চালনা পৌরভবনে সংগঠিত হয়েছে রহস্যজনক চুরি

দাকোপ প্রতিনিধিঃ নারী ঘটিত আলোচনার রেশ না কাটতে চালনা পৌরভবনে সংগঠিত হয়েছে রহস্যজনক চুরি । নিয়ে গেছে নগদ টাকাসহ কম্পিউটার সামগ্রী। পুলিশ ঘটনাস্থল পরিদর্শন করে আলামত সংগ্রহ করেছে।
থানা পুলিশ ও পৌর পরিষদ সুত্রে জানা যায়, গত ১০ সেপ্টেম্বর শুক্রবার দিবাগত রাতে চালনা পৌরভবনে দুঃসাহসিক চুরি সংগঠিত হয়েছে। সিড়ি রুমের গ্রিল ভেঙে প্রথমে পৌর ভবনে প্রবেশ এবং পরে দরজার লক ভেঙে চোরেরা দোতলায় অফিস কক্ষে প্রবেশ করে। পৌরসভার লাইসেন্স ইন্সেপেক্টর মোঃ সাইফুদ্দিনের ব্যবহ্নত ষ্টীলের আলমারী ভেঙে আনুমানিক দেড় লক্ষ টাকা এবং কম্পিউটারের পিসি চুরি হয়েছে বলে জানা গেছে। অথচ একই কক্ষে আরো কয়েকটি আলমারী ও কম্পিউটার অক্ষত অবস্থায় ছিল ! ঘটনার রাতে দায়িত্বরত নাইট গার্ড পৌরভবনের নিরাপত্তায় দায়িত্বে ছিল বলে দাবী করা হয়েছে। প্রাথমিক তথ্যের ভিত্তিতে শনিবার সকালে দাকোপ থানার ওসি তদন্ত আশরাফুল ইসলামের নেতৃত্বে পুলিশ ঘটনাস্থল পরিদর্শনসহ আলামত সংগ্রহ করেছে। এ দিকে চুরির বিষয়টি জানতে পেরে ভারপ্রাপ্ত মেয়র মেহেদী হাসান বুলবুলের সভাপতিত্বে শনিবার সকালে পৌর পরিষদের এক বিশেষ সভা অনুষ্ঠিত হয়। সভায় পুলিশী তদন্তের পাশাপাশি এই চুরির রহস্য উদঘাটনে কাউন্সিলর রুস্তুম আলী খানকে প্রধান করে পৌরসভার অভ্যান্তরীন তদন্ত কমিটি গঠনের পাশাপাশি থানায় লিখিত অভিযোগ দেওয়ার সিদ্ধান্ত হয়। পৌরসভার মেয়র সনত বিশ্বাস চিকিৎসার জন্য গত ২ সেপ্টেম্বর থেকে ভারতে অবস্থান করছে। উল্লেখ্য সম্প্রতি চালনা পৌরভবনের সিড়ি রুমে নারী নিয়ে অনৈতিক কাজের অভিযোগ ওঠে পৌরসভার কর্মচারীদের বিরুদ্ধে। যে কারনে গত ৫ সেপ্টেম্বর এক বিশেষ সভায় নাইটগার্ড বিপ্লব সরকার, পিয়ন পিয়াস বৈরাগী এবং পানি শাখার আমিরুল ইসলামকে সাময়িক বরখাস্ত করা হয়। একই সাথে বিষয়টি তদন্ত করতে কাউন্সিলর আঃ বারিক শেখকে প্রধান করে গঠিত ৭ সদস্যের তদন্ত কমিটিকে অনৈতিক কাজের সাথে কে বা কারা জড়িত সে বিষয়ে ১৫ দিনের মধ্যে প্রতিবেদন দাখিলের কথা বলা হয়। তার মাঝে সংগঠিত হল এমন রহস্যজনক চুরি।

আপনার মতামত জানানঃ