ছাত্রীর ফেসবুকে নিজের নগ্ন ছবি পাঠালেন শিক্ষক

মো:নজরুল ইসলাম, ঝালকাঠি : ঝালকাঠি সরকারী হরচন্দ্র বালিকা বিদ্যালয়ের এক শিক্ষকের বিরুদ্ধে ছাত্রীর ফেসবুক আইডিতে নগ্ন ছবি পাঠানোর ঘটনায় তোলপাড় শুরু হয়েছে। এ ঘটনায় স্কুল কর্তৃপক্ষ ঐ শিক্ষকের বিরুদ্ধে উর্ধতন কর্মকর্তদের কাছে শাস্তিমূলক বদলীর সুপারিশ করেছে। বিষয়টি জানাজানির হবার পরে জীববিজ্ঞান বিষয়ের সহকারী শিক্ষক মো. রেজাউল করিম গা ঢাকা দিয়েছেন। অভিভাবকদের মাঝে এ নিয়ে চরম ক্ষোভ বিরাজ করছে। তবে এই ঘটনায় ঐ শিক্ষকের বিরুদ্ধে সংশ্লিস্ট ছাত্রী বা অন্য কেউ লিখিত অভিযোগ দেয়নি।

বিদ্যালয় সূত্রে জানায়, গত ১১ মে দশম শ্রেনীর এক শিক্ষার্থীর ফেসবুকের মেসেজ বক্সে শিক্ষক রেজাউল করিম তার নগ্ন ছবি পাঠান। ঘটনার পর ঐ ছাত্রী কয়েকজন শিক্ষকের মেসেঞ্জারে ছবিটি ফরোয়ার্ড করে পাঠায়। এ ঘটনা শিক্ষকরা বিদ্যালয়ের ভারপ্রাপ্ত প্রধান শিক্ষককে জানান।
তিনি শরীরচর্চা শিক্ষক মাসুম বিল্লাহকে তদন্তের দায়িত্ব দেন। তিনি তদন্ত করে ঘটনার সত্যতা খুজে পান।

এদিকে অভিযুক্ত শিক্ষক ঘটনা আড়াল করতে তার ফেইসবুক আইডি হ্যাক হবার কথা জানিয়ে ওই দিনই ঝালকাঠি সদর থানায় একটি সাধারণ ডায়েরি করেন। পর দিন ১২ মে এ ঘটনায় নিজেকে নির্দোষ দাবি করে ও তার বিরুদ্ধে ষড়যন্ত্র হচ্ছে জানিয়ে স্কুলের ভারপ্রাপ্ত প্রধান শিক্ষক বরাবরে একটি আবেদন করেন।

এব্যাপারে ঝালকাঠি সরকারি হরচন্দ্র বালিকা বিদ্যালয়ের ভারপ্রাপ্ত প্রধান শিক্ষক আবু সাইদ মো. ফরিদ বলেন, আমি শিক্ষকদের কাছ থেকে অভিযোগ পেয়ে তদন্ত করে সত্যতা পেয়েছি। তাকে ঘটনার দিন থেকে নকল কোচিং বন্ধ ও বিদ্যালয়ে আসতে নিষেধ করা হয়েছে। পাশাপাশি উর্ধতন কর্মকর্তার কাছে এই শিক্ষককে তার আবেদনের প্রেক্ষিতে অতি দ্রুত শাস্তিমুলক বদলীর সুপারিশ করেছি। তিনি আরো বলেন, এই শিক্ষকের বিরুদ্ধে অতীতে এ ধরনের আরো অভিযোগ ছিলো ।

জোটের নেতৃত্ব ছাড়বে না বিএনপি

ঢাকা অফিস : বিএনপি’র হাতেই থাকবে ২০ দলীয় জোটের নেতৃত্ব।  এ কথাই জানিয়েছেন দলটির নেতারা। তবে, যারা এ নেতৃত্ব মানতে পারবে না তাদেরকে জোট থেকে বেরিয়ে যাওয়ার পরামর্শ দিয়েছেন তারা। একইসঙ্গে জোটের রাজনীতি বাদ দিয়ে দলকে শক্তিশালী করার কথাও বলছেন তারা।

সম্প্রতি বিএনপিকে ২০ দলীয় জোটের নেতৃত্ব ছেড়ে দিতে বলায় জোট শরিক এলডিপি প্রধানকে কড়া জবাব দিচ্ছেন বিএনপি নেতারা। তারা বলছেন, ২০ দলীয় জোটের চালিকাশক্তি হল বিএনপি। তাই জোটের নেতৃত্বই তাদের হাতেই থাকবে।

এ বিষয়ে বিএনপির নির্বাহী কমিটির সদস্য শেখ মুজিবুর রহমান ইকবাল বলেন, ‘বিএনপি এতোবড় একটা দল। ওনার থেকে অনেক বড় আর যোগ্য নেতা আমাদের দলে এখনো আছে। বিএনপি এতটুকু দেউলিয়ায় এখনো হয়নি যে, বিএনপির নেতৃত্ব অন্য কারো হাতে দিতে হবে।’

অলি আহমেদ জোটের দায়িত্ব নিতে চাওয়া নেয়া প্রসঙ্গে জাতীয়তাবাদী স্বেচ্ছাসেবক দলের সাবেক সিনিয়র সহ-সভাপতি এস এম এ বকর বলেন, ‘কর্ণেল অলি আহমেদ যে কথা বলেছেন সেটা তার একক কথা বলেই আমার মনে হয়। কারণ বিএনপি এতো বড় একটা দল সেটার নেতৃত্ব অন্য কারও হাতে ছেড়ে দেবে বলে আমার মনে হয়না। আর আমরা যেহেতু আছি সেহেতু এটা আমরা কখনো করতেও দেব না।’

বিএনপির বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিষয়ক সহ-সম্পাদক আশরাফ উদ্দিন বকুল বলেন, ‘কেউ আমার সাথে থাকতেও পারে, নাও থাকতে পারে। আবার দেখা গেল মহাজোট থেকে বের হয়ে আমাকে বা আমার আদর্শকে কারও ভালো লাগতে পারে। কাজেই এখানে আমার ভূমিকাটাই হল বড় জিনিস।

বিএনপি-ঐক্যফ্রন্টের নেতারা টাকার বিনিময়ে সরকারের সঙ্গে সমঝোতা করেছেন, কর্নেল অলির এই দাবিকেও ভিত্তিহীন বলছেন বিএনপি নেতারা।

বিএনপির ভাইস-চেয়ারম্যান ডা. এ জেড এম জাহিদ হোসেন বলেন, ‘আমাদের দলের কোনো নেতাকর্মী অথবা দলের কোনো প্রার্থীর এ ধরনের কোনো কার্যক্রমের সাথে সংশ্লিষ্টতা আছে বলে আমি বিশ্বাস করিনা।’

তবে, এসব অভিযোগকে ভিত্তিহীন উল্লেখ করে দলটির নির্বাহী কমিটির সদস্য শেখ মুজিবুর রহমান ইকবাল বলেন, ‘আমি মনে করি এসব ভিত্তিহীন কথাবার্তা, যদি এরকম কিছু হয়েই থাকে তাহলে তার প্রমাণ দিক এবং জনসম্মুখে প্রকাশ করুক। আমরা তার প্রতিবাদ করব।’

জোট নয়, বিএনপির নিজেকে শক্তিশালী করার সময় এসেছে বলেও মত দলটির শীর্ষ পর্যায়ের নেতাদের।

বিএনপির ভাইস-চেয়ারম্যান ব্যারিস্টার মোহাম্মদ শাহজাহান ওমর (বীর উত্তম) বলেন, এই যে নাম সর্বস্ব, অফিস ও দপ্তর বিহীন, কর্মী ও নেতা বিহীন ২০ দলীয় জোট, এসব হাস্যকর।

তবে, জাতীয় ঐক্যফ্রন্ট ও ২০ দলীয় জোট সম্পর্কে বিএনপির সাংগঠনিক সম্পাদক রুহুল কুদ্দুস তালুকদার দুলু বলেন, ‘আমি অতীতেও এসবের পক্ষে ছিলাম না এখনও নই। কারণ বিএনপি কারও করুণার রাজনীতি করেনা। বিএনপি একটা বিশাল রাজনৈতিক দল।’

একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে ভরাডুবির পর সংসদে না যাওয়ার সিদ্ধান্ত থাকলেও হঠাৎ করে বিএনপির সংসদ সদস্যদের শপথ নেয়াকে কেন্দ্র করে টানাপড়েন শুরু হয়েছে ২০ দলীয় জোটে।

‘বিদেশি চ্যানেলে দেশীয় বিজ্ঞাপন প্রচার হলে ব্যবস্থা’

ঢাকা অফিস : জুলাই মাসের পর থেকে বাংলাদেশে সম্প্রচারিত বিদেশি চ্যানেলে দেশি বিজ্ঞাপন প্রচার হলে ব্যবস্থা নেয়া হবে বলে জানালেন তথ্যমন্ত্রী ড. হাছান মাহমুদ। দুপুরে, রাজধানীর হোটেল ওয়েস্টিনে ‘আকাশ’ ব্র্যান্ডের ডাইরেক্ট টু হোম-ডিটিএইচ সেবার উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে এ কথা জানান তিনি।

ড. হাছান মাহমুদ বলেন, ‘সরকার সঠিক ভাবে যাতে ট্যাস্ক পায় এবং এ ক্ষেত্রে শৃংঙ্খলা আনতে অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করবে। বাংলাদেশে আইন আছে, আইনের তোয়াক্কা না করে বিদেশি চ্যানেলের মাধ্যমে যদি বিজ্ঞাপন প্রদর্শন করা হয়। জুলাই মাসের পর থেকে যদি কেউ আইন বর্হিভূত ভাবে এ কাজ গুলি করে; সে ক্ষেত্রে আমরা আইন প্রয়োগ করতে বাধ্য হব।’

তথ্যমন্ত্রী বলেন, ডিটিএইচ প্রযুক্তির মাধ্যমে স্যাটেলাইট টিভি দেখা শুরু হলে এখানে শৃঙ্খলা আনার কাজ সহজ হবে। এ প্রযুক্তিতে ক্যাবল অপারেটরের সহযোগিতা লাগে না। বঙ্গবন্ধু স্যাটেলাইট ব্যবহার করে আকাশ নামের এই সেবা ১৯শে মে থেকে বাণিজ্যিকভাবে দেশের ২০টি জেলায় পাওয়া যাবে।

এই সেবার উদ্যোক্তা প্রতিষ্ঠান বেক্সিমকো কমিউনিকেশন্স জানিয়েছে, শুরুতে  তাদের সেবায় ২০টি এইচডি চ্যানেলসহ মোট দেশি-বিদেশি মোট ১১০ টি চ্যানেল দেখা যাবে। এককালীন সংযোগ খরচ পড়বে সাড়ে ৬ হাজার টাকা। আর প্রতি মাসে খরচ হবে ৩৯৯ টাকা করে।

ঈদের নতুন টাকা পাওয়া যাবে ২২ মে থেকে

ঢাকা অফিস : ঈদ উপলক্ষ্যে আগামী ২২শে মে থেকে নতুন টাকা বাজারে ছাড়বে বাংলাদেশ ব্যাংক। মতিঝিলের বাংলাদেশ ব্যাংক ভবন ছাড়াও রাজধানীতে সরকারি-বেসরকারি ব্যাংকের ৩০টি শাখা থেকে সংগ্রহ করা যাবে নতুন নোট। বৃহস্পতিবার, কেন্দ্রীয় ব্যাংকের মুখপাত্র সিরাজুল ইসলাম এ তথ্য জানান।

তিনি জানান, ‘২২ থেকে ৩০শে মে পর্যন্ত বিভিন্ন ব্যাংকের ৩০টি শাখার মাধ্যমে নতুন টাকা বিতরণ করা হবে। তবে, ঢাকা অঞ্চলের বিভিন্ন বাণিজ্যিক ব্যাংকের শাখায় ১০, ২০, ৫০ ও ১০০ টাকার নোট সরবরাহ করা হবে।’

বাংলাদেশ ব্যাংকে নতুন টাকার পর্যাপ্ত নোট থাকায় গ্রাহকদের চাহিদার কথা মাথায় রেখে নতুন নোট সরবরাহ করা হবে।

ঋণখেলাপিদের নিয়মিত হওয়ার সুযোগ দিয়েছে কেন্দ্রীয় ব্যাংক

ঢাকা অফিস : ঋণখেলাপিদের নিয়মিত হওয়ার সুযোগ দিয়েছে কেন্দ্রীয় ব্যাংক। খেলাপিরা মাত্র ২ শতাংশ ডাউন পেমেন্ট দিয়েই ঋণ পুনঃতফসিল করতে পারবেন। পুনঃতফসিল হওয়া ঋণ পরিশোধে তারা সময় পাবেন টানা ১০ বছর। এক্ষেত্রে প্রথম এক বছর কোনো কিস্তি দিতে হবে না।

বৃহস্পতিবার সন্ধ্যায় বাংলাদেশ ব্যাংক এক সার্কুলারে এই নির্দেশনা জারি করা হয়েছে। নিদের্শনা অনুযায়ী, পুনঃতফসিল হওয়া ঋণের সুদের হার ৯ শতাংশের মধ্যে সীমিত থাকবে। এই প্রজ্ঞাপন জারির ৯০ দিনের মধ্যে ঋণগ্রহীতাকে এই সুবিধার জন্য আবেদন করতে হবে। ২০১৮ সালের ৩১শে ডিসেম্বর পর্যন্ত হওয়া মন্দ ঋণগুলোকে ব্যাংকার-গ্রাহক সম্পর্কের ভিত্তিতে এই পুনঃতফসিল সুবিধা দিতে পারবে ব্যাংকগুলো।

এদিকে, নিয়মিত ঋণের কিস্তি প্রদানকারী ভালো গ্রাহকদের চিহ্নিত করে প্রণোদনা দেয়ার বিষয়েও আরেকটি প্রজ্ঞাপন জারি করেছে কেন্দ্রীয় ব্যাংক। এতে ভালো ঋণগ্রহিতার কাছ থেকে গেল বছরের অক্টোবর থেকে চলতি বছরের সেপ্টেম্বর পর্যন্ত অর্থাৎ এক বছরে আদায় করা সুদ ও মুনাফার অন্তত ১০ শতাংশ ছাড়সহ অন্যান্য বিশেষ সুযোগ-সুবিধা দেয়ার বিষয়ে ব্যাংকগুলোকে নির্দেশ দেয়া হয়েছে।

শেখ হাসিনার স্বদেশ প্রত্যাবর্তন দিবস আজ

ঢাকা অফিস : আজ ১৭ই মে। আওয়ামী লীগ সভানেত্রী ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার ৩৮তম স্বদেশ প্রত্যাবর্তন দিবস আজ। জাতির পিতার হত্যাকাণ্ডের পর প্রায় ছয় বছর নির্বাসিত জীবন কাটিয়ে ১৯৮১ সালের এই দিনে দেশে ফেরেন তাঁর এই জ্যেষ্ঠ কন্যা।

বঙ্গবন্ধুকন্যা শেখ হাসিনার স্বদেশ প্রত্যাবর্তনকে দেশের গণতন্ত্রের অগ্রযাত্রা হিসেবে অবহিত করেছেন রাজনীতিবিদ ও বিশিষ্টজনেরা। বলেছেন, শেখ হাসিনা হলেন-ঐক্যের প্রতীক, সাধারণ মানুষের মুক্তির দিশারী। ১৯৮১ সালের ১৭মে তার ফিরে আসার দুঃসাহিসক সিদ্ধান্তের কারণেই দেশ আজ বিশ্বের মুখে মাথা উঁচু করে দাঁড়াতে পেরেছে।

১৯৭৫ সালের ১৫ আগস্ট জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানকে সপরিবারে নির্মমভাবে হত্যা করা হয়। এ সময় তার দুই কন্যা শেখ হাসিনা ও শেখ রেহানা প্রবাসে থাকায় প্রাণে বেঁচে যান।

১৯৮১ সালের ১৪,১৫ ও ১৬ ফেব্রুয়ারি অনুষ্ঠিত আওয়ামী লীগের কাউন্সিলে সভাপতি করা হলে ওই বছরের ১৭মে সরকারি নিষেধাজ্ঞা অমান্য করে দেশে ফেরেন শেখ হাসিনা। ঐদিন বিকেলে ভারতের দিল্লি থেকে কলকাতা হয়ে ঢাকার বিমানবন্দরে এসে পৌঁছান তিনি।

আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক জাহাঙ্গীর কবীর নানক বলেন, তিনি বিদেশে থাকার কারণেই প্রাণে রক্ষা পেয়েছিলেন। সামরিক স্বৈরাচার জিয়াউর রহমান সেদিন জননেত্রী শেখ হাসিনাকে দেশে আসতে বাধা প্রদান করেছেন, কিন্তু সেদিনই তিনি দেশে ফিরে বলেছেন আমি দেশের মানুষের ভোটের অধিকার, ভাতের অধিকার ফিরিয়ে দিতেই এসেছি। তিনি শুধু প্রধানমন্ত্রীই নন,তিনি আমাদের দেশের মুক্তির পথ প্রদর্শক।

৩৮ বছর ধরে আওয়ামী লীগকে নেতৃত্ব দিয়ে আসা শেখ হাসিনা মোট ৮বার বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় দলের সভাপতি নির্বাচিত হন। নানা ষড়যন্ত্র ও হত্যা চেষ্টা কোনো কিছুই দমাতে পারেনি এই সাহসী রাজনীতিবিদকে।

জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য ড. হারুন-অর রশিদ বলেন, দেশে প্রত্যাবর্তন করার পর থেকে গণতন্ত্র পুনরুদ্ধারের দীর্ঘ আন্দোলন শুরু করেন তিনি। ২১ বছর আন্দোলন করে জীবনের ঝুঁকি নিয়ে ৯৬ সালে নির্বাচনে জয়ী হয়ে সরকার গঠন করেন তিনি।

টানা তিনবারের নির্বাচিত আজকের প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা মাতৃভূমিতে ফিরে এসে আওয়ামী লীগের হাল ধরে, সেনা শাসকের কবল থেকে গণতন্ত্র পুনরুদ্ধার এবং মুক্তিযুদ্ধের চেতনায় দেশকে এগিয়ে নিয়ে যাচ্ছেন ।

ড. হারুন-অর রশিদ বলেন, জননেত্রী শেখ হাসিনা একদিকে যেমন আওয়ামী লীগের ঐক্য ধরে রেখেছেন, তেমনি তাঁর নেতৃত্বের ফলেই আজ আমরা দেশের এই পর্যায়ে আসতে পেরেছি।শেখ হাসিনার সেই দুঃসাহসিক সিদ্ধান্তের কারণেই দেশ আজ বিশ্বের কাছে রোল মডেলে পরিনত হয়েছে বলেও মনে করেন ড. হারুন-অর রশিদ।

তালায় গৃহবধূকে বিষ খাইয়ে হত্যা

তালা প্রতিনিধি : সাতক্ষীরা তালায় যৌতুকের দাবিতে এক সন্তানের জননী বিলকিস (২২) নামের এক গৃহবধুকে জোরপূর্বক কীটনাশক পান করিয়ে হত্যার অভিযোগ করেছেন নিহতের ভাই শরিফুল ইসলাম। এর আগে ঐদিন ভোর দিকে বিলকিস’র স্বামী কবির শেখ ও তার পরিবারের লোকজন তাকে জোর পূর্বক বিষ খাইয়ে দিলে মূমুর্ষ অবস্থায় তাকে তালা উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নেয়া হয়। বৃহস্পতিবার বিকালে সেখানে চিকিৎসাধীন অবস্থায় মৃত্যু হয় তার। বিলকিস উপজেলার চাঁদপুর গ্রামের কবির শেখ’র স্ত্রী ও ফুলবাড়িয়া গ্রামের মতলেব সরদারের মেয়ে। নিহত বিলকিসের মাহী (৩) নামে একটি মেয়ে রয়েছে।
অভিযোগে জানাযায়,গত ৫ বছর আগে চাঁদপুরের সওকত শেখের ছেলে কবির শেখ (২৮) এর সাথে পারিবারিক ভাবে বিয়ে হয় তার। বিয়ের সময় মেয়ের বাবা ছেলে পক্ষকে সংসারের প্রয়োজনীয় সকল প্রকার উপঢৌকন ছাড়াও নগত ১ লক্ষ টাকা যৌতুক হিসেবে দেয়। বিয়ের কিছু দিন যেতে না যেতেই ফের তার স্বামী কবির তাকে পিত্রালয় থেকে যৌতুক আনার জন্য চাপ প্রয়োগ করে। মেয়ের সুখের কথা চিন্তা করে মতলেব ফের তাকে যথাসাধ্য চাহিদা পূরণ করে। সম্প্রতি আবারো ৭০ হাজার টাকা যৌতুকের দাবিতে কবির ও তার পরিবারের লোকেরা বিলকিসকে নানা ভাবে শারীরীক ও মানষিক চাপ দিতে থাকে।
বিষয়টি বিলকিস তার পিতা ও ভাইদের বললেও তারা নতুন করে আর কোন টাকা দিতে রাজী না হওয়ায় ঘটনার দিন তারা পরিকল্পিতভাবে বিলকিসকে মারপিট করে। একপর্যায়ে অবস্থা বেগতিক দেখে আতœহত্যা বলে চালিয়ে দিতে তারা পরিকল্পিতভাবে তার মুখে বিষ ঢেলে দেয়। বৃহস্পতিবার লোকমুখে খবর পেয়ে বিলকিসের পিত্রালয় থেকে পিতা-ভাইসহ অন্যান্যরা গিয়ে দেখেন,স্বামী কবির তাকে স্থানীয় সুজনশাহা বাজারে গ্রাম্য ডাক্তার দিয়ে প্রাথমিক চিকিৎসা দিচ্ছেন। পরে তার ভাইসহ অন্যান্যরা জোর করে তাকে তালা হাসপাতালে নিয়ে ভর্তি করান। সেখানে তার অবস্থার অবনতি হলে তাকে সাতক্ষীরা নেওয়ার পথে কবিরের পরিবার বাঁধাগ্রস্থ করে। পরে বিকালে তালা হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় মৃত্যু হয় তার। এবিষয়ে নিহতের স্বামী কবীর শেখ কোন মন্তব্য করতে রাজি হয়নি।
তালা থানার ওসি মেহেদী রাসেল জানান, থানা পুলিশ লাশ উদ্ধার করে তাদের হেফজতে নিয়েছে।