ফুলতলায় জামায়াতে ইসলামীর সেক্রেটারী জেনারেল গোলাম পরওয়ারের পিতার ইন্তেকাল

ফুলতলা (খুলনা) প্রতিনিধি// কারারুদ্ধ বাংলাদেশ জামায়াতে ইসলামীর কেন্দ্রীয় সেক্রেটারী জেনারেল ও খুলনা-৫ আসনের সাবেক এমপি অধ্যাপক মিয়া গোলাম পরওয়ারের পিতা এবং ফুলতলা উপজেলার শিরোমনি গ্রামের বাসিন্দা মিয়া আব্দুল হামিদ (৯০) রোববার বেলা ১টায় রাজধানীর একটি বেসরকারি হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় ইন্তেকাল করেন (ইন্না লিল্লাহে ওয়া ইন্না ইলাহি রাজেউন) । মৃত্যুকালে তিনি স্ত্রী, ৫পুত্র, ৪কন্যাসহ বহু আত্মীয়-স্বজন ও গুনগ্রাহী রেখে যান। আজ (সোমবার ) রাত ৯টায় শিরোমনি হাই স্কুল মাঠে নামাজে জানাযা অনুষ্ঠিত হবে বলে পারিবারিক সুত্র জানিয়েছে।

 

ফুলতলায় উৎসবমুখর পরিবেশে ৪ ইউনিয়নে ২৫৮ প্রার্থীর মনোনয়নপত্র দাখিল

তাপস কুমার বিশ্বাস, ফুলতলা, খুলনা// নির্বাচন কমিশন কর্তৃক ঘোষিত ২য় দফায় ইউপি নির্বাচনে ফুলতলায় মনোনয়নপত্র জমা দেয়ার শেষ দিন গতকাল রোববার উৎসবমুখর পরিবেশে ৪ ইউনিয়নে তাদের মনোয়নপত্র দাখিল করেন। নির্বাচন অফিস সূত্র জানায়, নির্ধারিত সময়ের মধ্যে মনোনয়ন দাখিলকৃত প্রার্থীদের মধ্যে রয়েছেন চেয়ারম্যান প্রার্থী ২২, সংরক্ষিত মহিলা সদস্য প্রার্থী ৫৪ এবং সাধারণ সদস্য পদে ১৮২ প্রার্থী ।

আটরা গিলাতলা ইউনিয়নে চেয়ারম্যান প্রার্থীরা হলেন বর্তমান চেয়ারম্যান শেখ মনিরুল ইসলাম, শেখ জাহাঙ্গীর হোসেন , শেখ গোলাম কিবরিয়া, সেলিম আহমেদ ও মোঃ ইকতিয়ার হাসান মওলা। এছাড়া সংরক্ষিত মহিলা আসনে ১২ এবং সাধারণ সদস্য পদে ৪৯ প্রার্থী রয়েছেন।

দামোদর ইউনিয়নে চেয়ারম্যান প্রার্থীরা হলেন বর্তমান চেয়ারম্যান শরীফ মোহাম্মদ ভুঁইয়া শিপলু, মোঃ সোহেল সরদার, মোঃ সেলিম সরদার, প্রভাষক মোঃ আলিম মোল্যা, জোবায়দা খান সুরভী, সরদার গোলাম সরোয়ার । এছাড়া সংরক্ষিত মহিলা আসনে ১৫ এবং সাধারণ সদস্য পদে ৫৮ প্রার্থী রয়েছেন।
জামিরা ইউনিয়নে চেয়ারম্যান প্রার্থীরা হলেন বর্তমান চেয়ারম্যান মাওঃ সাইফুল হাসান খান, আবু হেনা মোস্তফা কামাল চৌধুরী বুলু, ফজলুল হক গাজী, মনিরুল ইসলাম সরদার, এসএম আতাউর রহমান, দলিল উদ্দিন মোল্যা , আল মামুন। এছাড়া সংরক্ষিত মহিলা আসনে ১৩এবং সাধারণ সদস্য পদে ৩৬ প্রার্থী রয়েছেন।
ফুলতলা ইউনিয়নে চেয়ারম্যান প্রার্থীরা হলেন বর্তমান চেয়ারম্যান শেখ আবুল বাশার, মোল্যা আলী আজম মোহন, মাওঃ মোঃ রফিকুল ইসলাম ও মোঃ সাকিব মোল্যা। এছাড়া সংরক্ষিত মহিলা আসনে ১৪ এবং সাধারণ সদস্য পদে ৩৯ প্রার্থী রয়েছেন।

নির্বাচনী কাজের সুবিধার্থে রিটানিং অফিসার হিসাবে উপজেলা নির্বাচন অফিসার শেখ জাহিদুর রহমান দায়িত্ব পালন করছেন আটরা গিলাতলা এবং ফুলতলা ইউনিয়নের । অপরদিকে দামোদর ও জামিরা ইউনিয়নের রিটানিং অফিসার হিসাবে দায়িত্ব পালন করছেন প্রাথমিক শিক্ষা অফিসার মুহাঃ আবুল কাশেম। মনোনয়নপত্র দাখিলের শেষ দিনে গতকাল রোববার উপজেলা এলাকায় ছিল উপচে পড়া ভিড়। প্রার্থীরা তাদের সমর্থকদের নিয়ে উৎসবমুখর পরিবেশে মনোনয়নপত্র জমা দিতে আসেন। ফলে দিনভর উপজেলা পরিষদ চত্ত¡র নির্বাচনী আমেজ বিরাজ করে।

বঙ্গবন্ধুর সোনার বাংলা গড়তে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নির্দেশনা অনুযায়ী চলতে হবে : বাবুল রানা

বিজ্ঞপ্তি:

খুলনা মহানগর আওয়ামী লীগ সাধারণ সম্পাদক এমডিএ বাবুল রানা বলেছেন, আওয়ামী লীগ ও সহযোগী সংগঠনের নেতৃবৃন্দসহ সকলের কাছে অনুরোধ থাকবে তারা যাতে মানুষের সাথে ভালো আচরণ করে। তাদের আরও সচেষ্ট হতে হবে সাংগঠনিক দায়িত্ব পালনের ক্ষেত্রে। অনুপ্রবেশকারীরা যেন সহযোগী সংগঠনে ঢুকতে না পারে সেজন্য সজাগ থাকতে হবে। এক্ষেত্রে তৃণমূলকে আরও শক্তিশালী হতে হবে। তিনি আরও বলেন, আমরা শেখ হাসিনার কর্মী। বঙ্গবন্ধুর সোনার বাংলা গড়তে দেশ নেত্রীর নির্দেশনা অনুযায়ী আমাদের চলতে হবে। তিনি বঙ্গবন্ধুর অসমাপ্ত কর্মকান্ড বাস্তবায়ন জন্য জননেত্রী প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বে সকল নেতাকর্মীদের ঐক্যবদ্ধ হওয়ার আহ্বান জানান।

গতকাল শনিবার সন্ধ্যা ৭টায় নগরীর ১৫নং ওয়ার্ডে খুলনা মহানগর কৃষক লীগের উদ্যোগে আয়োজিত ওয়ার্ড ভিত্তিক কর্মীসভায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এসব কথা বলেন। সভায় অন্যান্যদের মধ্যে বক্তৃতা করেন মহানগর আওয়ামী লীগের বন ও পরিবেশ বিষয়ক সম্পাদক ও প্যানেল মেয়র আমিনুল ইসলাম মুন্না, যুব ও ক্রীড়া বিষয়ক সম্পাদক শেখ ফারুক হাসান হিটলু, কেন্দ্রিয় কৃষকলীগের সহ-প্রচার ও প্রকাশনা সম্পাদক নুরুল ইসলাম বাদশা, মহানগর কৃষক লীগের সদস্য সচিব অধ্যাপক এবিএম আদেল মুকুল, ১৫ নম্বর ওয়ার্ড আওয়ামী লীগের সভাপতি মো: সফিউল্লাহ, সাধারণ সম্পাদক আসলাম আলী। কর্মী সভায় সভাপতিত্ব করেন মহানগর কৃষক লীগের আহ্বায়ক অ্যাডভোকেট একেএম শাহজাহান কচি। এ সময়ের উপস্থিত ছিলেন খুলনা মহানগর কৃষক লীগ নেতা মো: আইয়ুব আলী খান, আলমগীর মল্লিক, কানাই রায়, হেলালুর রহমান রিমন, এস এম শাহিদুল ইসলাম টিটু, মো. মাহবুব ইসলাম, মো. আব্দুল্লাহ আল আমিন রাব্বি, আবু হাসান, নজরুল মাষ্টার সহ দলের বিভিন্ন পর্যায়ের নেতৃবৃন্দ।

কর্মী সভায় মো. শাইকুল আলমকে আহ্বায়ক ও অলোক বৈরাগীকে সদস্য সচিব করে ৪৩ সদস্যের ১৫নং ওয়ার্ড কৃষক লীগের সম্মেলন প্রস্তিুতি কমিটি ঘোষণা করা হয়।

দলের মনোনীত প্রার্থীর পক্ষে সবাইকে একযোগে কাজ করতে হবে : খুলনা সিটি মেয়র

বিজ্ঞপ্তি :

খুলনা মহানগর আওয়ামী লীগ সভাপতি ও সিটি মেয়র তালুকদার আব্দুল খালেক বলেছেন, জাতির পিতার সুযোগ্য কন্যা প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বে বাংলাদেশ উন্নয়নের মহাসড়কে এগিয়ে চলছে। তাঁর বলিষ্ঠ নেতৃত্বে বাংলাদেশ বিশ্ব দরবারে মাথা উঁচু করে দাঁড়িয়েছে। দেশ আরও উন্নত সমৃদ্ধশালী করতে আগামী নির্বাচনেও শেখ হাসিনার নেতৃত্বাধীন আওয়ামী লীগ সরকারকে ফের ক্ষমতায় আনতে হবে। উন্নয়নের ধারা অব্যাহত রাখতে আসন্ন ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনে দলীয় নেতাকর্মীদের ঐক্যবদ্ধ থেকে নৌকা মার্কার বিজয় সুনিশ্চিত করতে হবে। সেই লক্ষে সংগঠনকে শক্তিশালী করতে হবে। তিনি বলেন, বঙ্গবন্ধু কন্যা শেখ হাসিনা যাকে নৌকা প্রতীক দেবেন তার জন্য সকল মান-অভিমান ভুলে কাজ করতে হবে। দলের মনোনীত প্রার্থীর পক্ষে সবাইকে একযোগে কাজ করতে হবে। শেখ হাসিনা আমাদের অভিভাবক তিনি যা সিদ্ধান্ত দিবেন সেই সিদ্ধান্ত যারা মানবে না তারা দলের সদস্য থাকতে পারবে না। সুতরাং যারাই নৌকার বিরুদ্ধে কাজ করবে তাদের বিরুদ্ধে সাংগঠনিক ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।

শনিবার সকাল ১১টায় দলীয় কার্যালয়ে মহানগর আওয়ামী লীগের বর্ধিত সভায় সভাপতির বক্তৃতায় তিনি এসব কথা বলেন। মহানগর আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক এম ডি এ বাবুল রানার পরিচালনায় সভায় বক্তৃতা করেন, খুলনা মহানগর আওয়ামী লীগের সহ-সভাপতি বেগ লিয়াকত আলী, মহানগর আওয়ামী লীগের নির্বাহী সদস্য মুক্তিযোদ্ধা স. ম. রেজওয়ান, দৌলতপুর থানা আওয়ামী লীগের সভাপতি শেখ সৈয়দ আলী, সদর থানা আওয়ামী লীগের সভাপতি এ্যাড. মো. সাইফুল ইসলাম, খানজাহান আলী থানা আওয়ামী লীগের সভাপতি শেখ আবিদ হোসেন, সাধারণ সম্পাদক এস এম আনিছুর রহমান, কাউন্সিলর আনিসুর রহমান বিশ্বাষ, ফুলতলা উপজেলা চেয়ারম্যান ও উপজেলা আওয়ামী লীগ সভাপতি একরাম হোসেন, খানজাহান আলী থানা আওয়ামী লীগের যুগ্ম সম্পাদক মনিরুল ইসলাম, ৩২নং ওয়ার্ড আওয়ামী লীগ সভাপতি মফিজুর রহমান জিবলু, ৩৪নং ওয়ার্ড আওয়ামী লীগ সাধারণ সম্পাদক খ. ম. লিয়াকত। এ সময়ে উপস্থিত ছিলেন আওয়ামী লীগ নেতা কাজী এনায়েত হোসেন, শেখ শহিদুল ইসলাম, বীর মুক্তিযোদ্ধা শ্যামল সিংহ রায়, এ্যাড. রজব আলী সরদার, বীর মুক্তিযোদ্ধা নুর ইসলাম বন্দ, অধ্যক্ষ শহিদুল হক মিন্টু, জামাল উদ্দিন বাচ্চু, বীর মুক্তিযোদ্ধা অধ্যা. আলমগীর কবীর, এ্যাড. খন্দকার মজিবর রহমান, প্যানেল মেয়র আলী আকবর টিপু, মো. শাহজাদা, মো. মুন্সি মাহবুব আলম সোহাগ, কাউন্সিলর জেড এ মাহমুদ ডন, এ্যাড. অলোকা নন্দা দাস, বীর মুক্তিযোদ্ধা মাকসুদ আলম খাজা, শেখ ফারুক হাসান হিটলু, বিরেন্দ্র নাথ ঘোষ, হাফেজ মো. শামীম, মো. মফিদুল ইসলাম টুটুল, মোজাম্মেল হক হাওলাদার, মাহাবুবুল আলম বাবলু মোল্লা, সিদ্দিকুর রহমান বুলু বিশ্বাস, ফকির মো. সাইফুল ইসলাম, শহিদুল ইসলাম বন্দ, বীর মুক্তিযোদ্ধা মোশাররফ হোসেন, মনিরুজ্জামান খান খোকন, এস এম আকিল উদ্দিন, এ্যাড. একেএম শাহজাহান কচি, মীর বরকত আলী, সফিকুর রহমান পলাশ, মো. মোতালেব হোসেন, অধ্যা. এ বি এম আদেল মুকুল, রনজিত কুমার ঘোষ, এস এম আসাদুজ্জামান রাসেল, কাউন্সিলর শেখ মোহাম্মদ আলী, কাউন্সিলর ইমান হাসান চৌধুরী ময়না, কাউন্সিলর আমেনা হালিম বেবী, কাউন্সিলর মনিরা আক্তার, কাউন্সিলর শাহিদা বেগম, আব্দুল হাই পলাশ. চ. ম মজিবর রহমান, মো. বাবুল সরদার বাদল, মো. নুর ইসলাম, শেখ জাহিদুল ইসলাম, এ্যাড. শেখ ফারুক হোসেন, মঈনুল ইসলাম নাসির, শেখ আবিদ উল্লাহ, শেখ আব্দুল আজিজ, শেখ মফিজুর রহমান হিরু, আব্দুর রউফ মোড়ল, মনিরুল ইসলাম তরফদার, খান হাফিজুর রহমান, মো. ফেরদৌস হোসেন লাবু, শেখ ইকবাল হোসেন, সরদার আব্দুল হামিদ, কাজী জাকারিয়া রিপন, মো. ইউসুফ আলী খান, মো. জাকির হোসেন, এমরানুল হক বাবু, মো. অহিদুল ইসলাম পলাশ, এশারুল হক, আতাউর রহমান শিকদার রাজু, মো. হারুন অর রশীদ, এ্যাড. শামীম মোশাররফ, মোড়ল হাবিবুর রহমান, শেখ হাসান ইফতেখার চালু, মো. জাফর ইকবাল মিলন, শেখ ওয়াহিদুজ্জামান ওহিদ, মো. ফয়েজুল ইসলাম টিটো, মো. সিহাব উদ্দিন, সৈয়দ কিসমত আলী, শেখ আব্দুল হক, মো. নজরুল ইসলাম, এস এম হাবিবুর রহমান, এস এম মনিরুজ্জামান মুকুল।

বর্ধিত সভায় ১৮ অক্টোবর জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের কনিষ্ঠপুত্র শেখ রাসেল-এর জন্মদিন যথাযোগ্য মর্যাদায় পালনের লক্ষ্যে কর্মসূচি গ্রহণ করা হয়। কর্মসূচির মধ্যে ১৮ অক্টোবর দলীয় কার্যালয়ে দিনব্যাপী কুরআনখানি, বিকাল ৪টায় মহানগর আওয়ামী লীগের উদ্যোগে কেক কাটা, আলোচনা সভা ও দোয়া মাহফিল। ২০ অক্টোবর ঈদে মিলাদুন্নবী পালনের জন্য সিদ্ধান্ত গৃহীত হয়।

সভায় মহানগরের আটরা-গিলাতলা ইউনিয়নের নির্বাচনে দেশরত্ন জননেত্রী শেখ হাসিনা মনোনীত নৌকার প্রার্থীদের পক্ষে কাজ করার সর্বসম্মত সিদ্ধান্ত হয়। যারা আওয়ামী লীগ মনোনীত প্রার্থী ও নৌকা প্রতীকের বিরুদ্ধে বিদ্রোহী প্রার্থী হয়ে কাজ করবে তাদের বিরুদ্ধে সাংগঠনিক ব্যবস্থা গ্রহণের সিদ্ধান্ত গ্রহীত হয়।

নৌকা প্রতীকের সম্মান রাখার দায়িত্ব আওয়ামীলীগের সকল পর্যায়ের নেতাকর্মীদের-শেখ হারুনুর রশিদ

ফুলতলা (খুলনা) প্রতিনিধি// খুলনা জেলা আওয়ামীলীগের সভাপতি ও জেলা পরিষদের চেয়ারম্যান আলহাজ¦ শেখ হারুনুর রশিদ বলেছেন, নৌকা আওয়ামীলীগের দলীয় প্রতীক। এটা বাংলাদেশের স্থপতি বঙ্গবন্ধুর প্রতীক। এ প্রতীকের সম্মান সমন্বিত রাখার দায়িত্ব আওয়ামীলীগের সকল পর্যায়ের নেতাকর্মীদের। আসন্ন ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার মনোনীত নৌকা প্রতীকের প্রার্থীকে বিজয়ী করতে সকল ভেদাভেদ ভুলে ঐক্যবদ্ধভাবে কাজ করতে হবে।
শনিবার সন্ধ্যায় উপজেলা আওয়ামীলীগের উদ্যোগে স্থানীয় দলীয় কার্যালয়ে বিশেষ বর্ধিত সভায় প্রধান অতিথির বক্তৃতায় তিনি এ কথা বলেন। উপজেলা আওয়ামীলীগের সভাপতি ও উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান আলহাজ¦ শেখ আকরাম হোসেনের সভাপতিত্বে বিশেষ অতিথি ছিলেন খুলনা জেলা আওয়ামীলীগের সাধারণ সম্পাদক এ্যাড. সুজিত অধিকারী, সহসভাপতি বিএমএ সালাম, যুগ্ন সাধারণ সম্পাদক শরফুদ্দিন বিশ্বাস বাচ্চু, যুগ্ন সাধারণ সম্পাদক মোঃ কামরুজ্জামান জামাল, ধর্ম বিষয়ক সম্পাদক এ্যাড. তারিক হাসান মিন্টু। উপজেলা আওয়ামীলীগের সাধারণ সম্পাদক সরদার শাহাবুদ্দিন জিপ্পীর পরিচালনায় অন্যান্যের মধ্যে বক্তৃতা করেন সহসভাপতি কাজী আশরাফ হোসেন আশু, মোঃ আসলাম খান, মৃনাল হাজরা, যুবলীগ নেতা জামিল খান, জাকির হোসেন সরদার, শেখ রওশন আলী, মোশারফ হোসেন মোড়ল, আলাউদ্দিন সরদার, কামরুজ্জামান নান্নু, উপজেলা পরিষদের ভাইস চেয়ারম্যান কে এম জিয়া হাসান তুহিন, ফারজানা ফেরদৌস নিশা, ইউপি নির্বাচনে দলীয় চেয়ারম্যান প্রার্থী শেখ মনিরুল ইসলাম, শরিফ মোহাম্মদ ভুইয়া শিপলু, মোস্তফা কামাল চৌধুরী বুলু ও আলী আজম মোহন, ইসমাইল হোসেন বাবলু, শাহাদাৎ বিশ্বাস, দলীল উদ্দিন মোল্যা, এ্যাড. আকতারুনেচ্ছা তিতাস, আনছার আলী বিশ্বাস, বেগম শামছুন্নাহার, শাপলা সুলতানা লিলি, সাহিদা ইসলাম নয়ন, এস কে আলী ইয়াছিন, শহিদুল্লাহ প্রিন্স, রবীন বসু, এস কে মিজানুর রহমান, এস কে সাদ্দাম হোসেন প্রমুখ।