দাকোপে সরকারি চাকুরিজিবীদের বিরুদ্ধে নানা অভিযোগ-পর্ব ২

দাকোপ, খুলনা : নিজ বাড়ীতে থেকে চাকরির মজাই আলাদা।বাড়িতে থেকে শুধু না,বাড়িতে শুয়ে বসে,বাড়ির কাজ তদারকি করে এমনকি ব্যবসা পরিচালনার ফাঁকে সরকারি চাকরি এবং মাসে মাসে মোটা অংকের বেতন পেলে কেমন হয় সে চাকরি ? এর থেকে আরামের আর কি হতে পারে। দাকোপের বাসিন্দা দাকোপের ভোটার এমন অনেকেই দীর্ঘকাল ধরে দাকোপ সদর এলাকায় বাড়িঘর করে বাড়ির চাষবাস, বাড়ির সকল কাজকর্ম দেখাশুনা এমনকি অনেক চাকরিজিবী রিতীমত ব্যবসা পরিচালনা করে নামকেওয়াস্তে অফিসে হাজিরা দিয়ে হাজিরায় সাক্ষর করে দায়িত্ব পালন শেষ করছে বলে এলাকাবাসি ও খোদ সরকারি কর্মকর্তাদের অভিযোগ। এনারা শুধু বাড়িতে বসে চাকরি ও বেতন গ্রহন না এ সকল চাকরিজিবীদের অধিকাংশই রাজনীতিতে জড়িত ,অভিযোগ আছে রাজনীতি ও নেতাদের সাথে জড়িত থেকে প্রভাব খাটিয়ে ৫ থেকে ২০/২৫ বছর নিজ বাড়ির উপর কর্মস্হলে আরামে চাকরি করে চলেছে । এদেও বিরুদ্ধে অফিসের কর্তাব্যাক্তিও তেমন কোন ব্যবস্হা নিতেও পারে না আবার নিয়েও ফল হয় না বলে জানা গেছে। দাকোপ হাসপাতালে এমন চাকরিজিবীর তালিকা অনেক লম্বা।চালনা হাসপাতালের অনেক কর্মচারি এখানে চাকরি করতে এসে কোনদিন আর অন্য উপজেলায় কখনও চাকরি করেনি,তাদের প্রায় সকলেই এখানে জায়গা কিনে বসবাস করছে। আর হাসপাতালে অভ্যন্তরের বিরাট মাঠ যেন এদের বাপদাদার সম্পদ কারন এখানে যা কিছু ফসল এরা ভোগ করে এবং মাঠে এদের গরুছাগোল চরে। নার্সদেরও প্রায় সকলে এলাকার হওযায় তাদের স্বাধীনতা তাদের প্রভাবের কারনে রোগিরা অনেকাংশে সেবা থেকে বনচিত হয় বলে এলাকাবাসির অভিযোগ রয়েছে। এমনিভাবে উপজেলা পরিষদের বিভিন্ন অফিসের পিয়ন,ড্রাইভার,নাইটগার্ডদের কয়েকজন একই কর্মস্হলে সারাঝীবন চাকরি এবং নানা অনিয়মের অভিযোগ দেড়যুগ আগে থেকে বর্তমান অবদি।উপজেলার নানা সম্পদ আত্মসাৎ এর অভিযোগও আছে এদের বিরুদ্ধে।

আপনার মতামত জানানঃ