ঝিনাইদহে ফেন্সিডিলসহ মাদক ব্যবসায়ী গ্রেফতার (ভিডিও)

খুলনা অফিস : র‌্যাব ৬ এর অভিযানে ঝিনাইদহ থেকে বিপুল পরিমান ফেন্সিডিলসহ এক মাদক ব্যবসায়ী গ্রেফতার হয়েছে ।
র‌্যাব জানায়, গোপন সংবাদের ভিত্তিতে শনিবার দিবাগত রাত সাড়ে ১২টার দিকে ঝিনাইদহ কেন্দ্রীয় বাস টার্মিনাল সংলগ্ন উপজেলা মুক্তিযোদ্ধা কমপ্লেক্সের সামনে থেকে চুয়াডাঙ্গা জেলার মো হৃদয় খাঁন(২২) কে ৫৫৯ বোতল ফেন্সিডিল, ২টি মোবাইল ও মোটর সাইকেলসহ গ্রেফতার করা হয়। উল্লেখ্য যে, ধৃত আসামী হৃদয় খাঁন এর বিরুদ্ধে কুষ্টিয়া, ঝিনাইদহ, চুয়াডাঙ্গা এবং যশোর জেলার বিভিন্ন থানায় একাধিক মাদকসহ অন্যান্য মামলা রয়েছে। জব্দকৃত আলামত ও গ্রেফতারকৃত আসামীকে ঝিনাইদহ জেলার সদর থানায় হস্তান্তর করতঃ আসামীর বিরুদ্ধে মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রন আইনে মামলা রুজু করা হয়েছে।

 

 

বাগেরহাটে চোরাই মালামালসহ গ্রেফতার ১ (ভিডিও)

খুলনা অফিস : বাগেরহাট জেলার মোল্লাহাট থানা এলাকায় থেকে চোরাই মালামালসহ চোরচক্রের এক সদস্যকে গ্রেফতার করেছে র‌্যাব ৬।
র‌্যাব জানায়, গত ২৪ জুলাই ২০২২ তারিখ ঢাকা জেলার তেজগাঁও থানাধীন কাওরান বাজারস্থ মেট্টো এক্সপ্রেস কুরিয়ার সার্ভিসের কর্মচারী কর্তৃক অফিসের বিভিন্ন মালামাল চুরি হয়ে যায়। পরবর্তীতে উক্ত কুরিয়ার সার্ভিসের সুপার ভাইজার বাদী হয়ে উক্ত কর্মচারীর বিরুদ্ধে ডিএমপি ঢাকার তেজগাঁও থানায় একটি মামলা দায়ের করেন।
উক্ত কর্মচারী চোরাই মালামাল নিয়ে খুলনাঞ্চলে অবস্থান করছে মর্মে জানা যায়। র‌্যাব ৬ এর একটি আভিযানিক দল চোরকে ধরতে তদন্ত শুরু করে। এরই ধারাবাহিকতায় গত শুক্রবার দিবাগত রাতে র‌্যাব ৬ এর দল গোপন সংবাদের ভিত্তিতে বাগেরহাট জেলার মোল্লাহাট থানা এলাকা থেকে মোঃ রাজু শেখ (২৫) কে চুরিকৃত বিভিন্ন হার্ডওয়ার এর ১১৮৭ কেজি মালামাল, ৪৪ কেজি স্যানেটারী আইটেম,-প্রায়, ৩৮ কেজি খাবার সামগ্রীসহ গ্রেফতার করে।
গ্রেফতারকৃত আসামী রাজু শেখকে ডিএমপি ঢাকার তেজগাঁও থানায় মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তার নিকট হস্তান্তর করা হয়েছে।

 

আ’লীগ এদেশের মাটি ও মানুষের কল্যাণ এবং ভাগ্যোন্নয়ণের রাজনীতি করে : খুলনা নগর স্বেচ্ছাসেবক লীগের ঈদ উপহার বিতরণকালে সেখ জুয়েল এমপি

বিজ্ঞপ্তি :

জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ভ্রাতুষ্পুত্র খুলনা-২ আসনের সংসদ সদস্য সেখ সালাহউদ্দিন জুয়েল বলেন, “জননেত্রী শেখ হাসিনার সরকারের শাসনামলে দেশের একটি মানুষও না খেয়ে থাকবে না। জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু যেমন সারাজীবন এই দেশ ও দেশের মানুষের কল্যানের জন্য রাজনীতি করে গেছেন, জীবন বিলিয়ে দিয়ে গেছেন ঠিক তেমনি তার সুযোগ্য কন্যা প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাও এদেশের মানুষের ভাগ্যোন্নয়ন ও সুখী সমৃদ্ধশালী বাংলাদেশ বির্নিমাণে দিন রাত কাজ করে যাচ্ছেন। বাংলাদেশ আওয়ামী লীগ এদেশের মাটি ও মানুষের কল্যাণ এবং ভাগ্যোন্নয়ণের রাজনীতি করে। তিনি আরও বলেন, তার সরকারের আমলে এদেশে কোন মানুষ যেমন ভূমিহীন ও গৃহহীন থাকবে না। সে কারনেই তিনি এদেশের প্রায় সাড়ে ৯ লাখ ভূমিহীন ও গৃহহীন মানুষকে জমিসহ ঘর নির্মাণ করে দিয়েছেন। একই সাথে মানুষের নিরাপদ খাদ্যের ব্যবস্থা করেছেন। তার নেতৃত্বে আজ বাংলাদেশ খাদ্যে স্বয়ংসম্পূর্ণ। দেশের মানুষ যাতে নিরাপদে ও শান্তিতে বসবাস করতে পারে সে লক্ষে তিনি আইন-শৃংখলার পরিস্থিতির ব্যাপক উন্নয়ন সাধন করেছেন। তৎকালীন বিএনপি জোট সরকারের আমলের মত আজ দেশে জঙ্গী হামলা, বোমা হামলা হয় না। দেশের মানুষ আজ শান্তিতে আছেন। দেশের জনগণের সার্বিক জীবন মান উন্নত হয়েছে। বিগত দুই বছর করোনা মহামারীর কারনে সারা বিশ্ব যেখানে থমকে গিয়েছিলো, সেখানে বাংলাদেশ তার অর্থনীতির চাকা সচল রেখে রিজার্ভ বৃদ্ধি করেছে। যখনই দেশের কোন ক্রান্তি কাল এসেছে তখন বাংলাদেশ আওয়ামী লীগ ও তার অঙ্গসহযোগী সংগঠন মানুষের দ্বারে দ্বারে গিয়ে খাদ্যদ্রব্য, নগদ অর্থ, ঔষধ, অক্সিজেন সহ বিভিন্ন সেবা সামগ্রী পৌছিয়ে দিয়েছেন। তিনি আরও বলেন খুলনা মহানগর স্বেচ্ছাসেবক লীগের এই ঈদ উপহার কিছুটা হলেও অসহায় মানুষের মুখে ঈদের হাঁসি ফোঁটাবে। তিনি মহানগর স্বেচ্ছাসেবক লীগ কে ধন্যবাদ দিয়ে আগামীতে এমন সব ভাল কাজের সাথে সংগঠনকে নিয়োজিত রাখতে আহবান জানান। তিনি সকলের প্রতি আহবান জানিয়ে বলেন আসুন সকল ভেদাভেদ ভুলে মানুষের সেবায় কাজ করতে, জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের আদর্শ বাস্তবায়ন করতে এবং দেশরতœ জননেত্রী মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার রূপকল্প বাস্তবায়ন করতে আগামী নির্বাচনে নৌকা প্রতীককে আবার বিজয়ী করি।

বুধবার দুপুর সাড়ে ১২ টায় শঙ্খমার্কেটস্থ দলীয় কার্যালয়ে খুলনা মহানগর আওয়ামী স্বেচ্ছাসেবক লীগের আয়োজনে ঈদ উপহার বিতরণ কালে সম্মানিত অতিথির বক্তব্যে তিনি এসব কথা বলেন। ঈদ উপহার বিতরণ অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন খুলনা মহানগর আওয়ামী লীগের সভাপতি ও খুলনা সিটি মেয়র আলহাজ্ব তালুকদার আব্দুল খালেক এবং বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন খুলনা মহানগর আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক এম.ডি.এ বাবুল রানা। এছাড়ও অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন মহানগর আওয়ামী লীগ নেতা কাউন্সিলর জেড এ মাহমুদ ডন, শেখ মো. জাহাঙ্গীর আলম, মফিদুল ইসলাম টুটুল, এ্যাড. মো. সাইফুল ইসলাম। খুলনা মহানগর আওয়ামী স্বেচ্ছাসেবক লীগের সভাপতি এম.এ নাসিমের সভাপতিত্বে এবং সাধারণ সম্পাদক এস.এম আসাদুজ্জামান রাসেলের পরিচালনায় অনুষ্ঠানে আরও উপস্থিত ছিলেন মহানগর যুবলীগের আহবায়ক সফিকুর রহমান পলাশ, সাবেক স্বেচ্ছাসেবক লীগ নেতা মীর বরকত আলী, জেলা স্বেচ্ছাসেবক লীগের সাধারণ সম্পাদক আজিজুল হক রাসেল, মহানগর যুবলীগ নেতা কাজী কামাল হোসেন, মহানগর স্বেচ্ছাসেবক লীগ নেতা ড.সাঈদুর রহমান, মো. গোলাম মাওলা টিংকু, শেখ মাসুম বিল্লাহ, ইদ্রিস আলী, মোঃ জিলহজ্জ হাওলাদার, মোঃ কামরুল ইসলাম, মোঃ জাহাঙ্গীর হোসেন, বুলবুল আহম্মেদ, মো. শফিকুল ইসলাম অভি, আশরাফুল আলম বাবু, শেখ রায়হান উদ্দিন, আসাদুল ইসলাম সানি, মারুফ চৌধুরী লেমন,মো. আমিরুল ইসলাম বাবু, মিটু দে, রাহাত আলী মোড়ল, মোঃ নাজমুল হক, সাকিব হাসান, কাজী ইউসুফ আলী মন্টু, মোঃ মোজাহার হোসেন মোজো, জাকির হোসেন, এম. আসিফ সবুজ, রুপম তালুকদার, কামরুজ্জামান ইমরান, মারুফ চৌধুরী রিমন, তাপস চোধুরী, সোহানুর রহমান সোহাগ, হাবিবুর রহমান, শওকাত হাওলাদার,মো. দেলোয়ার হোসেন, রফিকুল ইসলাম কাজল, মোঃ হানিফ শেখ, শেখ সাহিদ, রফিক খান, মোঃ রাজিব, রায়হান শিকদার, শেখ মো. নাজমুল হাসান, শেখ রাজিব হাসান, , কবির হোসেন, রাম মোহন সরদার, নাদিম খান, রবিন ধর, সারমিন সুলতানা মিথিলা, লতা আক্তার প্রিয়া, দিদারুল আলম, নাসির মৃধা,জাকির হোসেন খোকন, ফরহাদ হোসেন, আকরাম হুসাইন, আব্দুল্লাহ আল নোমান, মোঃ পিয়াল, মোঃ জাহিদুল ইসলাম বাদশা, বায়োজিদ হোসেন, মোঃ নাসির, মোঃ রাসেল, নুশান অভিসহ দলের বিভিন্ন পর্যায়ের নেতৃবন্দ। ঈদ উপহার বিতরণ অনুষ্ঠানে দুইশতাধিক নিম্ন আয়ের মানুষের মাঝে ঈদ উপহার বিতরণ করা হয়।

সাবেক দস্যু বাহিনী প্রধানের বিরুদ্ধে জেলেদের উপর জুলুম ও হয়রানী  এবং বনে আতংক সৃষ্টির অভিযোগ

ইউনিক প্রতিবেদক, মোংলা, বাগেরহাট : 

সুন্দরবনের সাবেক দস্যু বাহিনী প্রধানের বিরুদ্ধে নতুন করে জেলেদের উপর জুলুম ও হয়রানীসহ নানাভাবে হুমকি-ধামকি দিয়ে দুর্গম বনাঞ্চলে নতুন করে আতংকের সৃষ্টির অভিযোগ উঠেছে। মঙ্গলবার বেলা সাড়ে ১১ টায় মোংলা প্রেস ক্লাবে এক সংবাদ সম্মেলনে ভুক্তভোগী জেলেরা এ অভিযোগ করেন।

সুন্দরবনের জেলে মোঃ শাাহজাহান লিখিত অভিযোগ ও বক্তব্যে বলেন, পূর্ব সুন্দরবনের শরণখোলা রেঞ্জের দুবলার চর সংলগ্ল লইট্যাখালী এলাকায় প্রায় ৪০ বছর ধরে মাছ শিকার করে জীবিকা নির্বাহ করে আসছিলেন তিনিসহ এক দল জেলে। কিন্তু গত ২২ মার্চ সকালে সাবেক দস্যু মাস্টার বাহিনীর প্রধান আব্দুল কাদের মাস্টার ও আইনশৃংখলারক্ষাকারী বাহিনীর সোর্স পরিচয়ে জনৈক বেলায়েত ও দেবুসহ ১০/১২ জন লোক ওই সকল জেলেদের নৌকা-জাল নিয়ে সেখান থেকে চলে যাওয়ার হমকি দেয়। এরপর হুমকিদাতারা ওই জেলেদের জালের সামনে জাল পেতে মাছ ধরে সেই জায়গা দখলে নিয়ে নেয়। এতে ওই নিরীহ জেলেরা ভয়ে ও আতংকে জাল ফেলে লোকালয়ে চলে আসেন।

সংবাদ সম্মেলনে তিনি আরো অভিযোগ করে বলেন, ৩/৪ বছর আগেও সুন্দরবনের জেলেদের হত্যা, নির্যাতন ও অপহরণসহ চাঁদাবাজী করছিলো দস্যুরা। কিন্তু আইনশৃংখলারক্ষাকারী বাহিনীর তৎপরতা ও প্রধানমন্ত্রীর ঘোষণায় দস্যু মুক্ত সুন্দরবনে বেশ ভালই ছিলেন সাধারণ জেলেরা। কিন্তু আত্মসমর্পনকারী সাবেক দস্যু বাহিনীর সদস্যরা সরকারীভাবে নানা সুযোগ সুবিধা গ্রহণ করলেও সাবেক দস্যু মাস্টার বাহিনীর প্রধান ও তার সহযোগীদের অপতৎপরতার কাছে ফের অসহায় হয়ে পড়েছেন নিরীহ জেলে ও পেশাজীবিরা। এ সংবাদ সম্মেলনে সুন্দরবন থেকে ফিরে আসা অনেক জেলে উপস্থিত ছিলেন। এ থেকে প্রতিকার পেতে তারা সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের দ্রুত হস্তক্ষেপ কামনা করেছেন।

দেশ ও জাতিকে রক্ষা করতে সকল ষড়যন্ত্রকারীদের বিরুদ্ধে রুখে দাড়াতে হবে : খুলনা সিটি মেয়র

বিজ্ঞপ্তি :

খুলনা মহানগর আওয়ামী লীগ সভাপতি ও সিটি মেয়র আলহাজ্ব তালুকদার আব্দুল খালেক বলেছেন, দলে কোন বির্তকিতদের স্থান হবে না। বিতর্কিতরা সব সময়ই নিজেদের স্বার্থ হাসিল করতে দলের মধ্যে বিশৃংখলার সৃষ্টি করে। যারা দু:সময়ে অত্যাচার নির্যাতন সহ্য করে দলকে রাষ্ট্রীয় ক্ষমতায় এনেছে তাদের সামনে রাখতে হবে। তিনি আরো বলেন, বিএনপি-জামায়াত নানাবিধ ষড়যন্ত্র চালিয়ে দেশকে অশান্ত করার অপচেষ্টা করছে। দেশ ও জাতিকে রক্ষা করতে সকল ষড়যন্ত্রকারীদের বিরুদ্ধে রুখে দাড়াতে হবে। আর সেজন্যে সকল ভেদাভেদ ভুলে গিয়ে ঐক্যবদ্ধ ভাবে প্রধানমন্ত্রী দেশরত্ন জননেত্রী শেখ হাসিনার হাতকে শক্তিশালী করতে হবে।

সোমবার দুপুর ১২টায় দৌলতপুর থানা আওয়ামী লীগের বিশেষ সভায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এসব কথা বলেন। দৌলতপুর থানা আওয়ামী লীগ সভাপতি শেখ সৈয়দ আলীর সভাপতিত্বে এবং সাধারণ সম্পাদক শহীদুল ইসলাম বন্দের পরিচালনায় বিশেষ অতিথির বক্তব্য রাখেন, খুলনা মহানগর আওয়ামী লীগ সাধারণ সম্পাদক এমডিএ বাবুল রানা। এসময়ে উপস্থিত ছিলেন, মহানগর আওয়ামী লীগ সহ-সভাপতি বীরমুক্তিযোদ্ধা নুর ইসলাম বন্দ, দপ্তর সম্পাদক মো. মুন্সি মাহবুব আলম সোহাগ, মুক্তিযুদ্ধ বিষয়ক সম্পাদক মাকসুদ আলম খাজা, নির্বাহী সদস্য মোজাম্মেল হক হাওলাদার, বীর মুক্তিযোদ্ধা শেখ মোশাররফ হোসেন, মনিরুজ্জামান খান খোকন, প্রকৌশলী সিরাজুল ইসলাম, মফিজুর রহমান জিবলু, মো. শাহাদাৎ হোসেন মিনা, আসিফুর রশিদ, আব্দুর রউফ মোড়ল, মফিজুর রহমান হিরু, শেখ কওসার আলী, জাফর ইকবাল মিলন, হারুন অর রশীদ হাওলাদার, শেখ ওহিদুজ্জাম্মান, মাকসুদ হাসান পিকু, আবু জাফর মিয়া, শেখ রেজাউল ইসলাম প্রমুখ।

সভায় থানার ৬টি ওয়ার্ডের কমিটি চূড়ান্তভাবে যাচাই বাছাই শেষে ওর্য়াার্কিং কমিটিতে অনুমোদনের জন্য প্রেরণের সিদ্ধান্ত হয়।

সভায় জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের জন্ম শতবার্ষিকী ও জাতীয় শিশু কিশোর দিবস উপলক্ষে ১৫ মার্চ দৌলতপুর থানা আওয়ামী লীগের উদ্যোগে থানার সকল শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে “বঙ্গবন্ধুকে জানো” শিরোনামে শিক্ষার্থীদের উদ্বুদ্ধকরণ গণসংযোগের সিদ্ধান্ত হয়।

সভায় ১৭ মার্চ হতে ৩১ মার্চ পর্যন্ত থানা এবং সকল ওয়ার্ড কার্যালয় আলোকসজ্জা থাকবে। ১৭ মার্চ সকাল সাড়ে ৭টায় থানা এবং থানার সকল দলীয় কার্যালয়ে জাতীয় ও দলীয় পতাকা উত্তোলন, বঙ্গবন্ধুর প্রতিকৃতিতে মাল্যদান করা হবে। সকাল ১০টায় দলীয় কার্যালয় হতে র‌্যালি শুরু করে বিএল কলেজে বঙ্গবন্ধুর ভাস্কর্যে শ্রদ্ধা নিবেদন।

১৭ মার্চ হতে ২৩ মার্চ পর্যন্ত বঙ্গবন্ধুর জীবন আলেখ্য নিয়ে বিভিন্ন শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে আলোচনা সভার সিদ্ধান্ত হয়।

সুন্দরবনের প্রাণ পশুর নদসহ সুন্দরবন অঞ্চলের নদ-নদী ও খালের জীবন্ত স্বত্তা ফেরাতে হবে : মোংলায় আন্তর্জাতিক নদীকৃত্য দিবসে বক্তারা

আবু হোসাইন সুমন, মোংলা, বাগেরহাট :

মোংলায় আন্তর্জাতিক নদীকৃত্য দিবস পালিত হয়েছে। দিবসটি উপলক্ষে সোমবার বেলা ১১টায় উপজেলার চিলা বাজার সংলগ্ন পশুর নদীর পাড়ে বাংলাদেশ পরিবেশ আন্দোলন (বাপা), ওয়াটারকিপার্স বাংলাদেশ, পশুর রিভার ওয়াটারকিপার ও জবা নারী দলের আয়োজনে অবস্থান কর্মসূচি এবং সমাবেশ অনুষ্ঠিত হয়।

অবস্থান কর্মসূচি চলাকালে সমাবেশে বক্তারা বলেন, সুন্দরবনের প্রাণ পশুর নদসহ সুন্দরবন অঞ্চলের নদ-নদী ও খালের জীবন্ত স্বত্তা ফিরিয়ে দাও। অপরিকল্পিত শিল্পায়ন, পরিবেশ-প্রকৃতি বিরোধী উন্নয়ন কর্মকান্ড, দখল ও দূষণে বিপর্যস্ত সুন্দরবন অঞ্চলের নদ-নদী ও খাল। সরকারি খালের গতি প্রবাহ সচল রেখে পরিবেশ ও জনবান্ধব উন্নয়ন পরিকল্পনা গ্রহণ করতে হবে।

‘জীববৈচিত্রের জন্য নদী’ শ্লোগানে সুন্দরবন অঞ্চলের নদ-নদী ও খাল দখল এবং দূষণের কবল থেকে রক্ষার দাবীতে অবস্থান কর্মসূচীতে সভাপতিত্ব করেন বাংলাদেশ পরিবেশ আন্দোলন (বাপা) বাগেরহাট জেলার আহ্বায়ক পশুর রিভার ওয়াটারকিপার মো. নূর আলম শেখ। এ সময় অন্যান্যদের বক্তব্য রাখেন বাপা নেতা এম এ সবুর রানা, কমলা সরকার, আব্দুর রশিদ হাওলাদার, শেখ রাসেল, নদীকর্মী হাসিব সরদার ও চন্দ্রিকা মন্ডল।

অবস্থান কর্মসূচীতে বক্তারা আরো বলেন, পশুর নদীতে আনফিট নৌযান চলাচলের ফলে প্রতিনিয়ত তেল-কয়লা ভর্তি জাহাজ ডুবির ফলে সুন্দরবনের জীববৈচিত্র হুমকিতে পড়েছে। বক্তারা বাগেরহাটের ভৈরব নদী ও শরণখোলার বলেশ্বর নদীকে দখল এবং দূষণমুক্ত করার দাবী জানান। সভাপতির বক্তব্যে বাপা নেতা মো. নূর আলম শেখ নদী কমিশন কর্তৃক প্রকাশিত নদী দখলদারদের উচ্ছেদ করার জন্য প্রশাসনের প্রতি আহ্বান জানান। অবস্থান কর্মসূচীতে পশুর নদী পাড়ের মৎস্যজীবি, বনজীবি, জেলে, বাওয়ালী-মাওয়ালী ও নারী সমাজ অংশগ্রহণ করেন। অবস্থান কর্মসূচীতে অংশগ্রহণকারীরা ‘নদী বাঁচাও, দেশ বাঁচাও’ ‘প্লাস্টিক দূষণ বন্ধ করো’ ‘ক্লিন রিভার হেলদি লাইফ’ ‘পশুর নদী বাঁচাও, সুন্দরবন বাঁচাও’ ‘টাইম ফর ন্যাচার’ ইত্যাদি লিখিত শ্লোগানের পোস্টার-ফেস্টুন প্রদর্শন করেন।

কয়রায় মৎস্য ঘের দখলের চেষ্টার প্রতিবাদে সংবাদ সম্মেলন

শেখ মনিরুজ্জামান, কয়রা, খুলনা : 

খুলনার কয়রায় মৎস্যঘের দখলের চেষ্টার প্রতিবাদে সংবাদ সম্মেলন করেছেন কয়রা উপজেলার হড্ডা গ্রামের মৃত নিরোধ সরকারের পুত্র রুপক কুমার সরকার।

সোমবার (১৪ মার্চ)  বেলা ১১ টায় কয়রা উপজেলা প্রেসকাবে উপস্থিত হয়ে লিখিত সংবাদ সম্মেলনের মাধ্যমে তিনি জানান। হড্ডা মৌজার ৩৭০ নং খতিয়ানের ৯১০, ৯১২, ৯১৩, ৯৩৪ ও ৯৩৭ নং দাগের ৫.৫৮ একর সম্পত্তি সরকারে নিকট হতে বাংলা ১৩৮৬ সাল হতে ডিসিআর নিয়ে সরকারী বিধিমোতাবেক ১৪২৫ সাল পর্যন্ত রাজস্ব পরিশোধ করে দীর্ঘ ৪২ বছর যাবৎ শান্তিপূর্ণ ভাবে মৎস্য ঘের বা মৎস্য চাষ করে আসিতেছে। উল্লেখিত সম্পত্তির বেড়িবাঁধ দিয়ে সীমানা দেওয়া আছে। পূর্বশত্রুতার জের ধরে গত ৮ মার্চ একই গ্রামের মৃত মনিন্দ্র সরকারের পুত্র স্বপন সরকার, মনোরঞ্জন সরকার, দেবব্রত সরকার ও রঞ্জন সরকারের নেতৃত্বে পরিকল্পিত ভাবে দা, লাঠি, সাবোল, কোদাল, হাতুড়ি চাপাতি সহ অস্ত্রসস্ত্রে সর্জিত হয়ে বে-আইনিভাবে দলবদ্ধ হয়ে অজ্ঞাতনামা ভাড়াটিয়া ব্যাক্তিদের এনে আমার মৎস্য ঘেরে অবৈধ ভাবে প্রবেশ করে ঘেরের রাস্তা কাটিতে থাকিলে আমি ঘটনাস্থলে যেয়ে বাধা প্রদান করি। এ সময় তারা আমাকে জানে শেষ করার অসৎ উদ্দেশ্য মারপিট করে নগদ টাকা, একটি টার্চ মোবাইল ও রাস্তা কেটে আনুমানিক লক্ষাধিক টাকার ক্ষতি সাধণ করে । আমি বিষয়টি স্থানীয় ভাবে আপোষ মিমাংসার চেষ্টা করে ব্যার্থ হয়ে উল্লেখিত ব্যাক্তিদের বিরুদ্ধে বিজ্ঞ সিনিয়র জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আদালত, কয়রা, খুলনায় একটি মামলা দায়ের করি যার নং সিআর ১৩২/২২। আদালত মামলাটি আমলে নিয়ে আসামীদের বিরুদ্ধে সমন জারি করে।

এ ব্যাপারে স্বপন সরকারের নিকট জানতে চাইলে, তিনি ও তার ভাইদের বিরুদ্ধে আনিত অভিযোগ অস্বীকার করেন।

নগরীতে আ‘লীগ নেতা ও কাউন্সিলরের সহযোগীতায় শহীদ মুক্তিযোদ্ধা পরিবারকে অত্যাচার ও হয়রানির অভিযোগ

দেশ প্রতিবেদক :

খুলনা নগরীর বয়রা এলাকায় শহীদ মুক্তিযোদ্ধা একটি পরিবারকে অত্যাচার, নির্যাতন ও হয়রানির অভিযোগ পাওয়া গেছে। স্থানীয় থানা আওয়ামী লীগ নেতা ও ওয়ার্ড কাউন্সিলরের সহযোগীতায় জাফর বিশ্বাস ও তার দলবল এসব করছে বলে অভিযোগ করেছে শহীদ মুক্তিযোদ্ধার পরিবার। রোববার দুপুরে খুলনা প্রেসক্লাবে শহীদ মুক্তিযোদ্ধা শেখ শহীদুল্লাহ‘র মেয়ে ১৪নং ওয়ার্ড মহিলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক তৌহিদা ইয়াসমিন সংবাদ সম্মেলনে এ অভিযোগ করেন।

এসময়ে লিখিত বক্তব্যে তিনি জানান, তাদের বাড়ির পাশে মেজর কবির আহমেদের স্ত্রী সুপর্ণা কবিরের ক্রয়কৃত জমিতে গত ৯ বছর ধরে বয়রা এলাকার সামাদ বিশ্বাসের ছেলে জাফর বিশ্বাস ও তার স্ত্রী সালমা বেগম জবরদখল করে রয়েছে। সন্ত্রাসী ও ভূমিদস্যু জাফর বিশ্বাস এলাকায় প্রকাশ্যে মাদক ব্যবসা চালিয়ে যাচ্ছে। এলাকার সাধারণ মানুষ ও ভূক্তভোগীর পরিবারের উপর তারা দীর্ঘদিন ধরে নির্যাতন করে আসছে। এসকল কাজের প্রতিবাদ করায় ভূক্তভোগী পরিবারের সন্তানদের মারধোর, গালিগালাজ ও জীবন নাশের হুমকি দিয়ে যাচ্ছে। সেই সাথে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুকের মাধ্যমে পরিবারের নামে অপপ্রচার ও সম্মানহানী করছে। এছাড়াও জাফর বিশ্বাস ও তার স্ত্রী নানা কৌশলে পরিবারটির নিকট মোটা অংকের টাকা দাবী করে আসছে। টাকা দিতে রাজী না হওয়ায় মিথ্যা মামলায় ফাঁসানোর হুমকি দিচ্ছে। তাদের নামে থানায় এলাকাবাসীসহ ভূক্তভোগীরা একাধিক জিডি ও অভিযোগ দায়ের করার পরেও কোন প্রতিকার পায়নি।

তিনি লিখিত বক্তব্যে আরো জানান, ইতোপূর্বে জমির মালিক মেজর কবির দখল নিতে আসলে তাদেরকেও অপমান, অসম্মান, গালিগালাজ ও হুমকি প্রদান করে জাফর বিশ্বাস। কয়েক বছর ধরে জমির মালিকের কাছ থেকে মোটা অংকের টাকা আদায় করে এবং বর্তমানেও আরো টাকা দাবি করছে দখলবাজ জাফর। দখল না ছাড়ার জন্য তারা বর্তমানে অবস্থানরত নিজ বাড়ীতে আগুন লাগানোর নাটক করে ভূক্তভোগী পরিবারটিকে মামলায় জড়ানোর চেষ্টা করে ব্যর্থ হয়। গত ৩ দিন পূর্বে এলাকাবাসী থানায় উপস্থিত হয়ে তাদেরকে এলাকা থেকে উচ্ছেদ ও প্রবেশ বন্ধ করার জন্য লিখিত অভিযোগ করে। গত শুক্রবার মাকদব্যবসায়ী জাফরকে এলাকায় প্রবেশ ও তার মাদক ব্যবসা বন্ধে মানববন্ধন করে এলাকাবাসি।

তিনি আরো বলেন, সম্প্রতি জাফর বিশ্বাস নিজ বাড়ীর বারান্দায় ককটেল বোমার বিস্ফোরণ ঘটিয়ে আতঙ্কের সৃষ্টি করে। পরে ভূক্তভোগী পরিবারটির বিরুদ্ধে থানায় ককটেল হামলার অভিযোগ দায়ের করে। তাদের এ সকল কর্মকান্ডে জাফর বিশ্বাসের চাচাতো ভাই সোনাডাঙ্গা থানা আওয়ামী লীগের সভাপতি বুলু বিশ্বাস ও কাউন্সিলর আনিসুর রহমান বিশ্বাস সরাসরি সহায়তা করে আসছে। তারা প্রশাসনের উপর ক্ষমতার চাপ সৃষ্টি করছে।

সংবাদ সম্মেলনে বীর মুক্তিযোদ্ধার পরিবারটি প্রধানমন্ত্রীর দৃষ্টি আকর্ষণ ও প্রশাসনের নিকট নিজেদের নিরাপত্তা কামনা করেন।

অভিযোগের বিষয়ে জাফর বিশ্বাস মুঠোফোনে জানান, আমার বিরুদ্ধে যে অভিযোগ করা হয়েছে তা সম্পূর্ণ ভিত্তিহীন। তাদের বিরুদ্ধে খালিশপুর থানায় আমার জিডি করা রয়েছে। তৌহিদা ইয়াসমিনের দেবর বিদেশে পাঠানোর নামে আমার নিকট হতে ১০ লক্ষ টাকা নেয়। পরবর্তীতে টাকা ফেরত দিতে না পারায় তারা আমার কাছে একটি জমি বিক্রি করার প্রস্তাব দেয়। পরে যানতে পারি জমিটি ২০ বছর আগেই মেজর কবিরের নিকট বিক্রি করেছে। একটা সময় তারা জমির পরিবর্তে আমাকে ১০ লক্ষ টাকার চেক প্রদান করে। যা ব্যাংকে ডিজঅনার হলে আমি চেক ডিজঅনারের মামলা করি। আর এসব কারণে পরিবারটি আমার বিরুদ্ধে এসব চক্রান্ত করছে।

মেজর কবিরের জমি দখল করে রাখার অভিযোগের বিষয়ে বলেন, আমি তাদের কোন জমি দখল করিনি। এটা আমার বিরুদ্ধে অপপ্রচার।

এ বিষয়ে মেজর কবিরের সাথে মুঠোফোনে যোগাযোগ করা হলে তিনি জানান, জমিটি আমরা ১৯৮২ সালে ক্রয় করি। জাফর বিশ্বাস আমার জমিটি অনেকদিন ধরে দখল করে রেখেছে। আমি এ বিষয়ে আদালতে মামলা করেছি। সে আমার জমি ফিরিয়ে দেওয়ার কথা বলেও টালবাহানা করছে। এখন পর্যন্ত সে জমিটি জবরদখল করে রেখেছে।

অভিযোগের বিষয়ে সিটি কর্পোরেশনের ১৪নং ওয়ার্ড কাউন্সিলর আনিছুর রহমান বিশ্বাস মুঠোফোনে জানান, আমার বিরুদ্ধে যে অভিযোগ করা হয়েছে তা সম্পূর্ণ মিথ্যা। জাফর বিশ্বাস আমাদের এখানে থাকেন না। তার সাথে আমার কোন যোগাযোগ নেই। তাছাড়া এ বিষয়টি সম্বন্ধে আমি কিছুই জানিনা এবং যারা অভিযোগ করেছে তাদেরকে আমি ব্যক্তিগত ভাবে চিনিনা। তাই জাফর বিশ্বাসকে সহায়তা করার কোন প্রশ্নই আসে না।

জাফর বিশ্বাসের চাচাতো ভাই সোনাডাঙ্গা থানা আওয়ামী লীগের সভাপতি বুুলু বিশ্বাস অভিযোগের বিষয়ে বলেন, জাফর বিশ্বাস ২০০৭ সালে আমাদের এলাকা থেকে জায়গা বিক্রি করে চলে গেছে। তার সাথে আমাদের যোগাযোগ নেই। তাই এ বিষয়ে আমার সহায়তা করার কোন প্রশ্নই আসে না। তবে ওদের মধ্যে জমি বিক্রি নিয়ে টাকার লেনদেন হয়েছিল এবং এটা নিয়ে মামলাও হয়েছে বলে শুনেছি।

খুলনায় বঙ্গবন্ধুর জন্মবার্ষিকী ও জাতীয় শিশু দিবসের কর্মসূচি

বিজ্ঞপ্তি :

আগামী ১৭ মার্চ স্বাধীনতার মহান স্থপতি জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের জন্মবার্ষিকী ও জাতীয় শিশু দিবস-২০২২ যথাযোগ্য মর্যাদায় উদযাপনের লক্ষ্যে জাতীয় কর্মসূচির আলোকে খুলনা জেলা প্রশাসনের উদ্যোগে বিভিন্ন কর্মসূচি গ্রহণ করা হয়েছে।

১৭ মার্চ সকাল সকাল আটটায় বাংলাদেশ বেতার খুলনা কেন্দ্রে অবস্থিত জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ভাস্কর্যে পুষ্পস্তবক অর্পণ করা হবে। সন্ধ্যা সাতটায় জেলা শিল্পকলা একাডেমিতে স্বাস্থ্যবিধি অনুসরণ করে আলোচনা সভা ও শিশুদের নিয়ে সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান অনুষ্ঠিত হবে। সকাল সাড়ে নয়টা থেকে বঙ্গবন্ধুর জন্মবার্ষিকী ও জাতীয় শিশু দিবসের অনুষ্ঠান বিটিভি’র সহায়তায় সরাসরি প্রদর্শন/প্রচারের ব্যবস্থা করা হবে।

সুবিধাজনক সময়ে শিশুদের অংশগ্রহণে কেককাটা, রচনা, চিত্রাংকন ও কুইজ প্রতিযোগিতার আয়োজন করা হবে। ১৪ মার্চ শিশু একাডেমি প্রাঙ্গণে রচনা ও চিত্রাংকন এবং ১৫ মার্চ সঙ্গীত ও আবৃত্তি প্রতিযোগিতার আয়োজন করা হবে। ১৭ মার্চ টুঙ্গিপাড়ার খোকা থেকে বাঙালি জাতির অবিসংবাদিত নেতা বঙ্গবন্ধুর সংগ্রামী জীবন নতুন প্রজন্মের চিন্তা-চেতনা ও আদর্শ ধারণ করে শিশুদের নিয়ে শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানসমূহে বঙ্গবন্ধুর জীবন ও কর্ম নাটকের দ্বারা চিত্রায়ণ/মঞ্চায়নের মাধ্যমে মোটিভেশনাল সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানের আয়োজন থাকবে।

১৭ মার্চ হাসপাতাল, কারাগার, শিশু পরিবার ও এতিমখানায় বিশেষ খাবার পরিবেশন এবং বাদযোহর বিভিন্ন মসজিদে মিলাদ-মাহফিল ও দোয়া অনুষ্ঠান এবং অন্যান্য উপাসনালয়ে বিশেষ প্রার্থনার আয়োজন করা হবে। মুজিববর্ষ উদযাপনের সাথে সামঞ্জস্যপূর্ণ ব্যানার, ফেস্টুন ইত্যাদির মাধ্যমে সিটি কর্পোরেশনের গুরুত্বপূর্ণ স্থান ও স্থাপনাসমূহ সজ্জিতকরণ, মহানগরীর গুরুত্বপূর্ণ সড়ক ও সড়কদ্বীপসমূহে সৌন্দর্যবর্ধন ও পরিস্কার-পরিচ্ছন্নতা অভিযান পরিচলনা করা হবে। সন্ধ্যায় গুরুত্বপূর্ণ স্থাপনাসমূহ ও সরকারি ভবনসমূহে আলোজসজ্জা করা হবে।

১৭ মার্চ খুলনা সিটি কর্পোরেশনের উদ্যোগে নগরভবনে শিশুদের অংশগ্রহণে চিত্রাংকন প্রতিযোগিতা অনুষ্ঠিত হবে। জেলা তথ্য অফিসের উদ্যোগে বিভিন্ন স্থানে বড় আকারের এলইডি স্ক্রিনে স্বাধীনতা ও বঙ্গবন্ধুর ওপর স্বল্পদৈর্ঘ্য চলচ্চিত্র, তথ্যচিত্র প্রদর্শন করা হবে। সুবিধাজনক সময়ে জেলা ও উপজেলায় বঙ্গবন্ধুর জীবনী ও মহান মুক্তিযুদ্ধভিত্তিক পুস্তক ও ডকুমেন্টারি সপ্তাহব্যাপী প্রদর্শন এবং বঙ্গবন্ধুর ৭ই মার্চের ঐতিহাসিক ভাষণ প্রচার করা হবে। এছাড়া শিশুদের সাথে বঙ্গবন্ধুর ছবি আর্কাইভ থেকে সংগ্রহ করে প্রদর্শনের ব্যবস্থা করা হবে।

উপজেলা পর্যায়েও অনুরূপ অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হবে

ডুমুরিয়ায় পুলিশি অভিযানে আটক ৮

ডুমুরিয়া (খুলনা) প্রতিনিধি : ডুমুরিয়া থানা পুলিশ অভিযান চালিয়ে সাজাপ্রাপ্ত আসামী ডাকাত হবিসহ অন্যান্য ঘটনার সাথে জড়িত ৮জনকে আটকের পর আদালতে সোপর্দ করেছে।
এ বিষয়ে ডুমুরিয়া থানা অফিসার ইনচার্জ আমিনুল ইসলাম বিপ্লব জানান, থানা পুলিশ গত ২৪ ঘন্টায় উপজেলার বিভিন্ন স্থানে অভিযান চালিয়ে ৮জনকে আটক করতে সক্ষম হয়। এরমধ্যে ১৭ বছরের সাজাপ্রাপ্ত ও ডাকাতিসহ ৮টি মামলার আসামী হাবিবুর রহমান হবিকে (৩৫) গ্রেফতার করা হয়েছে। সে উপজেলার আটলিয়া ইউনিয়নের চাকুন্দিয়া গ্রামের আশরাফ আলীর ছেলে। হবি দীর্ঘদিন ধরে পলাতক ছিল। গোপন সংবাদের ভিত্তিতে এবং অনেক প্রযুক্তি কাজে লাগিয়ে বুধবার সকালে ওই এলাকা থেকে তাকে গ্রেফতার করা সম্ভব হয়েছে। আটককৃত অন্যান্যরা হল উখড়া গ্রামের মাহাতাপ শেখের ছেলে হাফিজুর রহমান, মিকশিমিল গ্রামের সালাম মোল্যার ছেলে আবু তাহের মোল্যা ও রহিম গাজীর ছেলে বাবুল গাজী, টিপনা গ্রামের বাল্লাক গাজীর ছেলে রুহুল আমিন গাজী, নতুনরাস্তা মোড়ের ইব্রাহীম সরদারের ছেলে সাইদুর রহমান, গুটুদিয়া গ্রামের ইসহাক শেখের ছেলে জামাল শেখ ও মালতিয়া গ্রামের সোনাই সরদারের ছেলে সালাম সরদার। এদের বিরুদ্ধে যৌতুক, পারিবারিক কলহ, মাদক ও মারপিটের ঘটনায় মামলা রয়েছে।