প্রযুক্তির উন্নতির সাথে মানবিকবিদ্যার মেলবন্ধন ঘটিয়ে মূল্যবোধকে সমুন্নত রাখতে হবে : উপাচার্য

বিজ্ঞপ্তি : খুলনা বিশ্ববিদ্যালয়ের কলা ও মানবিক স্কুলের আয়োজনে ‘একুশ শতকের মানবিক শিক্ষার প্রাসঙ্গিকতা’ শীর্ষক দু’দিনব্যাপী প্রথম আন্তর্জাতিক সম্মেলন উদ্বোধন করা হয়েছে। বুধবার সকাল ১০টায় বিশ্ববিদ্যালয়ের সাংবাদিক লিয়াকত আলী মিলনায়তনে সম্মেলনের উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্য রাখেন উপাচার্য প্রফেসর ড. মাহমুদ হোসেন। তিনি বলেন, সভ্যতার শুরুতে ধর্ম, আইন, দর্শন, সাহিত্য, অর্থনীতি শিক্ষার প্রসারের ধারায় বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি এসেছে শেষে। কিন্তু, এখন বিজ্ঞান ও প্রযুক্তির প্রসার সব কিছুকে ছাপিয়ে চলেছে। আমাদের মনে হতে প্রযুক্তির উৎকর্ষ কলা ও মানবিকবিদ্যাসহ অনেক কিছুকেই গিলে ফেলছে। আসলে কি তাই? প্রকৃতপক্ষে বিজ্ঞান ও প্রযুক্তির উৎকর্ষ তো মানুষের জীবনমান উন্নয়নের লক্ষ্যেই। তবে আমাদের দেখতে হবে প্রযুক্তি যেনো মানুষের সৃজনশীলতা রুদ্ধ করে না দেয়। কারণ, প্রযুক্তি উন্নতি তো মানুষের কল্যাণ সাধনের লক্ষ্য্,ে সমাজের উন্নয়নের অভীষ্টে। তিনি আরও বলেন, মানবিক মূল্যবোধকে সমুন্নত রাখতে হবে, তা না হলে প্রযুক্তির উৎকর্ষতা কাজে আসবে না। এখন প্রয়োজন এ দুইয়ের মধ্যে মেলবন্ধন সৃষ্টি করা। একুশ শতকে চতুর্থ শিল্পবিপ্লব আর্টিফিসিয়াল ইন্টেজিলেন্স অনেক ক্ষেত্রেই মানুষের কর্মস্থল বা কাজের জায়গা দখল করে নিলেও তা তো মানুষ সৃষ্টি করেছে। তাই যতোই হোক না কেনো এ প্রযুক্তি যদি মানবিক মূল্যবোধকে এড়িয়ে যেতে চায় তা হবে মানব সমাজের জন্য বিপর্যয়কর। তিনি বলেন, প্রযুক্তির উৎকর্ষে আমাদের সামনে চ্যালেঞ্জ উপস্থিত। তবে তা মোকাবেলা করতে হবে, জীবনের সাথে খাপখাইয়ে নিতে হবে। মনে রাখতে হবে জীবনমান উন্নয়নের ক্ষেত্রে মানসিক প্রশান্তি হচ্ছে শেষ কথা। এই মানসিক প্রশান্তি থাকলে সৃজনশীলতা থাকবে। আর সৃজনশীলতার জন্যই কলা ও মানবিকবিদ্যা চর্চার গুরুত্ব আগেই ছিলো, ভবিষ্যতেও থাকবে। তবে সে জন্য দিকনির্দেশনা দিতে হবে। খুলনা বিশ্ববিদ্যালয়ের কলা ও মানবিক স্কুল প্রথমবারের মতো সময়োপযোগী বিষয় নির্ধারণ করে যে আন্তর্জাতিক সম্মেলনের আয়োজন করেছে তা থেকে পাওয়া সুপারিশ একুশ শতকে মানবিকবিদ্যা চর্চার ভূমিকা ও গুরুত্বসহ আরও নানাদিক তুলে ধরে দিকনির্দেশনা দেবে। তিনি কলা ও মানবিক স্কুল এই আন্তর্জাতিক আয়োজন করায় স্কুলের ডিনসহ সংশ্লিষ্ট ডিসিপ্লিনসমূহের শিক্ষক-শিক্ষার্থীদের আন্তরিক ধন্যবাদ জানান। এসময় উপাচার্য সম্মেলন উপলক্ষ্যে প্রকাশিত কনফারেন্স প্রসেডিংস এর মোড়ক উন্মোচন করেন। উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথির বক্তব্য রাখেন বিশ্ববিদ্যালয়ের উপ-উপাচার্য প্রফেসর মোসাম্মাৎ হোসনে আরা। কলা ও মানবিক স্কুলের ডিন প্রফেসর ড. মো. রুবেল আনছার এর সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে স্বাগত বক্তব্য রাখেন ইংরেজি ডিসিপ্লিন প্রধান প্রফেসর ড. মো. শাহজাহান কবীর। সম্মেলনের প্রথম দিনে কি-নোট স্পিকার হিসেবে বক্তব্য রাখেন জার্মানি থেকে আগত ইমেরিটাস প্রফেসর ড. টোবে লেভিন ফ্রেইফ্রাউ ভন গ্লেইচেন (চৎড়ভ. উৎ. ঞড়নব খবারহ ঋৎবরভৎধঁ াড়হ এষবরপযবহ), বাংলা একাডেমির সাবেক মহাপরিচালক ও বাংলাদেশ ইউনিভার্সিটি অব প্রফেশনালস্ এর বঙ্গবন্ধু চেয়ার অধ্যাপক ড. সৈয়দ আনোয়ার হোসেন এবং ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয়, কুষ্টিয়ার প্রাক্তন উপাচার্য প্রফেসর ড. মো. হারুন-উর-রশিদ আসকারি। উদ্বোধনী অনুষ্ঠান সঞ্চালনা করেন বাংলা ডিসিপ্লিনের প্রফেসর ড. মো. দুলাল হোসেন ও ইংরেজি ডিসিপ্লিনের সহকারী অধ্যাপক রুমানা রহমান। এসময় কলা ও মানবিক স্কুলভুক্ত ডিসিপ্লিনসমূহের প্রধান ও শিক্ষক-শিক্ষার্থী, সম্মেলনে অংশগ্রহণকারী গবেষকবৃন্দ উপস্থিত ছিলেন। আগামীকাল এ সম্মেলনের সমাপনী অনুষ্ঠিত হবে। এদিন কি-নোট স্পিকার হিসেবে উপস্থিত থাকবেন রবীন্দ্র ভারতী বিশ্ববিদ্যালয়, কলকাতার প্রাক্তন উপাচার্য বিশিষ্ট শিক্ষাবিদ, গবেষক প্রফেসর ড. পবিত্র সরকার এবং বাংলা একাডেমির চেয়ারম্যান, খ্যাতনামা লেখক, কথাসাহিত্যিক সেলিনা হোসেন।