ফুলতলায় সাংবাদিক সম্মেলনে ব্যাংক কর্মকর্তা অভিযোগ অবৈধভাবে জমি দখল ও মার্কেট নির্মানের চেষ্টা

ফুলতলা (খুলনা) প্রতিনিধিঃ ফুলতলা বাজার সংলগ্ন দামোদর ৮নং ওয়ার্ডের বাসিন্দা ও বাংলাদেশ ব্যাংক খুলনা শাখার অবসরপ্রাপ্ত যুগ্ন পরিচালক মোঃ দাউদ আলী মোল্যা অভিযোগ করে বলেছেন, খুলনা শহরের মিয়া পাড়া এলাকার মৃতঃ আমিরুল ইসলামের স্ত্রী ও দামোদর গ্রামের মৃতঃ শেখ মোঃ ইয়াছিনের কন্যা নিগার সুলতানা ও তার পুত্র ববি দানপত্র সূত্রে ২৬ শতক জমির মালিকানা পেয়ে তাদের জমি সংলগ্ন সরকারের খাস ৬ শতক এবং আমাদের ২১ শতাংশ জমি জোর পূর্বক দখল ও মার্কেট তৈরীর অপচেষ্টা চালাচ্ছে। আমাদের জমি দখলপূর্বক মার্কেট নির্মানের চেষ্টাকালে বাঁধা প্রদান করা হয়। শান্তি শৃঙ্খলা রক্ষা ও আইনের প্রতি শ্রদ্ধা রেখে ঐ জমিতে বাটোয়ারা মামলা বিদ্যমান থাকায় কোন প্রকার কাজ না করার জন্য ফুলতলা থানায় অভিযোগ দায়ের করা হয়। তবে প্রতিপক্ষ আইন ও আদালতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল না হয়ে করোনাকালিন সময়ে সরকার ঘোষিত লকডাউনে আমাদের জমির উপর দখল কায়েমের জন্য সুযোগ নিয়ে অবৈধভাবে আমাদের জমি দখলে নিচ্ছে।

সোমবার বিকালে প্রেসক্লাব ফুলতলায় অনুষ্ঠিত সাংবাদিক সম্মেলনে লিখিত বক্তৃতায় তিনি এ অভিযোগ করেন। এ সময় জুলুমের শিকার ক্ষতিগ্রস্থ মৃতঃ ইছাক মোল্যার পুত্র খোরশেদ আলম, দিদারুজ্জামান মোল্যা ও ইমরুল কায়েস নিতু উপস্থিত ছিলেন।

লিখিত বক্তব্যে বলা হয়, খুলনা-যশোর মহাসড়কের পশ্চিম পার্শ্বে দামোদর মৌজার আরএস-১০২৬ ও এসএ ২৩/১০৭৬ দাগে মোট ১৫৯ শতক জমি আছে। উক্ত জমির মধ্যে মালিক ফজলুর রহিমের মালিকানাধীন ২১ শতক জমির মধ্যে মোঃ দাউদ মোল্যা ৮শতক, মৃতঃ ইছাক মোল্যা ও দিদারুজ্জামান মোল্যা ৪ শতক এবং আঃ রাজ্জাকগং ৯ শতক জমি ক্রয় পূর্বক নামজারি ও খাজনা প্রদান এবং সেখানে আঃ রাজ্জাক নিজের দোকান পাট নির্মান পূর্বক দখলে থাকলেও আমাদের জমিতে দখল দিচ্ছে না। গত ২০০৭ সালের ৮মার্চ বেলা ২টার দিকে মোছাঃ ফরিদা বেগম ও তার পুত্র দিদার শেখ আমার জমি জোর পূর্বক দখল করতে আসলে তাদের বিরুদ্ধে ফুলতলা থানায় সাধারণ ডায়েরী (নং-৩৭৭, তারিখ-০৯/০৩/০৭ইং) দায়ের করি। এছাড়া গত ২০২০ সালের ১২ অক্টোবর তারিখে ফুলতলা সহকারী জজ আদালতে বাটোয়ারা মামলা (৫০/২০) দায়ের করি। আদালতে মামলা থাকা স্বত্তে¡ও আইনের প্রতি শ্রদ্ধাশীল না হয়ে নিগার সুলতানা গং আমাদের জমি অবৈধভাবে দখল পূর্বক মার্কেট নির্মানের পায়তারা চালাচ্ছে। এ ব্যাপারে গত ২৭ এপ্রিল ফুলতলা থানায় অভিযোগ দায়ের করা হয়। উভয় পক্ষকে নোটিসের মাধ্যমে থানায় উপস্থিত করতঃ ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা মাহাতাব উদ্দিন স্থিতিশীল অবস্থা বজায় রাখার নির্দেশ প্রদান করেন। কিন্তু এতদসত্তে¡ও দুনিয়াজুড়ে মরণব্যাধি করোনাকালিন লক ডাউনের সুযোগ নিয়ে সুচতুর নিগার সুলতানা গং আদালতে আমাদের নালিশী জমি দখল পূর্বক অবৈধভাবে মার্কেট নির্মানের অপচেষ্টায় লিপ্ত রয়েছে। এ অবস্থা থেকে পরিত্রান পেতে মোঃ দাউদ মোল্যা গং সংশ্লিষ্ট প্রশাসনের প্রতি আবেদন জানিয়েছেন।