ক্রস ব্রিডিংয়ের মাধ্যমে দেশীয় ভেড়ার জাত উন্নয়নে সাফল্য

ইউনিক প্রতিনিধি : খুলনা বিশ্ববিদ্যালয়ের এগ্রোটেকনোলজি ডিসিপ্লিনের শিক্ষক প্রফেসর ড. সরদার শফিকুল ইসলাম দক্ষিণ-পশ্চিম উপকূলীয় অঞ্চলে ভেড়ার জাত উন্নয়নের মাধ্যমে উৎপাদনশীলতা বৃদ্ধি নিয়ে গবেষণা করছেন। ইতোমধ্যে এই গবেষণা প্রকল্পের আওতায় উন্নতজাতের ২০টি ভেড়ার বাচ্চা জন্ম নিয়েছে। এগুলো আরও ৩-৪ মাসের মধ্যে বাজারজাত করার উপযোগী হবে। এই গবেষণার লক্ষ্য হচ্ছে দেশে ভেড়ার মাংস জনপ্রিয় করা। গবেষক প্রফেসর ড. সরদার শফিকুল ইসলাম জানান, দেশে খাসির মাংস প্রতিকেজি ৮০০ টাকা থেকে ৯০০ টাকা। সেক্ষেত্রে উন্নতজাতের ভেড়ার চাষ বা পালন সম্প্রসারণ করতে পারলে একদিকে মাংসের চাহিদা পূরণ হবে এবং ভোক্তারা খাসির মাংসের বিকল্প ভেড়ার মাংস ক্রয় করতে পারবেন। এছাড়া উপকূলীয় এক ফসলী এলাকায় বা অন্যত্র চাষ করে আর্থিকভাবে লাভবান হবেন। শিক্ষিত যুবক-যুবতীরা এই ভেড়া চাষের উদ্যোক্তা হতে পারেন, খামার গড়ে তুলে কর্মসংস্থানের পাশাপাশি আর্থিকভাবে লাভবান হতে পারেন। মূলত: গাড়োল জাতের পুরুষ ভেড়ার সাথে স্থানীয় স্ত্রী ভেড়ার ক্রস ব্রিডিংয়ের মাধ্যমে দেশীয় ভেড়ার উৎপাদনশীলতা বৃদ্ধির জন্য খুলনা বিশ্ববিদ্যালয়ের এগ্রোটেকনোলজি ডিসিপ্লিনের মাঠে গবেষণা কার্যক্রম পরিচালিত হচ্ছে। এগ্রোটেকনোলজি ডিসিপ্লিনের প্রফেসর ড. সরদার শফিকুল ইসলাম এ প্রকল্পের তত্ত্বাবধায়ক হিসেবে উক্ত গবেষণা কার্যক্রম পরিচালনা করছেন। গবেষণা কার্যক্রম শেষ হলে উন্নত সংকর জাতের ভেড়া পাওয়া যাবে। এছাড়া স্থানীয় ও সংকর জাতের ভেড়ার জন্য খাদ্য ব্যবস্থাপনার একটি দিক নির্দেশনাও পাওয়া যাবে। বিষয়টি মাথায় রেখে গ্রান্ট অব এ্যাডভ্যান্সড রিসার্চ ইন এডুকেশন (জিএআরই) ও বাংলাদেশ সরকারের শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের অধীন শিক্ষাতথ্য ও পরিসংখ্যান ব্যুরো (ব্যানবেইস) এর অর্থায়নে ‘যথাযথ প্রজনন ও খাদ্য ব্যবস্থাপনার মাধ্যমে বাংলাদেশের দক্ষিণ-পশ্চিম উপকূলীয় অঞ্চলের ভেড়ার উন্নয়ন’ শীর্ষক ৩ বছর মেয়াদী একটি প্রকল্প গ্রহণ করা হয়। ২০১৯ সালের জুলাই মাসে প্রকল্পটি শুরু হয়।

শ্যামনগরের খোলপেটুয়া নদীর বেড়িবাঁধে ভাঙ্গন

সাতক্ষীরা : সাতক্ষীরার সুন্দরবন সংলগ্ন শ্যামনগর উপজেলার বুড়িগোয়ালিনী ইউনিয়নের পশ্চিম দুর্গাবাটী টুঙ্গিপাড়া এলাকায় খোলপেটুয়া নদীর বেড়িবাঁধে ভয়াবহ ভাঙ্গন দেখা দিয়েছে। সাতক্ষীরা পাউবো বিভাগ-২ এর অধীনে ৫নং পোল্ডারের পশ্চিম দূর্গাবাটি এলাকায় প্রায় আশি ফুট জায়গা খোলপেটুয়া নদীতে ধ্বসে গেছে। মঙ্গলবার সকাল সাড়ে ছয়টার দিকে নদীতে ভাটা শুরু হওয়ার পরপরই ওই ঘটনা ঘটে। বাঁধের ধ্বস ক্রমশঃ তীব্র আকার ধারণ করায় আতংকগ্রস্ত হয়ে পড়েছে ওই এলাকায় বসবাসকারি সাধারণ জনগণ। এদিকে শ্যামনগর উপজেলাকে ঘিরে থাকা উপকূল রক্ষা বাঁধের পশ্চিম দূর্গাবাটি এলাকায় ধ্বস লাগার খবর পেয়ে পানি উন্নয়ন বোর্ডের কর্মকর্তাসহ স্থানীয় জনপ্রতিনিধিরা ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেন। দিনের শেষ ভাটায় আরো মারাত্মক কিছু ঘটনার আশঙ্কায় পাউবো’র সহায়তা নিয়ে স্থানীয়রা সকাল থেকে ভাঙ্গন কবলিত অংশের বাঁধ মেরামতের চেষ্টা করতে থাকেন। পানি উন্নয়ন বোর্ড ও স্থানীয় সূত্রে জানা গেছে, সাতক্ষীরা পাউবো বিভাগ-২ এর অধীনে ৫ নম্বর পোল্ডারের দুর্গাবাটি ও পোড়াকাটলা এলাকার বাঁধ দীর্ঘদিন ধরে ভাঙ্গন মুখে রয়েছে। একাধিকবার জিও ব্যাগ ডাম্পিংসহ জিও ব্যাগ প্লেসিং সত্ত্বেও ওই অংশের নদীর চর আগে থেকে দেবে যাওয়ার সেখানে ভাঙ্গন নিত্যকার বিষয়ে পরিনত হয়েছে। এছাড়া সম্প্রতি ওই এলাকা থেকে প্রশাসনের নির্দেশ অমান্য করে ড্রেজিং মেশিনের সহায়তায় লক্ষ লক্ষ ঘনফুট বালু উত্তোলনের কারণে সমগ্র এলাকাটি ঝুঁকিপূর্ণ অবস্থায় রয়েছে। বুড়িগোয়ালিনী ইউনিয়নের চেয়ারম্যান ভবতোষ কুমার মন্ডল বলেন, দীর্ঘদিন পাউবো কর্মকর্তারা মাপ জরিপ চালাচ্ছে। নামমাত্র কিছু কাজও হয়েছে। স্থানীয়ভাবে বেড়িবাঁধের কাজ করতে গিয়ে জোড়াতালি দিয়ে কাজ শেষ করছে বলে অভিযোগ করেন তিনি। পানি উন্নয়ন বোর্ডের এসও শাহনাজ পারভীন বলেন, শ্যামনগরে যে ২৩টি স্থানে বেড়িবাঁধ ঝুঁকিপূর্ণ, তা চিহ্নিত করে ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষের কাছে পাঠানো হয়েছে। যে জায়গাটি ভেঙ্গে যাওয়ার উপক্রম হয়েছে সেটি জাইকার একটি উপ প্রকল্পের আওতাধীন ১০ কিলোমিটারের মধ্যে পড়ে। টেন্ডার ওপেন হয়েছে। দুই-একদিনের মধ্যে ঠিকাদার নিয়োগ করা হবে। ঠিকাদার নিয়োগ হলে দ্রুত কাজ শুরু করা হবে বলে তিনি জানান। তিনি আরো বলেন, দাতিনাখালিতে আরও দুটি পয়েন্টের অবস্থা ঝুঁকিপূর্ণ। ইতিমধ্যে একটি পয়েন্টে কাজ শুরু হয়েছে। স্থানীয় জেলা পরিষদ সদস্য ডালিম কুমার ঘরামি বলেন, উপকূলীয় অঞ্চলে প্রতিনিয়ত প্রাকৃতিক দুর্যোগের সাথে সংগ্রাম করে টিকে থাকতে হয় মানুষের। জনগণের জানমাল রক্ষায় উন্নয়ন পরিকল্পনার মধ্যে উপকূলীয় বেড়িবাঁধ সুরক্ষিত করার পরিকল্পনাটি আগে দরকার। পশ্চিম দুর্গাবাটি এলাকার বাঁধের ভাঙ্গন নিয়ে পাউবো’র শ্যামনগর অঞ্চলের উপ-বিভাগীয় প্রকৌশলী রাশেদুজ্জামান বলেন, তাৎক্ষণিকভাবে জিও ব্যাগে মাটি ভর্তি করে ভাঙ্গন কবলিত অংশে ফেলার কাজ শুরু হয়েছে। নদীর ওই অংশে স্কাউরিংয়ের মাত্রা বেশি হওয়ায় বার বার ওই এলাকা ভাঙ্গছে বলেও তিনি দাবি করেন। এলাকা পরিদর্শন করে শ্যামনগর উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান এসএম আতাউল হক দোলন বলেন, ভাঙ্গন কবলিত এলাকায় পাউবো’র তত্ত্বাবধায়নে বিকল্প রিং বাঁধ দেওয়া হচ্ছে।

কলারোয়ায় গৃহবধুকে নির্যাতন করে হত্যা

সাতক্ষীরা : সাতক্ষীরার কলারোয়ায় এক গৃহবধুকে যৌতুকের জন্য নির্যাতন চালিয়ে হত্যার পর মুখে বিষ ঢেলে আত্নহত্যা বলে প্রচার দেয়া হয়েছে বলে অভিযোগ উঠেছে। এঘটনায় নিহতের স্বামী এলাকা ছেড়ে পালিয়েছে। ঘটনাটি ঘটেছে মঙ্গলবার রাতে উপজেলার হেলাতলা ইউনিয়নের দামাদারকাটি গ্রামে। গৃহবধু মর্জিনার বাবা সাতক্ষীরা সদর উপজেলার শিবনগর গ্রামের কৃষক আহমদ আলী সরদার জানান, তার মেয়ে মর্জিনার সাথে চার বছর আগে কলারোয়ার নেদু সরকারের ছেলে আশরাফুল সরকারের বিয়ে হয়। এরপর থেকেই যৌতুকের জন্য নির্যাতন চালাতো স্বামী আশরাফুল। দুই বছর আগে একটি কন্যা সন্তানের জন্ম দেয় মর্জিনা। কন্যা সন্তান জন্মের পর তার নির্যাতন আরও বেড়ে যায়। সর্বশেষ মঙ্গলবার রাতে মর্জিনাকে নির্যাতন চালিয়ে হত্যার পর মুখে বিষ ঢেলে আত্মহত্যা বলে চালানোর চেষ্টা করে তার স্বামী। হত্যার পর থেকে তার স্বামী আশরাফুল এলাকা ছেড়ে পালিয়ে গেছে। তিনি এ সময় তার কন্যা হত্যার বিচার দাবি করেন এবং দ্রুত আশরাফুলকে আইনের আওতায় আনার জন্য সাতক্ষীরার পুলিশ সুপারের হস্তক্ষেপ কামনা করেন। অভিযুক্ত আশরাফুলের পিতা নেদু সরকার জানান, তার ছেলে একটু অবুঝ টাইপের এবং তার মধ্যে পাগলামীও আছে। স্বামী স্ত্রী গন্ডগোল হওয়ার কারনে মর্জিনা তার বাবার বাড়ি যেতে চাচ্ছিলো। এতে বাঁধ সাধলে তার বৌমা বিষপানে মারা যায়। তবে, তার ছেলে কোথায় আছে তা তিনি জানেন না বলে জানান। কলারোয়া থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মীর খায়রুল কবীর জানান, মর্জিনার মরদেহ উদ্ধার করে ময়না তদন্তের জন্য সাতক্ষীরা সদর হাসপাতাল মর্গে পাঠানো হয়েছে। তিনি আরো জানান, কি কারনে মর্জিনার মৃত্যু হয়েছে সেটি ময়না তদন্তের রিপোর্ট পাওয়ার পর জানা যাবে। এর আগে এ মৃত্যুর ঘটনায় রাতে থানায় একটি অপমৃত্যু মামলা হয়েছে বলে এই পুলিশ কর্মকর্তা জানান।

মাদরাসা ছাত্রের বিরুদ্ধে ধর্ষণের মামলা

শরণখোলা : বাগেরহাটের শরণখোলায় সবুজ শেখ (১৬) নামে মাদরাসা ছাত্রের বিরুদ্ধে এক হিন্দু মেয়েকে (১২) ধর্ষণের অভিযোগে মামলা হয়েছে। মঙ্গলবার রাত ৮টার দিকে উপজেলার সাউথখালী ইউনিয়নের চালিতাবুনিয়া গ্রামে এই ঘটনা ঘটে। ধর্ষক সবুজ একই ইউনিয়নের বগী গ্রামের লিটন শেখের ছেলে। সে স্থানীয় সুন্দরবন ইসলামিয়া দাখিল মাদরাসায় দশম শ্রেণিতে পড়ে। ধর্ষণের শিকার মেয়েটি চালিতাবুনিয়া সুন্দরবন মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের ষষ্ঠ শ্রেণির ছাত্রী। পুলিশ জানিয়েছে, বুধবার সকালে মেয়েটির মামা বাদী হয়ে তিন জনকে আসামী করে শরণখোলা থানায় ধর্ষণের মামলা দায়ের করেছেন। মামলার মূল আসামী সবুজকে আটক করা হয়েছে। ওই স্কুলছাত্রীকে ডাক্তারি পরীক্ষার জন্য বাগেরহাট সদর হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে। মামলা সূত্রে জানা যায়, পথেঘাটে দেখা হলেই সবুজ উত্ত্যক্ত করতো, প্রেমের প্রস্তাব দিত মেয়েটিকে। এতে সাড়া না পেয়ে ওইদিন রাতে তিন বন্ধু মিলে ওৎ পেতে থাকে ঘরের পাশে। তখন মেয়েটি তার নানার ঘর থেকে পার্শ্ববর্তী মামার ঘরে যাচ্ছিল। এসময় সবুজ শেখ গামছা দিয়ে মুখ চেপে ধরে বন্ধুদের সহযোগীতায় বাগানে নিয়ে ধর্ষণ করে মেয়েটিকে। এমন সময় বাগানে ধস্তাধস্তির শব্দ টের পেয়ে পাশের ঘর থেকে মেয়ের মামী বের হয়ে কাছাকাছি গেলেই ধর্ষক ও তার বন্ধুরা পালিয়ে যায়। শরণখোলা থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মো. সাইদুর রহমান জানান, মেয়ের মামা বাদী হয়ে নারী ও শিশু নির্যাতন দমন আইনে মামলা দায়ের করেছেন। ধর্ষককে গ্রেপ্তার করা হয়েছে। অন্য আসামীদের আটকের চেষ্টা চলছে। মেয়েটিকে ডাক্তারি পরীক্ষার জন্য বাগেরহাট সদর হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে।

গুচ্ছ পদ্ধতিতে ভর্তি পরীক্ষার আবেদন শুরু

ইউনিক ডেস্ক : দেশের ২০টি সাধারণ এবং বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের ২০২০-২১ সেশনের স্নাতক প্রথম বর্ষ ভর্তি পরীক্ষার জন্য প্রাথমিক আবেদন শুরু হয়েছে।

বৃহস্পতিবার (১ এপ্রিল) দুপুর ১২টা থেকে অনলাইনে এ অবেদন শুরু হয়। চলবে আগামী ১৫ এপ্রিল রাত ১১টা ৫৯ মিনিট পর্যন্ত।

আবেদনের যোগ্যতা

২০১৯ ও ২০২০ সালে এইচএসসি ও সমমানের পরীক্ষায় উত্তীর্ণরা প্রাথমিক আবেদন করতে পারবেন। তবে, শিক্ষার্থীদের এসএসসি ও এইচএসসির মোট জিপিএ বিজ্ঞান শাখার জন্য ন্যূনতম ৮.০০, বাণিজ্য শাখার জন্য ন্যূনতম জিপিএ-৭.৫০ ও মানবিক শাখার জন্য ন্যূনতম জিপিএ -৭.০০ থাকতে হবে। প্রত্যেক শাখার শিক্ষার্থীদের এসএসসি ও এইচএসসি পরীক্ষায় আলাদাভাবে ন্যূনতম জিপিএ-৩.৫ থাকতে হবে।

আবেদনের লিঙ্ক

যারা গুচ্ছ পদ্ধতির আওতাভুক্ত প্রতিষ্ঠানে আবেদন করতে ইচ্ছুক, তারা নিচের লিঙ্কে গিয়ে আবেদন করতে পারবেন।
https://gstadmission.ac.bd/init/apply/c780de0d3ac3c245b859f5a2b8e4782ec30f8e3d.html

ভর্তি পরীক্ষার সময়

আগামী ১৯ জুন ‘এ’ ইউনিটের (বিজ্ঞান), ২৬ জুন ‘বি’ ইউনিটের (মানবিক) ও ৩ জুলাই ‘সি’ ইউনিটের (ব্যণিজ্য) ভর্তি পরীক্ষা হবে। ঘণ্টাব্যাপী এমসিকিউ টাইপের এ পরীক্ষা দুপুর ১২টা থেকে শুরু হয়ে চলবে ১টা পর্যন্ত।

বরগুনায় পর্যটনকেন্দ্রে গৃহবধূ গণধর্ষণের শিকার

বরগুনা : বরগুনার তালতলীর সোনাকাটা ইকোপার্কে এক গৃহবধূ গণধর্ষণের শিকার হয়েছে। ধর্ষণের শিকার ওই গৃহবধূকে ডাক্তারি পরীক্ষার জন্য হাসপাতালে পাঠিয়েছে পুলিশ।

গতকাল বুধবার (৩১ মার্চ) এ ঘটনা ঘটে। ঘটনার পর চার জনকে আসামি করে থানায় মামলা হয়েছে। তবে এখন পর্যন্ত পুলিশ অভিযুক্ত চার জনের কাউকে গ্রেপ্তার করতে পারেনি।

নির্যাতনের শিকার ঐ গৃহবধূ রাইজিংবিডিকে জানান, পটুয়াখালীর কলাপাড়া এলাকা থেকে বরগুনার তালতলীতে বোনের বাড়িতে বেড়াতে যান তিনি। বুধবার দুপুরে দুলাভাইয়ের সঙ্গে ভাড়ায় চালিত মোটরসাইকেলে করে তালতলীর সোনাকাটা ইকো পার্কে বেড়াতে যান। বিকেলে তার দুলাভাই পানি কিনতে দোকানে গেলে মোটরসাইকেল চালককে মারধর করে আটকে রাখে দুই যুবক। এরপর তাকে বনের ভেতর নিয়ে পালাক্রমে ধর্ষণ করে অপর দুই যুবক। পরে মোটরসাইকেল চালকের চিৎকারে স্থানীয়রা এগিয়ে এলে চার জনই পালিয়ে যায়।

মোটরসাইকেল চালক মাহবুব হোসেন রাইজিংবিডিকে বলেন, ‘আমাকে মারধর করে হত্যার হুমকি দিয়ে ওই গৃহবধূকে বনের মধ্যে নিয়ে ধর্ষণ করে বখাটেরা।’

পরে খবর পেয়ে পুলিশ তাদের উদ্ধার করে থানায় নেয়। এসময় স্থানীয়দের দেওয়া তথ্যমতে চার বখাটেরই পরিচয় শনাক্ত করে নির্যাতিত নারী ও মোটরসাইকেল চালক মাহবুব হোসেন।

এ ঘটনায় সোনাকাটা এলাকার সোহাগ (২৫), হাসান মিয়া (২৮), মিজানুর রহমান মিজান (২৪) ও জাহিদুলকে (২৭) আসামি করে থানায় একটি ধর্ষণ মামলা দায়ের করেছেন নির্যাতিত ওই নারী। তবে রাতভর অভিযান চালিয়ে একজনকেও আটক করতে পারেনি পুলিশ।

তালতলী থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (তদন্ত) ফরিদুল ইসলাম রাইজিংবিডিকে বলেন, ‘নির্যাতিত নারীকে উদ্ধার করেই আসামিদের গ্রেপ্তারে অভিযান শুরু করেছি আমরা। দ্রুত সময়ের মধ্যে তাদের গ্রেপ্তার করতে পারব বলে আশা করছি। নির্যাতিত নারীকে ডাক্তারি পরিক্ষার জন্য বরগুনা জেনারেল হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে।’

স্থানীয়রা বলছেন, নিরাপত্তা না থাকায় প্রায় প্রতিনিয়তই তালতলীর সোনাকাটা ইকোপার্ক ও শুভ সন্ধ্যা পর্যটন কেন্দ্রে ঘুরতে এসে ধর্ষণ ও যৌন নির্যাতনের শিকার হয় পর্যটকরা।

তালতলী প্রেসক্লাবের সাবেক সাধারণ সম্পাদক জসিম উদ্দিন বলেন, ‘তালতলীর অপার সম্ভবনার পর্যটন কেন্দ্র সোনাকাটা ইকোপার্ক ও শুভ সন্ধ্যা সমুদ্র সৈকতে প্রতি বছরই পর্যটকরা ধর্ষণসহ যৌন নির্যাতনের শিকার হচ্ছেন। প্রশাসনের কড়া নজরদারি না থাকলে অপরাধ কমবে না। পর্যটক শূন‌্য হয়ে পড়বে পর্যটন কেন্দ্রগুলো।’

শরণখোলায় স্কুলছাত্রীর আত্মহত্যা

শরণখোলা : রুটি আর ডিম দিয়ে সকালের নাস্তা করবে বলে মায়ের কাছে আবদার করে হাফসা। মেয়ের আবদার মেটাতে বাড়ির পাশের একটি দোকানে ডিম-রুটি কিনতে যান মা রিনা বেগম। ১০-১৫ মিনিটের ব্যবধানে ঘরে ফিরে দেখেন মেয়েটি তার পড়ার কক্ষে গলায় ওড়না পেচিয়ে আড়ার সঙ্গে ঝুলছে। এসময় মা হতভম্ব হয়ে চিৎকার করতেই আশপাশের লোকজন ছুঁটে আসেন। আড়া থেকে নামানোর আগেই পৃথিবীর মায়া ত্যাগ করে পরপারে চলে যায় স্কুল ছাত্রী হাফসা (১৫)। বুধবার সকাল সাড়ে ৮টার দিকে বাগেরহাটের শরণখোলা উপজেলা খোন্তাকাটা ইউনিয়নের পশ্চিম গোলবুনিয়া গ্রামের ঘটে মর্মান্তি এই ঘটনা। ওই গ্রামের আ. জলিল হাওলাদারের তিন মেয়ের মধ্যে সবার বড় হাফসা। উপজেলার আমড়াগাছিয়া বহুমুখী উচ্চ বিদ্যালয়ের কারিগরি শাখায় দশম শ্রেণিতে পড়তো সে। খবর পেয়ে শরণখোলা থানা পুলিশ সকাল ১১টার দিকে ওই বাড়ি থেকে মেয়েটির মৃতদেহ উদ্ধার করেছে। ওই মেয়ের ব্যবহৃত মোবাইল ফোনটিও জব্দ করেছে পুলিশ। তবে, প্রেম ঘটিত কোনো কারণে আত্মহত্যা করতে পারে বলে প্রাথমিকভাবে ধারণা করা হচ্ছে। মেয়ের মা রিনা বেগম আহাজারি করতে করতে বলেন, মেয়ে কৌশল করে আমাকে ডিম-রুটি আনতে বাইরে পাঠিয়েছে বুঝতে পারলে আমি যেতাম না। ও এই কাণ্ড ঘটাতেই ডিম-রুটি খাওয়ার বাহানা করেছে। শরণখোলা থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মো. সাইদুর রহমান বলেন, মেয়েটির লাশ উদ্ধার করে ময়না তদন্তের জন্য বাগেরহাট সদর হাসপাতাল মর্গে পাঠানো হয়েছে। জব্দকৃত মোবাইলের সূত্র ধরে মৃত্যু রহস্য উদ্ঘাটনের চেষ্টা চলছে।

১০ রাষ্ট্রদূত যাচ্ছেন ভাসানচরে

ঢাকা : রোহিঙ্গাদের ভাসানচরে স্থানান্তর করা নিয়ে জাতিসংঘ ও পশ্চিমা দেশগুলোর দীর্ঘ বিতর্কের পর আগামী শনিবার (৩ এপ্রিল) ঢাকায় কর্মরত ১০ জন রাষ্ট্রদূত সেখানে পরিদর্শনে যাচ্ছেন।

বৃহস্পতিবার (১ এপ্রিল) এক যৌথ সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে এ তথ্য জানানো হয়েছে।

বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়, যুক্তরাষ্ট্র, যুক্তরাজ্য, ইউরোপিয়ান ইউনিয়ন, জার্মানি, ফ্রান্স, অস্ট্রেলিয়া, তুরস্ক, জাপান, নেদারল্যান্ড ও কানাডার মিশন প্রধানরা এই সফরে থাকবেন।

সরকারের একজন কর্মকর্তা জানান, বাংলাদেশের পক্ষে পররাষ্ট্র ও দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা মন্ত্রণালয়ের সচিব, পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের মিয়ানমার ও জাতিসংঘ অনুবিভাগের মহাপরিচালকরাসহ আরও কর্মকর্তা একই সময়ে সেখানে যাবেন।

যৌথ সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়, এর আগে মার্চ মাসের ১৭ থেকে ২০ তারিখ পর্যন্ত জাতিসংঘের একটি দল দ্বীপটি পরিদর্শন করেছে। এসব রাষ্ট্র রোহিঙ্গাদের জন্য তহবিল জোগান দেয়। ভাসানচরে রোহিঙ্গাদের জন্য সুযোগ-সুবিধা ও সেবা সম্পর্কে সরেজমিন গিয়ে তারা দেখবেন। এছাড়া সেখানে অবস্থানরত রোহিঙ্গাদের সঙ্গে তাদের কথা বলারও সুযোগ তৈরি হবে।

চুকনগরে অজ্ঞান পার্টি সিন্ডিকেটের দুই সদস্য আটক

চুকনগর : চুকনগরে অজ্ঞান পার্টি সিন্ডিকেটের দুই সদস্যকে আটক করেছে জনতা। বুধবার বেলা ১১টার দিকে তাদেরকে আটক করা হয়। পরে গণধোলায় দিয়ে পুলিশের কাছে সৌপাদ্য করা হয়। পুলিশ ও ভুক্তভোগী সূত্রে জানা যায়, বেশ কিছুদিন ধরে অজ্ঞান পার্টির সদস্যরা সাধারণ মানুষকে অজ্ঞান করে মালামাল ছিনিয়ে নিয়ে পালিয়ে যায়। এরই ধারাবাহিকতায় গত দেড় মাস আগে সাতক্ষীরা জেলা আশাশুনি উপজেলার গজুয়াকাটি গ্রামের পরিতোষ সরদারের কন্যা স্বপ্না সরদার(২১)এর কাছ থেকে তাকে অজ্ঞান করে চুকনগর এলাকা হতে প্রায় আট আনা ওজনের স্বর্ণালংকার ছিনিয়ে নিয়ে যায় অজ্ঞান পার্টি সিন্ডিকেটের দুই সদস্য। সেই থেকে স্বপ্না সরদার প্রতিদিনই চুকনগর বাজারে তাদেরকে খুঁজতে থাকে। একপর্যায়ে বৃহস্পতিবার বেলা ১১টার দিকে সেই অজ্ঞান পার্টি সিন্ডিকেটের দুই সদস্য চুকনগর বাজারে দেখতে পেয়ে চিনতে পারেন। সাথে সাথে তিনি চিৎকার দিয়ে লোকজন জড়ো করে তাদেরকে ধরে ফেলে গণধোলাই দিয়ে চুকনগর হাইওয়ে থানা পুলিশের কাছে সৌপাদ্য করেন। এরা হলেন খুলনা হরিণটানা থানার ইসলাম নগর গ্রামের আব্দুস সোবহানের পুত্র আলমগীর হোসেন(৩০) এবং খুলনার সোলডাঙ্গা উপজেলার গল্লামারী গ্রামের রফিকুল ইসলাম গাছির পুত্র সুমন গাছি(২৬)। জানা যায়, এই অজ্ঞান পার্টির সদস্যরা ইতিপূর্বে খুলনার ফুলতলা উপজেলার বেগুন বাড়িয়া গ্রামের সরোয়ার শেখের স্ত্রী তাছলিমা বেগম(৬০) ও তার পুত্রবধু নাদিরা পারভীন মুন্নির কাছ থেকে গত ০৪/০১/২১ইং তারিখে আট আনা ওজনের একজোড়া স্বর্ণের দুল, এক ভরি ওজনের স্বর্ণের চেইর,নগত ১০হাজার ৫শত টাকা ছিনিয়ে নেয়। এঘটনা তারা থানায় অভিযোগ দায়ের করেছে। এরপর গত ২৩/০১/২১ইং তারিখে যশোরের কেশবপুর উপজেলার আড়ুয়া গ্রামের মোঃ আবু তাহের গাজীর স্ত্রী মোছাঃ সিমা খাতুনের কাছ থেকে একটি স্বর্ণের চেইন, ১জোড়া কানের দুল,২টি আংটি ও শ্বাশুড়ীর গলায় থাকা ১টি স্বর্ণের চেইন ছিনিয়ে নেয়। এঘটনা তারাও থানায় অভিযোগ দায়ের করেছে। এরপর গত ০২/০২/২১ইং তারিখে খুলনার ডুমুরিয়া উপজেলার কাঞ্চনপুর গ্রামের সোবহান আলী মোড়লের স্ত্রী নুরী বেগমের কাছ থেকে ১ভরি স্বর্ণের চেইন ছিনিয়ে নেয়। পুলিশ জানায় চুকনগরে অজ্ঞান পার্টি সিন্ডিকেটের দুই সদস্য আটক হয়েছে এ্ই সংবাদে উপরোল্লিখত ব্যক্তিরা চুকনগর হাইওয়ে থানার সামনে উপস্থিত হয়। এসময় তাদের মালামাল কেড়ে নেয়ার মূল হোতা এই দুইজনকে চিনতে পারে এবং তারা কান্নায় ভেঙ্গে পড়ে। ভুক্তভোগী ব্যক্তিরা জানায়,এই অজ্ঞান পার্টির সদস্যরা তাদেরকে ইজিবাইকের যাত্রী হিসাবে গাড়িতে তুলে নেয়। এরপর পথিমধ্যে আরও দুই এক জন সদস্য রাস্তা থেকে তুলে নেয়। এরপর ফাঁকা রাস্তায় গিয়ে তাদেরকে অজ্ঞান করে মালামাল কেড়ে নিয়ে পথিমধ্যে তাদেরকে ফেলে রেখে চলে যায়। এ রির্পোট লেখা পর্যন্ত আটককৃতদের ডুমুরিয়া থানা পুলিশের কাছে হস্থান্তর করা হয়।

চট্টগ্রামে ১৩ মাদক সেবীকে বিভিন্ন মেয়াদে সাজা

নিজস্ব প্রতিবেদক : চট্টগ্রাম মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ অধিদপ্তরের (ডিএনসি)’র পৃথক অভিযান চালিয়ে ১৩ মাদক সেবীকে আটক করেছেন। এ সময় তাদের কাছ থেকে এক কেজি ৩শ’ গ্রাম গাজা উদ্ধার করা হয়। বৃহস্পতিবার (১ এপ্রিল) চট্টগ্রামে বিভিন্ন স্থানে অভিযান চালিয়ে তাদেরকে আটক করা হয়। ভ্রম্যমান আদালতের মাধ্যমে আটককৃতদের বিভিন্ন মেয়াদে সাজা ও অর্থদন্ড প্রদান করা হয়। ভ্রম্যামান আদালত পরিচালনা করেন নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট নিবেদিতা চাকমা।
চট্টগ্রাম মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ অধিদপ্তরের (ডিএনসি)’র সূত্র মতে, বৃহস্পতিবার সকাল ১১টা হতে মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ অধিদপ্তর চট্টগ্রাম মেট্রো কার্যালয়ের উপ পরিচালক মোঃ রাশেদুজ্জামান এর সার্বিক তত্ত্বাবধানে নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট নিবেদিতা চাকমা এর নেতৃত্বে চট্টগ্রাম মেট্রো কার্যালয়ের সকল সার্কেলের সমন্বয়ে মহানগরীর লালদিঘী, রেল স্টেশন, কদমতলী, টাইগারপাস, মেরিনার্স রোড, ও নতুন ব্রীজ এলাকায় অভিযান পরিচালনা করে ১৩ জন মাদক সেবন কারীকে ১কেজি ৩০০ গ্রাম গাঁজাসহ গ্রেফতার করেন। বিজ্ঞ নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রট নিবেদিতা চাকমা ধৃত আসামী মোঃ বাবুল (২৬), মোঃ আমির হোসেন(২৬), মোঃ আনোয়ার হোসেন (২৭), মোঃ হানিফ(২৯), মোঃ আলাউদ্দিন (১৯), প্রিয়তম দাশ(১৯),৭)শাহাবুদ্দিন(৪৯), মোঃ আলমগীর (৫০), মোঃ আলমগীর (৩০), মোঃ সুজন(২০), মোঃ মহিনউদ্দিন (২৬), মোঃ শহীদুল ইসলাম (৩৫) ও মোঃ সজল(২০) কে গ্রেফতার করে মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ আইন ২০১৮ অনুযায়ী ধৃত আসামীদের বিরুদ্ধে বিভিন্ন মেয়াদে কারাদন্ড ও অর্থ দন্ড প্রদান করেন।