে নামিয়ে দিয়ে ট্রলারসহ মাছ,জাল ও ইঞ্জিন ছিনতাই করে নিয়ে যায়।

মনপুরা থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) শাহীন খান জানান, জলদস্যুরা হামলা চালিয়ে দুই ট্রলার লুট হওয়ার ঘটনা শুনেছি। ট্রলার দুইটি উদ্ধারে স্থানীয় জনতা সহ পুলিশের একটি টিম নদীতে অভিযান পরিচালনা করছে।
এদিকে ছিনতাই হওয়া জেলে পরিবারে হতাশা বিরাজ করছে।

রামপালে শ্রীকৃষ্ণের জন্মাষ্টমী উপলক্ষে বর্ণাঢ্য শোভাযাত্রা

রামপাল (বাগেরহাট) প্রতিনিধিঃ  রামপালে পূজা উদযাপন পরিষদের উদ্যোগে শ্রীকৃষ্ণের শুভ আবির্ভাব তিথী শ্রীশ্রী জন্মাষ্টমী অনুষ্ঠানের শোভা যাত্রা, আলোচনা সভা, সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান ও ব্যাপক উৎসাহ উদ্দীপনার মধ্য দিয়ে পালিত হয়েছে। ১৪ আগস্ট বেলা ১১ টায় রামপাল কেন্দ্রীয় পূজা মন্দিরে উপজেলা পূজা উদযাপন কমিটির সভাপতি জয়দেব কৃষ্ণ দেবনাথের সভাপতিত্বে ও সাধারন সম্পাদক এবং জেলা পরিষদ সদস্য অসিত কুমার কুন্ডুর সঞ্চালনায় অনুষ্ঠিত হয়। অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন বাগেরহাট Ñ৩ আসনের সংসদ সদস্য আলহাজ্ব তালুকদার আব্দুল খালেক। বিশেষ অতিথি ছিলেন রামপাল উপজেলা চেয়ারম্যান শেখ আবু সাঈদ, উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা তুষার কুমার পাল, উপজেলা আওয়ামীলীগ সভাপতি আলহাজ্ব শেখ আঃ ওহাব, সাধারন সম্পাদক জামিল হাসান জামু, সাবেক উপজেলা চেয়ারম্যান মোল্যা আঃ রউফ, মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান হোসনেয়ারা মিলি, উপজেলা মুক্তিযোদ্ধা কমান্ডার শেখ মোজাফ্ফর হোসেন, জেলা পরিষদ সদস্য অতিন্দ্রনাথ হালদার দুলাল, হুড়কা ইউপি চেয়ারম্যান তপন কুমার গোলদার, হিরন চন্দ্র দাসসহ রামপাল সার্বজনীন পূজা মন্দিরের নেতৃবৃন্দ¡ ও বিভিন্ন এলাকা থেকে আগত হিন্দু ধর্মালম্বীরা কেন্দ্রীয় মন্দিরে এই মিলনমেলায় অংশগ্রহন করে।

জাতির পিতা ছিলেন একজন সত্যবাদি নেতা খুলনা আ’লীগ উপচার্য

প্রেস বিজ্ঞপ্তিঃ খুলনা বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য প্রফেসর ড. মোহাম্মদ ফায়েক উজ্জামান বলেছেন, জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান ছিলেন একজন সত্যবাদি নেতা। তিনি সত্য কথা বলতে কখনও কুন্ঠাবোধ করতেন না। যা অনেক নেতার মধ্যে নেই। গতকাল সোমবার বিকাল ৪টায় শহীদ হাদিস পার্কে সদর থানা আওয়ামী লীগ আয়োজিত এ্যাড. মো. সাইফুল ইসলামের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত “বঙ্গবন্ধু ও বাংলাদেশ” শীর্ষক আলোচনা সভায় প্রধান আলোচকের বক্তব্যে এসব কথা বলেন। তিনি বঙ্গবন্ধুর ছাত্রজীবনের বেকার হোস্টেলের ঘটনা তুলে ধরে বলেন, বঙ্গবন্ধু ছাত্রজীবনে কলকাতার বেকার হোস্টেলে থাকতেন। রাজনীতি করার কারনে তিনি প্রতিনিয়ত গভীর রাতে হোস্টেলে ফিরতেন। এ বিষয়টি হোস্টেলের অন্যান্যরা বিরক্তি বোধ করতেন। ওই সময়ে বেকার হোস্টেলের সুপার ছিলেন, ড. সাইদুর রহমান। তাঁর কাছে অন্যান্য ছাত্ররা অভিযোগ করলেন যে, শেখ মুজিব গভীর রাত করে হোস্টেলে ফিরে এতে আমাদের সবার অসুবিধা হয়। তখন হল সুপার শেখ মুজিবকে ডাকলেন এবং জিজ্ঞাসা করলেন যে, তুমি প্রতি রাতে দেরী করে ফিরে কেন? তখন বঙ্গবন্ধু মুজিব নির্ভয়ে উত্তর দিলেন, স্যার আমি রাজনীতি করি। সেকারনে রাতে দেরী হয়। তখন হল সুপার বঙ্গবন্ধু মুজিবকে অনুমতি দিলেন এবং সবাই ডেকে বলে দিলেন মুজিব দেরী করে আসবে। উপাচার্য বলেন, বঙ্গবন্ধুর সত্য বলার যে অদম্য ইচ্ছা এটা খুবই বিরল। তিনি আরো বলেন, টুঙ্গিপাড়া একটি গ্রাম; যে গ্রামটিকে বিশে^র মানুষ নামে এবং ভৌগলিকভাবে চিনে। কিন্তু পৃথিবীর এমন কোন দেশের গ্রাম নেই যে গ্রামকে বিশে^র মানুষ নামে বা স্থানগত কারনে চিনে। ব্যতিক্রম শুধু টুঙ্গিপাড়া গ্রাম নিয়ে। তিনি বলেন, বঙ্গবন্ধুুকে যারা হত্যা করে টুঙ্গিপাড়া দাফন করেছিলো, তাদেরকে কর্নেল তাহের তাদেরকে বলেছিলো যে, শেখ মুজিবকে টুঙ্গিপাড়ায় দাফন না করে বঙ্গপোসাগরে ভাসিয়ে দিলে না কেন? তখন ডালিম রশিদ গংয়েরা বলেছিলো কেন? তখন কর্নেল তাহের বলেছিলো, টুঙ্গিপাড়া একদিন শেখ মুজিবের মাজার হবে আর দেশ বিদেশের মানুষ সেখানে আসবে, আর বঙ্গপোসাগরে ফেলে দিলে তার কোন অস্তিত্বই থাকতো না। তিনি তার বক্তব্যে বলেন, বঙ্গবন্ধু ছিলেন একজন প্রকৃত দেশ প্রেমিক রাজনীতিবিদ। তাঁর দেশপ্রেম তাঁকে তাঁর জন্মস্থানে দাফন করিয়েছে। কোন অপশক্তিই তাকে রুখতে পারেনি। তিনি বলেন, যারা বঙ্গবন্ধুর সাথে বিশ^াসঘাতকতা করেছে তাদের কারো কারো লাশও পাওয়া যায়নি। শুধু মিথ্যে মরিচিকার মধ্যদিয়ে মানুষকে প্রহসন করা হয়েছে। স্মৃতিচারণ করতে গিয়ে উপাচার্য আরো বলেন, ড. সাইদুর রহমানকে একদিন বঙ্গবন্ধু মুজিব জিজ্ঞাসা করলেন স্যার দেশ কেমন চলছে? ড. সাইদুর রহমান বললেন, ভালো না। ড. সাইদুর রহমান তখন বললেন, তুমি মন্ত্রিপরিষদে কয়েকজন সৎ ও দক্ষ মানুষ নেও। বঙ্গবন্ধু তখন ড. সাইদুর রহমানকে বললেন, স্যার এই দায়িত্বটা আপনিই নেন এবং আগামী তিন মাসের মধ্যে দুই শ’ সৎ মানুষের নাম লিখে আমাকে দিন। তিন মাসেও ড. সাইদুর রহমান নাম দিতে পারেন নি। তিনমাস পরে ড. সাইদুর রহমান বুঝে ছিলেন দেশ পরিচালনা একটি সত্যই কঠিন কাজ আর সৎ মানুষ পাওয়া আরো কঠিন বিষয়। তিনি বঙ্গবন্ধুর আদর্শ এবং তাঁর রাজনৈতিক জীবনকে সামনে রেখে সকল স্বাধীনতাকামী মানুষকে এগিয়ে আসার আহবান জানান।
সদর থানা আওয়ামী লীগ সাধারণ সম্পাদক ফকির মো. সাইফুল ইসলামের পরিচালনায় বক্তব্য রাখেন, খুলনা মহানগর আওয়ামী লীগ সভাপতি ও সাবেক মন্ত্রী আলহাজ¦ তালুকদার আব্দুল খালেক এমপি, খুলনা আওয়ামী লীগ সভাপতি ও জেলা পরিষদ চেয়ারম্যান শেখ হারুনুর রশিদ, কলেজ শিক্ষকদের প্ক্ষ থেকে বক্তব্য রাখেন, আহসান উল্লাহ কলেজের অধ্যক্ষ শহিদুল হক মিন্টু, স্কুল শিক্ষকদের পক্ষ থেকে বক্তব্য রাখেন, পল্লী মঙ্গল হাইস্কুলের প্রধান শিক্ষক শেখ মো. রফিকুল ইসলাম, শিক্ষার্থীদের পক্ষে বক্তব্য রাখেন, আসিফ আদনান অমি।

মোংলা থানার নব নিযুক্ত ওসির সাংবাদিকদের সাথে মতবিনিময়

মোংলা প্রতিনিধিঃ মোংলা থানায় নব নিযুক্ত ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা মো: ইকবাল বাহার চৌধুরী সাংবাদিকদের সাথে মতবিনিময় করেছেন। সোমবার রাতে ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তার কার্যালয়ে অনুষ্ঠিত মতবিনিময় সভায় প্রেস ক্লাবের সভাপতি মনিরুল হায়দার ইকবাল, সাবেক সভাপতি এইচ এম দুলাল, এম এ মোতালেব, আহসান হাবিব হাসান, সাধারণ সম্পাদক আমির হোসেন আমু, সাবেক সাধারণ সম্পাদক হাসান গাজী, সুন্দরবন সাংবাদিক ফোরাম’র মোংলা শাখার সাধারণ সম্পাদক আবু হোসাইন সুমন, মোংলা টিভি জার্নালিস্ট এ্যাসোসিয়েশনের সাধারন সম্পাদক নুর আলম শেখসহ প্রেস ক্লাবের সদস্যরা উপস্থিত ছিলেন। সভায় ওসি ইকবাল বাহার চৌধুরী মাদক ও জুয়াসহ সকল ধরণের অপরাধ দমনে এবং আাইন শৃঙ্খলা পরিস্থিতি স্বাভাবিক-নিয়ন্ত্রণে রাখার জন্য সাংবাদিকদের পরামর্শ ও সহযোগীতা কামনা করেছেন। এ সময় সাংবাদিকেরাও নব নিযুক্ত ওসিকে স্বাগত জানানোর পাশাপাশি মোংলা বন্দর শহর ও সুন্দরবনের মত গুরুত্বপূর্ণ পর্যটন স্পটে দেশ-বিদেশ থেকে আগত দর্শনার্থীরা যেন কোনভাবেই হয়রানীর শিকার না হয় সেদিকে পুলিশের বিশেষ নজরদারীর পরামর্শ দেন। গত ১০ আগস্ট মোংলা থানার অফিসার ইনচার্জ হিসেবে দায়িত্ব বুঝে নেন ইকবাল বাহার চৌধুরী। এর আগে তিনি মেহেরপুরের গাংনী থানায় দায়িত্বরত ছিলেন।

ড্রেজারের সাথে কার্গো জাহাজের ধাক্কা লাগার ঘটনা ১ লাখ টাকায় মিমাংসা

মোংলা প্রতিনিধিঃ মোংলা-ঘাষিয়াখালী চ্যানেলে ড্রেজারের সাথে কার্গো জাহাজের ধাক্কা লাগার ঘটনায় কার্গোর পাইলট, মাষ্টার ও কর্মচারীদের মারধর এবং ভাংচুরের ঘটনায় ওই ড্রেজার ষ্টাফদের ১ লাখ টাকা জরিমানা করে বিষয়টি মিমাংসা করা হয়েছে। এদিকে পরবর্তীতে যাতে আর কোন ধরণের দুর্ঘটনা না ঘটে সেজন্য চ্যানেল দিয়ে নির্দিষ্ট সময় নৌযান চলাচলের সময় ড্রেজার ও পাইপ মুল চ্যানেলের নিরাপদ দুরত্বে রাখার জন্য নির্দেশনা দেয়া হয়েছে।
সংশ্লিষ্ট সূত্রে জানা যায়, শনিবার সকালে এ নৌপথ দিয়ে এম,ভি গালফ-০৭ নামক একটি কার্গো জাহাজ যাওয়ার সময় চ্যানেলের রনবিজয়পুর এলাকায় খনন কাজে নিয়োজিত ড্রেজার মাতৃবাংলা’র সাথে ধাক্কা লাগে। এ সময় ড্রেজারের লোকজন কার্গোটিকে আটক করে পাইলট, মাষ্টার ও কর্মচারীদের বেদম মারপিট করে গুরুতর আহত ও জাহাজের গ্লাসসহ অন্যান্য মালামাল ভাংচুর করে। এ ঘটনায় কার্গোর ড্রাইভার শনিবার সন্ধ্যায় রামপাল থানায় লিখিত অভিযোগ দেয়ার পর স্থানীয় সংসদ সদস্য আলহাজ তালুকদার আব্দুল খালেকের নির্দেশে বিষয়টি মিমাংসার জন্য রবিবার বিকেলে কালিগঞ্জ বাজারে শালিসী বৈঠকে বসেন রামপাল উপজেলা নির্বাহী অফিসার তুষার কুমার পাল, রামপাল থানার অফিসার ইনচার্জ বেলায়েত হোসেন, বাশতলী ইউপি চেয়ারম্যান শেখ মোহাম্মদ আলী, বিআইডব্লিউটিএর ড্রেজিং বিভাগের সহকারী প্রকৌশলী মো: দিদার এ আলম, নির্বাহী প্রকৌশলী আ: রব ও ড্রেজার এবং কার্গোর ষ্টাফরা। বৈঠকে আহতদের চিকিৎসা ও জাহাজে ভাংচুরের ক্ষতিপূরণ বাবদ ২ লাখ ২২ হাজার টাকা দাবী করেন কার্গো ষ্টাফরা। পরে উভয় পক্ষের সম্মতিতে ১ লাখ টাকা জরিমানা করা হয় ড্রেজার ষ্টাফদের।
এ বিষয়ে রামপাল উপজেলা নির্বাহী অফিসার তুষার কুমার পাল বলেন, কার্গোর ষ্টাফদের চিকিৎসা ও ভাংচুরের ক্ষতিপূরণ বাবদ ১ লাখ টাকা জরিমানা করে বিষয়টি নিষ্পত্তি করা হয়েছে। বিআইডব্লিউটিএ’র ড্রেজিং বিভাগের নির্বাহী প্রকৌশলী আ: রব বলেন, পরবর্তীতে যাতে আর এ ধরণের দুর্ঘটনা না ঘটে সেজন্য সকল ড্রেজারকে নৌযান চলাচলের সময় মুল চ্যানেল ফাকা রেখে নিরাপদে ড্রেজার ও পাইপ রাখার নির্দেশনা দেয়া হয়েছে। আশা করছি ভবিষ্যতে এ ধরণের অপ্রীতিকর ঘটনা আর ঘটবে না।

লামায় ছিন্নমূল মানুষের মাঝে ১২০টি ছাতা বিতরণ

লামা, বান্দরবান প্রতিনিধিঃ ফার্স্ট এইড ফাউন্ডেশন নামের একটি স্বেচ্ছাসেবী সংগঠনের উদ্যোগে লামা উপজেলার গজালিয়া ইউনিয়নে প্রত্যন্ত জনপদের ১২০জন ছিন্নমূল মানুষের মাঝে ১২০টি ছাতা বিতরণ করেন।

সোমবার সকাল ১০ঘটিকায় সময় গজালিয়া ইউনিয়ন পরিষদ প্রাঙ্গনে এ ছাতা বিতরণ করা হয়। ফার্স্ট এইড ফাউন্ডেশনের দেওয়া ১শত ২০টি ছাতা বিতরণ অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন গজালিয়া ইউপি চেয়ারম্যান ও লামা উপজেলা আ.লীগের সাধারণ সম্পাদক বাথোয়াইচিং মারমা।

এ সময় ছিন্নমূল মানুষের মাঝে ছাতা তুলে দিয়ে প্রধান অতিথি বলেন, অতি বৃষ্টির কারণে মানুষ কষ্ট পাচ্ছে। তাই এ কষ্ট অনুভব করে ঢাকা থেকে পরিচালিত স্বেচ্ছাসেবী সংগঠন ফার্স্ট এইড ফাউন্ডেশন এর পরিচালক মোঃ শামসুদোহা তাপস গজালিয়া ইউনিয়ন মানুষের জন্য ১২০টা ছাতা আমার বড় ছেলে কাছে পাঠিয়েছে। এর পূর্বে শীতের মৌসুমেও শীত বস্ত্র বিতরণ , ফ্রি ঔষুধ ও চিকিৎসা সেবা প্রদান করে ছিলেন।

এ সময় অন্যান্যের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন, ইউপি সদস্য, পাড়ার গণ্যমান্য ব্যক্তিবর্গ ও স্থানীয় সেচ্ছাসেবককর্মীবৃন্দ।