ইকমার্সের ডিজাইন আপনার ব্র্যান্ড তৈরিতে কতটা ভুমিকা রাখে!

তথ্য প্রযুক্তিঃ- বর্তমান সময়ে আমরা অনলাইনে প্রায় সব কিছুই করি আর কেনাকাটাও এর মধ্যে অন্তর্ভুক্ত। যে কারণে ইকমার্সের এই সময়ের চেয়ে আর ভালো সময় কখনোই ছিলো না।
আজকাল, আপনি যদি কিছু বিক্রি করে থাকেন তবে তাহলো খাবার, ড্রেস, ইলেক্ট্রনিক্স বা এমন কিছু যা আপনার মধ্যে একটা ইকমার্স ট্রেন চালু করার মতো। একটি ইকমার্স সাইট আপনাকে আপনার ব্র্যান্ড তৈরি করতে, আরও বেশি গ্রাহকদের সাথে সংযোগ স্থাপন এবং আরও পণ্য বিক্রয় করার সুযোগ করে দেবে। আর এই সুযোগটি আপনি তখনই পাবেন যখন আপনি আপনার ওয়েবসাইটের জন্য একটা ভালো ডিজাইন পাবেন।
ওয়েব ডিজাইন একটি ওয়েবসাইট তৈরী করার সময় সব থেকে গুরুতর একটা পার্ট। ভালো ডিজাইন হলে তা মানুষের দৃষ্টি আকর্শনে কাজে দেয় আর এই আকর্শনটাই আপনাকে একটা পণ্য বিক্রির চ্যানেল তৈরী করে দেবে। দুর্দান্ত ব্যবহার অভিজ্ঞতা আর আপনার দোকানটিকে আলোতে উপস্থাপন করার নিশ্চয়তাও এই ডিজাইনের একটা অংশ।
আপনার ব্রান্ডটিকে পরবর্তী স্তরে নিয়ে যেতে কিছু ইকমার্স ওয়েব ডিজাইন টিপসঃ
১/ সহজবোধ্য
ইকমার্স এর ডিজাইন করার সময় মাথায় রাখা উচিৎ যে এটি অনেকটা চুমুর মতো। তাই একে যতো সহজ রাখা যাবে ততোই ভালো। সহজ সর্বদা ভালো, এই প্রচলিত বাক্যটি ভুলে গেলে চলবে না।
২/ ব্র্যান্ডিংকে অগ্রাধিকার দিন
অনলাইনে কেনাকাটার বিষয়টি যখন আসে তখন লোকেরা প্রতিষ্ঠিত ব্র্যান্ডগুলি থেকে কিনতে চায়। এমন কারো কাছ থেকে তারা কিনতে চায় না, যাদের ভিত্তি দুর্বল এবং তথ্য চুরির ভয় থাকে। তাই সব সময় ব্র্যান্ডিংকে অগ্রাধিকার দিন।
৩/ নিজেকে কাস্টমারের ভুমিকায় ভাবুন
আপনি যদি আপনার ইকমার্স ওয়েবসাইটটি আপনার কাস্টমারের সাথে সংযোগের মাধ্যম হিসেবে স্থাপন করতে চান তবে আপনাকে শুরু থেকেই একজন কাস্টমারের মতো ভাবতে হবে। এতে করে আপনি কাস্টমারের চাহিদা বুঝতে পারবেন, যা আপনার সম্ভাব্য গ্রাহকরা কেনাকাটার প্রক্রিয়াটিকে আরো সহজ, সরল ও ঝামেলা-মুক্ত করে তুলবে।
৪/ রঙ(কালার) ব্যবহার করুন
বিভিন্ন রঙ বিভিন্ন অনুভূতি, আবেগ এবং লোকেদের ক্রিয়াকে অনুপ্রাণিত করতে পারে। সুতরাং, আপনি যদি নিজের ইকমার্স সাইটে কাস্টমারদের ধরে রাখতে চান তবে আপনাকে সেই সমস্ত রঙের ছোয়া থাকা জরুরী।
৫/ হাই কোয়ালিটি ছবি ব্যবহার করুন
আপনার ওয়েবসাইটে পণ্য না দেখে কেউ কিনতে যাবে না।
কেউ অদেখা পণ্য দর্শন কিনতে যাচ্ছেন না। আপনি যদি লোকেরা আপনার পণ্যগুলি কিনতে চান তবে আপনাকে উচ্চ-মানের পণ্য চিত্রগুলির মাধ্যমে তারা কী কিনছে তা তাদের দেখানো দরকার।
৬/ প্রোফেশনাল করুন
একটি ইকমার্স সাইটের কাজ হলো আপনি আপনার ওয়েবসাইটের মাধ্যমে কাস্টমারের কাছে কিছু কিনতে বলছেন। যার ফলস্বরূপ, আপনি তাদের তাদের ক্রেডিট কার্ডের তথ্যের মতো সংবেদনশীল তথ্যগুলি আপনাকে প্রদান করতে বলছেন। তাই যদি তারা আপনার ওয়েবসাইটে প্রোফেশনাল ভাব না পায় তাহলে আর ফিরে আসবে না।
৭/ সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমকে প্রমাণস্বরূপ ব্যবহার করুন
বিশ্বাস তৈরির আর একটি অতি-গুরুত্বপূর্ণ উপায় হচ্ছে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম। আপনি যখন নিজের ইকমার্স সাইটটি ডিজাইন করছেন, তখন আপনার সম্ভাব্য গ্রাহকদের আপনার বিদ্যমান গ্রাহকদের কাছ থেকে পাওয়া ইতিবাচক প্রতিক্রিয়া দেখানোর উপায়গুলি সন্ধান করুন। একটি রেটিং বিভাগ যুক্ত করুন যেখানে লোকেরা আপনার পণ্যগুলি রেট করতে পারে।
৮/ ক্যাটেগরীগুলোকে সহজে খুজে পাওয়ার ব্যবস্থা করুন
আপনার পণ্যের বিভাগ এবং পণ্যের পৃষ্ঠাগুলি নেভিগেট করাটা সহজ করুন। আপনার গ্রাহকদের জন্য পণ্যগুলি অনুসন্ধান করা এবং রঙ, আকার বা পণ্যের ধরণের মতো পণ্যগুলি ফিল্টার করা সহজ করে দিন। আপনি আপনার গ্রাহকদের জন্য তারা কী সন্ধান করছেন তা খুঁজে পাওয়া যত সহজ করবেন তাদের জন্য পণ্য কেনা ততটা সহজতর হবে।
৯/ চেকআউট প্রোসেসকে সহজ ও স্বচ্ছ করুন
আপনার চেকআউট পৃষ্ঠা পরিষ্কার, সরল এবং নেভিগেট করা সহজ করুন। আপনার গ্রাহকদের আপনার সাইটের রেজিস্ট্রশন বা গেষ্ট হিসেবে চেকআউট করার অপশন দিন। প্রক্রিয়াটির একটি পরিষ্কার ধারণা প্রদান করুন যে ক্রয় করার জন্য আপনার কী তথ্য প্রয়োজন, বিভিন্ন শিপিংয়ের বিকল্প রাখুন এবং যদি অর্ডার করতে সমস্যা হয় তবে কী করতে হবে বা পণ্য রিটার্ন করার অপশন সম্পর্কে পরিষ্কার ধারণা দেবার চেষ্টা করুন। পন্য ক্রয় করার পরে গ্রাহককে সফল ম্যাসেজ দেখান।
১০/ ডিভাইস রেস্পন্সিভ করুন
এটা নিশ্চিতভাবে বলা যাবে না যে সকল গ্রাহক কম্পিউটার থেকে আপনার ওয়েবসাইট ব্যবহার করবে। তাই মোবাইলে ব্যবহার উপযোগী করে তুলুন। এতে করে মোবাইলের গ্রাহক সংখ্যা বাড়ার সাথে সাথে আপনার বিক্রিও বাড়বে।
আজ এপর্যন্তই। ইকমার্স বিষয়ক আপনার প্রশ্ন আমাকে জানতে পারেন কমেন্ট বা ম্যাসেজ এ। চেষ্টা করবো উত্তর দেবার জন্য। ধন্যবাদ।
– সাইদুর রহমান (mrahmansayed.com) ফেসবুক fb.com/ItsOnlySayed

আপনার মতামত জানানঃ