নুরুল আলম ছিলেন নির্মোহ ও স্বচ্ছ রাজনীতিবিদ – খোরশেদ আলম সুজন

চট্টগ্রাম ব্যুরো: চট্টগ্রাম মহানগর আওয়ামীলীগের কার্যনির্বাহী সদস্য, সাবেক ভারপ্রাপ্ত মেয়র ও ৩৮নং ওয়ার্ডেও সাবেক কমিশনার এবং বন্দর থানা আওয়ামীলীগের সাবেক সভাপতি নুরুল আলম ছিলেন একজন নির্মোহ ও স্বচ্ছ রাজনীতিবিদ। আজ শুক্রবার (৪ জুন ২০২১ইং) সকালে মরহুমের ১ম মৃত্যু বার্ষিকীতে তার কবওে পুষ্পমাল্য অর্পণ শেষে দোয়া মোনাজাত কালে একথা বলেন চট্টগ্রাম মহানগর আওয়ামীলীগের সহ-সভাপতি এবং চট্টগ্রাম সিটিকরপোরেশনের সাবেক প্রশাসক খোরশেদ আলম সুজন।

এ সময় সুজন বলেন ১৯৭৩ সাল থেকে নুরুল আলম ভাইয়ের সাথে আমার পরিচয়। দীর্ঘ সময় রাজনীতির মাঠে এক সাথে কাজ করতে গিয়ে দেখেছি তিনি ছিলেন অত্যন্ত ন্যায় নিষ্ট এবং দলের প্রতি ছিল তার অসাধারণ মমত্ববোধ। আওয়ামীলীগ বিরোধী বিভিন্ন রাজনৈতিক সরকারের নানারকম প্রলোভনেও তিনি দল ও আদর্শ থেকে কোন দিন বিচ্যুত হননি। দলের রাজনৈতিক যে কোন আন্দোলন কর্মসূচীতে তিনি অগ্রণী ভূমিকা পালন করতেন। রাজনীতির বাইওে সামাজিক আন্দোলনেও ছিলতাঁর একচ্ছত্র আধিপত্য। এফপিএবি, শহর সমাজ সেবা প্রকল্প সমন্বয় পরিষদ, হালি শহর লাকী ক্লাব, মা ও শিশু হাসপাতাল, বেগম জান প্রাথমিক ও উচ্চ বিদ্যালয় পরিচালনা পর্ষদ, মাদরাসা এ তৈয়্যবিয়াসহ বিভিন্ন সামাজিক সংগঠন এবং শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের সাথে জড়িত ছিলেন তিনি। ছাত্রলীগ বৃহত্তর ডবলমুরিং থানা শাখার সভাপতি এবং চট্টগ্রাম মহানগর যুবলীগের সাবেক সিনিয়রসহ-সভাপতির দায়িত্বও পালন করেন নুরুল আলম। ১৯৯৬ এর অসহযোগ আন্দোলন এবং বন্দও অবরোধ আন্দোলনে তাঁর ভূমিকা ছিল অপরিসীম। তিনি আমৃত্যু দলের একজন নিবেদিত প্রাণ নেতা ছিলেন। উল্লেখ্য গত বছর এই দিনে করোনা ভাইরাসে আক্রান্ত হয়ে ইন্তেকাল করেন এ গুণী রাজনীতিবিদ ও সমাজ সেবক। সুজন মরহুমের কবওে পুষ্পমাল্য অর্পণ শেষে তাঁর রুহের মাগফিরাত কামনায় দোয়া কামনা করেন। অন্যান্যদের মধ্যে এ সময় উপস্থিত ছিলেন বন্দর থানা আওয়ামীলীগের ভারপ্রাপ্ত সাধারণ সম্পাদক হাজী মো. ইলিয়াছ, ৩৮নং ওয়ার্ড আওয়ামীলীগের সভাপতি এম. ঘাসান মুরাদ, সাধারণ সম্পাদক হাজী মো. হাসান, বন্দর থানা আওয়ামীলীগের শিক্ষা ও মানব সম্পদ সম্পাদক মো. কামাল উদ্দিন, ত্রাণ ও সমাজ কল্যাণ সম্পাদক মোরশেদ আলম, সাংগঠনিক সম্পাদক অধ্যক্ষ কামরুল হোসেন, ৩৮নং ওয়ার্ড আওয়ামীলীগের সহ-সভাপতি হাজী আবু নাছের, যুগ্ম-সাধারণ সম্পাদক মো. আকতারুজ্জামান, সাংগঠনিক সম্পাদক হাজী হাসান মুন্না, সালাউদ্দিন বাদশা, এম. দিদারুল আলম, বরকত উল্ল্যাহ, সরওয়ার জাহান চৌধুরী, নুরুল হুদা, শাহেদ বশর, হাজী মো. হোসেন, নজরুল ইসলাম টিটু, হাজী ছালামত আলী, হাফেজ মো. ওকারউদ্দিন, ইকবাল আলনূরী, মো. শাহনেওয়াজ, মো. শাহজাহান, হাজী আনোয়ার হোসেন, মো. সোলায়মান, মরহুমের পুত্র শহীদুল আলম রাসেল, সালাউদ্দিন মামুন, মো. কাইয়ুম প্রমূখ।

 

 

 

আপনার মতামত জানানঃ